সুনামগঞ্জ-১, রতনের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর কাছে নালিশ

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

সুনামগঞ্জ-১ (ধর্মপাশা-জামালগঞ্জ-তাহিরপুর ও মধ্যনগর) আসনের ১০ মনোনয়ন প্রত্যাশী এমপি রতনের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কাছে নালিশ জানিয়েছেন। একইসঙ্গে ওই আসনে অন্য কাউকে মনোনয়ন দেবার দাবি জানান এঁরা। বৃহস্পতিবার রাত ১০ টায় গণভবনে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার কাছে তাঁরা এই দাবি জানান। দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই ১০ মনোনয়ন প্রত্যাশীর কাছে বিকল্প প্রার্থীর নাম চান। আজ (শুক্রবার) রাতে ওই ১০ মনোনয়ন প্রত্যাশী মিলে একজন প্রার্থীর নাম লিখিতভাবে প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেবেন বলে জানিয়েছেন। এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এ প্রসঙ্গে বলেন,‘ইনডেমনিটি অধ্যাদেশের পক্ষে অবস্থানকারী সৈয়দ রফিকুল হক’এর নেতৃত্বে যারা গণভবনে গিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট অসত্য তথ্য দিয়েছেন, এঁরা নৌকায় ভোট দেন না।’ সুনামগঞ্জ-২ আসনের ৬ মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান এমপি ড. জয়া সেন গুপ্তাকেও পরিবর্তনের দাবি জানিয়ে দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট লিখিত দিয়েছেন।
বৃহস্পতিবার রাতে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যান- জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম, সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দ রফিকুল হক সোহেল, ধর্মপাশা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল হাসান চৌধুরী, কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামীমা শাহ্রিয়ার, সাবেক যুগ্মসচিব বিনয় ভূষণ তালুকদার, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট রঞ্জিত সরকার, জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক খায়রুল হুদা চপল, যুগ্মআহ্বায়ক মঞ্জুর খন্দকার, ড. রফিকুল ইসলাম তালুকদার ও যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী যুবলীগ নেতা শক্তিপদ রায়। গণভবনে দলীয় সভানেত্রীকে এই ১০ জনের মধ্যে কেবল রেজাউল করিম শামীম, রফিকুল হাসান চৌধুরী ও শক্তিপদ রায় তাঁদের কথা তুলে ধরেন।
রেজাউল করিম শামীম এ প্রতিবেদককে বললেন,‘নেত্রীকে বলেছি ২০০৮’এ রাজনীতি না করা অপরিচিত মুখ মোয়াজ্জেম হোসেন রতনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল, আমরা এমপি নির্বাচিত করেছি। ২০১৪’ তে আপনি একই ব্যক্তিকে মনোনয়ন দিয়েছেন, আমরা নির্বাচিত করেছি। কিন্তু এই সময়ে এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন দলের প্রত্যেক ইউনিটে বিভাজন তৈরি করেছেন। নির্বাচনী এলাকার ৩ টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তাঁর (মোয়াজ্জেম হোসেন রতন) কারণে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পরাজয় হয়েছে। ২৩ ইউনিয়নের ১৫ টিতে জয়লাভ করতে পারেনি আওয়ামী লীগ। যারা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে এমপি’র কারণে পরাজিত হয়েছে। তাঁরা তাঁকে মানবে না। সুতরাং নৌকার বিজয় ছিনিয়ে আনাও সম্ভব হবে না। আমরা এখানে নতুন প্রার্থী চাই।’
ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল হাসান চৌধুরী জানালেন, ‘নেত্রীকে বলেছি,‘আমি আব্দুল হেকিম চৌধুরী’র ছেলে, আমার বাবার আসন এটি, আমার বাবা এই আসনের এমপি ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে রাজনীতি করেছেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের শাসনামলেই আমরা নির্যাতিত হচ্ছি। আমরা পরিবর্তন চাই।’
যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের নেতা শক্তিপদ রায় বললেন,‘আমি নেত্রীকে বলেছি, বর্তমান সংসদ সদস্য আমার পরিবারের অর্থে পরিচালিত এসপি রায় ফাউন্ডেশনের মেধাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানও করতে দেননি। আমরা এই আসনে প্রার্থী পরিবর্তন চাই।’
গণভবনে গিয়ে সভানেত্রীর কাছে এই ১০ মনোনয়ন প্রত্যাশীর অভিযোগ জানানো প্রসঙ্গে সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বললেন,‘এঁরা ইনডেমনিটি অধ্যাদেশের পক্ষে অবস্থানকারী সৈয়দ রফিকুল হকের নেতৃত্বে গণভবনে গেছেন। সৈয়দ রফিক ২০০৮ ও ২০১৪ তে নৌকার বিপক্ষে ছিলেন। ২০১৪ ইংরেজিতে নৌকার বিপক্ষে ফুটবল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেছেন। তিনি নৌকা বিরোধী মানুষ হিসাবেই পরিচিত। এসব মানুষ সঙ্গে থাকলে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি বা ভোটাররা বিব্রত বোধ করেন। আমি নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি। দলের ভেতরে কাদা ছুড়াছুঁড়ি’র সময় আমার নেই। আমার অনুরোধ থাকবে, যারা এসব করছেন, তাঁরাও নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে ঐক্যবদ্ধ হবেন।’
এদিকে, বৃহস্পতিবার রাত ১০ টায় সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনের ৬ মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তাকে মনোনয়ন না দেবার জন্য প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীকে লিখিতভাবে অনুরোধ জানিয়েছেন। এই মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন- জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট অবনী মোহন দাস, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট শামছুল ইসলাম, শামছুল হক চৌধুরী, অ্যাডভোকেট আব্দুল মুনায়েম, ইকবাল হোসেন ও ছায়েদ আলী মাহবুব হোসেন রেজু।
এসময় গণভবনে উপস্থিত দলীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর চৌধুরী, মনোনয়ন প্রত্যাশী অ্যাডভোকেট শামছুল ইসলাম এবং মনোনয়ন প্রত্যাশী যুক্তরাজ্য শ্রমিক লীগের সভাপতি শামছুল হক চৌধুরী প্রধানমন্ত্রীকে নির্বাচনী এলাকার অবস্থা তাঁদের মতো করে তুলে ধরেন এবং প্রার্থী পরিবর্তনের দাবি জানান।
জাহাঙ্গীর চৌধুরী এই আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানকে মনোনয়ন দেবার দাবি জানান। তিনি দাবি করেন বর্তমান এমপি নির্বাচনী এলাকার অনেক ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককেও ভাল করে চিনেন না।
সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তা এই প্রসঙ্গে বলেন,‘মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা তাঁরা করতেই পারেন। প্রধানমন্ত্রী বা দলীয় সভানেত্রী-ই এই বিষয়টি চূড়ান্ত করবেন। তিনি যাকে নৌকা দেবেন, তাঁর পক্ষেই আমাদের সকলকে থাকতে হবে। দলের ইউনিয়ন সভাপতি বা সম্পাদককে চিনি না আমি, এটি একেবারেই মিথ্যা তথ্য।’

সৌজন্যে- দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘উন্নয়নের মহাসড়কে জগন্নাথপুর’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উম্মোচণ,

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দুই প্রার্থীর প্রচারনা

» সারাদেশ বিজিবি মোতায়েন

» ভোটের মাঠে থাকছেন না ইলিয়াসপত্নী লুনা

» আ.লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা, ২১টি অঙ্গীকার

» সিলেটে পাইনিয়ার ইয়ুত এসোসিয়শনের উদ্যােগে বিজয় দিবস বিভিন্ন কর্মসুচী পালিত

» জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি-যুবদল নেতার গ্রেফতারে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা বিএনপি

» প্রার্থী হতে পারছেন না বিএনপির ৪ উপজেলা চেয়ারম্যান

» জগন্নাথপুরে নৌকার সমর্থনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিনিধিসভায়- ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সুনামগঞ্জ-১, রতনের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর কাছে নালিশ

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

সুনামগঞ্জ-১ (ধর্মপাশা-জামালগঞ্জ-তাহিরপুর ও মধ্যনগর) আসনের ১০ মনোনয়ন প্রত্যাশী এমপি রতনের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কাছে নালিশ জানিয়েছেন। একইসঙ্গে ওই আসনে অন্য কাউকে মনোনয়ন দেবার দাবি জানান এঁরা। বৃহস্পতিবার রাত ১০ টায় গণভবনে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার কাছে তাঁরা এই দাবি জানান। দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই ১০ মনোনয়ন প্রত্যাশীর কাছে বিকল্প প্রার্থীর নাম চান। আজ (শুক্রবার) রাতে ওই ১০ মনোনয়ন প্রত্যাশী মিলে একজন প্রার্থীর নাম লিখিতভাবে প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেবেন বলে জানিয়েছেন। এই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এ প্রসঙ্গে বলেন,‘ইনডেমনিটি অধ্যাদেশের পক্ষে অবস্থানকারী সৈয়দ রফিকুল হক’এর নেতৃত্বে যারা গণভবনে গিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট অসত্য তথ্য দিয়েছেন, এঁরা নৌকায় ভোট দেন না।’ সুনামগঞ্জ-২ আসনের ৬ মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান এমপি ড. জয়া সেন গুপ্তাকেও পরিবর্তনের দাবি জানিয়ে দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট লিখিত দিয়েছেন।
বৃহস্পতিবার রাতে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর সঙ্গে দেখা করতে যান- জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম শামীম, সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দ রফিকুল হক সোহেল, ধর্মপাশা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল হাসান চৌধুরী, কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামীমা শাহ্রিয়ার, সাবেক যুগ্মসচিব বিনয় ভূষণ তালুকদার, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট রঞ্জিত সরকার, জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক খায়রুল হুদা চপল, যুগ্মআহ্বায়ক মঞ্জুর খন্দকার, ড. রফিকুল ইসলাম তালুকদার ও যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী যুবলীগ নেতা শক্তিপদ রায়। গণভবনে দলীয় সভানেত্রীকে এই ১০ জনের মধ্যে কেবল রেজাউল করিম শামীম, রফিকুল হাসান চৌধুরী ও শক্তিপদ রায় তাঁদের কথা তুলে ধরেন।
রেজাউল করিম শামীম এ প্রতিবেদককে বললেন,‘নেত্রীকে বলেছি ২০০৮’এ রাজনীতি না করা অপরিচিত মুখ মোয়াজ্জেম হোসেন রতনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল, আমরা এমপি নির্বাচিত করেছি। ২০১৪’ তে আপনি একই ব্যক্তিকে মনোনয়ন দিয়েছেন, আমরা নির্বাচিত করেছি। কিন্তু এই সময়ে এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন দলের প্রত্যেক ইউনিটে বিভাজন তৈরি করেছেন। নির্বাচনী এলাকার ৩ টি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তাঁর (মোয়াজ্জেম হোসেন রতন) কারণে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পরাজয় হয়েছে। ২৩ ইউনিয়নের ১৫ টিতে জয়লাভ করতে পারেনি আওয়ামী লীগ। যারা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে এমপি’র কারণে পরাজিত হয়েছে। তাঁরা তাঁকে মানবে না। সুতরাং নৌকার বিজয় ছিনিয়ে আনাও সম্ভব হবে না। আমরা এখানে নতুন প্রার্থী চাই।’
ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল হাসান চৌধুরী জানালেন, ‘নেত্রীকে বলেছি,‘আমি আব্দুল হেকিম চৌধুরী’র ছেলে, আমার বাবার আসন এটি, আমার বাবা এই আসনের এমপি ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে রাজনীতি করেছেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের শাসনামলেই আমরা নির্যাতিত হচ্ছি। আমরা পরিবর্তন চাই।’
যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের নেতা শক্তিপদ রায় বললেন,‘আমি নেত্রীকে বলেছি, বর্তমান সংসদ সদস্য আমার পরিবারের অর্থে পরিচালিত এসপি রায় ফাউন্ডেশনের মেধাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানও করতে দেননি। আমরা এই আসনে প্রার্থী পরিবর্তন চাই।’
গণভবনে গিয়ে সভানেত্রীর কাছে এই ১০ মনোনয়ন প্রত্যাশীর অভিযোগ জানানো প্রসঙ্গে সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বললেন,‘এঁরা ইনডেমনিটি অধ্যাদেশের পক্ষে অবস্থানকারী সৈয়দ রফিকুল হকের নেতৃত্বে গণভবনে গেছেন। সৈয়দ রফিক ২০০৮ ও ২০১৪ তে নৌকার বিপক্ষে ছিলেন। ২০১৪ ইংরেজিতে নৌকার বিপক্ষে ফুটবল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেছেন। তিনি নৌকা বিরোধী মানুষ হিসাবেই পরিচিত। এসব মানুষ সঙ্গে থাকলে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি বা ভোটাররা বিব্রত বোধ করেন। আমি নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি। দলের ভেতরে কাদা ছুড়াছুঁড়ি’র সময় আমার নেই। আমার অনুরোধ থাকবে, যারা এসব করছেন, তাঁরাও নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে ঐক্যবদ্ধ হবেন।’
এদিকে, বৃহস্পতিবার রাত ১০ টায় সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনের ৬ মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তাকে মনোনয়ন না দেবার জন্য প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীকে লিখিতভাবে অনুরোধ জানিয়েছেন। এই মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন- জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট অবনী মোহন দাস, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট শামছুল ইসলাম, শামছুল হক চৌধুরী, অ্যাডভোকেট আব্দুল মুনায়েম, ইকবাল হোসেন ও ছায়েদ আলী মাহবুব হোসেন রেজু।
এসময় গণভবনে উপস্থিত দলীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর চৌধুরী, মনোনয়ন প্রত্যাশী অ্যাডভোকেট শামছুল ইসলাম এবং মনোনয়ন প্রত্যাশী যুক্তরাজ্য শ্রমিক লীগের সভাপতি শামছুল হক চৌধুরী প্রধানমন্ত্রীকে নির্বাচনী এলাকার অবস্থা তাঁদের মতো করে তুলে ধরেন এবং প্রার্থী পরিবর্তনের দাবি জানান।
জাহাঙ্গীর চৌধুরী এই আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানকে মনোনয়ন দেবার দাবি জানান। তিনি দাবি করেন বর্তমান এমপি নির্বাচনী এলাকার অনেক ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককেও ভাল করে চিনেন না।
সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তা এই প্রসঙ্গে বলেন,‘মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা তাঁরা করতেই পারেন। প্রধানমন্ত্রী বা দলীয় সভানেত্রী-ই এই বিষয়টি চূড়ান্ত করবেন। তিনি যাকে নৌকা দেবেন, তাঁর পক্ষেই আমাদের সকলকে থাকতে হবে। দলের ইউনিয়ন সভাপতি বা সম্পাদককে চিনি না আমি, এটি একেবারেই মিথ্যা তথ্য।’

সৌজন্যে- দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।