সুনামগঞ্জ-২: এমপি রতনের সম্পদ বেড়েছোট বহুগুণ

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
সুনামগঞ্জ-১ (জামালগঞ্জ- ধর্মপাশা- জামালগঞ্জ ও মধ্যনগর) আসনের সরকার দলীয় সাংসদ এবারের জাতীয় নির্বাচনে একই আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের সম্পদ বেড়েছে বহুগুণ। ২০০৮’এর জাতীয় নির্বাচনে তাঁর হলফনামায় নগদ অর্থের পরিমাণ উল্লেখ ছিল ২২ লাখ ৬৬ হাজার ৪৩০ টাকা। এই বছর দাখিল করা হলফনামায় নগদ অর্থের পরিমাণ উল্লেখ করা হয়েছে ৮০ লাখ ৯১ হাজার ৫৪৪ টাকা। ২০০৮’এর হলফনামায় ব্যাংকে টাকা ছিল এক লাখ এক হাজার ৩০৩ টাকা, এবার হলফনামায় ব্যাংক জমা উল্লেখ করেছেন ৪ লাখ ৬১ হাজার ৮০৩ টাকা।
স্থাবর সম্পদ অনেক বেড়েছে তাঁর। ২০০৮’এর হলফনামায় কৃষিখাতে তিনি আয় উল্লেখ করেছিলেন মাত্র ৫০০০ টাকা। এবার কৃষিখাতে আয় দেখিয়েছেন ১২ লাখ ৪৮ হাজার টাকা।
২০০৮’এর জাতীয় নির্বাচনের হলফনামায় ব্যবসা থেকে বার্ষিক আয় তিনি উল্লেখ করেছিলেন ৫ লাখ ৪২ হাজার ৫৪৬ টাকা। এবারের জাতীয় নির্বাচনের হলফনামায় তিনি ব্যবসায় নিজের কোন আয় উল্লেখ করেননি। তাঁর (মোয়াজ্জেম হোসেন রতন) উপর নির্ভরশীলদের আয় দেখিয়েছেন ১৭ লাখ টাকা।
২০০৮’এর জাতীয় নির্বাচনে পেশা অর্থাৎ ব্যবসা থেকে আয় দেখিয়েছিলেন ২ কোটি ১০ লাখ ৮৮ হাজার ২৬০ টাকা। এবার হলফনামায়
নিজের ব্যবসা থেকে কোন আয় দেখাননি তিনি।
স্থাবর সম্পদের ক্ষেত্রে ২০০৮’এর হলফনামায় তিনি কৃষি জমি উল্লেখ করেছিলেন ৩.৯৩ একর, যার মূল্য লিখেছিলেন এক লাখ ১৭ হাজার ৫০ টাকা। এবারের হলফনামায় উল্লেখ করেছেন কৃষি জমির পরিমাণ ৫২৩.২৭ একর, যার মূল্য উল্লেখ করেছেন ৯৩ লাখ তিন হাজার ৭৫৮ টাকা। ২০০৮’এর হলফনামায় অকৃষি জমির পরিমাণ ছিল ১.১৫ একর, যার মূল্য ছিল ৩৬ লাখ ৪৯ হাজার ৪৫৪ টাকা। এবারের হলফনামায় অকৃষি জমির পরিমাণ উল্লেখ করেছেন ৮.২৬৭৫ একর, যার মূল্য এক কোটি ৭৩ লাখ তিন হাজার ২৫০ টাকা।
২০০৮’এর হলফনামায় দালান কোঠা, আবাসিক বাণিজ্যিক ও বাড়ি উল্লেখ ছিল না। এবারের হলফনামায় উল্লেখ করেছেন দুটি দালান, একটি টিনশেড ঘর ও একটি অ্যাপার্টমেন্টসহ মোট এক কোটি ৪৭ লাখ ৭৬ হাজার ২৯৪ টাকার স্থাবর সম্পদ রয়েছে তাঁর। এছাড়াও অনান্য সম্পদ হিসাবে তিনটি প্রতিষ্ঠানে শেয়ার রয়েছে ১৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকার।
২০০৮’এ গাড়ীর ঋণ ছিল ৬ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। এবার হলফনামায় গাড়ীর ঋণ উল্লেখ করেছেন ১৭ লাখ ৪৭ হাজার ৯৬৬ টাকা।
২০০৮’এর নির্বাচনের আগে হলফনামায় স্ত্রী’র নামে কোন নগদ টাকা ও স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগ ছিল না এই সংসদ সদস্যের। এবারের হলফনামায় উল্লেখ করেছেন স্ত্রী’র নামে ৫ লাখ ৪২ হাজার ৪৮০ টাকা ও স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগের পরিমাণ ৪৫ লাখ টাকা।
সৌজন্যে:দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘উন্নয়নের মহাসড়কে জগন্নাথপুর’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উম্মোচণ,

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দুই প্রার্থীর প্রচারনা

» সারাদেশ বিজিবি মোতায়েন

» ভোটের মাঠে থাকছেন না ইলিয়াসপত্নী লুনা

» আ.লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা, ২১টি অঙ্গীকার

» সিলেটে পাইনিয়ার ইয়ুত এসোসিয়শনের উদ্যােগে বিজয় দিবস বিভিন্ন কর্মসুচী পালিত

» জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি-যুবদল নেতার গ্রেফতারে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা বিএনপি

» প্রার্থী হতে পারছেন না বিএনপির ৪ উপজেলা চেয়ারম্যান

» জগন্নাথপুরে নৌকার সমর্থনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিনিধিসভায়- ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সুনামগঞ্জ-২: এমপি রতনের সম্পদ বেড়েছোট বহুগুণ

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::
সুনামগঞ্জ-১ (জামালগঞ্জ- ধর্মপাশা- জামালগঞ্জ ও মধ্যনগর) আসনের সরকার দলীয় সাংসদ এবারের জাতীয় নির্বাচনে একই আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের সম্পদ বেড়েছে বহুগুণ। ২০০৮’এর জাতীয় নির্বাচনে তাঁর হলফনামায় নগদ অর্থের পরিমাণ উল্লেখ ছিল ২২ লাখ ৬৬ হাজার ৪৩০ টাকা। এই বছর দাখিল করা হলফনামায় নগদ অর্থের পরিমাণ উল্লেখ করা হয়েছে ৮০ লাখ ৯১ হাজার ৫৪৪ টাকা। ২০০৮’এর হলফনামায় ব্যাংকে টাকা ছিল এক লাখ এক হাজার ৩০৩ টাকা, এবার হলফনামায় ব্যাংক জমা উল্লেখ করেছেন ৪ লাখ ৬১ হাজার ৮০৩ টাকা।
স্থাবর সম্পদ অনেক বেড়েছে তাঁর। ২০০৮’এর হলফনামায় কৃষিখাতে তিনি আয় উল্লেখ করেছিলেন মাত্র ৫০০০ টাকা। এবার কৃষিখাতে আয় দেখিয়েছেন ১২ লাখ ৪৮ হাজার টাকা।
২০০৮’এর জাতীয় নির্বাচনের হলফনামায় ব্যবসা থেকে বার্ষিক আয় তিনি উল্লেখ করেছিলেন ৫ লাখ ৪২ হাজার ৫৪৬ টাকা। এবারের জাতীয় নির্বাচনের হলফনামায় তিনি ব্যবসায় নিজের কোন আয় উল্লেখ করেননি। তাঁর (মোয়াজ্জেম হোসেন রতন) উপর নির্ভরশীলদের আয় দেখিয়েছেন ১৭ লাখ টাকা।
২০০৮’এর জাতীয় নির্বাচনে পেশা অর্থাৎ ব্যবসা থেকে আয় দেখিয়েছিলেন ২ কোটি ১০ লাখ ৮৮ হাজার ২৬০ টাকা। এবার হলফনামায়
নিজের ব্যবসা থেকে কোন আয় দেখাননি তিনি।
স্থাবর সম্পদের ক্ষেত্রে ২০০৮’এর হলফনামায় তিনি কৃষি জমি উল্লেখ করেছিলেন ৩.৯৩ একর, যার মূল্য লিখেছিলেন এক লাখ ১৭ হাজার ৫০ টাকা। এবারের হলফনামায় উল্লেখ করেছেন কৃষি জমির পরিমাণ ৫২৩.২৭ একর, যার মূল্য উল্লেখ করেছেন ৯৩ লাখ তিন হাজার ৭৫৮ টাকা। ২০০৮’এর হলফনামায় অকৃষি জমির পরিমাণ ছিল ১.১৫ একর, যার মূল্য ছিল ৩৬ লাখ ৪৯ হাজার ৪৫৪ টাকা। এবারের হলফনামায় অকৃষি জমির পরিমাণ উল্লেখ করেছেন ৮.২৬৭৫ একর, যার মূল্য এক কোটি ৭৩ লাখ তিন হাজার ২৫০ টাকা।
২০০৮’এর হলফনামায় দালান কোঠা, আবাসিক বাণিজ্যিক ও বাড়ি উল্লেখ ছিল না। এবারের হলফনামায় উল্লেখ করেছেন দুটি দালান, একটি টিনশেড ঘর ও একটি অ্যাপার্টমেন্টসহ মোট এক কোটি ৪৭ লাখ ৭৬ হাজার ২৯৪ টাকার স্থাবর সম্পদ রয়েছে তাঁর। এছাড়াও অনান্য সম্পদ হিসাবে তিনটি প্রতিষ্ঠানে শেয়ার রয়েছে ১৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকার।
২০০৮’এ গাড়ীর ঋণ ছিল ৬ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। এবার হলফনামায় গাড়ীর ঋণ উল্লেখ করেছেন ১৭ লাখ ৪৭ হাজার ৯৬৬ টাকা।
২০০৮’এর নির্বাচনের আগে হলফনামায় স্ত্রী’র নামে কোন নগদ টাকা ও স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগ ছিল না এই সংসদ সদস্যের। এবারের হলফনামায় উল্লেখ করেছেন স্ত্রী’র নামে ৫ লাখ ৪২ হাজার ৪৮০ টাকা ও স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগের পরিমাণ ৪৫ লাখ টাকা।
সৌজন্যে:দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।