বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০২:২০ অপরাহ্ন

ঘরে ঢুকে পিস্তল ঠেকিয়ে লুট, ৫ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১০ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৫১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::

যশোরের কেশবপুরে গভীর রাতে তল্লাশির নামে মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কারসহ মালামাল লুট করার অভিযোগে পুলিশের ৩ উপপরিদর্শকসহ (এসআই) ৫ পুলিশ ও এক সোর্সের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে।

উপজেলার আটন্ডা গ্রামের বজলুর রহমান মোড়লের স্ত্রী আয়েশা বেগম বাদী হয়ে বুধবার যশোর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালতে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন- কেশবপুর থানার এসআই মুজাহিদুল ইসলাম, এএসআই আশরাফুল ইসলাম, এএসআই জাহাঙ্গীর হোসেন, কনস্টেবল সালাউদ্দীন, ড্রাইভার মো. মজনু ও পুলিশের কথিত সোর্স উপজেলার বাগদা গ্রামের মৃত করিম মোড়লের ছেলে ফজলুর রহমান।

মামলার আইনজীবী মো. মোকার উদ্দীন (কামরুল) জানান, আগামী ২১ ডিসেম্বরের মধ্যে ঘটনা তদন্ত করে আদালতকে প্রতিবেদন দিতে যশোর পুলিশ ইনভেস্টিগেশন ব্যুরোর (পিবিআই) ওপর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার আটন্ডা গ্রামের বজলুর রহমান মোড়লের ৩ ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন, জাহিদুল ইসলাম ও শহিদুল ইসলাম ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন।

এছাড়া জাহিদুল ইসলাম পুরনো মোটরসাইকেল বেচাকেনার ব্যবসায় জড়িত।

পুলিশের কথিত সোর্স ফজলুর রহমান প্রায় সময় জাহিদুল ইসলামের কাছে মোটা অংকের টাকা দাবি করত। এ টাকা দিতে অস্বীকার করায় গত ৬ নভেম্বর রাত ১টা ৪৫ মিনিটের দিকে ওই সোর্সের কথামতো পুলিশের পোশাক পরিহিত এসআই মুজাহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে ৫ পুলিশ সদস্য আয়েশা বেগমের বাড়িতে গিয়ে দরজা খুলতে বলেন।

এ সময় তারা অবৈধ অস্ত্র ও মাদক তল্লাশির নামে ঘরের ভেতর ঢুকতে গেলে আয়েশা বেগম বাধা দেন।

এ সময় আয়েশার মাথার চুল ধরে মাটিতে ফেলে লাথি মারতে থাকেন পুলিশ সদস্যরা।

এক পর্যায়ে আয়েশার তিন ছেলের মাথায় এএসআই আশরাফুল, এএসআই জাহাঙ্গীর ও কনস্টেবল সালাউদ্দীন পিস্তল ঠেকিয়ে তাদের জিম্মি করে মোটরসাইকেল বিক্রির নগদ ২ লাখ ১০ হাজার টাকাসহ ৩ লাখ টাকা মূল্যের ৬ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করেন।

পরে এ নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে তাদের ক্রসফায়ারে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে তারা চলে আসেন।

সকালে এ ঘটনায় থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নিতে অস্বীকার করায় অবশেষে আয়েশা বেগম আদালতে মামলা করেন।

এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার এসআই মুজাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘তিনি ঘটনার দিন সঙ্গে ফোর্স নিয়ে আয়েশা বেগমের বাড়িতে যান। তার এক ছেলে মাদকসেবী। কিন্তু সে অসুস্থ থাকায় তাকে আটক করা হয়নি এবং তাদের ঘরে প্রবেশ করা হয়নি। মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাদের হয়রানি করা হচ্ছে’।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24