সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের! জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল

অর্থ পাচার রোধে দুদকের গোয়েন্দা টিম মাঠে

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৪ জুলাই, ২০১৭
  • ৩৮ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকে (এসএনবি) অর্থ পাচারকারীদের ধরতে মাঠে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। খোঁজা হচ্ছে অর্থ পাচারে সহায়তাকারীদেরও। নজরদারিতে আনা হচ্ছে বাংলাদেশের নামিদামি হোটেলগুলো। এসব হোটেলে অবস্থান করেই ক্লায়েন্ট খুঁজে বেড়ায় বিদেশি ব্রোকার ও লবিস্টরা।
দুদক চেয়ারম্যানের নির্দেশে এ বিষয়ে তথ্য সংগ্রহে সংস্থার পরিচালক মীর জয়নুল আবেদীন শিবলীর নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার ৭ সদস্যের একটি বিশেষ গোয়েন্দা টিম গঠন করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘আমাদের কাছে তথ্য আছে- সুইচ ব্যাংকের কিছু লোক ঢাকায় এসে বড় বড় হোটেলে অবস্থান করে। তারা সুইচ ব্যাংকে অর্থ রাখার জন্য বাংলাদেশের ব্যবসায়ী শিল্পপতিসহ ক্লায়েন্ট খুঁজে বের করে। আমাদের গোয়েন্দা টিম তাদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করে ঘটনার সত্যতা নিরূপণ করে কমিশনে রিপোর্ট দেবে।’

সূত্র জানায়, রাজধানীর যেসব হোটেলে অর্থ পাচার নিয়ে দেনদরবার চলে সেগুলো নজরদারির আওতায় আনা ছাড়াও মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও থাইল্যান্ডে অর্থ পাচার এবং সহায়তাকারীদের ব্যাপারেও খোঁজ নিচ্ছে দুদক। দুদকের কাছে এ সম্পর্কে বেশকিছু অভিযোগ এসেছে। এসব হোটেলে বসেই রাজনীতিবিদদেরও টার্গেট করা হচ্ছে। দেয়া হচ্ছে ব্যাংকে গচ্ছিত অর্থের নিরাপত্তার নিশ্চয়তা। সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থের পরিমাণ বৃদ্ধি নিয়ে সমালোচনার পর দুদক এ পদক্ষেপ নিল।

চলতি বছরের ২৯ জুন ‘ব্যাংকস ইন সুইজারল্যান্ড ২০১৬’ নামে যে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয় তাতে বাংলাদেশিদের অর্থের পরিমাণ তুলে ধরা হয়।

২০১৬ সালের শেষে বাংলাদেশিদের অর্থের পরিমাণ বলা হয়েছে ৬৬ কোটি ৭৫ লাখ সুইস ফ্রাঁ। প্রতি ফ্রাঁ ৮৪ টাকা ধরে বাংলাদেশি মুদ্রায় এর পরিমাণ ৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা।

যেখানে ২০১৫ সালে বাংলাদেশিদের গচ্ছিত অর্থের পরিমাণ ছিল ৪ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। এক বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ১৮ শতাংশ। দুর্নীতির অর্থই পাচার হচ্ছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এর আগে গত মে মাসে প্রকাশিত ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা ও পরামর্শক প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টিগ্রিটির (জিএফআই) প্রতিবেদনেও বাংলাদেশ থেকে অর্থ পাচারের ভয়াবহ তথ্য তুলে ধরা হয়।

জিএফআইয়ের তথ্যমতে, ২০১৪ সালে এ দেশ থেকে বিভিন্ন দেশে প্রায় ৭৪ হাজার কোটি টাকা পাচার হয়েছে।

সূত্র জানায়, ওভার ইনভয়েসিং এবং আন্ডার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে বেশিরভাগ অর্থ পাচার হচ্ছে। যাকে ট্রেড বেজড লন্ডারিং বলা হচ্ছে। এ ছাড়া হুন্ডি এবং আকাশপথেও অর্থ পাচার হচ্ছে। দেশের বাইরে এভাবে অর্থ পাচার ঠেকানো ও পাচারকারীদের শনাক্ত করে শাস্তির আওতায় আনতে দেশের কোনো তদন্ত সংস্থাই কার্যকর কিছু করতে পারছে না। এমনকি দুদকও আইনি অক্ষমতায় জোরালো কিছু করতে পারছে না।

২০১৫ সালে মানি লন্ডারিং আইন সংশোধন করে শুধু ঘুষ ও দুর্নীতির টাকা লন্ডারিংয়ের তদন্তের এখতিয়ার দেয়া হয় দুদককে। ট্রেড বেজড অর্থ পাচারের তদন্তের এখতিয়ার দেয়া হয় এনবিআরকে।

এ ছাড়া সংশোধিত আইনে পুলিশের অপরাধ বিভাগ সিআইডি, বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইনটেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরকে তদন্তের এখতিয়ার দেয়া হয়। তবে এসব সংস্থাকে তদন্তের ক্ষমতা দেয়া হলেও সুইচ ব্যাংকসহ দেশের বাইরে অর্থ পাচারের বড় কোনো ঘটনা বা বড় কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে এখনও কোনো ব্যবস্থা নেয়া যায়নি। অন্যদিকে দুদকও আছে আইনি সীমাবদ্ধতায়।

তবে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘আমরা হাইকোর্ট থেকে সম্প্রতি একটি রায় পেয়েছি। তার আলোকে দুদক অর্থ পাচারের যে কোনো ঘটনা বা যে কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে তদন্ত করতে পারবে। দুদক মনে করে, কালো টাকাও দুর্নীতির টাকা। ফলে এ বিষয়ে অপরাধীদের বিরুদ্ধে কার্যক্রম চলমান রাখা হবে।’

সুত্র-যুগান্তর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24