বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:২২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ভ্রাম্যমান আদালতের টের পেয়ে পেঁয়াজ ১৭০ থেকে নেমে এলে ১২০ টাকা কেজি জগন্নাথপুর উপজেলাকে মাদকমুক্ত করতে মতবিনিময়সভা অধ্যক্ষকে পানিতে নিক্ষেপ: ছাত্রলীগের আরো পাঁচজন গ্রেফতার নবীজীর কাছে যে সকল বেশে হাজির হতেন জিবরাইল (আ.) অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক লবনের গুজব জগন্নাথপুরের সর্বত্রজুড়ে,ক্রেতা সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ, চলছে মাইকিং জগন্নাথপুর বাজারে লবন নিয়ে গুজব জগন্নাথপুরে আমনের ফলনে কৃষক খুশি জগন্নাথপুরে দুই মেধাবী শিক্ষার্থীর সহায়তায় এগিয়ে এলেন লন্ডন প্রবাসী মোবারক আলী জগন্নাথপুরে ৬ দিন ধরে মাদ্রাসার নৈশ্য প্রহরী নিখোঁজ

১৬ বছর পর মিরপুর ইউনিয়নে ১৪ অক্টোবর নির্বাচন, আনন্দের বন্যায় বইছে এলাকায়

বিশেষ প্রতিনিধি::
  • Update Time : বুধবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ৫০০ Time View

অবশেষে সকল জল্পনা কল্পনা অবসান ঘটিয়ে দীর্ঘ ১৬ বছর পর সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের মিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন আগামী ১৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। গতকাল মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফশিল অনুয়ায়ী মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর, বাছাই ১৫ সেপ্টেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ২২ সেপ্টেম্বর এবং ভোটগ্রহণ ১৪ অক্টোবর। এদিকে তফশিল ঘোষনার সঙ্গে সঙ্গে নির্বাচণে অংশ নিতে সম্ভাব্য প্রার্থী, সমর্থক ও এলাকার ভোটারদের মধ্যে নির্বাচনী আনন্দের বন্যা বইছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে চলছে প্রার্থী সমর্থকদের প্রচার প্রচারণা।

এলাকাবাসি জানান, ২০০৩ সালে জগন্নাথপুর উপজেলার মিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্টিত হয়। এ সময় ওই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আকমল হোসেন। ২০০৮ সালে জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করার জন্য আকমল হোসেন মিরপুর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে অব্যাহতি নেন। এসময় তিনি ইউপি সদস্য জমির উদ্দিনকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব দিয়ে যান। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত আর কোন নির্বাচন হয়নি। চেয়ারম্যান বিহীন পুরনো ইউপি সদস্যদের দিয়ে কোন রকমে জোড়াতালি দিয়ে চলছে কার্যক্রম। এতে অনির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের স্বচ্ছতা-জবাব দিহিতা ও ইউনিয়নের কাঙ্খিত উন্নয়ন নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছে। বিগত ২০০৭ সালে দেশে জাতীয় পরিচয়পত্রের কাজ চলাকালীন সময়ে মীরপুর ইউনিয়নের লহড়ি গ্রামের একটি অংশ নিয়ে জগন্নাথপুর ও বিশ্বনাথ উপজেলার সীমান্ত নিয়ে বিরোধের সৃষ্টি হয়। ২০১১ সালে দশঘর ইউনিয়নের ঈশাবদাউ গ্রামের হাজী আব্দুল মানিক মহামান্য হাইকোর্টে একটি রীট পিটিশন দায়ের করেন। যার কারনে আইনি জটিলতায় আটককে যায় নির্বাচনী কার্যক্রম। জগন্নাথপুরের অন্যান্য ইউনিয়নে নির্বাচনী উৎসব পালন করা হলেও মিরপুর ইউনিয়বাসির মধ্যে ছিল বেদনার সুর। সেই দু:খ কষ্ট থেকে ইউনিয়নবাসী নির্বাচনের দাবিতে মানববন্ধন, সভা, সমাবেশ, মিছিল মিটিংসহ বিভিন্ন কর্মসুচি পালন করেন। একই জটিলনায় পাশ্ববর্তী সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার দশঘর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। দুটি ইউনিয়নের সীমানা নির্ধারণ নিয়ে হাইকোর্টে বিচারাধীন থাকারিট পিটিশন ৮৫২৬/২০১৩ খারিজ করে দিয়ে আগামী ৬ মাসের মধ্যে ইউনিয়ন দুটিতে নির্বাচন করতে নির্বাচন কমিশনকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বিচারপতি মোাঃ আশরাফুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর বেঞ্চ গত বছরের ২৮ আগষ্ট এই আদেশ দেন। এর আর্দেশ বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হলেও আবারও স্থগিত করা হয় নির্বাচনী কার্যক্রম। সম্প্রতি আইনি জটিলতা নিরসন হওয়ায় নির্বাচন কমিশন গত মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) দেশের ৮টি উপজেলা ও ১২৩টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচণের তফশিল ঘোষনা করে। গণমাধ্যমে এসব ইউনিয়নের মধ্যে জগন্নাথপুরের মিরপুর ইউনিয়নের নাম উল্লেখ রয়েছে। ফলে এলাকার লোকজনের মধ্যে আনন্দ উৎসব শুরু হয়। সেই সঙ্গে প্রার্থী সমর্থকরাও নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। তবে দশঘর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের তফশিল ঘোষনা হয়নি।
মিরপুর ইউনিয়নের শ্রীরামসি গ্রামে মাহবুব হোসেন বলেন, গণমাধ্যমে ইউনিয়নের তফশিল ঘোষনার পর পর মুর্হুতের মধ্যে মিরপুর ইউনিয়নবাসীর মধ্যে আনন্দ বন্যা বইছে। দীর্ঘদিন বঞ্চিত থাকা নির্বাচনে ভোট দিতে এখনও অপেক্ষায়।
একই ইউনিয়নের হাসান ফাতেমাপুর গ্রামের বাসিন্দা বাদশা মিয়া বলেন, ১৬ বছর ধরে নির্বাচন না হওয়ায় ইউনিয়নবাসি উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত। তাই দীর্ঘদিন পর আইনি জটিলতায় নিরসন হওয়ায় আমাদের ইউনিয়নে এখনও নির্বাচনী বাতাস বইছে।

মিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জমির উদ্দিন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, মামলা জটিলতার সম্পন্ন হওয়ায় নির্বাচণের তফশিল ঘোষনা করা হয়েছে বলে শুনেছি। নির্বাচনে তিনি অংশে নেবেন বলে জানিয়েছেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচনী কর্মকর্তা মুজিবুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, উচ্চ আদালতের মামলা জটিলতায় মিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন আটককে যায়। মিরপুর নির্বাচনী তফশিল সংক্রান্ত কোন আর্দেশ আমরা পাইনি। তবে সুনামগঞ্জ নির্বাচন কর্মকর্তা মুরাদ উদ্দিন হাওলাদার বলেন, মিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের তফশিল অনুযায়ী ১৪ অক্টোবর নির্বাচন। এবিষয়ে আমরা অফিসিয়াল আদশ পেয়েছি। এটি উপজেলা পর্যায়ে প্রেরণ করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24