1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
বৃহস্পতিবার, ০২ জুলাই ২০২০, ০৬:০৪ অপরাহ্ন

প্রতি মাসে ভ্যাটের ভোগান্তি থেকে মুক্তি চান ঠিকাদাররা

  • Update Time : সোমবার, ২৫ মে, ২০২০
  • ৫৮ Time View

অনলাইন ডেস্ক –
রাজধানীসহ সারা দেশের উন্নয়নমূলক ও সংস্কার কাজ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে করে থাকে সরকার। কিন্তু প্রতিষ্ঠানগুলো কাজ করতে গিয়ে ব্যাপকভাবে ভ্যাটের বিড়ম্বনায় পড়ছে।

কারণ সরকারের যেকোনো উন্নয়নকাজ করতে গেলে বিল পরিশোধের আগেই ঠিকাদারদের কাছ থেকে ভ্যাট বাবদ সংশ্লিষ্ট সংস্থার কর্মকর্তারা অর্থ কেটে নেয়। এরপরও প্রতিমাসে ভ্যাটের রিটার্ন জমা দিতে হচ্ছে ঠিকাদারদের।

এই ভোগান্তি থেকে রক্ষা পেতে ঠিকাদাররা জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) আলোচনায় বসতে যাচ্ছেন। ঠিকাদাররা মনে করেন, ভ্যাট দেয়ার জন্য দেশের যেকোনো প্রতিষ্ঠানের দৈনিক আয়-ব্যয়ের হিসাব আছে। কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলোর ভ্যাট দেয়ার সেই হিসাব নেই।

কারণ ঠিকাদাররা সরকারের উন্নয়নমূলক কাজ করলেই সেটি থেকে সংস্থাগুলোর কর্মকর্তারা ভ্যাট বাবদ অর্থ কর্তন করেন। এনবিআরে ভ্যাট দেয়ার জন্য ঠিকাদারদের হাতে কোনো অর্থ থাকে না। এরপরও প্রতিষ্ঠানগুলোর মাসে মাসে ভ্যাট রিটার্ন দাখিল করতে হচ্ছে।

এক মাস রিটার্ন জমা না দিতে পারলে ১০ হাজার টাকা জরিমানা গুনতে হচ্ছে। এতে সারা দেশের লাখ লাখ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বিড়ম্বনায় পড়েছে। এই বিড়ম্বনা থেকে মুক্তির উপায় খুঁজছেন তারা।

গণপূর্ত অধিদপ্তরের তালিকাভুক্ত কয়েকজন ঠিকাদার অভিযোগ করে জানান, ভ্যাট অফিসের নানা ধরনের অনৈতিক চাহিদা পূরণে ব্যর্থ হলেই ঠিকাদারদের ওপর অত্যাচারের খড়গ নেমে আসছে।

বিশেষ করে ছোট ও মাঝারি ঠিকাদাররা ভ্যাট অফিসের অসৎ কর্মকর্তাদের অত্যাচারে বর্তমানে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন। ভ্যাট নিবন্ধিত ছাড়া কোনো প্রতিষ্ঠান ইজিপিতে অংশগ্রহণ করতে পারে না।

এজন্য বাধ্যতামূলক ই-টিন করতে হচ্ছে। প্রতিমাসে কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট অফিসে নিয়মিত রিটার্ন দাখিল করতে হয়। অভিযোগ রয়েছে নির্ধারিত হারের মাসোয়ারা ছাড়া ভ্যাট অফিসে রিটার্ন গ্রহণ করা হয় না।

যেসব ঠিকাদার অনৈতিক দাবির বিনিময়ে রিটার্ন দাখিল করতে অপারগতা প্রকাশ করেন তাদের বিরুদ্ধে রিটার্ন দাখিল না করার অভিযোগে অনিয়মের মামলা দিয়ে হয়রানি করা হয়। ভ্যাট অফিসের কোনো কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করতে গেলে সেখানেও হয়রানির শিকার হতে হয় বলে অভিযোগ করেছেন তারা।

ঠিকাদারের ভোগান্তির ব্যাপারে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান সিনিয়র সচিব আবু হেনা মো. রাহমাতুন মুনিম আমার সংবাদকে বলেন, এ বিষয়ে সচিবকে ফোন না দিয়ে অন্যান্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলেই ভালো তথ্য পেয়ে পাবেন।

এ নিয়ে কথা বলতে চান না তিনি। তাই জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, দ্বিতীয় সচিব মো. তারেক হাসানের সাথে যোগাযোগ করা হলে আমার সংবাদকে তিনি বলেন, দেশে যেকোনো ব্যবসা করতে হলে মাসে মাসে রিটার্ন জমা দিতে হবে। প্রতিমাসে রিটার্ন জমা দিতে না পারলে ১০ হাজার টাকা জরিমানা।

সারাদেশে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলো রিটার্ন জমা দিতে তো নগদ অর্থ হাতে পান না এরপরও কেন রিটার্ন জমা দিতে হবে এমন প্রশ্নে বলেন, এটি আইনে বলা হয়েছে ব্যবসা করতে হলে রিটার্ন সাবমিট করতে হবে। আইন তো আলাদাভাবে শুধু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের জন্য করা যাবে না। বিশ্বের সবখানেই প্রতিমাসে আয়কর দিতে হয়। যদি আয় না থাকে তাহলে শূন্য রিটার্ন জমা দিতে হবে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ভ্যাট আইন ও বিবিধি শাখায় দায়িত্বে থাকা সহকারী রাজস্ব অফিসার মো. আব্দুল্লাহ আরমান আমার সংবাদকে বলেন, প্রতিমাসে রিটার্ন দাখিল করার নিয়ম ১৯৯১ সাল থেকে রয়েছে। আগে ব্যবসায়ীরা প্রতি মাসে রিটার্ন জমা দেয়নি।

বর্তমানে অধিকাংশ ব্যবসায়ী প্রতি মাসেই রিটার্ন জমা দিচ্ছেন। এতে রাজস্ব বেড়েছে। এখন প্রতিমাসের ১ থেকে ১৫ তারিখের ভেতর রিটার্ন জমা দিতে হবে। এজন্য যেকোনো ব্যবসায়ী ইচ্ছে করলেই অনলাইনে রিটার্ন জমা দিতে পারেন।

অনলাইনে রিটার্ন জমা দেয়ার বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের তালিকাভুক্ত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান আরিফুজ্জামান এন্টারপ্রাইজের মালিকসহ কয়েকজন ঠিকাদার বলেন, অনলাইনে ভ্যাটের রিটার্ন জমা দিতে গিয়ে সার্ভারের সমস্যা হয়ে থাকে।এজন্য ভ্যাট অফিসে গিয়েই রিটার্ন জমা দেন তারা।

তবে এ বিষয়ে আব্দুল্লাহ আরমান বলেন, প্রতিমাসে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলো অনলাইনে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট রিটার্ন জমা দিতে সার্ভারে সমস্যা ছিলো, বর্তমানে সার্ভারে সমস্যা নেই।

এনবিআর বিভিন্ন খাতের ব্যক্তিকে টিআইএন গ্রহণের বাধ্যবাধকতায় আনতে গত কয়েক বছরে বেশকিছু উদ্যোগ নিয়েছে। বর্তমানে চাকরিজীবীসহ ৩৪ খাতের সেবা কিংবা ব্যবসায়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির টিআইএন নেয়া বাধ্যতামূলক। এর মধ্যে ব্যাংক হিসাবে মুনাফায় ১৫ শতাংশের পরিবর্তে ১০ শতাংশ করের সুবিধা পাওয়ার জন্য টিআইএন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

এছাড়া ট্রেড লাইসেন্স, ক্রেডিট কার্ডের গ্রাহক, সিটি কর্পোরেশন এলাকায় অ্যাপার্টমেন্ট কিংবা গাড়ি কিনতে, ব্যবসায়ীদের ট্রেড লাইসেন্স নবায়নে টিআইএন নেয়া বাধ্যতামূলক হয়েছে।

এনবিআরের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, এ কারণে অনেকেই এসব সেবা নেয়ার জন্য বাধ্য হয়ে টিআইএন নেয়ায় এই সংখ্যা গত তিন বছরের ব্যবধানে দ্বিগুণ হয়েছে। এর মধ্যে ব্যাংক হিসাবধারী, ব্যবসায়ীসহ (বন্ধ হয়ে যাওয়া ব্যবসার মালিক) যারা তাৎক্ষণিক বাধ্যবাধকতায় টিআইএন নিয়েছে, রিটার্ন দাখিল না করার তালিকায় এমন ব্যক্তিদের সংখ্যাই বেশি।

গোল্ডেন বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম আমার সংবাদকে জানান, ভ্যাট আইন জটিল, কঠিন, দুর্বোধ্য কিন্তু দরকারি। ‘সঠিক ধারণা থাকলে ভ্যাট দেয়া সহজ’।

কিন্তু সবগুলো ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের জন্য একই পদ্ধতিতে রিটার্ন জমা দেয়া ঠিক নয়। এজন্য এটির কিছু পরিবর্তন এনে ব্যবসায়ীদের ভোগান্তি দূর করে মানুষের সহজলভ্য করা দরকার।

এদিকে গণপূর্ত ঠিকাদার সমিতির সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম আমার সংবাদকে বলেন, গণপূর্তে প্রায় ৩০ হাজার ঠিকাদার তালিকাভুক্ত। আর সারা দেশে প্রায় এক লাখের ওপর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলো সরকারি কাজ করতে গিয়ে বিল তুলতে গেলে ভ্যাট কেটে রাখেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

এরপরও ঠিকাদারদের প্রতিমাসে রিটার্ন জমা দিতে হয়। অনলাইনে রিটার্ন জমা দেয়ার পদ্ধতি চালু হলেও অনেকে তা পারেন না। ঠিকাদাররা যেন এ ধরনের ভোগান্তি থেকে মুক্তি পান সেজন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চিঠি দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

google.com, pub-1669374237730295, DIRECT, f08c47fec0942fa0
এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Design & Developed By ThemesBazar.Com