1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ১২:১০ অপরাহ্ন

এম এ মান্নান এক ক্যারিসমেটিক পুরুষ- হাসনাত হোসাইন

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১ জুন, ২০২১
  • ৫৩৮ Time View

হ্যা মাত্র তিন বছর রাজনীতি করে মন্ত্রী হয়েছেন দুইবার, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য হয়েছেন দুইবার :- এজন্য স্যালুট স্যারকে

এম এ মান্নান এক ক্যারিসমেটিক পুরুষের নাম। যিনি ২০০৫ সালে সুনামগঞ্জ-৩ আসনে উপ নির্বাচনের মাধ্যমে রাজনীতিতে পদার্পন করেন। এর আগে তিনি ছিলেন সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা। ১৯৯৬ সালে নির্বাচন কমিশনে কাজ করা কালীন সময়ে যার চৌকস ভূমিকায় বাংলাদেশের মানুষের স্বাধীনতার সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দীর্ঘদিন পর সরকার গঠন করে। যেটা ছিল এই দেশ,দেশের মানুষ এবং আওয়ামী লীগের জন্য টার্নিং পয়েন্ট। ১৯৭০ সালের সিএসপি পরীক্ষায় ইস্ট পাকিস্তান তথা বাংলাদেশে প্রথম স্থান অধিকার করেন। তারপরে শুরু হয়ে গেল মহান স্বাধীনতা যুদ্ধ। তখন তিনি এবং কয়েকজন পাকিস্তান সরকারের অধীনে চাকুরীতে যোগদান করেন নাই । দেশ স্বাধীন হওয়ার পরে বঙ্গবন্ধু যখন দেশ পূনর্গঠনের কাজ শুরু করলেন তখন আজকের পরিকল্পনা মন্ত্রী আলহাজ্ব এম এ মান্নান মহোদয় বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন এবং ৭৪ সালে চাকুরীতে যোগদান করলেন । স্বাধীনতা পূর্ববর্তী সময়ে যদিও বিভিন্ন জনসভায় যোগদান করে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শুনতেন কিন্তু স্বাধীনতার পরে চাকুরীর সুবাদে বঙ্গবন্ধুর সান্নিধ্যে যাওয়ার সৌভাগ্য হয় জনাব এম এ মান্নানের। বঙ্গবন্ধু সব শুনে উনাকে চাকুরীতে নিয়োগের নির্দেশ প্রদান করেন।

ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ, চট্টগ্রাম এ ৩ টি জেলায় জেলা প্রশাসক সহ এনজিও ব্যুরোর মহাপরিচালক, নির্বাচন কমিশনের ভারপ্রাপ্ত সচিব এসব গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দক্ষতার সহিত পালন করেও রাজনৈতিক কারণে (বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করার কারনে) তৎকালীন বিএনপি সরকারের রোষানলে সচিব না হয়েই অবসরে যেতে হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু কে ভালোবাসেন শেখ হাসিনা কে ভালোবাসেন সেটা প্রকাশ হয়ে গিয়েছিল ময়মনসিংহে যখন শ্রমিকরা শেখ হাসিনাকে বেতন ভাতার দাবীতে অবরুদ্ধ করেছিল এবং শ্রমিকেরা ফেরী বন্ধ রেখে শেখ হাসিনা কে আটকে রেখেছিল। জনাব এম এ মান্নান শেখ হাসিনা কে উদ্ধার করেছিলেন। যদিও বেতন ভাতা প্রদান মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিল কিন্তু তারপরেরও উনি প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কয়েক হাজার শ্রমিকের বেতন ভাতা পাইয়ে দিতে সক্ষম হয়েছিলেন। শেখ হাসিনা কে প্রটোকট দিতে এরশাদ সরকারের নিষেধ উপেক্ষা করে জনাব এম এ মান্নান শেখ হাসিনার নিরাপত্তার সব ব্যবস্থা করেছিলেন। যার কারণে তৎকালীন ক্ষমতাসীন এরশাদ সরকার জনাব এম এ মান্নানের উপর ক্ষুব্ধ হয়েছিল। যখন সন্দেহ ছিল শেখ হাসিনা এদেশের প্রধানমন্ত্রী হতে পারবেন কিনা কোন দিন, আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসতে পারবে কিনা তখন ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজে শেখ হাসিনার কাছে জনাব এম এ মান্নান আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন ডিসির চাকুরী ছেড়ে দিয়ে শেখ হাসিনার একান্ত সচিব হওয়ার জন্য। শেখ হাসিনা তখন বলেছিলেন আপনি চাকুরীতে থাকেন দল এবং দেশের জন্য কাজে লাগবে। পরবর্তী তে আপনাকে আমি খুঁজে নেব।

পরবর্তী তে বিএনপি সরকারের সময় যখন উনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (পলিটিক্যাল) ছিলেন তখন তুফায়েল আহমদ, আব্দুস সামাদ আজাদ প্রমূখ দলের মুখপাত্র যারা ছিলেন তারা দলের সমস্যায় উনার সাহায্য নিতেন। চাকুরী কালীন সময়ে দলের জন্য যে অবদান সেটা শেখ হাসিনা সহ সিনিয়র নেতৃবৃন্দ সবাই জানেন। সাধারণত চাকুরী হারানোর ভয়ে অনেকে যেসব ঝুঁকি নেন না তিনি ছিলেন তার উর্দ্বে। তিনি দেশকে এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কে ভালোবাসতেন বলেই কোন কিছুরই তোয়াক্কা করেন নাই।

২০০৯ সালে প্রথম বার এমপি নির্বাচিত হওয়ার পরে শেখ হাসিনা উনাকে দায়িত্ব দিলেন জাতীয় সংসদের পাবলিক একাউন্টস কমিটির সভাপতি এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির দুই দুই বারের সদস্য।

২০১৪ সালে এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী হিসেবে বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম দুইটি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব প্রদান করেন।

২০১৯ সালে এমপি নির্বাচিত হওয়ার পরে জননেত্রী শেখ হাসিনা উনাকে পরিকল্পনা মন্ত্রীর দায়িত্ব প্রদান করেন। সুনামগঞ্জ জেলার কৃতি সন্তান হিসেবে সততা এবং দক্ষতার সহিত দায়িত্ব পালন করে জেলার ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছেন। সূচনা করেছেন উন্নয়নের মাইল ফলক পাড়ি দেওয়ার যাত্রা। সারাদেশে আজ অবহেলিত সুনামগঞ্জ জেলা উন্নত এবং সমৃদ্ধ জেলা হিসেবে পরিচিতি পেতে যাচ্ছে।

উনি প্রায়ই একটা কথা বলেন রাজনীতি করে বড়ো নেতা হওয়ার সময় আর এখন উনার নাই। যেহেতু বয়স হয়ে গেছে তাই জীবনের যে সময়টুকু বাকী আছে তা উন্নয়নের কাজে ব্যয় করতে চান।

১৫ বছর উনার সাথে কাজ করে যে টুকু বুঝতে পেরেছি উনার মধ্যে একটি তাড়না আছে, তা হলো জীবনের বাকী সময় টুকু কাজে লাগিয়ে পিছিয়ে পড়া এলাকা এবং পিছিয়ে পড়া মানুষ কে সমতায় নিয়ে আসা, যা থেকে স্বাধীনতার ৫০ বছরেও আমরা সুনামগঞ্জ বাসী বঞ্চিত ছিলাম।

শুধু সুনামগঞ্জ অঞ্চল নয়, সিলেট অঞ্চল নয় আরাম আয়েশ ভূলে সারা দেশকে দিয়ে যাচ্ছেন উজাড় করে। তাইতো দিনের শুরুটা আজও উনার আগে শুরু করতে পারি নাই। প্রাতকালে উঠে অফিস সময়ের আগেই অফিসের কাজ শুরু করে দেন। টেবিলে জমা থাকেনা রাষ্ট্রীয় ফাইলের কোন স্তুপ।

লেখক পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান এর একান্ত সচিব রাজনৈতিক (হাসনাত হোসেন এর ফেসবুক থেকে)

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: