সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:৪৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু লজ্জা শুধু নারীরই নয়, পুরুষেরও ভূষণ জগন্নাথপুর মুক্ত দিবস আজ ডাকাত আতঙ্কে আজও নিদ্রাহীন মিরপুর ইউনিয়নবাসি, চলছে পাহারা জগন্নাথপুরে হালিমা খাতুন ট্রাষ্টের মেধা বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম স্থান অর্জন করেছে তাওহিদা কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী- তোমাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ আসছে জগন্নাথপুরে আমার বিদ‌্যালয়, আমার অহংকার, নিজেরাই করি সুন্দর ও পরিস্কার প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বন্ধুকে নিয়ে বেড়াতে গিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই বন্ধু নিহত ছাতকে একই স্থানে আ.লীগের দুই পক্ষের সমাবেশ,১৪৪ ধারা জারি আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব?

হঠাৎ পুলিশ ভেরিফিকেশন: বিপাকে সিলেটের প্রাথমিক শিক্ষকেরা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৮৫ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
এক দুই নয়। চাকরিতে যোগ দেয়ার বিশ বছর পর হঠাৎ পুলিশ ভেরিফিকেশন শুরু করেছে পুলিশ। আর এতে বিপাকে পড়েছেন সিলেট জেলার দেড় হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় চার হাজার শিক্ষক। চাকরি স্থায়ীকরণের নামে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নুরুল ইসলাম জেলার সব শিক্ষককে পর্যায়ক্রমে পুলিশ ভেরিফিকেশনের নির্দেশ দেন। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এ ধরনের কোনো নির্দেশনা না থাকলেও তিনি ‘ব্যক্তিগত’ উদ্যোগে এই ভেরিফিকেশন করাচ্ছেন। গত জুলাই মাসে এ ধরনের ‘ব্যক্তিগত’ নির্দেশনা দেওয়ার পর শিক্ষকদের মধ্যে অস্থিরতা ছড়িয়ে পড়েছে।

জানা যায়, দেশের অন্য কোনো জেলায় চাকরি স্থায়ীকরণে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের এমন তদন্তের মুখোমুখি হতে হচ্ছে না।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণের দিন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে পুলিশ ভেরিফিকেশনের নামে শিক্ষকদের এভাবে হয়রানি করে সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ করে তোলার একটা ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন অনেক শিক্ষক। তারা জানান, সিলেট মহানগর পুলিশ (এসএমপি) ও জেলা পুলিশের সংশ্নিষ্ট শাখা, সদর ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলার প্রধান শিক্ষকদের পুলিশ ভেরিফিকেশন শুরু করেছে। এই প্রক্রিয়া শুরুর পর স্থায়ী ও বর্তমান ঠিকানাসহ বিভিম্ন তথ্য নিয়ে চরম হয়রানির শিকার হচ্ছেন শিক্ষকরা।

একাধিক শিক্ষক জানান, নিজস্ব বাসা ও বাড়ি না থাকায় চাকরিতে যোগদানের সময় ভাড়া বাসার ঠিকানা দিয়েছিলেন তারা। এতদিন পর তাদের সিংহভাগই আর আগের বাসায় ভাড়া থাকেন না। কিন্তু পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে এসে নিয়োগের সময় যে বাসার ঠিকানা দেওয়া হয়েছে, সেই বাসার কাগজপত্র চাইছে। ‘স্থায়ী ঠিকানা’ উল্লেখ করা আগের বাসার কাগজপত্র দিতে না পারায় তারা হয়রানির শিকার হচ্ছেন। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার ‘ব্যক্তিগত’ এই নির্দেশনাকে অনেক শিক্ষক বলছেন ‘আর্থিক ফায়দা’ লোটার কৌশল।

জানা যায়, এখন পুলিশ ভেরিফিকেশনের মুখোমুখি হলেও এই শিক্ষকদের অনেকের নিয়োগের শর্তাবলিতে পুলিশের ‘সন্তোষজনক রিপোর্টের’ পরিপ্রেক্ষিতে নিয়োগ দেওয়ার কথা লেখা রয়েছে। আবার অনেকের শর্তাবলিতে দুই বছরের মধ্যে চাকরি স্থায়ীকরণের কথা উল্লেখ থাকায় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার এ ধরনের নির্দেশনাকে ‘রহস্যজনক’ বলছেন তারা। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির সিলেট জেলা শাখার উদ্যোগে জরুরি সভা হয়।

বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির সিলেট জেলার সাধারণ সম্পাদক প্রমথেশ দত্ত বলেন, এত বছর পর এমন হয়রানি অত্যন্ত উদ্বেগের। দুই বছর পর সাধারণ নিয়মেই সরকারি চাকরি স্থায়ী হয়ে যায়। শিক্ষাগত যোগ্যতায় দেওয়া কোনো তথ্য মিথ্যা বা ভুল হলে তার চাকরি থাকার কথা নয়। কিন্তু ২০-৩০ বছর চাকরি করার পর এখন পুলিশ ভেরিফিকেশন হয়রানি ছাড়া অন্য কিছু নয়। তিনি বলেন, নাগরিকত্ব প্রমাণের জন্য স্থানীয় চেয়ারম্যান বা কাউন্সিলের সনদপত্র জমা দিয়েছেন তারা। এ ছাড়া ভোটার আইডি তো রয়েছেই।
বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির সিলেট জেলা শাখার আহ্বায়ক ও সিলেট বিভাগীয় সমন্বয়ক মো. আবুল হোসেন জানান, বিষয়টি নিয়ে শিক্ষকরা ধূম্রজালে পড়েছেন। অনেকে চাঁদাবাজির আশঙ্কাও করছেন। মন্ত্রণালয় থেকে কোনো চিঠি ইস্যু না হওয়ায় অধিদপ্তরের চিঠিতে শুধু গ্রেডেশনের কথা উল্লেখ থাকায় অনেকের কাছে বিষয়টি স্পষ্ট নয়। পাশাপাশি অনেকের নিয়োগপত্রে পুলিশ ভেরিফিকেশন সন্তোষজনক হওয়ার ভিত্তিতে নিয়োগের কথা উল্লেখ থাকায় এই জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এভাবে জায়গা-জমির কাগজপত্র থেকে শুরু করে বিভিম্ন তথ্য দিতে শিক্ষকদের বাধ্য করে হয়রানি করা হচ্ছে। পুলিশ কর্তৃক সাধারণ শিক্ষকরা আর্থিক ও মানসিকভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন।
সরকারের বিরুদ্ধে শিক্ষকদের খেপিয়ে তোলা ও আর্থিক ফায়দা নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে ‘ব্যক্তিগত’ ইচ্ছায় এই উদ্যোগ নেননি বলে দাবি করেন সিলেট জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নুরুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘কয়েক মাস আগে বালাগঞ্জ উপজেলা সফরকালে গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (প্রশাসন) শিক্ষকদের পুলিশ ভেরিফিকেশন করানোর কথা বলেন। তবে লিখিত কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। মৌখিক নির্দেশে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24