সুনামগঞ্জে হেভিওয়েট প্রার্থীদের যার যত ঋন

স্টাফ রিপোর্টার
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জের পাঁচটি নির্বাচনী আসনে মোট ৫২ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। রবিবার চূড়ান্ত যাচাই-বাছাইয়ে ১২ জনের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে।
অনেকেই নির্বাচন কমিশনে আপিল করবেন বলে প্রস্তুতি নিয়েছেন। তবে বৈধ ৪০ প্রার্থীর মধ্যে অনেকেই বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছেন। যদিও সবাই ঋণ পূনঃতফসিল করেছেন।
হেভিওয়েট প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশী ঋণ রয়েছে বিএনপি প্রার্থী আনিসুল হকের। তাঁর মোট ঋণ ৪ কোটি ৪ লাখ ৯১ হাজার ৮৬১ টাকা। সবচেয়ে কম ঋণ রয়েছে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মুহিবুর রহমান মানিকের। তাঁর ঋণ রয়েছে মাত্র ৬ লাখ ১২ হাজার ৬৪৮ টাকা।
জেলা রিটার্নিং অফিসারের কাছে দাখিল করা প্রার্থীদের হলফনামা সূত্রে জানা যায়, ৪০ জন প্রার্থীর মধ্যে সুনামগঞ্জ-১ (তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা ও মধ্যনগর) আসনে বিএনপির প্রার্থী আনিসুল হকের ইসলামী ব্যাংকে ঋণ রয়েছে চার কোটি টাকা ও প্রাইম ব্যাংকে ঋণ রয়েছে চার লাখ ৯১ হাজার ৮৬১ টাকা।
বিএনপির অপর প্রার্থী নজির হোসেনের ট্রাস্ট ব্যাংকে ঋণ রয়েছে ২৪ লাখ ৪৬ হাজার ৩৭১ টাকা।
আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের ঋণ রয়েছে মেঘনা ব্যাংক (কার লোন) ১৭ লাখ ৪৭ হাজার ৯৬৬ টাকা।
সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তার কোন ঋণ নেই।
বিএনপির প্রার্থী নাছির উদ্দিন চৌধুরীর ঋণ রয়েছে কৃষি ব্যাংকে ৪৮ লাখ ৬০ হাজার টাকা।
একই আসনের গণতন্ত্রী পাটির প্রার্থী গোলজার আহমদের ইউসিবিএল ব্যাংকে ঋণ রয়েছে ১০ লাখ ৮৩ হাজার ৫৪১ টাকা।
সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী অ্যাড. মাও. শাহীনুর পাশা চৌধুরী, গণফোরামের প্রার্থী নজরুল ইসলামের কোন ঋণ নেই।
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর ও বিশ্বম্ভরপুর) আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য অ্যাড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, বিএনপির প্রার্থী অ্যাড. ফজলুল হক আছপিয়া, স্বতন্ত্র প্রার্থী মতিউর রহমান, অ্যাড. আব্দুল মজিদ ও ইনান ইসমাম হোসেন চৌধুরীর কোন ঋণ নেই।
সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়রাবাজার) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের ট্রাস্ট ব্যাংকে ঋণ রয়েছে ৬ লাখ ১২ হাজার ৬৪৮ টাকা।
বিএনপির প্রার্থী কলিম উদ্দিন আহমদ মিলনের অগ্রণী ব্যাংকে ঋণ রয়েছে ২০ লাখ টাকা।
বিএনপির অপর প্রার্থী মিজানুর রহমান চৌধুরীর এশিয়া ব্যাংকে ঋণ রয়েছে ৩ কোটি ৪১ লাখ ৭৩ হাজার ৩৮৯ টাকা ও ইষ্টার্ণ ব্যাংকে ৪৩ লাখ ৭৫ হাজার ৯৫২ টাকা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» অধ্যক্ষ আব্দুল মতিনের কবিতা-মিছিল হবে মিছিল

» ‘ড. কামালের ওপর হামলা দুঃখজনক, ফৌজদারি অপরাধ’

» ভোটকক্ষে সাংবাদিকরা যা করতে পারবেন, যা পারবেন না

» বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন গুলিবিদ্ধ

» বিদ্রোহী প্রার্থীদের সরে দাড়াতে দুই দিনের আল্টিমেটাম আ.লীগের

» জগন্নাথপুরে বিএনপির সভায় পাশা- সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ধানের শীষের বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে নৌকার পোষ্টার ছেঁড়ে ফেলায় যুবদল নেতা গ্রেফতার

» উন্নয়নের প্রতিক নৌকায় ভোট দিন- এম এ মান্নান

» জগন্নাথপুরে ডা: মাসুম খানের মৃত্যুতে শোকসভা

» নৌকা সমর্থনে পাটলী ইউনিয়ন যুবলীগের কর্মীসভা

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সুনামগঞ্জে হেভিওয়েট প্রার্থীদের যার যত ঋন

স্টাফ রিপোর্টার
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জের পাঁচটি নির্বাচনী আসনে মোট ৫২ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। রবিবার চূড়ান্ত যাচাই-বাছাইয়ে ১২ জনের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে।
অনেকেই নির্বাচন কমিশনে আপিল করবেন বলে প্রস্তুতি নিয়েছেন। তবে বৈধ ৪০ প্রার্থীর মধ্যে অনেকেই বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছেন। যদিও সবাই ঋণ পূনঃতফসিল করেছেন।
হেভিওয়েট প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশী ঋণ রয়েছে বিএনপি প্রার্থী আনিসুল হকের। তাঁর মোট ঋণ ৪ কোটি ৪ লাখ ৯১ হাজার ৮৬১ টাকা। সবচেয়ে কম ঋণ রয়েছে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মুহিবুর রহমান মানিকের। তাঁর ঋণ রয়েছে মাত্র ৬ লাখ ১২ হাজার ৬৪৮ টাকা।
জেলা রিটার্নিং অফিসারের কাছে দাখিল করা প্রার্থীদের হলফনামা সূত্রে জানা যায়, ৪০ জন প্রার্থীর মধ্যে সুনামগঞ্জ-১ (তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা ও মধ্যনগর) আসনে বিএনপির প্রার্থী আনিসুল হকের ইসলামী ব্যাংকে ঋণ রয়েছে চার কোটি টাকা ও প্রাইম ব্যাংকে ঋণ রয়েছে চার লাখ ৯১ হাজার ৮৬১ টাকা।
বিএনপির অপর প্রার্থী নজির হোসেনের ট্রাস্ট ব্যাংকে ঋণ রয়েছে ২৪ লাখ ৪৬ হাজার ৩৭১ টাকা।
আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের ঋণ রয়েছে মেঘনা ব্যাংক (কার লোন) ১৭ লাখ ৪৭ হাজার ৯৬৬ টাকা।
সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তার কোন ঋণ নেই।
বিএনপির প্রার্থী নাছির উদ্দিন চৌধুরীর ঋণ রয়েছে কৃষি ব্যাংকে ৪৮ লাখ ৬০ হাজার টাকা।
একই আসনের গণতন্ত্রী পাটির প্রার্থী গোলজার আহমদের ইউসিবিএল ব্যাংকে ঋণ রয়েছে ১০ লাখ ৮৩ হাজার ৫৪১ টাকা।
সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী অ্যাড. মাও. শাহীনুর পাশা চৌধুরী, গণফোরামের প্রার্থী নজরুল ইসলামের কোন ঋণ নেই।
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর ও বিশ্বম্ভরপুর) আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য অ্যাড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, বিএনপির প্রার্থী অ্যাড. ফজলুল হক আছপিয়া, স্বতন্ত্র প্রার্থী মতিউর রহমান, অ্যাড. আব্দুল মজিদ ও ইনান ইসমাম হোসেন চৌধুরীর কোন ঋণ নেই।
সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়রাবাজার) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের ট্রাস্ট ব্যাংকে ঋণ রয়েছে ৬ লাখ ১২ হাজার ৬৪৮ টাকা।
বিএনপির প্রার্থী কলিম উদ্দিন আহমদ মিলনের অগ্রণী ব্যাংকে ঋণ রয়েছে ২০ লাখ টাকা।
বিএনপির অপর প্রার্থী মিজানুর রহমান চৌধুরীর এশিয়া ব্যাংকে ঋণ রয়েছে ৩ কোটি ৪১ লাখ ৭৩ হাজার ৩৮৯ টাকা ও ইষ্টার্ণ ব্যাংকে ৪৩ লাখ ৭৫ হাজার ৯৫২ টাকা।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।