স্ত্রীর নির্যাতনে ডাক্তার স্বামীর মৃত্যু

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের জামাতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসক রাজন কর্মকার মারা গেছেন।
রোববার ভোর পৌনে ৪টার দিকে তাকে রাজধানীর বেসরকারি হাসপাতাল স্কয়ারে নেওয়া হয়।
হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আসাদ বলেন, মৃত অবস্থায়ই রাজনকে হাসপাতালে আনা হয়।
এদিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ওরাল অ্যান্ড মেডিসিন সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রাজন কর্মকারের মৃত্যু অস্বাভাবিক দাবি করেছেন তার সহকর্মীরা। তারা তার ময়নাতদন্তের দাবিতে বিক্ষোভ করছেন।
জানা গেছে, রাজনের স্ত্রী কৃষ্ণা চন্দ্র মজুমদারও বিএসএমএমইউ’র জেনারেল সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। তারা দুজন ৪৭ ইন্দিরা রোড, তেজগাঁওয়ের হাসেম বাড়ির ৩/সি ফ্ল্যাটে থাকতেন।
রাজনকে মৃত ঘোষণার পর সকালে তার স্ত্রী ও মন্ত্রীর পরিবারের সদস্যরা ময়নাতদন্ত ছাড়াই তাকে নিয়ে যেতে চান। কিন্তু এতে তার সহকর্মীরা বাধা দেন।
দুপুরে মন্ত্রী স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে নিয়ে স্কয়ার হাসপাতালে যান। তখন ময়নাতদন্ত ছাড়াই আরেক দফা লাশ নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়।
এসময় রাজনের সহকর্মীরা ফের বাধা দেন। ময়নাতদন্ত ছাড়া যাতে মরদেহ হস্তান্তর করা না হয় সেজন্য তারা হাসপাতালে বিক্ষোভ করতে থাকেন।
জানা গেছে, রাজনের বাবা সুনীল কর্মকার ও মা রানী কর্মকার নোয়াখালীতে গ্রামের বাড়িতে থাকেন। তারা এখনো ঢাকায় এসে পৌঁছাননি।
স্কয়ার হাসপাতালে রাজনের মামা সুজন কর্মকার সাংবাদিকদের বলেন, রাজনের বাবা-মা ময়নাতদন্তসহ এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেছেন। এজন্য ময়নাতদন্তসহ যা যা করণীয় তা করার অনুরোধ জানিয়েছেন যাতে কারও মনে কোনো সন্দেহ না থাকে।
ময়নাতদন্তের দাবি নিয়ে তিনি শেরে-বাংলানগর থানায় যাচ্ছেন বলেও জানান।
বিকেল ৩টার দিকে শেরে-বাংলানগর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) তোফাজ্জল হোসেন বলেন, “এখন পর্যন্ত আমাদের থানায় কোনো অভিযোগ যায়নি। খবর পেয়ে নিজ উদ্যোগে আমরা হাসপাতালে এসেছি। পরিবার থেকে অভিযোগ করা হলে ময়নাতদন্তসহ পরবর্তী সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”
শেরে-বাংলানগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জানে আলম বলেন, দুপুরে মন্ত্রীর লোকজন স্কয়ার হাসপাতালে গেলে মৃতের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে বাদানুবাদের সৃষ্টি হয়।
তিনি বলেন, এঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থানায় ফোন করে জানালে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে কেউ থানায় অভিযোগ করেনি।
ডাক্তার বারী ও সরোয়ার হোসেনসহ মৃতের সহকর্মীদের অভিযোগ, নির্যাতনে রাজনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগেও তিনি কয়েক দফায় স্ত্রী কর্তৃক নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছিলেন।
সুত্র-দেশ দেশান্তর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» আসসালামু আলাইকুম বলে পার্লামেন্টে বক্তব্য দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

» সুনামগঞ্জে ছুরিকাঘাতে আ.লীগ নেতা খুন, আটক-৩

» আ.লীগের দু’পক্ষের গোলগুলি, নিহত ২

» ওসির বিরুদ্ধে ৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবী’র অভিয়োগ আ.লীগ প্রার্থীর

» জগন্নাথপুরে ছাত্রলীগের উদ্যোগে যুক্তরাজ্য আ.লীগ নেতাকে সংবর্ধনা

» বালাগঞ্জে নৌকার প্রার্থী মফুর নির্বাচিত

» নেদারল্যান্ডসে যাত্রীবাহী ট্রামে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ১

» রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের ব্রাশফায়ারে প্রিজাইডিং কর্মকর্তাসহ নিহত ৫

» জগন্নাথপুরে ‘বাঁধা’ দেয়ায় হাওরের সড়কের কাজ বন্ধ

» জগন্নাথপুরে সড়ক থেকে মাইক্রোবাস দোকানে, আহত ৩

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

স্ত্রীর নির্যাতনে ডাক্তার স্বামীর মৃত্যু

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের জামাতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসক রাজন কর্মকার মারা গেছেন।
রোববার ভোর পৌনে ৪টার দিকে তাকে রাজধানীর বেসরকারি হাসপাতাল স্কয়ারে নেওয়া হয়।
হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আসাদ বলেন, মৃত অবস্থায়ই রাজনকে হাসপাতালে আনা হয়।
এদিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ওরাল অ্যান্ড মেডিসিন সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রাজন কর্মকারের মৃত্যু অস্বাভাবিক দাবি করেছেন তার সহকর্মীরা। তারা তার ময়নাতদন্তের দাবিতে বিক্ষোভ করছেন।
জানা গেছে, রাজনের স্ত্রী কৃষ্ণা চন্দ্র মজুমদারও বিএসএমএমইউ’র জেনারেল সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। তারা দুজন ৪৭ ইন্দিরা রোড, তেজগাঁওয়ের হাসেম বাড়ির ৩/সি ফ্ল্যাটে থাকতেন।
রাজনকে মৃত ঘোষণার পর সকালে তার স্ত্রী ও মন্ত্রীর পরিবারের সদস্যরা ময়নাতদন্ত ছাড়াই তাকে নিয়ে যেতে চান। কিন্তু এতে তার সহকর্মীরা বাধা দেন।
দুপুরে মন্ত্রী স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে নিয়ে স্কয়ার হাসপাতালে যান। তখন ময়নাতদন্ত ছাড়াই আরেক দফা লাশ নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়।
এসময় রাজনের সহকর্মীরা ফের বাধা দেন। ময়নাতদন্ত ছাড়া যাতে মরদেহ হস্তান্তর করা না হয় সেজন্য তারা হাসপাতালে বিক্ষোভ করতে থাকেন।
জানা গেছে, রাজনের বাবা সুনীল কর্মকার ও মা রানী কর্মকার নোয়াখালীতে গ্রামের বাড়িতে থাকেন। তারা এখনো ঢাকায় এসে পৌঁছাননি।
স্কয়ার হাসপাতালে রাজনের মামা সুজন কর্মকার সাংবাদিকদের বলেন, রাজনের বাবা-মা ময়নাতদন্তসহ এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেছেন। এজন্য ময়নাতদন্তসহ যা যা করণীয় তা করার অনুরোধ জানিয়েছেন যাতে কারও মনে কোনো সন্দেহ না থাকে।
ময়নাতদন্তের দাবি নিয়ে তিনি শেরে-বাংলানগর থানায় যাচ্ছেন বলেও জানান।
বিকেল ৩টার দিকে শেরে-বাংলানগর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) তোফাজ্জল হোসেন বলেন, “এখন পর্যন্ত আমাদের থানায় কোনো অভিযোগ যায়নি। খবর পেয়ে নিজ উদ্যোগে আমরা হাসপাতালে এসেছি। পরিবার থেকে অভিযোগ করা হলে ময়নাতদন্তসহ পরবর্তী সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”
শেরে-বাংলানগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জানে আলম বলেন, দুপুরে মন্ত্রীর লোকজন স্কয়ার হাসপাতালে গেলে মৃতের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে বাদানুবাদের সৃষ্টি হয়।
তিনি বলেন, এঘটনায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থানায় ফোন করে জানালে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে কেউ থানায় অভিযোগ করেনি।
ডাক্তার বারী ও সরোয়ার হোসেনসহ মৃতের সহকর্মীদের অভিযোগ, নির্যাতনে রাজনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগেও তিনি কয়েক দফায় স্ত্রী কর্তৃক নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছিলেন।
সুত্র-দেশ দেশান্তর

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।