1. forarup@gmail.com : jagannthpur25 :
  2. jpur24@gmail.com : Jagannathpur 24 : Jagannathpur 24
শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০১:৪৫ পূর্বাহ্ন

আসুন দ্বন্ধ ভুলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষকদের যেটুকুর মর্যাদা দিয়েছেন সেটুকু ধরে রাখতে সক্ষম হই-গোলাম সারোয়ার লিটন

  • Update Time : রবিবার, ২ মে, ২০২১
  • ২৯২ Time View

বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি এস-১২০৬৮। জন্মের পরই সংগঠনটি দ্বিধারায় বিভক্ত হয়। পরবর্তীতে সামসুদ্দিন-সাবেরার নেতৃত্বে একটি অংশ সারা দেশের বৃহৎ অংশের শিক্ষকদের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। সংগঠনটি সারাদেশে কমিটি গঠন করে অপ্রতিদ্বন্দ্বী সংগঠনে পরিণত হয় ( আমার ব্যক্তিগত মতে)। সংগঠনের উপদেষ্টা হিসাবে কাজ করে চলেছেন ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) তাঁতীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো: মোজাহারুল ইসলাম সোহেল। তিনি একজন ভালো মনের মানুষ ও দক্ষ উপদেষ্টা এ ব্যাপারে আমি গভীর আস্থাশীল। কিন্তু প্রথম থেকেই আমার মনে প্রশ্ন ছিল উপদেষ্টা থাকবেন একজন শিক্ষাবিদ। যিনি সরাসরি রাজনীতির সাথে জড়িত নন। তবে মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ প্রশ্নে থাকবেন দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। মোজাহারুল ইসলাম সোহেল ভাইসহ আরো শুভাকাঙ্খীগণ নেপথ্যে ভুমিকা রাখবেন । কিন্তু গত পাঁচদিন আগে সোহেল ভাইয়ের ফেইসবুক স্ট্যাটাস থেকে আমার সে ভুল ভেঙ্গেছে । স্ট্যাটাস থেকে আমি বুঝতে পারি নানা হুমকিকে অগ্রাহ্য করে ( সামসুদ্দিন-সাবেরা ) সংগঠনের সম্মেলন সফল করিয়ে দিয়েছিলেন। এমনকি প্রতিপক্ষ সংগঠনের সম্মেলন কে বানচাল করে ছিলেন। তবে সম্মেলন শেষে তিনি বুঝেছিলেন তিনি জামায়াত বিএনপিকে প্রতিষ্টিত করেছেন সহকারী শিক্ষক সমিতির নেতৃত্বে। যদিও সম্মেলন হয় প্রায় ছয় বছর আগে। সেদিন আমিও উপস্থিত ছিলাম। কিন্তু এত দিন এ বিষয়টি নিয়ে তিনি ( জনাব সোহেল ভাই) কোন বক্তব্য দেননি। নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ আছে যার সব কথা তিনি প্রকাশ করেননি। এ নিয়ে আমারও অনেক কথা বলার আছে কিন্তু বলতে চাচ্ছিনা।
সংগঠনের উপদেষ্টা হয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি এমন সময় কথা বললেন যখন সংগঠনের কর্মীরা নিজেরাই দ্বিধাবিভক্ত। আমার মতে তিনি আগুণে ঘি ঢেলেছেন। এ কাজটি তিনি এভাবে না করে অন্যভাবেও করতে পারতেন। ইদানিং আমরা ফেইসবুকে যেভাবে পরস্পরকে ঘায়েল করে চলেছি তাতে মানসিক দৈন্যতা আর পদমর্য়াদা রক্ষায় আমাদের সামর্থ্যের প্রমাণ আমরা নিজেরাই প্রকাশ করে দিয়েছি। জনাব সোহেল ভাই প্রাথমিক শিক্ষকদের গ্রেড বাড়ানো নিয়ে বলেছেন প্রতিটি অফিসের পিয়নরা যে বাড়তি টাকা পায় তার চেয়ে কম বেতন পান শিক্ষকরা। আসলে বাড়তি টাকার সাথে বেতনের তুলনা করা ঠিক হবেনা। আবার দেশের সবাই এই বাড়তি টাকা পায়না বা গ্রহণ করেননা বা গ্রহণ করতে পারেননা।
নিজেদের পারস্পরিক দ্বন্দ্ব, পদের জন্য নানামুখী কৌশলে দেশের অধিকাংশ শিক্ষকদের মতো আমিও মনোক্ষুন্ন ও ব্যথিত। ভুলে যাই আমরা প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। এসব লিখা আমাদের মর্যাদাকে নষ্ট করেছে। আবার প্রচলিত আইনও লঙ্খন করে চলেছি। আশা করছি সকল পক্ষ পক্ষপাত আচরণ ছেড়ে সমঝোতায় বসবেন। নতুবা সংগঠনকে ভেঙ্গে দিবেন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকার শিক্ষা ও শিক্ষক বান্ধব সরকার। শিক্ষকদের দাবী দাওয়ার বিষয়ে তিনি সচেতন আছেন। তাইতো জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা হিসাবে ২০১৩ সালে এক ঘোষণায় ২৬ হাজারের অধিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করেছেন। এ সকল বিদ্যালয়ের এক লাখেরও অধিক শিক্ষকের চাকুরি সরকারি হয়েছে। বিদ্যালয়ের অবকাঠামোতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। দুর্গম টাংগুয়ার হাওরের মধ্যে অবস্থিত বিদ্যালয়েও ল্যাপটপ প্রজেক্টরে পাঠদান চলছে। শতভাগ ছাত্রছাত্রী মোবাইলে উপবৃত্তি পাচ্ছে। বিদ্যুৎবিহীন বিদ্যালয়ে সৌর শক্তি দেওয়া হয়েছে। উন্নত মানের ওয়াসব্লক দেওয়া হয়েছে। আমার নিজ বিদ্যালয় তাহিরপুর উপজেলার সোহালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ডাবল ওয়াসব্লকসহ আটটি বাথরুম রয়েছে। দুটো মটর, ২৩টি ফ্যান আছে। আছে বঙ্গবন্ধু পাঠাগার ও কর্ণার, ডিজিটাল শ্রেণিকক্ষ। বিদ্যালয়টিতে প্রাকঃ প্রাথমিক থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত ছাত্রছাত্রী রয়েছে প্রায় আট শতাধিক। আবারো নতুন ভবন ও ওয়াসরুম বরাদ্ধ হয়েছে। রয়েছে দপ্তরী কাম নৈশপ্রহরী। তারপরেও যদি আমাদের মানসিকতায় পরিবর্তন না আসে তবে কি বলা যায়? আগের শিক্ষকগণের আর্থিক দৈন্যতা থাকলেও মানসিক দৈনতা ছিলনা। কিন্তু দুঃখের সাথে বলতে বাধ্য হচ্ছি, এখন বিষয়টি উল্টো হয়েছে। মনে হচ্ছে সংগঠনেই মুল কাজ, শ্রেণিকক্ষে পাঠদান গৌণ হয়ে ওঠেছে।
করোনাকালীন সময়ে আসুন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও দেশবাসীর জন্য দোয়া করি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী থাকলে আমরা কাঙ্খিত গ্রেড পাব। শ্রেণিকক্ষে পাঠদানে আরো শিশুবান্ধব হবে। পদ নিয়ে কৌশলী প্রচারে নিজেদের দৈন্যতা আর না বাড়াই। করোনাকালীন এই সময়টা মহৎ কাজে লাগাই, মহান রমজান মাসের সংযম মেনে চলি। আমাদের উপদেষ্টা মহোদয় এ সকল ভুল পদক্ষেপ বা ভুল বুঝাবুঝি অবসানে নতুন উদ্যোগ নিবেন এ প্রত্যাশ রইল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা আমাদের যা দিয়েছেন সেটুকুর মর্য়াদা ধরে রাখতে {আচরণিকভাবে} আমরা সক্ষম হবো। আল্লাহ আমাদের সহায় হবেন নিশ্চয়ই।

লেখক – গোলাম সারোয়ার লিটন শিক্ষক নেতা সহকারী মিডিয়া বিষয়ক সম্পাদক কেন্দ্রীয় কমিটি ও  সাধারণ সম্পাদক উপজেলা সহকারী শিক্ষক সমিতি তাহিরপুর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১
Design & Developed By ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: