1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ০৫:০২ পূর্বাহ্ন

ভাষা আন্দোলনের অর্থনৈতিক কারন

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ১৬৩ Time View

ভাষা আন্দোলন যুগপৎ সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক ও গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক আন্দোলন ছিল।
ভাষা মানুষের সংস্কৃতি বাহন। ভাষার মাধ্যমেই সংস্কৃতির চর্চা, বিকাশ ও সমৃদ্ধি ঘটে। তাই নিজের সংস্কৃতি রক্ষার স্বার্থেই ভাষা আন্দোলন অপরিহার্য ছিল।
দ্বিতীয়ত পাকিস্তানের জনসংখ্যার ৫৬% অধিবাসী ছিল বাংলা ভাষাভাষী । যে কোন গণতান্ত্রিক রীতি অনুযায়ী বাংলাই পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা হওয়া উচিত। কিন্তু বাংগালীকে বুকের তাজা রক্ত দিয়ে তার সেই গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হয়েছে।
তৃতীয়ত ভাষা আন্দোলনের আরো গুরুত্বপূর্ণ একটি কারন হচ্ছে বাংগালীর অর্থনৈতিক স্বার্থ। আজকে আমি এই বিষয়টি নিয়ে খুবই সংক্ষিপ্ত ভাবে আলোকপাত করব।
ভাষা আন্দোলনের অর্থনৈতিক প্রেক্ষিত আলোচনা করতে হলে অবধারিতভাবে ভারত বর্ষে ইংরেজ শাসনের আলোকে আলোচনা করতে হবে।
যদিও তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের মানুষের বাংগালী হয়ে উঠার, তার স্বকীয়তা, স্বাজাত্যবোধ ও স্বাধীন সত্তা প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে ভাষা আন্দোলনের ভূমিকা সর্বব্যাপী। মূলত মুসলিম জাতীয়তাবাদী চেতনার অচলায়তন অতিক্রম করে ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়েই বাংগালী তার ভাষাভিত্তিক আপন জাতিসত্ত্বায় প্রত্যাবর্তনের পথে যাত্রা শুরু করে তার অর্থনৈতিক মুক্তির আখাংকা থেকেই।
ব্রিটিশ শাসিত ভারতবর্ষে বাংলার মুসলমান সম্প্রদায় অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে সবচে পশ্চাৎপদ এক জনগোষ্ঠীতে পরিনত হয়।
খুব সচেতন ভাবেই ইংরেজরা এই কাজটি করে। ইংরেজরা যেহেতু মুসলমান শাসকদের পরাজিত করে ইংরেজ শাসনের গোড়াপত্তন করে তাই তারা বুঝতে পেরেছিল ভারতবর্ষ শাসনে মুসলমানদের সহযোগিতা পাবেনা। কারন ভারতবর্ষ হিন্দু প্রধান রাষ্ট্র হলেও দীর্ঘকাল মুসলমান শাসকদের দ্বারা শাসিত হচ্ছিল। ফলে মনস্তাত্ত্বিক ভাবে একজন সাধারণ মুসলমানও ভাবতো তারা হচ্ছে রাজার জাতি। তাই যখন ইংরেজ শাসন শুরু হলো সেই রাজার জাতি রাতারাতি প্রজার জাতিতে পরিনত হলো। ফলশ্রুতিতে ইংরেজবিরোধী তাদের মনোভাব ছিল তীব্র। পক্ষান্তরে ইংরেজ শাসনের শুরুতে হিন্দুদের তেমন কোন প্রতিক্রিয়া হলো না। তাদের আগে শাসন করতো মুসলমানরা আর এখন করবে ইংরেজরা।
মুসলমানদের এই মনোভাব অনুমান করে ইংরেজরা মুসলমানদের শক্তি কেন্দ্র গুলো ধ্বংস শুরু করে। একে একে চাকুরী, কৃষি ও ব্যবসা থেকে মুসলমানদের উচ্ছেদ করে।
ফার্সি ভাষার স্থলে ইংরেজিকে অফিস আদালতের ভাষা করে চাকুরী থেকে মুসলমানদের বিতাড়িত করা হয়। মসলিন তাঁতিদের আংগুল কেটে দেয়া সহ নানা ভাবে ব্যবসা বানিজ্য করে জীবিকা নির্বাহের পথও কঠিন করে তোলা হয়। সর্বশেষ চিরস্থায়ী বন্দোবস্তে ব্যবস্থা প্রবর্তনের মাধ্যমে ভূমি থেকেও মুসলমানদের উচ্ছেদ করা হয়। কারন চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের মাধ্যমে এই বাংলায় যারা জমিদার হন তাদের বেশীর ভাগই ছিল হিন্দু। জমিদারের অত্যাচার সাধারণ মুসলমানদের হিন্দু বিরোধী করে তোলে। যদিও জমিদার তার হিন্দু মুসলমান সমস্ত প্রজাকেই অত্যাচার করত কিন্তু সাধারণ মুসলমান জমিদারকে শুধু জমিদার হিসেবে না দেখে হিন্দু হিসেবেও দেখেছে। তাই তার জমিদার বিরোধী মনোভাব হিন্দু বিরোধী মনোভাবে পরিনত হয়েছে। সে ভেবেছে তার জীবনের বিরাজমান সামগ্রিক সংকটের জন্য ইংরেজদের পাশাপাশি হিন্দুরাও দায়ী। যদি কোন ভাবে হিন্দুদের কাছ থেকে আলাদা হওয়া যায় তাহলে অবসান হবে তার যাপিত জীবনের সকল সংকট। এই বিশ্বাস থেকেই বাংলার সাধারণ মুসলমানরা দৃঢ় ভাবে মুসলিমলীগকে সমর্থন করে এবং পাকিস্তান প্রতিষ্ঠায় এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন যেমন বাংগালী মুসলমানদের পশ্চিম পাকিস্তানি মুসলমানদের সাথে ঐক্যবদ্ধ করেছিল, পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর হিন্দুদের ভয় দূর হওয়ার সাথে সাথে তাদেরকে আবার বিভক্ত করে। এই বিরোধের সূত্রপাত ভাষার দাবীকে কেন্দ্র করে।
ভাষার প্রশ্নে বিতর্ক নূতন কোন বিষয় নয়। সপ্তদশ শতাব্দীতেই কবি আব্দুল হাকিম তাঁর বংগবাণী কবিতায় দাবী করেছিলেন, মার্তৃভাষা হিসেবে বাংলা ভাষাকে নিয়ে যারা সন্তুষ্ট নয়, তারা যেন এ দেশ ছেড়ে চলে যায়। এমনকি মুসলিম লীগের ভিতরেও লাহোর প্রস্তাব গ্রহণ করার আগে ভাষা প্রশ্নে বিতর্ক দেখা দেয়। ১৯৩৬ সালের সর্ব-ভারতীয় মুসলিম লীগের লক্ষনৌ অধিবেশনে মুসলিম ভারতের ভাষা হিসেবে উর্দুর প্রস্তাব করা হয়। বাংলার প্রতিনিধিবৃন্দ জোড়ালোভাবে এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করেন। শেষ পর্যন্ত জিন্নাহ-র সরাসরি হস্তক্ষেপে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় যে, “যে সব জায়গায় ভাষা উর্দু, সে-সব জায়গায় এর অবাধ উন্নয়ন সাধন ও ব্যবহার নিশ্চিত করা উচিত, এবং যেখানে এটি প্রধান ভাষা নয় সেখানে তাকে ঐচ্ছিক ভাষা হিসাবে শেখানোর জন্য যথোপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত।” লাহোর প্রস্তাব গ্রহণ করার পরও এই বিতর্ক অব্যাহত থাকে।
পাকিস্তান সৃষ্টির পূর্ব মুহূর্তে আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. জিয়াউদ্দিন আহমেদ হিন্দির অনুসরণে উর্দুকে ভবিষ্যৎ পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষার স্বপক্ষে অভিমত ব্যক্ত করেন।
ড.মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ এর প্রতিবাদ করে বলেন, “এটি রাজনৈতিক পরাধীনতার নামান্তর হবে। কেবল বৈজ্ঞানিক শিক্ষা ও নীতির বিরোধী নয়, প্রাদেশিক স্বায়ত্তশাসন ও আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকারের নীতি বিগর্হিতও বটে।”
পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পরই ১৯৪৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ঘোষণা করেন যে, Urdu only urdu will be state language of Pakistan. উপস্থিত ছাত্ররা সাথে সাথে No No ধ্বনিতে জিন্নাহর এই ঘোষণার প্রতিবাদ করে।
তবে সর্বপ্রথম ভাষা আন্দোলন সংগঠিত করে তমদ্দুন মজলিস। এর নেতৃত্ব ছিলেন, অধ্যাপক আবুল কাশেম।
১৯৪৮ সালের ২৩শে ফেব্রুয়ারি করাচিতে অনুষ্ঠিত পাকিস্তান গণপরিষদের অধিবেশনে পরিষদ সদস্যদের উর্দু বা ইংরেজিতে বক্তৃতা দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়। পূর্ব পাকিস্তানের কংগ্রেস দলের সদস্য ধীরেন্দ্র নাথ দত্ত এ প্রস্তাবের সংশোধনী এনে বাংলাকে পরিষদের অন্যতম ভাষা করার দাবী জানান। তিনি বলেন, পাকিস্তানের ৬কোটি ৯০লাখ মানুষের মধ্যে ৪ কোটি ৪০ লাখ পূর্ব পাকিস্তানের, যাদের মাতৃভাষা বাংলা। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলী খান, পূর্ববাংলার মূখ্যমন্ত্রী খাজা নাজিম উদ্দিন সহ অন্যান্য নেতাদের বিরোধিতায় তার প্রস্তাব বাতিল হয়ে যায়। এভাবেই ক্রমান্বয়ে ভাষা আন্দোলন তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে উঠতে থাকে।
১৯৫২ সালের ২৭ জানুয়ারি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দিন পল্টন ময়দানের জনসভায় ঘোষণা করেন উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা। সংগে সংগে এর তীব্র প্রতিক্রিয়া হয় এবং “রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই ” শ্লোগানে ছাত্ররা বিক্ষোভ মিছিল শুরু করেন। ৩০শে জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্মঘট পালিত হয়। ৩১শে জানুয়ারি সর্বদলীয় “কেন্দ্রীয় রাষ্ট্র ভাষা সংগ্রাম পরিষদ ” গঠিত হয়। যার আহবায়ক ছিলেন কাজী গোলাম মাহবুব।
রাষ্ট্র ভাষা সংগ্রাম পরিষদ ২১শে ফেব্রুয়ারি সমগ্র পূর্ব পাকিস্তানে হরতাল, জনসভা ও বিক্ষোভ মিছিল আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়।
সরকার ঢাকা শহরে ১৪৪ ধারা জারি করে। ছাত্ররা ১৪৪ ধারা উপেক্ষা করে গণপরিষদ ভবন যেতে চাইলে পুলিশের গুলিতে রফিক উদ্দিন আহমেদ, আব্দুল জব্বার, আবুল বরকত(রাষ্ট্রবিজ্ঞান এম,এ শ্রেণির ছাত্র) নিহত হন। তাছাড়া আব্দুস সালাম নামে সেক্রেটারিয়েট এর এক পিওন এবং অহিউল্লাহ নামে আট/নয় বছরের এক কিশোরও সেদিন নিহত হয়।
বন্দুকের গুলিতে নিহত বাংগালীর দ্রোহী রক্তের স্রোতধারা একদিকে যেমন ঢাকার রাজপথ রঞ্জিত করেছে অন্যদিকে সে নিজেকে চিনেছে আপন সত্ত্বায়। সে বুঝেছিল হিন্দুদের দ্বারা তার আত্মবিকাশের পথ রুদ্ধ হবার সম্ভাবনা দূর হয়েছে ঠিকই কিন্তু সে জায়গা দখল করেছে পশ্চিম পাকিস্তানি পাঞ্জাবিরা।
তার শুভ দিনের সোনালী স্বপ্ন বিবর্ণ হতে শুরু করে। কারন বাংলা যদি পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা না হয় তবে তাকে মার্তৃভাষা বাংলা শিখতে হবে, রাষ্ট্রভাষা উর্দু এবং আন্তর্জাতিক ভাষা হিসেবে ইংরেজি শিখতে হবে। চাকুরীর প্রতিযোগিতায় সে পশ্চিমা পাঞ্জাবিদের সাথে এক অসম প্রতিযোগিতার মুখোমুখি হবে এবং নিশ্চিত ভাবে বঞ্চিত হবে।
পাকিস্তান রাষ্ট্র কাঠামোতেই সে হবে এক বঞ্চিত জনগোষ্ঠী। যেভাবে ইংরেজ আমলে ফার্সির স্থলে ইংরেজিকে অফিস আদালতের ভাষা করার মধ্য দিয়ে তাকে বঞ্চিত করা হয়েছিল চাকুরী করে জীবন নির্বাহের অধিকার থেকে।
আর এখান থেকেই নব চেতনায়, নব আয়োজনে বাংগালীর যাত্রা নতুন পথে। সে পথেরই নানা চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে বাংগালী পৌঁছে তার আপন ঠিকানা স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশে। এতসব কথা বলার উদ্দেশ্য একটাই আর তা হলো ভাষা আন্দোলন কেবলমাত্র একটা সাংস্কৃতিক আন্দোলন ছিলনা। ভাষা আন্দোলনের সাথে বাংগালীর অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক অধিকারের প্রশ্নটিও জড়িত ছিল।
বাংগালী মুসলমান তার অর্থনৈতিক মুক্তির স্বপ্ন নিয়েই পাকিস্তান আন্দোলনে অংশগ্রহণ করে এবং পাকিস্তান প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কিন্তু ভাষার দাবীকে কেন্দ্র করে সে যখন বুঝতে পারে পাকিস্তান রাষ্ট্র কাঠামোতেও তার অঅর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক অধিকার প্রতিষ্ঠার স্বপ্নগুলো মরিচীকার অচলায়তনে আবদ্ধ থাকবে তখনই সে বাংগালী জাতি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ে এবং প্রতিষ্ঠা করে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। একটি জনগোষ্ঠীর ঐক্য, সংহতি, স্থিতিশীলতা ও অস্থিস্তের পক্ষে ভাষার অস্থিস্ত একান্ত প্রয়োজ।
কারণ আমাদের মনে রাখতে হবে, ভাষা হলো কোন জনগোষ্ঠীর বাহ্যিক লক্ষ্মণ এবং তার বেঁচে থাকার গুরুত্বপূর্ণ পন্থা।

মনোরঞ্জন তালুকদার
সহকারী অধ্যাপক
জগন্নাথপুর সরকারি কলে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com