সুনামগঞ্জে ৬ হেভিওয়েট হলফনামায় আগ্নেয়াস্ত্রের তথ্য দেননি

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক;;::
সুনামগঞ্জের দুই জোটের প্রার্থীদের মধ্যে ৭ জনের আগ্নেয়াস্ত্র থাকলেও কেবল সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক- দোয়ারা) আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক হলফনামায় আগ্নেয়াস্ত্রের কথা উল্লেখ করেছেন। অন্যরা এই তথ্য দেননি। অবশ্য. জেলা প্রশাসক বলেছেন,‘অস্থাবর সম্পদের মধ্যে এটি পড়ে। প্রার্থীরা তা উল্লেখ করতে পারতেন।’
সুনামগঞ্জ-১ (জামালগঞ্জ-ধর্মপাশা-তাহিরপুর) আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন ও বিএনপির মনোনয়ন দাখিলকারী নজির হোসেন ও আনিসুল হকের আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। কিন্তু তারা কেউই হলফনামায় এটি উল্লেখ করেননি।
সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তার কোন আগ্নেয়াস্ত্র নেই। এই আসনে বিএনপি’র দলীয় চিঠি পেয়ে মনোনয়ন দাখিলকারী নাছির উদ্দিন চৌধুরীর ৩ টি আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স-ই বাতিল হয়েছে।
২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর রাতের কোন এক সময় সাবেক সংসদ সদস্য সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপি’র তৎকালীন আহ্বায়ক নাছির উদ্দিন চৌধুরী’র বাড়িতে ডাকাতি হয়। ডাকাতরা তাঁর লাইসেন্সকৃত রাইফেল ও রিভলবারসহ স্বর্ণালংকার এবং কিছু টাকা ডাকাতি করে নিয়ে যায়। কেবল তার বন্দুকটি রেখে যায়। ঐ রাতে নাছির উদ্দিন চৌধুরী’র বাড়িতে তত্বাবধায়ক লিলু মিয়া ছাড়া অন্য কেউ ছিলেন না। পরদিন লিলু মিয়ার লাশ দক্ষিণ সুনামগঞ্জের হাওরে পাওয়া যায়। নাছির উদ্দিন চৌধুরী ও তার ভাই মাসুদ চৌধুরী বাড়িতে পৌঁছে দেখতে পান ঘরের ওয়ারড্রব ও আলমিরা ভাঙা। শেষে ওয়ারড্রব খুলে দেখতে পান নাছির উদ্দিন চৌধুরী’র লাইসেন্স করা রিভলবার ও রাইফেল নেই।
এ ঘটনার পুলিশ অস্ত্র উদ্ধারের তৎপরতার পাশাপাশি নিজের নিরাপত্তার জন্য লাইসেন্স করা ৩ টি অস্ত্রই সঙ্গে না রেখে অরক্ষিত রাখায় নাছির উদ্দিন চৌধুরী’র সব কয়টি অস্ত্রের লাইসেন্স বাতিলের জন্য আবেদন করে। পরে এই আগ্নেয়াস্ত্রগুলোর লাইসেন্স বাতিল হয়।
সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) আসনের সরকার দলীয় প্রার্থী অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নানের কোন আগ্নেয়াস্ত্র নেই। এই আসনের গণফোরামের প্রার্থী নজরুল ইসলাম ও জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশারও আগ্নোয়াস্ত্র নেই।
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর উত্তর- বিশ্বম্ভরপুর) আসনের সংসদ সদস্য মহাজোটের প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন দাখিলকারী পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্’র আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। মনোনয়ন দাখিলকারী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানেরও আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। তাঁরা কেউই হলফনামায় এটি উল্লেখ করেননি।
সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক- দোয়ারা) আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক তাঁর হলফনামায় অস্থাবর সম্পদের তালিকায় অন্যান্য’র কোঠায় একটি বন্দুক ও একটি রিভলবার উপহার হিসাবে পাবার কথা উল্লেখ করেছেন। বিএনপি’র মনোনয়ন দাখিলকারী কলিম উদ্দিন আহমদ মিলনের আগ্নেয়াস্ত্র আছে। কিন্তু হলফনামায় তিনি তা উল্লেখ করেননি।
জেলা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুল আহাদ বললেন,‘যাঁদের আগ্নেয়াস্ত্র ছিল অস্থাবর সম্পদের তালিকায় তাঁরা সেটি উল্লেখ করতে পারতেন। আগ্নেয়াস্ত্রের বিষয়ে নির্বাচন কমিশন থেকে যে নির্দেশনা আসবে, সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো আমরা।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আবু খালেদ চৌধুরীর ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

» জগন্নাথপুরে নবগঠিত পৌর যুবলীগের একাংশের আনন্দ মিছিল

» হবিগঞ্জে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ, স্বামী গ্রেফতার

» জগন্নাথপুরে পৌর যুবলীগের কমিটি প্রত্যাখান করে ঝাড়ু মিছিল

» জগন্নাথপুরে ‘অপহরণের অভিযোগ সত্য নয়, প্রেমের টানে পালিয়েছিল তরুণী’

» বেরাতে এসে নদীতে ডুবে প্রাণ গেলো এসএসসি শিক্ষার্থীর

» বাস-মাহেন্দ্রের সংঘর্ষে কলেজছাত্রীসহ নিহত ৬

» নিউজিল্যান্ডে যেভাবে ইসলাম এসেছে

» জগন্নাথপুরে কলেজ শিক্ষক সমিতির কমিটি গঠন, আহবায়ক মতিন, সদস্য সচিব আব্দুর রহমান

» নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সুনামগঞ্জে ৬ হেভিওয়েট হলফনামায় আগ্নেয়াস্ত্রের তথ্য দেননি

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক;;::
সুনামগঞ্জের দুই জোটের প্রার্থীদের মধ্যে ৭ জনের আগ্নেয়াস্ত্র থাকলেও কেবল সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক- দোয়ারা) আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক হলফনামায় আগ্নেয়াস্ত্রের কথা উল্লেখ করেছেন। অন্যরা এই তথ্য দেননি। অবশ্য. জেলা প্রশাসক বলেছেন,‘অস্থাবর সম্পদের মধ্যে এটি পড়ে। প্রার্থীরা তা উল্লেখ করতে পারতেন।’
সুনামগঞ্জ-১ (জামালগঞ্জ-ধর্মপাশা-তাহিরপুর) আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন ও বিএনপির মনোনয়ন দাখিলকারী নজির হোসেন ও আনিসুল হকের আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। কিন্তু তারা কেউই হলফনামায় এটি উল্লেখ করেননি।
সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তার কোন আগ্নেয়াস্ত্র নেই। এই আসনে বিএনপি’র দলীয় চিঠি পেয়ে মনোনয়ন দাখিলকারী নাছির উদ্দিন চৌধুরীর ৩ টি আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স-ই বাতিল হয়েছে।
২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর রাতের কোন এক সময় সাবেক সংসদ সদস্য সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপি’র তৎকালীন আহ্বায়ক নাছির উদ্দিন চৌধুরী’র বাড়িতে ডাকাতি হয়। ডাকাতরা তাঁর লাইসেন্সকৃত রাইফেল ও রিভলবারসহ স্বর্ণালংকার এবং কিছু টাকা ডাকাতি করে নিয়ে যায়। কেবল তার বন্দুকটি রেখে যায়। ঐ রাতে নাছির উদ্দিন চৌধুরী’র বাড়িতে তত্বাবধায়ক লিলু মিয়া ছাড়া অন্য কেউ ছিলেন না। পরদিন লিলু মিয়ার লাশ দক্ষিণ সুনামগঞ্জের হাওরে পাওয়া যায়। নাছির উদ্দিন চৌধুরী ও তার ভাই মাসুদ চৌধুরী বাড়িতে পৌঁছে দেখতে পান ঘরের ওয়ারড্রব ও আলমিরা ভাঙা। শেষে ওয়ারড্রব খুলে দেখতে পান নাছির উদ্দিন চৌধুরী’র লাইসেন্স করা রিভলবার ও রাইফেল নেই।
এ ঘটনার পুলিশ অস্ত্র উদ্ধারের তৎপরতার পাশাপাশি নিজের নিরাপত্তার জন্য লাইসেন্স করা ৩ টি অস্ত্রই সঙ্গে না রেখে অরক্ষিত রাখায় নাছির উদ্দিন চৌধুরী’র সব কয়টি অস্ত্রের লাইসেন্স বাতিলের জন্য আবেদন করে। পরে এই আগ্নেয়াস্ত্রগুলোর লাইসেন্স বাতিল হয়।
সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) আসনের সরকার দলীয় প্রার্থী অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নানের কোন আগ্নেয়াস্ত্র নেই। এই আসনের গণফোরামের প্রার্থী নজরুল ইসলাম ও জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশারও আগ্নোয়াস্ত্র নেই।
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর উত্তর- বিশ্বম্ভরপুর) আসনের সংসদ সদস্য মহাজোটের প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন দাখিলকারী পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্’র আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। মনোনয়ন দাখিলকারী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানেরও আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। তাঁরা কেউই হলফনামায় এটি উল্লেখ করেননি।
সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক- দোয়ারা) আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক তাঁর হলফনামায় অস্থাবর সম্পদের তালিকায় অন্যান্য’র কোঠায় একটি বন্দুক ও একটি রিভলবার উপহার হিসাবে পাবার কথা উল্লেখ করেছেন। বিএনপি’র মনোনয়ন দাখিলকারী কলিম উদ্দিন আহমদ মিলনের আগ্নেয়াস্ত্র আছে। কিন্তু হলফনামায় তিনি তা উল্লেখ করেননি।
জেলা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুল আহাদ বললেন,‘যাঁদের আগ্নেয়াস্ত্র ছিল অস্থাবর সম্পদের তালিকায় তাঁরা সেটি উল্লেখ করতে পারতেন। আগ্নেয়াস্ত্রের বিষয়ে নির্বাচন কমিশন থেকে যে নির্দেশনা আসবে, সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো আমরা।’

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।