বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০১:০৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে দুইটি সরকারি ইজারাকৃত জলাশয় থেকে মাছ শিকারের অভিযোগ জগন্নাথপুরে পরীক্ষা কেন্দ্রে মুঠোফোন রাখার দায়ে শিক্ষক বহিষ্কার জগন্নাথপুরে জুয়া খেলার দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত চারজন কারাগারে ২৫ জনকে আসামি করে আবরার হত্যার চার্জশিট আ’লীগে দূষিত রক্তের প্রয়োজন নেই: কাদের আনন্দবাজার-এর বিশ্লেষণ মুসলিমরা ক্ষমতাহীন হয়ে পড়ছে ভারতে?

হাওর দূর্ণীতির বিচার চাইলেন বিশিষ্টজনরা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৮ এপ্রিল, ২০১৭
  • ২৫ Time View

বিন্দু তালুকদার
বিভাগীয় কমিশনার ড. মোছাম্মাৎ নাজমানারা খানুম বলেন,‘সুনামগঞ্জসহ হাওরাঞ্চলের বোরো ফসল ডুবি নিয়ে দুর্যোগ ও নানা অনিয়ম-দুর্নীতিসহ যেসব বক্তব্য শুনা যাচ্ছে তা বাস্তবধর্মী। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের জন্য ও এমএসের মাধ্যমে চাল বিক্রির বিষয়ে বছরব্যাপি কর্মসূচি আবশ্যক।’
ডিআইজি মো. কামরুল আহসান বলেন,‘বাংলাদেশ পুলিশ বিভাগ সুনামগঞ্জের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পাশে থাকবে। জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে সবাইবে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। সরকারকে সহযোগিতা করতে হবে। ’
পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান বলেন,‘আমি সুনামগঞ্জে আসার পরপরই হাওরের দুর্যোগের মধ্যে পড়েছি। ধান তলিয়ে যাওয়ার পর পরই কালোবাজারী সৃষ্টি হয়েছিল, জেলা প্রশাসনের সহায়তায় আমরা তা রোধ করেছি। সুনামগঞ্জের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের জন্য স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রস্তাব পাঠিয়েছি আমরা। ’
জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুুরুল হুদা মুকুট বলেন,‘হাওরের বাঁধ নির্মাণ নিয়ে পাউবো, পিআইসি ও ঠিকাদারদের অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়টি তদন্ত করে দেখতে হবে। পিআইসিতে হাওরের কৃষকদের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। পিআইসিদের কারণে অনেক হাওরের বাঁধ ভেঙে গেছে। অনিয়ম-দুর্নীতির দায়ে ঠিকাদারদের শাস্তি হলে পিআইসিদের শাস্তি হওয়া প্রয়োজন। কৃষকদের ওএমএসের চাল কেনার টাকা নেই। তাদেরকে বিনামূল্যে ত্রাণ সহায়তা দিতে হবে। ’
পৌর মেয়র আয়ুব বখত জগলুল বলেন, ‘রাষ্ট্রপতি সুনামগঞ্জে আসায় মানুষ আশান্বিত হয়েছে। দুর্দশাগ্রস্ত মানুষদের সহায়তা করতে ভিজিডি ও ভিজিএফের তালিকা বাড়াতে হবে। বাঁধ নির্মাণে অনিয়ম দুর্নীতির সাথে জড়িতদের শাস্তির আওতায় আনতে হবে।’
শাল্লা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান অবনী মোহন দাস বলেন,‘ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের সহায়তা করতে প্রতিটি ওয়ার্ডে ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি এবং ওএমএসের চাল-আটা বিক্রি শুরু করতে হবে। কৃষকদের বিনামূল্যে সার-বীজ সরবরাহ করতে হবে। ওএমএসের চাল বিক্রিতে দুর্নীতি রোধে মনিটরিং করতে হবে।’
অ্যাড. আলী আমজদ বলেন,‘ সময়মত হাওরের বাঁধ নির্মাণ করা হয়নি। চৈত্র মাসেই হাওরের বোরো ধান তলিয়ে গেছে। কৃষকরা অনেক স্বপ্ন নিয়ে ফসল ফলিয়েছিল কিন্তু অবেহলা ও অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে সব অকালে পানিতে তলিয়ে গেছে। ’
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের আহবায়ক অ্যাড. বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু বলেন,‘হাওর নিয়ে এখন নতুন করে ভাবতে হবে। রাষ্ট্রপতির নেতৃত্বে হাওরের উন্নয়নে কাজ করার সময় চলে এসেছে। হাওর উন্নয়ন বোর্ডের সদর দপ্তর সুনামগঞ্জে স্থাপন করে সকল নদী খনন করতে হবে। ফসল রক্ষা ও বাঁধ নির্মাণে পাউবোর উপর মানুষ আস্থা হারিয়ে ফেলেছে। প্রবল বন্যা ও বর্ষণের দোহাই দিয়ে দুর্নীতিবাজ পাউবো, পিআইসি ও ঠিকাদারদের রেহাই দিলে চলবে না। অগ্রিম টাকা নিয়েও দুর্নীতিবাজরা বাঁধের কাজ করেনি। সকল দুর্নীতিবাজদের বিচার করতে হবে। সকল কৃষি ঋণ মওকুফ করতে হবে। ওএমএস চালু করতে হবে, না হলে মানুষ বাঁচবে না।’
দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলী বীরপ্রতীক বলেন,‘গত ৬৮ বছরে এই ধরনের বন্যা ও দুর্যোগ দেখিনি। হাওরের বাঁধ নির্মাণের বরাদ্দ ও কাজের বিষয়বস্তু জানতে একাধিক বার চিঠি লিখেও জবাব পাওয়া যায়নি। বাঁধ নির্মাণের সকল অনিয়ম-দুর্নীতি থেকে মুক্ত হতে চাই। অনেকেই চাল না পেয়ে ফেরত যায়। তাই প্রতিটি ইউনিয়ন ও হাটবাজারে ওএমএস চালু করতে হবে। ’
অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ পরিমল কান্তি দে বলেন,‘অকাল বন্যায় সুনামগঞ্জের সকল বোরো ধান তলিয়ে গেছে। এর প্রভাব শিক্ষা ব্যবস্থার উপর পড়েছে। বর্তমানে হাওরে মাছের মড়ক দেখা দিয়েছে। আগামী ফসল তোলার আগ পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের বেতন মওকুফ ও সকলকে উপবৃত্তি প্রদান করতে হবে। পিছিয়ে পড়া জেলার শিক্ষার উন্নয়নে কাজ করতে হবে। সুনামগঞ্জে শিক্ষা ব্যবস্থায় হাওর ভাতা চালু করতে হবে।’
দৈনিক সুনামকণ্ঠের সম্পাদক বিজন সেন রায় বলেন,‘বোরো ফসল হারিয়ে সুনামগঞ্জের কৃষকরা হাহাকারের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। সুনামগঞ্জকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা করতে হবে। এই দাবিতে প্রতিদিনই জেলার বিভিন্ন এলাকায় সমাবেশ-মিছিল হচ্ছে। ’
দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের সম্পাদক পঙ্কজ কান্তি দে বলেন,‘ভারী বর্ষণের প্রথম দিকেই জগন্নাথপুরের নলুয়ার হাওরে পিআইসির করা ক্লোজারের একটি অংশ দিয়ে পানি ঢুকা শুরু হলে শত শত কৃষক এটি আটকানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু এই কাজ চলতে চলতেই ঠিকাদারের কাজ না করা প্রায় ৮ কিলোমিটার অংশ দিয়ে পানি ঢুকতে শুরু হওয়ায় কৃষকরা কাঁদতে কাঁদতে বাঁধ ছেড়ে চলে আসেন। পাউবো ১২ টি বাঁধে ঠিকাদাররা কাজ শুরু করেনি বললেও বাস্তবে এর চেয়েও অনেক বেশি বাঁধে ঠিকাদাররা কাজ করেনি। এই অবস্থায় দুর্যোগের কথা বলে দুর্নীতি যেন আড়াল না করা হয়। ওএমএস’র চালকে গ্রাম পর্যায় পর্যন্ত সম্প্রসারিত করতে হবে। ভাসান পানিতে মাছ ধরার অধিকার দেওয়া ও পূর্বের কৃষি ঋণ মওকুফ করে নতুন করে বিনা সুদে কৃষি ঋণ দেওয়া, নদী খনন, নদীর সঙ্গে যুক্ত খাল খনন এবং ভবিষ্যতে হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণে সেনাবাহিনীকে সম্পৃক্ত করতে হবে।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম বলেন,‘ পাউবোর বাঁধ নির্মাণ সময়মত শুরু হয় না। প্রকল্পের বরাদ্দ যথাসময়ে প্রদান করা হয় না। বাঁধ নির্মাণে সঠিক সময়ে বরাদ্দ প্রদান করতে হবে।’
অ্যাড. আব্দুল মজিদ বলেন, ‘ধান তলিয়ে যাওয়ার পর হাওরের সব মাছ মরে যাচ্ছে। কৃষকদের ঘরে গরু নেই। জেলাকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা করতে হবে। হাওর থেকে মাছ ধরে বেঁেচ থাকার সুযোগ করে দিতে হবে। ’
মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমান বলেন,‘সুনামগঞ্জের কৃষক ও সুনামগঞ্জ বাঁচাতে হবে। সুনামগঞ্জের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পাশে সরকারের দাঁড়াতে হবে। মহামান্য রাষ্ট্রপতি ইচ্ছে করলে সুনামগঞ্জের মানুষকে বাঁচাতে পারবেন। ’
জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. সামছুল আবেদীন বলেন,‘ ভরাটকৃত সকল নদ-নদী খাল-বিল খনন করতে হবে। হাওরের ফসল রক্ষার জন্য সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে। ’
দৈনিক সুনামগঞ্জ প্রতিদিনের উপদেষ্টা সম্পাদক কামরুজ্জামান চৌধুরী বলেন,‘ সুনামগঞ্জের সকল ছাত্র-ছাত্রীর বেতন ফ্রি করে দিতে হবে। ছাত্রদের শিক্ষা উপকরণ দিয়ে সহায়তা করতে হবে।’
সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন বলেন,‘বাঁধ নির্মাণে বরাদ্দ হরিলুট হয়েছে। দুর্নীতিবাজ পাউবো কর্মকর্তা ও ঠিকারদারদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি প্রদান করতে হবে।’
জেলা পরিষদের সদস্যা সেলিনা আবেদীন বলেন,‘ ক্ষতিগ্রস্ত ও দুর্দশাগ্রস্ত কৃষকদের প্রয়োজনীয় সহায়তা দিতে হবে। সহায়তায় প্রদান ও বাস্তবায়নে নারী জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ত করতে হবে।
সাংবাদিক আল হেলাল বলেন,‘ দেশ স্বাধীনের আগেই সুরমা, কুশিয়ারা, কালনী নদী খননের দাবি উঠেছিল কিন্তু তা বাস্তবায়িত হয়নি। হাওরের বাঁধ নির্মাণে জড়িত পাউবো, পিআইসি ও ঠিকাদারদের শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24