সুনামগঞ্জ -৩ আসনে পাশা না নজরুল এখনো ধোঁয়াশা কাটছে না

বিশেষ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জ -৩ আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী নিয়ে এখনো ধোঁয়াশা কাটেনি। ইতিমধ্য সুনামগঞ্জের চারটি আসনসহ ২০৬ আসনে প্রার্থীতা চুড়ান্ত করা হলেও জগন্নাথপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জ নিয়ে গঠিত সুনামগঞ্জ-৩ আসেন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এখনো চুড়ান্ত হয়নি। ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হতে ঐক্যফ্রন্টের শরিকদল থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী দুই নেতা নিজেদেরকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দাবি করে প্রচারনার পাশাপাশি জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। একপক্ষে আছেন ঐক্যফ্রন্টের প্রধান গণফোরাম সভাপতি ড,কামাল হোসেন ও আরেকপক্ষে বিএনপি জোটের পুরাতন শরিকদল জমিয়ত।
। ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তালিকায় আলোচনায় থাকা জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী নিজেকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দাবি করে জগন্নাথপুর পৌর এলাকায় নির্বাচনী কার্যালয় স্থাপন করে নির্বাচনী প্রচারনা চালাচ্ছেন। অপরদিকে গনফোরাম নেতা নজরুল ইসলাম নিজের ফেসবুকে ঐক্যফ্রন্টের প্রধান ড.কামাল হোসেনের প্রার্থী উল্লেখ করে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট চেয়েছেন। মনোনয়নের বিষয়ে দুই নেতার আশাবাদ নেতাকর্মীদের বিভ্রান্তিতে ফেলেছে।
জগন্নাথপুর- দক্ষিন ুসুনামগঞ্জ এলাকার লোকজন জানায়, ২০০৫ সালের ২৭ এপ্রিল প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদের মৃত্যুর পর ২০ জুলাই অনুষ্ঠিত শুন্য আসনে উপ-নির্বাচনে অংশ নেন আওয়ামীলীগ ঘরনার দুই প্রার্থী। তাঁরা হলেন সাবেক সচিব মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান ও যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য নজরুল ইসলাম। নির্বাচনে চারদলীয় জোট প্রার্থী হিসেবে অ্যাডভোকেট শাহীনুর পাশা চৌধুরী স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান কে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নজরুল ইসলাম এর পক্ষে জনসভায় আসেন গণফোরাম সভাপতি ড.কামাল হোসেন।
নির্বাচনে পরাজিত হয়ে নজরুল ইসলাম যুক্তরাজ্যে চলে যান। আর মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান আওয়ামীলীগে যোগদান করে মন্ত্রী এমপি হন। দীর্ঘদিন রাজনীতিতে নীরব থাকলেও ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর তিনি নজরুল দেশে চলে আসেন। সম্প্রতি গণফোরামে যোগদান করে ঐক্যফ্রন্টে প্রার্থী হতে তৎপর হন।
নজরুল ইসলাম বলেন,ঐক্যফ্রন্টের প্রধান ড.কামাল হোসেন এর আহ্বানে আমি গণফোরামে যোগদান করে গণফোরামের মনোনয়ন জমা দিয়েছি। । আশাকরি জোটের শরিকদের কাছ থেকে আসনটি গণফোরামকে দেয়া হবে। তিনি বলেন, নির্বাচন করার আশা নিয়ে গণফোরাম সভাপতি ড.কামাল হোসেন এর নির্দেশে মাঠে কাজ করেছি।
জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী বলেন,আমি ২০০৫ সালে এ জোটের প্রার্থী হিসেবে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছি। ২০০৮ সালে জোটের প্রার্থী ছিলাম। ২০১৪ সালে জোট নির্বাচনে অংশ না নিলে প্রার্থী হইনি। আমি দৃঢ আশাবাদী ঐক্যফ্রন্টের মনোনয়ন আমি পাব।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আবু খালেদ চৌধুরীর ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

» জগন্নাথপুরে নবগঠিত পৌর যুবলীগের একাংশের আনন্দ মিছিল

» হবিগঞ্জে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ, স্বামী গ্রেফতার

» জগন্নাথপুরে পৌর যুবলীগের কমিটি প্রত্যাখান করে ঝাড়ু মিছিল

» জগন্নাথপুরে ‘অপহরণের অভিযোগ সত্য নয়, প্রেমের টানে পালিয়েছিল তরুণী’

» বেরাতে এসে নদীতে ডুবে প্রাণ গেলো এসএসসি শিক্ষার্থীর

» বাস-মাহেন্দ্রের সংঘর্ষে কলেজছাত্রীসহ নিহত ৬

» নিউজিল্যান্ডে যেভাবে ইসলাম এসেছে

» জগন্নাথপুরে কলেজ শিক্ষক সমিতির কমিটি গঠন, আহবায়ক মতিন, সদস্য সচিব আব্দুর রহমান

» নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

সুনামগঞ্জ -৩ আসনে পাশা না নজরুল এখনো ধোঁয়াশা কাটছে না

বিশেষ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জ -৩ আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী নিয়ে এখনো ধোঁয়াশা কাটেনি। ইতিমধ্য সুনামগঞ্জের চারটি আসনসহ ২০৬ আসনে প্রার্থীতা চুড়ান্ত করা হলেও জগন্নাথপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জ নিয়ে গঠিত সুনামগঞ্জ-৩ আসেন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এখনো চুড়ান্ত হয়নি। ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হতে ঐক্যফ্রন্টের শরিকদল থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী দুই নেতা নিজেদেরকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দাবি করে প্রচারনার পাশাপাশি জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। একপক্ষে আছেন ঐক্যফ্রন্টের প্রধান গণফোরাম সভাপতি ড,কামাল হোসেন ও আরেকপক্ষে বিএনপি জোটের পুরাতন শরিকদল জমিয়ত।
। ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তালিকায় আলোচনায় থাকা জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী নিজেকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী দাবি করে জগন্নাথপুর পৌর এলাকায় নির্বাচনী কার্যালয় স্থাপন করে নির্বাচনী প্রচারনা চালাচ্ছেন। অপরদিকে গনফোরাম নেতা নজরুল ইসলাম নিজের ফেসবুকে ঐক্যফ্রন্টের প্রধান ড.কামাল হোসেনের প্রার্থী উল্লেখ করে ধানের শীষ প্রতীকে ভোট চেয়েছেন। মনোনয়নের বিষয়ে দুই নেতার আশাবাদ নেতাকর্মীদের বিভ্রান্তিতে ফেলেছে।
জগন্নাথপুর- দক্ষিন ুসুনামগঞ্জ এলাকার লোকজন জানায়, ২০০৫ সালের ২৭ এপ্রিল প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদের মৃত্যুর পর ২০ জুলাই অনুষ্ঠিত শুন্য আসনে উপ-নির্বাচনে অংশ নেন আওয়ামীলীগ ঘরনার দুই প্রার্থী। তাঁরা হলেন সাবেক সচিব মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান ও যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য নজরুল ইসলাম। নির্বাচনে চারদলীয় জোট প্রার্থী হিসেবে অ্যাডভোকেট শাহীনুর পাশা চৌধুরী স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান কে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নজরুল ইসলাম এর পক্ষে জনসভায় আসেন গণফোরাম সভাপতি ড.কামাল হোসেন।
নির্বাচনে পরাজিত হয়ে নজরুল ইসলাম যুক্তরাজ্যে চলে যান। আর মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান আওয়ামীলীগে যোগদান করে মন্ত্রী এমপি হন। দীর্ঘদিন রাজনীতিতে নীরব থাকলেও ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর তিনি নজরুল দেশে চলে আসেন। সম্প্রতি গণফোরামে যোগদান করে ঐক্যফ্রন্টে প্রার্থী হতে তৎপর হন।
নজরুল ইসলাম বলেন,ঐক্যফ্রন্টের প্রধান ড.কামাল হোসেন এর আহ্বানে আমি গণফোরামে যোগদান করে গণফোরামের মনোনয়ন জমা দিয়েছি। । আশাকরি জোটের শরিকদের কাছ থেকে আসনটি গণফোরামকে দেয়া হবে। তিনি বলেন, নির্বাচন করার আশা নিয়ে গণফোরাম সভাপতি ড.কামাল হোসেন এর নির্দেশে মাঠে কাজ করেছি।
জমিয়ত উলামায়ে ইসলাম কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী বলেন,আমি ২০০৫ সালে এ জোটের প্রার্থী হিসেবে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছি। ২০০৮ সালে জোটের প্রার্থী ছিলাম। ২০১৪ সালে জোট নির্বাচনে অংশ না নিলে প্রার্থী হইনি। আমি দৃঢ আশাবাদী ঐক্যফ্রন্টের মনোনয়ন আমি পাব।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।