বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ১১:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে কাল আসছেন জগন্নাথপুরে বাজার মনিটরিং করলেন পুলিশের এএসপি ধর্মঘট স্থগিত, যান চলাচল শুরু ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট মহাসড়কে প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে নেদার‌ল্যান্ডসের রাজধানীতে প্রথমবার মাইকে আজান জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই

হাওর অঞ্চলকে জাতীয় দুর্যোগপূর্ণ এলাকা ঘোষণার দাবি

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৪ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৪১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: হাওর অঞ্চলকে জাতীয় দুর্যোগপূর্ণ এলাকা ঘোষণা করে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের রক্ষায় দ্রুত রাষ্ট্রীয় পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন মানবাধিকার নেত্রী সুলতানা কামাল। ক্ষমতা নিয়ে যথেচ্ছাচারের কারণেই হাওরে মহাবিপর্যয় ঘটেছে বলে মন্তব্য তার।

সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘হাওরে মহাবিপর্যয় উদ্বিগ্ন নাগরিকবৃন্দ’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে সুলতানা কামাল এ কথা বলেন।

সুলতানা কামাল বলেন, হাওরে ২৪ লাখ কৃষক বোরো ধানের ওপর নির্ভরশীল। তাদের সব ধান তলিয়ে গেছে। দেশের অনেক মাছ নষ্ট হয়ে গেছে। তাদের সবার জন্য সহযোগিতা দরকার। কিন্তু সরকার তাদের মধ্যে থেকে ৩ লাখ ৩০ হাজার কৃষক পরিবারকে কীভাবে নির্বাচন করে সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা করল, তা নিয়ে তিনি প্রশ্ন তোলেন। তার অভিযোগ, এখানেও দুর্নীতির গন্ধ রয়েছে।

এই বরাদ্দকে হাওরবাসীর সঙ্গে সরকারের প্রহসন হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন।

সুলতানা কামাল বলেন, ‘আমরা রামপালের কারণে সুন্দরবনে ক্ষতির কথা বললে সরকার বলে আমাদের বাসার বিদ্যুৎসংযোগ বন্ধ করে দেবে। সরকারের মন্ত্রী বলেন, কৃষকেরা হাওরের বাঁধ কেটেছে।’

সুলতানা কামাল বলেন, হাওরের জলাভূমি জনগণের সম্পদ। একে প্রভাবশালী ব্যবসায়ীদের কাছে ইজারা দিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এসব আচরণ অসাংবিধানিক। জনগণের সম্পদ নিয়ে এ ধরনের যথেচ্ছাচারই হাওরে এত বড় বিপর্যয় সৃষ্টি করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য তুলে ধরেন হাসনাত কাইয়ুম। তিনি ২৪ লাখ কৃষককে খাদ্য সহায়তা দেওয়া, হাওরে রেশনিং ব্যবস্থা চালু, সরকারি-বেসরকারি সব ঋণের কিস্তি আদায় স্থগিত, ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণ ও বিনা সুদে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ, জলমহালের ইজারা বাতিল করে উন্মুক্ত জলাশয়ে সবার মাছ ধরার অধিকার দেওয়া, হাওরের পরিবেশদূষণের প্রকৃত কারণ নির্ণয়, বাঁধ নির্মাণে জড়িত দুর্নীতিবাজদের শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবি তোলেন।

লেখক ও গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ হাওরে বিপর্যয়ের ঘটনা তদন্তে নিরপেক্ষ একটি কমিটি গঠন করে দ্রুত প্রতিবেদন প্রকাশের দাবি জানান। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা জাফরুল্লাহ চৌধুরী হাওরবাসীর জন্য এক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ ও পাঁচ হাজার কোটি টাকা দীর্ঘমেয়াদি ঋণ দেওয়ার দাবি জানিয়ে বলেন, ‘জেগে থেকে ঘুমের ভান করবেন না।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন গবেষক স্বপন আদনান, সংস্কৃতিকর্মী মাহমুদ সেলিম, আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া, সংস্কৃতিকর্মী কফিল আহমেদ প্রমুখ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24