1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ০৪:৩০ পূর্বাহ্ন

পরিচ্ছন্নতার চেতনা ও আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৩৮১ Time View

মাহ্‌ফুজুল আলম মাসুম ::

শিক্ষা সকল নাগরিকের মৌলিক অধিকার। সচেতন ভাবেই হোক আর অবচেতন ভাবেই হোক এই প্রক্রিয়াটির বিকাশ সাধন আমরা শিশুকাল থেকেই করতে শিখি। প্রাথমিক পর্যায়ে পরিবারে চলে এর অনুশীলন। এরপর নির্দিষ্ট বয়স পেরোনোর সাথে সাথেই শুরু হয় বিদ্যালয়ে আনাগোনা। পরিবারের পর বিদ্যালয় প্রথম সামাজিক সংগঠন একটি শিশুর ক্ষেত্রে যা তার শিক্ষার ক্ষেত্রে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে। তাই কতগুলো সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে সরকার শিক্ষার উদ্দেশ্য প্রণয়ন করেছে। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার মূল উদ্দেশ্য: মূল্যবোধ ভিত্তিক শিক্ষার প্রসার। এবার জেনে নেয়া যাক এই নৈতিক মূল্যবোধ ভিত্তিক শিক্ষা বলতে আসলে যা কিছু বোঝায় তার কিছু অংশ। যেমন:

১) ব্যক্তি ও জাতীয় জীবনে নৈতিক, মানবিক, সামাজিক মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠাকল্পে শিক্ষার্থীদের মননে, কর্মে, ব্যবহারিক জীবনে উদ্দীপনা সৃষ্টি করা।

২) সুনাগরিকের গুণাবলী অর্জন করা।

৩) জীবনঘনিষ্ঠ প্রয়োগমুখী জ্ঞান অর্জন করা; নিজের কাজ নিজে করার মাধ্যমে শ্রমের মর্যাদা উপলব্ধি ও আত্মমর্যাদা বিকাশে সহায়তা করা।

৪) বৈষম্য দূরীকরণ।

৫) পারস্পরিক মতামতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া।

৬) দলগতভাবে কাজ করা ও দক্ষতা বৃদ্ধি করা।

৭) নিরাপদ স্বাস্থ্যসম্মত জীবনযাপন এর সচেষ্ট করা।

৮) প্রাকৃতিক, সামাজিক পরিবেশ সচেতনতা বৃদ্ধি করা।

 

এই পর্যায়ে শিখন প্রক্রিয়া অর্থ শিক্ষালাভের প্রক্রিয়া সম্পর্কে দু’একটি কথা বলে নিতে চাই। শিক্ষা লাভের ক্ষেত্রে মস্তিষ্কের তিনটি ডোমেইন ভূমিকা পালন করে। কগনেটিভ ডোমেইন, সাইকোমোটর ডোমেইন, এফেক্টিভ ডোমেইন। কগনিটিভ ডোমেইন আমাদের তথ্য বা জ্ঞানকে ধারণ করে। ধারণকৃত জ্ঞানকে কার্যকর করে অর্থাৎ দক্ষতা প্রদর্শন করে সাইকো মোটর ডোমেইন। জ্ঞান এবং দক্ষতা আমাদের মানবিক মূল্যবোধের বিনির্মাণে সহায়ক ভূমিকা পালন করে; আর এই কাজটি সংঘটিত হয় এফেক্টিভ ডোমেইনে। আজকের আলোচ্য বিষয় অর্থাৎ শিরোনামের বিষয়টির সাথে উপর্যুক্ত বিষয় গুলোর কী সম্পর্ক আছে তা এবার একটু বুঝে নেয়ার চেষ্টা করা যাক। প্রথমেই বলেছিলাম ব্যক্তি ও জাতীয় জীবনে নৈতিক, মানবিক সামাজিক মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠাকল্পে শিক্ষার্থীদের মননে, কর্মে, ব্যবহারিক জীবনে উদ্দীপনা সৃষ্টি করা আমাদের শিক্ষার লক্ষ্য। শিশুকালে আমরা যে শিক্ষা গ্রহণ করি তা আমাদের সমস্ত জীবনে চলার পাথেয় হয়ে থাকে। তাই আমি মনে করি শিশুদের বিদ্যালয় পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা এবং বিদ্যালয়ের পরিবেশ সুন্দর রাখার কাজে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত  করার অভিপ্রায়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় প্রতি সপ্তাহে একদিন বিদ্যালয় পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিচালনার সিদ্ধান্তটি উল্লিখতি শিক্ষার উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে সহায়ক। অর্জিত জ্ঞানকে দক্ষতায় রুপান্তর করা এবং কগনেটিভ ডোমেইন, সাইকোমোটর ডোমেইন, এফেক্টিভ ডোমেইন এর সক্রিয়তায় মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন নাগরিক সৃষ্টিতে এই কার্যক্রম ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে এটা আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে আমরা বিভিন্ন বিষয়ে উন্নতির ক্ষেত্রে উন্নত বিশ্বের বিষয়গুলোকে তুলনা করি। উন্নত বিশ্বের বিদ্যালয়গুলোতে শিশুরা বিভিন্ন ধরনের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজে স্কুলে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে এবং পারিবারিক কাজগুলো কিভাবে করতে হয় সে সম্পর্কেও দক্ষতা বা লাইফ স্কিল অর্জন করে। আমাদের দেশে অনেকের মধ্যেই একটি প্রচলিত ধারণা আছে যে, শিক্ষা গ্রহণ করে আমরা সাহেব হব– এই ধরনের ভাবনার পেছনে ঔপনিবেশিক অভিঘাতের একটি প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। অনেক অভিভাবক তাদের সন্তানদের এই ধরনের কাজে অংশগ্রহণ করা পছন্দ করেন না; অথচ তারা ভুলে যান এই ধরনের কাজগুলো জীবনের জন্য কতখানি অত্যাবশ্যক।

তাই নতুন প্রজন্মকে পরিচ্ছন্নতার চেতনার নতুন একটি বোধে উজ্জীবিত করে তাদের মাঝে উদ্দীপনা সৃষ্টি করার জন্য উপজেলা প্রশাসন, জগন্নাথপুরের উদ্যোগে আনন্দময়, সবুজ ও পরিচ্ছন্ন বিদ্যালয় কর্মসূচী বাস্তবায়ন করা হয়েছে যার প্রথম পর্যায়ের কর্মসূচির শ্লোগান ছিলো, “আমাদের বিদ্যালয় আমাদের অহংকার, নিজেরাই করি সুন্দর ও পরিষ্কার” যা ২০২০ শিক্ষাবর্ষে বাস্তবায়ন করা হয়েছে। কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য প্রত্যেক ইউনিয়নের ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানকে উপদেষ্টা করে এবং সকল শ্রেণি-পেশার মানুষকে সম্পৃক্ত করে ইউনিয়ন কমিটি ও একইভাবে উপজেলা কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির তৎপরতা শিক্ষকদের আন্তরিকতা ও শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে একটি পরিচ্ছন্নতার আন্দোলন শুরু হয়েছে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায়।

 

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ পরিদর্শন করে দেখা যায় শিক্ষার্থীরা প্রতি বৃহস্পতিবারে স্বেচ্ছায় নিজ নিজ স্কুলের আঙিনা পরিষ্কার করছে, স্কুলের ক্লাস রুমের সামনে ডাস্টবিন রাখা আছে,  দেয়াল ও আঙিনা বিভিন্ন সৃজনশীল কাজ দ্বারা এবং মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বিভিন্ন ছবি দ্বারা সজ্জিত করা হয়েছে। উপজেলা কমিটি ও প্রতিটি ইউনিয়ন কমিটি এই ব্যাপারে তদারকি করেছেন।

 

শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্বাচিনেরে লক্ষ্যে কমিটি নিম্নলিখিত মানদণ্ডের উপর বিচার কার্য সম্পাদন করেছেন :

  • বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার
  • শিক্ষাদানে পাঠটিকা ও শিক্ষক নির্দেশিকা অনুসরণের মান
  • দেয়ালে শিক্ষামূলক বক্তব্য ও মুক্তিযুদ্ধের স্থিরচিত্র দ্বারা সজ্জিত করণ
  • বিদ্যালয়ে ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের মান
  • বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে আভ্যন্তরীণ সজ্জার মান
  • শ্রেণিকক্ষের পরিচ্ছন্নতার মান
  • বিদ্যালয়ের আঙ্গিনার পরিচ্ছন্নতার মান
  • বিদ্যালয়ের শৌচাগারের পরিচ্ছন্নতার মান
  • শিক্ষার্থীদের পোশাক পরিচ্ছদের পরিছন্নতা
  • পরিচ্ছন্নতার উপকরণের ব্যবহার
  • বিদ্যালয়ের আঙ্গিনায় ফুল ও ফলের বাগান / ছাদকৃষি বাস্তবায়ন
  • উপরোক্ত এগারোটি কর্মসূচিতে উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের সক্রিয় অংশগ্রহণ

 

উপজেলা ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন কমিটি কর্তৃক প্রতিটি বিদ্যালয় পরিদর্শন পূর্বক শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান ইউনিয়ন পর্যায়, শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান উপজেলা পর্যায় নির্বাচন করা হয়েছে। ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রিঃ একটি পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান আয়োজন করে বিজয়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের হাতে পুরষ্কার তুলে দেওয়া হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

 

২০১৯ শিক্ষাবর্ষে বাস্তবায়িত এই কর্মসূচীতে ব্যাপক সাড়া পাওয়ায় এই কর্মসূচীর দ্বিতীয় পর্যায়ের কার্যক্রম এই বছর ২০২০ শিক্ষাবর্ষে শুরু করা হয়েছে। এইসব কর্মকান্ডের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে একটি নতুন বোধ তৈরী হয়েছে, যার নাম দেয়া যেতে পারে পরিচ্ছন্নতার চেতনা। এই ইনোভেশন কাজের মাধ্যমে পরিচ্ছন্নতার চেতনা সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে চাই। পরিচ্ছন্নতার কাজে নিয়মিত অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে শিক্ষার্থীর মধ্যে যে গুণাবলীর বিকাশ ঘটতে পারে সেগুলো হলো দলগত কাজ করার মাধ্যমে নিজেদের মধ্যে ধনী-গরীব, হিন্দু-মুসলিম এই ধরনের বৈষম্য ভুলে পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া, জীবন ভিত্তিক প্রায়োগিক দক্ষতা বাড়ানো, প্রাকৃতিক, সামাজিক পরিবেশ বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি ও নিরাপদ, স্বাস্থ্যসম্মত জীবন যাপনে উদ্বুদ্ধ করা সম্ভব। উপরের আলোচনায় যে তিনটি ডোমেইনের কথা উল্লেখ করেছিলাম সেগুলো কী উপায় এই কাজের মাধ্যমে প্রভাবিত হয় তা এবার একটু ব্যাখ্যার দাবী রাখে। একজন শিক্ষার্থী সক্রিয়ভাবে পরিচ্ছন্নতার কাজে অংশ নিয়ে যে জ্ঞান অর্জন করে তা তাকে কাজটি করতে উদ্বুদ্ধ করে। কাজটির নিয়মিতভাবে করার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের দক্ষতা বৃদ্ধি করে এবং এই বৃদ্ধি করা দক্ষতা তাদের ব্যক্তিগত জীবনে অর্থাৎ স্কুলের জীবনের বাইরেও তারা কাজে লাগাতে সক্ষম হয়। পুরো কাজটি তাদের মনে একটি ভিন্ন মাত্রা যোগ করতে সক্ষম হয় বলে আমি বিশ্বাস করি।

সুন্দর এবং একটি পরিচ্ছন্ন দেশ আমাদের সকলের স্বপ্ন। এই স্বপ্নের বাস্তবায়ন অন্য কেউ করে দেবে না, এটা আমাদেরই করতে হবে। আর এই কাজটি রাতারাতিও সম্ভব নয়। নিয়মিত অনুশীলনের মাধ্যমেই সফলতা আসা সম্ভব। আমাদের বিদ্যালয়ই হতে পারে এই স্বপ্ন বাস্তবায়নের সূতিকাগার। পরিচ্ছন্নতার চেতনা ও পরিচ্ছন্ন থাকা একটি লাইফলং লার্নিং। আসুন আমরা সকলেই সক্রিয়ভাবে এই শিখন প্রক্রিয়ার অংশ হই।

লেখক: উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জগন্নাথপুর, সুনামগঞ্জ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com