শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
বাস-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের রসুলপুর আর্দশ ক্রিকেট ক্লাবের জার্সি উম্মোচন শাহারপাড়ায় মেডিকেল সেন্টার উদ্ধোধন ও মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত এম এ মান্নান প্রাথমিক মেধাবৃত্তি পরীক্ষা ২৯ নভেম্বর ‘মার্টিন স্বপ্নে ইসলামের কোনো এক নবীর কথা বারবার উচ্চারণ করছিল’ জগন্নাথপুরের নয়াবন্দর-শংকপুর সড়ক উদ্বোধন করলেন পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুরে পরিকল্পনামন্ত্রী-ক্ষমতায় আসতে না পেরে একটি মহল গুজব ছড়াচ্ছে মিরপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শেরীন শপথ নেবেন ২৫ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমার একাধিক মামলার আসামি গ্রেফতার সাহাবাদের যুগে শিশুদের শিক্ষায় অধিক গুরুত্ব দেওয়া হতো

স্ত্রীর প্রেমিক হত্যা করল গ্রীসের রাষ্ট্রদূতকে

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৫৫ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: ব্রাজিলে নিযুক্ত গ্রীসের রাষ্ট্রদূত কিরিয়াকস আমিরিদিসকে (৫৯) হত্যা করেছে তার ব্রাজিলীয় স্ত্রীর প্রেমিক। ওই খুনী ব্রাজিলের পুলিশ বাহিনীর একজন কর্মকর্তা।

শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে রিও পুলিশের হত্যাকাণ্ড তদন্ত বিভাগের প্রধান এভারিস্তো পন্তেস রাষ্ট্রদূত হত্যার বিষয়ে এ তথ্য জানান। খবর এএফপির।

পন্তেস বলেন, গত সোমবার রাষ্ট্রদূত আমিরিদিসেক পুলিশ কর্মকর্তা সার্গিও গোমেজ মোরেইরা গুলি করে হত্যা করেছে।

গত বুধবার রাষ্ট্রদূতের স্ত্রী ফ্রানকোয়িস ডি সুজা অলিভেইরা তার স্বামী নিখোঁজ হয়ে গেছে বলে দাবি করেন। পরদিন বৃহস্পতিবার রিও শহরের ভাড়া বাসা থেকে দগ্ধ অবস্থায় রাষ্ট্রদূতের লাশ উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, রাষ্ট্রদূতের স্ত্রী ৪০ বছর বয়সী অলিভেইরার সঙ্গে ২৯ বছর বয়সী পুলিশ কর্মকর্তা মোরেইরার পরকীয়া সম্পর্ক ছিল।

এ ঘটনায় অলিভেইরা, মোরেইরা এবং হত্যায় অংশ নেয়ার জন্য অভিযুক্ত মোরেইরার ২৪ বছর বয়সী চাচাতো ভাই এডুয়ার্ডু তেদেশিকে আটক করা হয়েছে।

হত্যাকাণ্ড তদন্ত বিভাগের প্রধানের মতে, অলিভেইরা সরাসরি হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়ার কথা অস্বীকার করেছেন। তবে তিনি এ অপরাধের বিষয়ে জানতেন বলে স্বীকার করেছেন।

আমিরিদিস ২০০১ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত ব্রাজিলে কনসাল জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। এর একযুগ পরে চলতি বছরে রাষ্ট্রদূত হিসেবে ব্রাজিলে ফেরেন তিনি।

রাষ্ট্রদূত গত ২১ ডিসেম্বর থেকে স্ত্রীকে নিয়ে রিও ডি জেনেরিওর উত্তরাঞ্চলে পারিবারিক ছুটি কাটাচ্ছিলেন। আগামী ৯ জানুয়ারি তার রাজধানী ব্রাসিলিয়াতে ফেরার কথা ছিল।

পুলিশের কাছে অলিভিইরা প্রথমে দাবি করেছিলেন, তার স্বামী রিওর বাসা থেকে গাড়ি নিয়ে বের হয়ে যাওয়ার পর আর ফিরে আসেননি। পরে পুলিশ একটি সেতুর নিচে একটি পোড়া গাড়িতে আমিরির মরদেহের খোঁজ পায়।

কিন্তু আমিরিডিস-অলিভেইরা যেই বাসায় ছিলেন সেখানকার একটি সোফায় রক্তের দাগ দেখতে পায় পুলিশ। এতে শীর্ষ তদন্ত কর্মকর্তা পন্তেস মনে করেন, রাষ্ট্রদূতকে ওই বাসায় হত্যার পর একটি ভাড়া গাড়িতে করে সেতুর নিচে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে অলিভেইরা এবং মোরেইরাকে আটক করেন পুলিশ।

পন্তেস বলেন, অলিভেইরা তার স্বামীকে হত্যায় সহযোগিতার জন্য তেদেশিকে ২৫ হাজার ডলার সমপরিমাণ ব্রাজেলীয় অর্থ দেয়ার কথা বলেন।

মোরেইরা দাবি করেছেন, তার সঙ্গে রাষ্ট্রদূত আমিরিদিসের ধস্তাধস্তি হয়। পরে তিনি নিজের অস্ত্র দিয়ে গুলি করে রাষ্ট্রদূতকে হত্যা করেন।

তবে রিওর ওই বাড়িটির আশেপাশের বাসিন্দারা জানিয়েছেন তারা কোনো গুলির শব্দ শোনেননি। পুলিশ সন্দেহ করছে রাষ্ট্রদূতকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়েছে।

আমিরিদিস-অলিভেইরা দম্পতির ১০ বছর বয়সী একজন কন্যা রয়েছে।

এদিকে রাষ্ট্রদূথ হত্যার তদন্তে অংশ নিতে গ্রিক পুলিশের একটি দলকে ব্রাজিলে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া আর্জেন্টিনায় নিযুক্ত রাষ্ট্রদূতকে ব্রাসিলিয়ায় পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24