সুনামগঞ্জ-৩ আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী নিয়ে ধুম্রজাল

বিশেষ প্রতিনিধি::

সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত হলেও বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট বা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

তবে প্রার্থী চূড়ান্ত না হলেও মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী নিজেকে ২৩ দলীয় জোটসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দাবি করে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচন করতে আরেক সম্ভাব্য প্রার্থী যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য সদস্য গণফোরামে যোগদানকারী মো. নজরুল ইসলামও মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এ ছাড়া ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হতে আরো তিনজন সম্ভাব্য প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

এ নিয়ে দল ও দলের বাইরের নেতাকর্মীসহ এলাকার ভোটারদের মধ্যে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ধুম্রজাল। শেষ পর্যন্ত কে হচ্ছেন বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ নিয়ে গঠিত ভিআইপি আসন হিসেবে খ্যাত সুনামগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। এ আসনে এখন পর্যন্ত বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী চূড়ান্ত হয়নি।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্টের মনোনয়ন পেতে চার থেকে পাঁচজন সম্ভাব্য প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে বিএনপির শরিক দল ইসলামী জোটের জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী এবং সদ্য গণফোরামে যোগদানকারী মো. নজরুল ইসলামের শেষ মুহূর্তে মনোনয়ন লড়াই দেখা দেয়।

এ দুই প্রার্থীর কেন্দ্রীয় পর্যায়ে অবস্থান শক্তিশালী হওয়ায় বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নীতিনির্ধারকরা প্রার্থী চূড়ান্ত করতে সিদ্ধান্তহীনতায় পড়েছেন।

প্রথম থেকেই বিএনপি থেকে দাবি ওঠে এবার বিএনপি থেকে এ আসনে প্রার্থী দেওয়ার জন্য। এ দাবিতে স্থানীয় বিএনপি একাট্টা ছিল।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী কয়ছর এম আহমদের পক্ষে তাঁর সমর্থকরা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও শেষমেষ তিনি মনোনয়ন থেকে সরে যাওয়ায় প্রায় নিশ্চিত হয়ে যায় জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরীর মনোনয়ন প্রাপ্তি। কিন্তু এতে বাঁধ সাধে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল হোসেনের ঘনিষ্ঠজন মো. নজরুল ইসলাম। তিনি সম্প্রতি যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরে গণফোরামে যোগদান করে ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচনে অংশ নিতে ইতিমধ্যে মনোনয়ন সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন।

বিএনপির আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ শেষের দিকে ইসলামী ঐক্যেজোটের ব্যানারে মনোনয়ন দাখিল করেন। মনোনয়ন দাখিল করা হয়েছে যুক্তরাজ্য বিএনপির অর্থ সম্পাদক এম এ সাত্তারের পক্ষ থেকেও।

জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু হুরায়রা ছাদ মাস্টার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বিএনপিসহ ঐক্যেজাটের প্রার্থী এখনো চূড়ান্ত হয়নি। আমরা বিএনপি নেতাকে  দলীয় প্রার্থী দেওয়ার জন্য প্রথম থেকেই দাবি জানিয়ে আসছি। তবে কেন্দ্র থেকে যে সিদ্ধান্ত আসবে আমরা সেই সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে কাজ করব।

সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি লে. কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমি দলের জন্য দীর্ঘদিন ধরে মাঠে কাজ করছি। মৌসুমী কেউ অন্যদল থেকে জোটের নামে মনোনয়ন পাবেন  এটা দলের কর্মীরা মেনে নিতে পারবে না, তাই আমি কর্মীদের চাপে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য ইসলামী ঐক্যেজোটের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছি।

গণফোরামে যোগদানকারী মো. নজরুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমি গণফোরার সভাপতি ঐক্যফ্রন্টের প্রধান ড. কামাল হোসেনের নির্দেশে গণফোরামে যোগদান করে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। এখন জোটের সঙ্গে আলোচনা করে ঐক্যফ্রন্ট মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করব।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২৩ দলীয় জোটসহ ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দাবি করে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, মনোনয়ন চাওয়ার অধিকার সবার রয়েছে। আমিই ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী- এটা চূড়ান্ত। তাই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» ‘উন্নয়নের মহাসড়কে জগন্নাথপুর’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উম্মোচণ,

» সুনামগঞ্জ-৩ আসনে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দুই প্রার্থীর প্রচারনা

» সারাদেশ বিজিবি মোতায়েন

» ভোটের মাঠে থাকছেন না ইলিয়াসপত্নী লুনা

» আ.লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা, ২১টি অঙ্গীকার

» সিলেটে পাইনিয়ার ইয়ুত এসোসিয়শনের উদ্যােগে বিজয় দিবস বিভিন্ন কর্মসুচী পালিত

» জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি-যুবদল নেতার গ্রেফতারে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে উপজেলা বিএনপি

» প্রার্থী হতে পারছেন না বিএনপির ৪ উপজেলা চেয়ারম্যান

» জগন্নাথপুরে নৌকার সমর্থনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিনিধিসভায়- ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয় নিশ্চিতের আহবান

» জগন্নাথপুরে মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সুনামগঞ্জ-৩ আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী নিয়ে ধুম্রজাল

বিশেষ প্রতিনিধি::

সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত হলেও বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট বা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

তবে প্রার্থী চূড়ান্ত না হলেও মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী নিজেকে ২৩ দলীয় জোটসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দাবি করে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচন করতে আরেক সম্ভাব্য প্রার্থী যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য সদস্য গণফোরামে যোগদানকারী মো. নজরুল ইসলামও মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এ ছাড়া ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হতে আরো তিনজন সম্ভাব্য প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

এ নিয়ে দল ও দলের বাইরের নেতাকর্মীসহ এলাকার ভোটারদের মধ্যে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ধুম্রজাল। শেষ পর্যন্ত কে হচ্ছেন বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ নিয়ে গঠিত ভিআইপি আসন হিসেবে খ্যাত সুনামগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। এ আসনে এখন পর্যন্ত বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী চূড়ান্ত হয়নি।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্টের মনোনয়ন পেতে চার থেকে পাঁচজন সম্ভাব্য প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে বিএনপির শরিক দল ইসলামী জোটের জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী এবং সদ্য গণফোরামে যোগদানকারী মো. নজরুল ইসলামের শেষ মুহূর্তে মনোনয়ন লড়াই দেখা দেয়।

এ দুই প্রার্থীর কেন্দ্রীয় পর্যায়ে অবস্থান শক্তিশালী হওয়ায় বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নীতিনির্ধারকরা প্রার্থী চূড়ান্ত করতে সিদ্ধান্তহীনতায় পড়েছেন।

প্রথম থেকেই বিএনপি থেকে দাবি ওঠে এবার বিএনপি থেকে এ আসনে প্রার্থী দেওয়ার জন্য। এ দাবিতে স্থানীয় বিএনপি একাট্টা ছিল।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী কয়ছর এম আহমদের পক্ষে তাঁর সমর্থকরা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও শেষমেষ তিনি মনোনয়ন থেকে সরে যাওয়ায় প্রায় নিশ্চিত হয়ে যায় জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরীর মনোনয়ন প্রাপ্তি। কিন্তু এতে বাঁধ সাধে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল হোসেনের ঘনিষ্ঠজন মো. নজরুল ইসলাম। তিনি সম্প্রতি যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরে গণফোরামে যোগদান করে ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচনে অংশ নিতে ইতিমধ্যে মনোনয়ন সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন।

বিএনপির আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ শেষের দিকে ইসলামী ঐক্যেজোটের ব্যানারে মনোনয়ন দাখিল করেন। মনোনয়ন দাখিল করা হয়েছে যুক্তরাজ্য বিএনপির অর্থ সম্পাদক এম এ সাত্তারের পক্ষ থেকেও।

জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবু হুরায়রা ছাদ মাস্টার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বিএনপিসহ ঐক্যেজাটের প্রার্থী এখনো চূড়ান্ত হয়নি। আমরা বিএনপি নেতাকে  দলীয় প্রার্থী দেওয়ার জন্য প্রথম থেকেই দাবি জানিয়ে আসছি। তবে কেন্দ্র থেকে যে সিদ্ধান্ত আসবে আমরা সেই সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে কাজ করব।

সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি লে. কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমি দলের জন্য দীর্ঘদিন ধরে মাঠে কাজ করছি। মৌসুমী কেউ অন্যদল থেকে জোটের নামে মনোনয়ন পাবেন  এটা দলের কর্মীরা মেনে নিতে পারবে না, তাই আমি কর্মীদের চাপে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য ইসলামী ঐক্যেজোটের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছি।

গণফোরামে যোগদানকারী মো. নজরুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমি গণফোরার সভাপতি ঐক্যফ্রন্টের প্রধান ড. কামাল হোসেনের নির্দেশে গণফোরামে যোগদান করে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। এখন জোটের সঙ্গে আলোচনা করে ঐক্যফ্রন্ট মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করব।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২৩ দলীয় জোটসহ ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দাবি করে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, মনোনয়ন চাওয়ার অধিকার সবার রয়েছে। আমিই ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী- এটা চূড়ান্ত। তাই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।