সুনামগঞ্জে ‘ধনী’ প্রার্থী বিএনপির মিজান, কম সম্পদ ন্যাপের ওদুদের

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জের ৫টি আসনে ৫২ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। গত রোববার চূড়ান্ত যাচাই-বাছাইয়ে ১২ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। বৈধ বলে গণ্য হয়েছে ৪০ জন প্রার্থীর মনোনয়ন।
সকল প্রার্থীদের মধ্যে অর্থের দিক দিয়ে সবচেয়ে বিত্তশালী প্রার্থী সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার) আসনের বিএনপির প্রার্থী মিজানুর রহমান চৌধুরী মিজান। একই সঙ্গে বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ঋণও তাঁর বেশি।
অপরদিকে সবার চেয়ে কম টাকার মালিক একই আসনের ন্যাপের প্রার্থী মো. আবদুল ওদুদ। জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্রের সঙ্গে জমা দেওয়া হলফনামা থেকে এই তথ্য জানা গেছে।
বিএনপির প্রার্থী পেশায় ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান চৌধুরী মিজান হলফনামায় উল্লেখ করেছেন, তাঁর অস্থাবর ও স্থাবর সম্পদের পরিমাণ ৯ কোটি ৫৫ লাখ ৫৬ হাজার ৬৭৭ টাকার। দুটি ব্যাংকে তাঁর ঋণ আছে ৩ কোটি ৮৫ লাখ ৪৯ হাজার ৩৪১টাকা। মিজানুর রহমান চৌধুরীর বার্ষিক আয় ৩৮ লাখ ৭৩ হাজার ২৯১টাকা। এর মধ্যে ব্যবসা থেকে তিন লাখ; শেয়ার, সঞ্চয়পত্র, ব্যাংক আমানত ও শেয়ারের লভ্যাংশ বাবদ ৩৫ লাখ ২৬ হাজার ৬৫২ টাকা, ব্যাংক মুনাফা ৪৬ হাজার ৬৩৯ টাকা।
হলফনামায় তাঁর অস্থাবর সম্পদ দেখানো হয়েছে ৭ কোটি ৮৬ লাখ ৬ হাজার ৫৭৩ টাকার। এর মধ্যে নগদ টাকা আছে ৮ লাখ ৩ হাজার ৯৬৩ টাকা; ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা ১২ লাখ ৪৪ হাজার ২০০ টাকা; বন্ড,ঋণপত্র, স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয় কোম্পানীর শেয়ার ৪ কোটি ৫৩ লাখ ৩৮ হাজার ৪১০ টাকা; বাস, ট্রাক, মটরগাড়ি, মোটরসাইকেল ইত্যাদি ৯ লাখ ২০ হাজার টাকা, স্বর্ণ ও অন্যান্য ধাতু বাবদ ৫০ হাজার, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৫০ হাজার, অন্যান্য খাতে বিনিয়োগ আছে ৩ কোটি ২ লাখ টাকা।
হলফনামা অনুযায়ী মিজানুর রহমান চৌধুরীর স্থাবর সম্পদ আছে ১ কোটি ৬৯ লাখ ৫ হাজার ১০৪ টাকার। এর মধ্যে অকৃষি জমির মূল্য এক কোটি ৫৪ লাখ ৩৭ হাজার ৮০৩টাকা, বাণ্যিজিক ও আবাসিক দালান (অংশীদার ভিত্তিতে) ১৫ লাখ ১২হাজার ৩০১ টাকা।
মিজানুর রহমান চৌধুরীর স্ত্রীর অস্থাবর সম্পদ আছে এক কোটি ৬৯ লাখ ৮০ হাজার ৫০৭ টাকার। তাঁর বার্ষিক আয় ৮ লাখ ১২ হাজার ৮৪৯ টাকা। এর মধ্যে ব্যবসা থেকে ২ লাখ ৫০ হাজার; শেয়ার, সঞ্চয়পত্র, ব্যাংক আমানত ও শেয়ারের লভ্যাংশ বাবদ ৫ লাখ ৫৬ হাজার ২৭২ টাকা, ব্যাংক মুনাফা ৬ হাজার ৫৭৭ টাকা। তাঁর অস্থাবর সম্পদের মধ্যে হাতে নগদ আছে ৩২ লাখ ২ হাজার ৫২৪টাকা। ব্যাংকে জমা ৩ লাখ ৬৩হাজার ৭৩৩ টাকা; বন্ড, ঋণপত্র, স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয় কোম্পানীর শেয়ার ১ কোটি ২৭ লাখ ৯৪ হাজার ২৫০ টাকা, স্বর্ণ ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। তাঁর কোনো স্থাবর সম্পদ নেই।
অন্যদিকে একই আসনে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) প্রার্থী আবদুল ওদুদ তাঁর আয় থাকলেও সম্পদ নেই বললেই চলে। তিনি ডেকোরেটার্সের ব্যবসা থেকে বার্ষিক আয় দেখিয়েছেন ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা। অস্থাবর সম্পদ আছে ব্যাংকে কেবল ১ হাজার ৪০০ টাকা। স্থাবর কোনো সম্পদের কথা হলফনামায় উল্লেখ নেই। হলফনামা অনুযায়ী জেলার প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে কম সম্পদ আবদুল ওদুদের।
সুনামগঞ্জ-১ (জামালগঞ্জ, তাহিরপুর, ধর্মপাশা ও মধ্যনগর) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের কৃষিখাতে বছরে আয় ১২ লক্ষ ৪৮ হাজার টাকা, নগদ টাকা ৮০ লাখ ৯১ হাজার ৫৪৪ টাকা, ব্যাংকে জমা রয়েছে ৪ লক্ষ ৬১ হাজার ৮০৩ টাকা, কৃষি জমি ৯৩ লক্ষ ৩ হাজার ৪৫৮ টাকা, অকৃষি জমির মূল্য ১ কোটি ৭ লক্ষ ৩৩ হাজার ২২০ টাকা, দুই গাড়ি যথাক্রমে ৬৯ লাখ ৭৯ হাজার ও ১৮ লাখ টাকা মূল্যের, বাড়ি ও দালান কোটা রয়েছে ১ কোটি ৪৭ লাখ,৭৬ হাজার ২৯৪ টাকার, ও স্বর্ণ আছে ৪০ তোলা।
বিএনপির প্রার্থী নজির হোসেনের কৃষি জমি ১ লক্ষ ৩২ হাজার ৫০০ টাকা, অকৃষি জমির মূল্য ২৭ লক্ষ ৭ হাজার ৫০০ টাকা, নগদ ১০ হাজার টাকা, ব্যাংকে জমা ১৩ লাখ ৯ হাজার ৩০৪ টাকা , ব্যবসা থেকে বাৎসরিক আয় ২ লক্ষ ৭০ হাজার ৫৯০ টাকা, স্বর্ণ রয়েছে ২ লক্ষ টাকার।
বিএনপির অপর প্রার্থী আনিসুল হকের ব্যবসা থেকে আয় ৪২ লাখ ৭৮ হাজার ৮০৬ টাকা। নগদ টাকা ১ লাখ টাকা, ব্যাংকে জমা ১০ লাখ ৭৫ হাজার ৫৫০ টাকা, স্বর্ণ ১১ ভরি, কৃষি জমি ২৬ হাজার, অকৃষি জমি ১ কোটি ৩৬ লাখ ৩১ হাজার টাকা, বাড়ি ও দালান কোটা ৫৪ লাখ ৫২ হাজার ৫০০ টাকা।
বিকল্প ধারার প্রার্থী ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরীর কৃষি খাতে বার্ষিক আয় ৪ লক্ষ টাকা, নগদ টাকা ১৮ লক্ষ টাকা, ব্যাংকে জমা ২ লক্ষ টাকা, স্বর্ণ রয়েছে ৩০ তোলা, অকৃষি জমি ২ লক্ষ টাকা, বাড়ি ভাড়া থেকে মাসিক আয় ৩ লক্ষ টাকা।
সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই শাল্লা) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তার কৃষি জমির মূল্য ৬ লক্ষ টাকা, অকৃষি জমি ২২ লক্ষ ৪০ হাজার টাকার , নগদ টাকা রয়েছে ৫ লক্ষ টাকা, ব্যাংকে জমা আছে ৯১ লক্ষ ৪৫ হাজার ৯৬৯ টাকা, স্বর্ণ রয়েছে ১০ ভরি।
বিএনপির প্রার্থী নাছির উদ্দিন চৌধুরীর কৃষি খাতে বার্ষিক আয় ১ লক্ষ ৫৫ হাজার, ব্যবসা খাতে বার্ষিক আয় ১ লক্ষ টাকা, নগদ টাকা রয়েছে ৫৫ হাজার, কৃষি জমি মূল্য ১৫ লক্ষ ৫ হাজার টাকা, অকৃষি জমির মূল্য ২৫ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।
সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের কৃষি জমির মূল্য ১০ লক্ষ টাকা, অকৃষি জমির ১০ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, নগদ টাকা ৩ লক্ষ ৬১ হাজার ৮৪টাকা, ব্যাংকে জমা ৫৫ লক্ষ ৩৫ হাজার ৮০২ টাকা, বাড়ি ভাড়া থেকে মাসিক আয় ৩ লক্ষ ৯৬ হাজার ২৮০ টাকা।
জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাবেক সংসদ সদস্য মাও. অ্যাড. শাহীনুর পাশা চৌধুরীর কৃষি খাতে আয় ৫৯ হাজার ৮০০ টাকা, পেশা থেকে আয় ২ লাখ ৮২ হাজার টাকা, নগদ টাকার পরিমাণ ১ লক্ষ ৯৬ হাজার ৮৯৪ টাকা, ব্যাংকে রয়েছে মাত্র ১ হাজার ১৪০ টাকা, কৃষি জমি মূল্য ২ লক্ষ ৪৪ হাজার ১০০ টাকা, অকৃষি জমির মূল্য ১০ লক্ষ ৮৮ হাজার ৬৫০ টাকা, নিজের নামে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার স্বর্ণ রয়েছে।
সুনামগঞ্জ-৪ (সুনামগঞ্জ সদর ও বিশ্বম্ভরপুর) আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ’র নগদ অর্থের পরিমাণ ৪০ লক্ষ ৫৭ হাজার ৫শত ২ টাকা, ব্যাংকে জমা রয়েছে ৩ লক্ষ ৩২ হাজার ৩৮৪ টাকা, স্বর্ণের পরিমান ১০ ভরি।
বিএপির প্রার্থী সাবেক হুইপ অ্যাড. ফজলুল হক আছপিয়ার কৃষিখাতে বার্ষিক আয় ৩০ হাজার টাকা, নগদ অর্থের পরিমাণ ৪ লক্ষ ১৯ হাজার টাকা, ব্যাংকে জমা রয়েছে ৫০ হাজার টাকা, কৃষি জমির মূল্য ৩৬ হাজার টাকা, বাড়ি ভাড়া থেকে মাসিক আয় ৩ লক্ষ ৯৯ হাজার টাকা।
এই আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য মতিউর রহমানের নগদ অর্থ রয়েছে ১২ লক্ষ ৭৭ হাজার ৫০০ টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৪ হাজার টাকা ও আসবাবপত্র ৫ হাজার টাকার । অকৃষি জমির মূল্য ২ লক্ষ ৯৮ হাজার। তবে ব্যাংকে জমাকৃত কোন টাকা নেই তাঁর।
সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের ব্যাংকে জমা রয়েছে ৩৫ লক্ষ ৩৩ হাজার ৪৯২ টাকা, নগদ অর্থের পরিমাণ ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, স্বর্ণের পরিমাণ ৫০ তোলা, কৃষি জমির মূল্য ৫ লক্ষ ৮৪ হাজার ৯৩৭ টাকা, অকৃষি জমির মূল্য ৩২ লক্ষ ৭৬ হাজার ৪০০ টাকা। বাড়ি ভাড়া থেকে মাসিক আয় ৪ লক্ষ ৭২ হাজার ৫০০ টাকা। স্থায়ী আমানতে বিনোয়োগ ৯৫ লক্ষ ৪৪ হাজার ৬১৪ টাকা।
বিএনপির প্রার্থী কলিম উদ্দিন আহমদে মিলনের কৃষি খাতে বার্ষিক ৩৪ হাজার টাকা, ব্যবসা থেকে আয় ১৩ লক্ষ ৮১ হাজার ৫৮০ টাকা, নগদ টাকার পরিমাণ ১ লক্ষ, ব্যাংকে জমা রয়েছে ২ লক্ষ ৯৮ হাজার ২৫০ টাকা, কৃষি জমি ২ লক্ষ ২৩ হাজার ৩২৬ টাকার, অকৃষি জমি ২২ লক্ষ ৮০ হাজার টাকার।

সৌজন্যে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» অধ্যক্ষ আব্দুল মতিনের কবিতা-মিছিল হবে মিছিল

» ‘ড. কামালের ওপর হামলা দুঃখজনক, ফৌজদারি অপরাধ’

» ভোটকক্ষে সাংবাদিকরা যা করতে পারবেন, যা পারবেন না

» বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন গুলিবিদ্ধ

» বিদ্রোহী প্রার্থীদের সরে দাড়াতে দুই দিনের আল্টিমেটাম আ.লীগের

» জগন্নাথপুরে বিএনপির সভায় পাশা- সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ধানের শীষের বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে নৌকার পোষ্টার ছেঁড়ে ফেলায় যুবদল নেতা গ্রেফতার

» উন্নয়নের প্রতিক নৌকায় ভোট দিন- এম এ মান্নান

» জগন্নাথপুরে ডা: মাসুম খানের মৃত্যুতে শোকসভা

» নৌকা সমর্থনে পাটলী ইউনিয়ন যুবলীগের কর্মীসভা

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সুনামগঞ্জে ‘ধনী’ প্রার্থী বিএনপির মিজান, কম সম্পদ ন্যাপের ওদুদের

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জের ৫টি আসনে ৫২ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। গত রোববার চূড়ান্ত যাচাই-বাছাইয়ে ১২ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। বৈধ বলে গণ্য হয়েছে ৪০ জন প্রার্থীর মনোনয়ন।
সকল প্রার্থীদের মধ্যে অর্থের দিক দিয়ে সবচেয়ে বিত্তশালী প্রার্থী সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার) আসনের বিএনপির প্রার্থী মিজানুর রহমান চৌধুরী মিজান। একই সঙ্গে বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ঋণও তাঁর বেশি।
অপরদিকে সবার চেয়ে কম টাকার মালিক একই আসনের ন্যাপের প্রার্থী মো. আবদুল ওদুদ। জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্রের সঙ্গে জমা দেওয়া হলফনামা থেকে এই তথ্য জানা গেছে।
বিএনপির প্রার্থী পেশায় ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান চৌধুরী মিজান হলফনামায় উল্লেখ করেছেন, তাঁর অস্থাবর ও স্থাবর সম্পদের পরিমাণ ৯ কোটি ৫৫ লাখ ৫৬ হাজার ৬৭৭ টাকার। দুটি ব্যাংকে তাঁর ঋণ আছে ৩ কোটি ৮৫ লাখ ৪৯ হাজার ৩৪১টাকা। মিজানুর রহমান চৌধুরীর বার্ষিক আয় ৩৮ লাখ ৭৩ হাজার ২৯১টাকা। এর মধ্যে ব্যবসা থেকে তিন লাখ; শেয়ার, সঞ্চয়পত্র, ব্যাংক আমানত ও শেয়ারের লভ্যাংশ বাবদ ৩৫ লাখ ২৬ হাজার ৬৫২ টাকা, ব্যাংক মুনাফা ৪৬ হাজার ৬৩৯ টাকা।
হলফনামায় তাঁর অস্থাবর সম্পদ দেখানো হয়েছে ৭ কোটি ৮৬ লাখ ৬ হাজার ৫৭৩ টাকার। এর মধ্যে নগদ টাকা আছে ৮ লাখ ৩ হাজার ৯৬৩ টাকা; ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা ১২ লাখ ৪৪ হাজার ২০০ টাকা; বন্ড,ঋণপত্র, স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয় কোম্পানীর শেয়ার ৪ কোটি ৫৩ লাখ ৩৮ হাজার ৪১০ টাকা; বাস, ট্রাক, মটরগাড়ি, মোটরসাইকেল ইত্যাদি ৯ লাখ ২০ হাজার টাকা, স্বর্ণ ও অন্যান্য ধাতু বাবদ ৫০ হাজার, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৫০ হাজার, অন্যান্য খাতে বিনিয়োগ আছে ৩ কোটি ২ লাখ টাকা।
হলফনামা অনুযায়ী মিজানুর রহমান চৌধুরীর স্থাবর সম্পদ আছে ১ কোটি ৬৯ লাখ ৫ হাজার ১০৪ টাকার। এর মধ্যে অকৃষি জমির মূল্য এক কোটি ৫৪ লাখ ৩৭ হাজার ৮০৩টাকা, বাণ্যিজিক ও আবাসিক দালান (অংশীদার ভিত্তিতে) ১৫ লাখ ১২হাজার ৩০১ টাকা।
মিজানুর রহমান চৌধুরীর স্ত্রীর অস্থাবর সম্পদ আছে এক কোটি ৬৯ লাখ ৮০ হাজার ৫০৭ টাকার। তাঁর বার্ষিক আয় ৮ লাখ ১২ হাজার ৮৪৯ টাকা। এর মধ্যে ব্যবসা থেকে ২ লাখ ৫০ হাজার; শেয়ার, সঞ্চয়পত্র, ব্যাংক আমানত ও শেয়ারের লভ্যাংশ বাবদ ৫ লাখ ৫৬ হাজার ২৭২ টাকা, ব্যাংক মুনাফা ৬ হাজার ৫৭৭ টাকা। তাঁর অস্থাবর সম্পদের মধ্যে হাতে নগদ আছে ৩২ লাখ ২ হাজার ৫২৪টাকা। ব্যাংকে জমা ৩ লাখ ৬৩হাজার ৭৩৩ টাকা; বন্ড, ঋণপত্র, স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয় কোম্পানীর শেয়ার ১ কোটি ২৭ লাখ ৯৪ হাজার ২৫০ টাকা, স্বর্ণ ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা, আসবাবপত্র ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। তাঁর কোনো স্থাবর সম্পদ নেই।
অন্যদিকে একই আসনে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) প্রার্থী আবদুল ওদুদ তাঁর আয় থাকলেও সম্পদ নেই বললেই চলে। তিনি ডেকোরেটার্সের ব্যবসা থেকে বার্ষিক আয় দেখিয়েছেন ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা। অস্থাবর সম্পদ আছে ব্যাংকে কেবল ১ হাজার ৪০০ টাকা। স্থাবর কোনো সম্পদের কথা হলফনামায় উল্লেখ নেই। হলফনামা অনুযায়ী জেলার প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে কম সম্পদ আবদুল ওদুদের।
সুনামগঞ্জ-১ (জামালগঞ্জ, তাহিরপুর, ধর্মপাশা ও মধ্যনগর) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের কৃষিখাতে বছরে আয় ১২ লক্ষ ৪৮ হাজার টাকা, নগদ টাকা ৮০ লাখ ৯১ হাজার ৫৪৪ টাকা, ব্যাংকে জমা রয়েছে ৪ লক্ষ ৬১ হাজার ৮০৩ টাকা, কৃষি জমি ৯৩ লক্ষ ৩ হাজার ৪৫৮ টাকা, অকৃষি জমির মূল্য ১ কোটি ৭ লক্ষ ৩৩ হাজার ২২০ টাকা, দুই গাড়ি যথাক্রমে ৬৯ লাখ ৭৯ হাজার ও ১৮ লাখ টাকা মূল্যের, বাড়ি ও দালান কোটা রয়েছে ১ কোটি ৪৭ লাখ,৭৬ হাজার ২৯৪ টাকার, ও স্বর্ণ আছে ৪০ তোলা।
বিএনপির প্রার্থী নজির হোসেনের কৃষি জমি ১ লক্ষ ৩২ হাজার ৫০০ টাকা, অকৃষি জমির মূল্য ২৭ লক্ষ ৭ হাজার ৫০০ টাকা, নগদ ১০ হাজার টাকা, ব্যাংকে জমা ১৩ লাখ ৯ হাজার ৩০৪ টাকা , ব্যবসা থেকে বাৎসরিক আয় ২ লক্ষ ৭০ হাজার ৫৯০ টাকা, স্বর্ণ রয়েছে ২ লক্ষ টাকার।
বিএনপির অপর প্রার্থী আনিসুল হকের ব্যবসা থেকে আয় ৪২ লাখ ৭৮ হাজার ৮০৬ টাকা। নগদ টাকা ১ লাখ টাকা, ব্যাংকে জমা ১০ লাখ ৭৫ হাজার ৫৫০ টাকা, স্বর্ণ ১১ ভরি, কৃষি জমি ২৬ হাজার, অকৃষি জমি ১ কোটি ৩৬ লাখ ৩১ হাজার টাকা, বাড়ি ও দালান কোটা ৫৪ লাখ ৫২ হাজার ৫০০ টাকা।
বিকল্প ধারার প্রার্থী ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরীর কৃষি খাতে বার্ষিক আয় ৪ লক্ষ টাকা, নগদ টাকা ১৮ লক্ষ টাকা, ব্যাংকে জমা ২ লক্ষ টাকা, স্বর্ণ রয়েছে ৩০ তোলা, অকৃষি জমি ২ লক্ষ টাকা, বাড়ি ভাড়া থেকে মাসিক আয় ৩ লক্ষ টাকা।
সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই শাল্লা) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তার কৃষি জমির মূল্য ৬ লক্ষ টাকা, অকৃষি জমি ২২ লক্ষ ৪০ হাজার টাকার , নগদ টাকা রয়েছে ৫ লক্ষ টাকা, ব্যাংকে জমা আছে ৯১ লক্ষ ৪৫ হাজার ৯৬৯ টাকা, স্বর্ণ রয়েছে ১০ ভরি।
বিএনপির প্রার্থী নাছির উদ্দিন চৌধুরীর কৃষি খাতে বার্ষিক আয় ১ লক্ষ ৫৫ হাজার, ব্যবসা খাতে বার্ষিক আয় ১ লক্ষ টাকা, নগদ টাকা রয়েছে ৫৫ হাজার, কৃষি জমি মূল্য ১৫ লক্ষ ৫ হাজার টাকা, অকৃষি জমির মূল্য ২৫ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।
সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের কৃষি জমির মূল্য ১০ লক্ষ টাকা, অকৃষি জমির ১০ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, নগদ টাকা ৩ লক্ষ ৬১ হাজার ৮৪টাকা, ব্যাংকে জমা ৫৫ লক্ষ ৩৫ হাজার ৮০২ টাকা, বাড়ি ভাড়া থেকে মাসিক আয় ৩ লক্ষ ৯৬ হাজার ২৮০ টাকা।
জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাবেক সংসদ সদস্য মাও. অ্যাড. শাহীনুর পাশা চৌধুরীর কৃষি খাতে আয় ৫৯ হাজার ৮০০ টাকা, পেশা থেকে আয় ২ লাখ ৮২ হাজার টাকা, নগদ টাকার পরিমাণ ১ লক্ষ ৯৬ হাজার ৮৯৪ টাকা, ব্যাংকে রয়েছে মাত্র ১ হাজার ১৪০ টাকা, কৃষি জমি মূল্য ২ লক্ষ ৪৪ হাজার ১০০ টাকা, অকৃষি জমির মূল্য ১০ লক্ষ ৮৮ হাজার ৬৫০ টাকা, নিজের নামে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার স্বর্ণ রয়েছে।
সুনামগঞ্জ-৪ (সুনামগঞ্জ সদর ও বিশ্বম্ভরপুর) আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ’র নগদ অর্থের পরিমাণ ৪০ লক্ষ ৫৭ হাজার ৫শত ২ টাকা, ব্যাংকে জমা রয়েছে ৩ লক্ষ ৩২ হাজার ৩৮৪ টাকা, স্বর্ণের পরিমান ১০ ভরি।
বিএপির প্রার্থী সাবেক হুইপ অ্যাড. ফজলুল হক আছপিয়ার কৃষিখাতে বার্ষিক আয় ৩০ হাজার টাকা, নগদ অর্থের পরিমাণ ৪ লক্ষ ১৯ হাজার টাকা, ব্যাংকে জমা রয়েছে ৫০ হাজার টাকা, কৃষি জমির মূল্য ৩৬ হাজার টাকা, বাড়ি ভাড়া থেকে মাসিক আয় ৩ লক্ষ ৯৯ হাজার টাকা।
এই আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য মতিউর রহমানের নগদ অর্থ রয়েছে ১২ লক্ষ ৭৭ হাজার ৫০০ টাকা, ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৪ হাজার টাকা ও আসবাবপত্র ৫ হাজার টাকার । অকৃষি জমির মূল্য ২ লক্ষ ৯৮ হাজার। তবে ব্যাংকে জমাকৃত কোন টাকা নেই তাঁর।
সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের ব্যাংকে জমা রয়েছে ৩৫ লক্ষ ৩৩ হাজার ৪৯২ টাকা, নগদ অর্থের পরিমাণ ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা, স্বর্ণের পরিমাণ ৫০ তোলা, কৃষি জমির মূল্য ৫ লক্ষ ৮৪ হাজার ৯৩৭ টাকা, অকৃষি জমির মূল্য ৩২ লক্ষ ৭৬ হাজার ৪০০ টাকা। বাড়ি ভাড়া থেকে মাসিক আয় ৪ লক্ষ ৭২ হাজার ৫০০ টাকা। স্থায়ী আমানতে বিনোয়োগ ৯৫ লক্ষ ৪৪ হাজার ৬১৪ টাকা।
বিএনপির প্রার্থী কলিম উদ্দিন আহমদে মিলনের কৃষি খাতে বার্ষিক ৩৪ হাজার টাকা, ব্যবসা থেকে আয় ১৩ লক্ষ ৮১ হাজার ৫৮০ টাকা, নগদ টাকার পরিমাণ ১ লক্ষ, ব্যাংকে জমা রয়েছে ২ লক্ষ ৯৮ হাজার ২৫০ টাকা, কৃষি জমি ২ লক্ষ ২৩ হাজার ৩২৬ টাকার, অকৃষি জমি ২২ লক্ষ ৮০ হাজার টাকার।

সৌজন্যে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।