রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

ছাতক আ.লীগের দুই পক্ষে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচী চলছে

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭
  • ৪২ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
জেলার ছাতকের সিংচাপইড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মো. সাহেল (৪০)’এর বিরুদ্ধে ছাতক থানায় দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়েরকে কেন্দ্র করে ছাতক উপজেলা আওয়ামী লীগের বিবদমান দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। জেলার সবচেয়ে বড় উপজেলা ছাতকের জনপ্রতিনিধিরা এ ঘটনায় বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের সমর্থক ছাতকের ৭ ইউপি চেয়ারম্যান এবং উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান যৌথভাবে ইউপি চেয়ারম্যান সাহেলকে সন্ত্রাসী এবং সরকারের উন্নয়নের বিরোধী আখ্যায়িত করে তার বিরুদ্ধে স্মারকলিপি প্রদান, মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচী পালন করছেন। অন্যদিকে, ছাতক পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী’র সমর্থকরা সাহেলকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার আখ্যায়িত করে তাকে ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় জড়ানো হয়েছে দাবি করে কর্মসূচি পালন করছেন। এই নিয়ে ছাতক উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই পক্ষে উত্তপ্ত অবস্থা বিরাজ করছে।
গত ১৩ আগস্ট ছাতক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু ছাদাত লাহিনসহ ৮ জন জনপ্রতিনিধি স্বাক্ষরিত জেলা প্রশাসকের নিকট দায়ের করা আবেদনে উল্লেখ করা হয়- ‘ছাতক উপজেলার সিংচাপইড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উপজেলার চিহ্নিত সন্ত্রাসী। ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে উপজেলা পরিষদের প্রথম পরিচিতিমূলক সভা থেকে শুরু করে সর্বশেষ ১০ আগস্ট মাসিক সমন্বয় সভার পরিবেশ নষ্ট করে দেন সাহেল। এর আগে গত ২ আগস্ট সাহেলের অনিয়ম দুর্নীতি এবং সন্ত্রাসী কার্যকলাপের প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে আবেদন করায় ঐ ইউপি’র ৩ সদস্যকে নির্বাহী কর্মকর্তার কক্ষে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে।’ জনপ্রতিনিধিদের দায়ের করা লিখিত অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়- ‘সাহেল আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে প্রাণ নাশের হুমকি প্রদান করায় তিনি দীর্ঘদিন অফিসে বসেননি। প্রাণভয়ে তিনি ছাতক উপজেলার দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে বর্তমানে দোয়ারাবাজার উপজেলার দায়িত্ব পালন করছেন। গত ১৭ এপ্রিল সাহেল উপজেলা সমন্বয় সভায় কোন কারণ ছাড়াই উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা বিজিত রঞ্জন করকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে। উপজেলা পরিষদের কর্মচারী আব্দুর রউফকে ইউএনও’র সামনেই শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে। সাহেলের সন্ত্রাসী আচরণের কারণে ছাতক উপজেলা প্রশাসনের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক কর্মকর্তা স্বউদ্যোগে বদলী হয়ে অন্যত্র যেতে বাধ্য হয়েছেন। তার এই সন্ত্রাসী আচরণের কারণে উপজেলার প্রশাসনিক কাজে স্থবিরতা নেমে এসেছে। এ কারণে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মসূচী বাস্তবায়ন বিলম্বিত হবার পাশপাশি জনগণ প্রাপ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। গত ১৭ জুলাই সুনামগঞ্জে পুলিশ সুপারের সঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যানদের মতবিনিময় সভায় অপ্রাসঙ্গিক বিষয়ে বক্তব্য দিয়ে সভার পরিবেশ নষ্ট করার অপচেষ্টা করে সাহেল। শেষে বিভিন্ন ইউপি চেয়ারম্যানদের প্রতিবাদ এবং পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপে পরিবেশ শান্ত হয়। সাহেলের সন্ত্রাসী কার্যক্রমের প্রতিবাদ করায় গত ১৭ মার্চ এবং ১০ আগষ্ট উত্তর খুরমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদকে তার সহযোগীসহ হামলা এবং জনপ্রতিনিধিদের দীর্ঘক্ষণ জিম্মি করে রাখে ছাতক উপজেলা পরিষদে। পরে পুলিশ এসে সকলকে উদ্ধার করে।’
লিখিত আবেদনে এসব জনপ্রতিনিধিরা উল্লেখ করেন, ‘সাহেলের এহেন সন্ত্রাসী কার্যকলাপের দ্রুত প্রতিকার পাওয়া না গেলে পরিষদের কার্যক্রমে নিজেদের সম্পৃক্ত রাখা আমাদের জন্য অসম্ভব, তেমনি ভয়ভীতি নিয়ে প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণের দায়িত্ব পালন করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে।’ লিখিত আবেদনকারীরা হলেন- ছাতক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু সাদাত মোহাম্মদ লাহিন, ইউপি চেয়ারম্যান গয়াছ আহমদ, মো. শায়েস্তা মিয়া, মো. আওলাদ হোসেন, বিল্লাল আহমদ, মো. মুরাদ হোসেন, আব্দুল মছব্বির ও আব্দুল হেকিম।
এদিকে, ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের উপর হামলা ও ছিনতাইয়ের ঘটনায় ছাতক থানায় দ্রুত বিচার আইনে মামলা (মামলা নম্বর- ১৫, তারিখ-১৩.০৮.২০১৭ ইং) হয়েছে। পুলিশ ১ আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে। এই মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান সাহেলসহ ৭ জনকে আসামী করা হয়েছে। মামলার বাদী হয়েছেন- সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকের চাচাতো ভাই উত্তর খুরমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ।
মামলা দায়েরের পর থেকে ছাতক উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই পক্ষে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচী চলছে।
সোমবার বিকালে ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন সাহেলের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনের মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে জেলা পরিষদ সদস্য আজমল হোসেন সজল ও ছাতক পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র তাপস চৌধুরী’র নেতৃত্বে ছাতক শহরে মিছিল হয়েছে। মিছিলের নেতৃত্বে আরো কয়েকজন পৌর কাউন্সিলরও ছিলেন।
মঙ্গলবার সিংচাপইড় ইউনিয়নের খামারগাঁওয়ে সাহেলের সন্ত্রাসী কার্যক্রমের বিচারের দাবিতে এক পক্ষ পাসগাঁও বাজারে এবং সাহেলের মুক্তির দাবিতে আরেকপক্ষ ইউনিয়নের কালীপুর পয়েন্টে মানববন্ধন করে। এই কর্মসূচী নিয়েও (বিকাল সাড়ে ৫ টা পর্যন্ত) দুই পক্ষে উত্তেজনা ছিল।
ইউপি চেয়ারম্যান সাহেলের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার বাদী উত্তর খুরমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ বলেন,‘ছাতক পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম চৌধুরীর ভাগ্নে পরিচয় দিয়ে সাহেল একের পর এক সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। আমাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। তার আচরণে উপজেলা সমন্বয় সভায় বসা যায় না। কর্মকর্তারাও অতিষ্ট, বাধ্য হয়ে মামলা দায়ের করেছি। সাধারণ মানুষসহ আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরাও তার বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন।’
ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন সাহেলের মুঠোফোন বন্ধ থাকায় এসব বিষয়ে তার বক্তব্য নেওয়া যায়নি।
ছাতক পৌরসভার মেয়র আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম চৌধুরী দেশের বাইরে। ভারপ্রাপ্ত মেয়র তাপস চৌধুরী বলেন,‘সাহেল কোন সরকারী কর্মকর্তাকে লাঞ্ছিত করেছেন, এ ধরনের কোন অভিযোগ বা মামলা হয়নি। যারা সাহেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে তারা দুর্নীতিবাজ। সাহেল দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার। তাকে দমানোর জন্য এই মামলা হয়েছে।’
আবুল কালাম চৌধুরী’র ভাই শামীম চৌধুরী বলেন,‘ইউপি চেয়ারম্যান সাহেলকে সন্ত্রাসী বানানোর চেষ্টা হচ্ছে। উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা বিজিত রঞ্জন কর সিংচাপইড় ইউনিয়নের একটি উচ্চ বিদ্যালয়ের নির্বাচনে জাল ভোটার প্রস্তুত করায় সাহেলের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়েছিল। পরে শেষ হয়েছে। ছাতক উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা এমএ করিম (বর্তমানে দোয়ারাবাজার উপজেলায় কর্মরত) সাহেলের কাছে কমিশন চাওয়ায় মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়েছিল। এটিও শেষ করে দিয়েছি। সাহাব উদ্দিন সাহেল ও এমপি মুহিবুর রহমান মানিকের ভাই বিল্লাল আহমদের মধ্যে হাতাহাতি হয়েছে। এটি দ্রুত বিচার আইনে মামলার ঘটনা নয়। উন্নয়ন না হওয়ায়, দুর্নীতি এবং স্বজনপ্রীতির বিরুদ্ধে কথা বলায় এমপি মুহিবুর রহমান মানিকের কূটকৌশলের শিকার চেয়ারম্যান সাহেল। তার বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগই মিথ্যা।’
প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা এমএ করিমের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলার জন্য একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা বিজিত রঞ্জন কর বলেন,‘সাহেল কেবল আমার সঙ্গে নয়, সবার সঙ্গেই খারাপ আচরণ করেছে। আমার বিষয়টি পৌর মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী পরে শেষ করে দিয়েছেন।’
ছাতক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল বলেন,‘ইউএনও খবর দিয়ে সিংচাপইড় ইউপি’র ৩ জন সদস্যকে সমন্বয় করে দেবার জন্য অফিসে ডাকেন। ঐ সময়ও ইউপি সদস্যগণ মারপিঠের শিকার হন। আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে চাইলেও সংসদ সদস্য বাধা দেন। পরবর্তীতে আরেকদিন মাসিক সভায় সাহেল অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। ঐ ঘটনার পর ৯ জন জনপ্রতিনিধি এমপি সাহেবের কাছে ঢাকায় গিয়ে নালিশ করেন। তিনি কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করেননি। এসব কারণেই পরিস্থিতি ঘোলাটে হয়েছে।’
সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক এ প্রসঙ্গে বলেন,‘২০০০ সালের ১৬ আগস্ট খুরমা উচ্চ বিদ্যালয়ে আমার উপর গুলি হয়েছিল। সিংচাপইড় ইউপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আব্দুল খালিক ঐ সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে পঙ্গু হয়ে যান। গুলি করার মূল আসামী ছিল সাহাব উদ্দিন সাহেল। ১৯৯৯ সালে সাবেক পৌর মেয়র আব্দুল ওয়াহিদ মজনু’র বাবলু রেস্ট হাউস ভাংচুরের মামলার আসামী সে। সিংচাপইড়সহ ঐ এলাকায় শাহীন, আব্দুস সালাম ও সাহেলের নেতৃত্বে সন্ত্রাসী বাহিনী রয়েছে। সম্প্রতি. সিংচাপইড়ের পাশের দক্ষিণ খুরমা ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান রুনু চৌধুরী’র নাতি পিয়াস চৌধুরী’র লাশ পাওয়া যায় সড়কের পাশে। এ ঘটনায় ২ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। পুলিশ তদন্ত করলে এই ঘটনায় আরও কোন সন্ত্রাসী যুক্ত আছে কী-না বের হতে পারে। আমি শামীম চৌধুরী’র কথা’র জবাব দিতে চাই না। আমার নির্বাচনী এলাকায় ২২ টি ইউনিয়ন ১ টি পৌরসভা রয়েছে। ১০০ জনের বেশি জনপ্রতিনিধি আমার রাজনৈতিক জীবনে ঐ অঞ্চলে নির্বাচিত হয়েছেন, আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি। আমি কারো বিরুদ্ধে কূটকৌশল কিংবা অসৌজন্যমূলক আচরণ করেছি, এটি বলতে পারবেন না।’ তিনি দাবি করেন, সাহাব উদ্দিন সাহেলের ভাই রাসেলের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা চলছে, এই মামলা কার কূটকৌশলে হয়েছে?’
সাহাব উদ্দিন সাহেলের বিরুদ্ধে জনপ্রতিনিধিদের দায়ের করা লিখিত অভিযোগ প্রসঙ্গে জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম বলেন,‘ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন সাহেলের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ পুলিশ সুপার সাহেবের কাছে পাঠিয়ে এই বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন চাওয়া হয়েছে। এছাড়া সে যেহেতু একজন ইউপি চেয়ারম্যান স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালককে এ বিষয়ে তদন্তের জন্য বলা হয়েছে।’
সহকারী পুলিশ (ছাতক সার্কেল) মো. দোলন মিয়া বলেন,‘সাহেলসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা দ্রুত বিচার আইনের মামলায় একজন গ্রেপ্তার হয়েছে। আমরা অন্যদের খুঁজছি।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24