শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
বোরকা পরে সমাবর্তনে যাওয়ায় প্রথম হয়েও স্বর্ণপদক পেলেন না নিশাত জগন্নাথপুরে কাল শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকবে না মিরপুরে প্রতীক বরাদ্দের আগেই প্রচারণায় প্রার্থীরা! জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে টমটম চালকের আত্মহত্যা জগন্নাথপুরে শিল্পকলা একাডেমির সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর বাজারকে সিসি ক্যমেরার আওতায় আনতে মতবিনিময়সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিছন্নতা সামগ্রী ও প্রচারপত্র বিতরণ কার্যক্রম শুরু রাতভর ৪ ক্যাসিনোতে অভিযান নারায়ণগঞ্জে মা ও দুই মেয়েকে গলা কেটে হত্যা যুক্তরাজ‌্যে বসবাসতরত জগন্নাথপুরের আ.লীগ পরিবারের মিলনমেলা

ছাত্রছাত্রীদের হাতে বিনামূল্যে ল্যাপটপ দিবে সরকার-সজীব ওয়াজেদ জয়

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৪ মে, ২০১৫
  • ৫৮ Time View

স্টাফ রিপোর্টার -তিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৫০ জন শিক্ষার্থীর হাতে ল্যাপটপ তুলে দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, দেশের সকল ছাত্রছাত্রীর হাতে ৩৩ কোটি বই বিনামূল্যে বিতরণ করা শুরু করে বর্তমান সরকার। একই সরকার আজ থেকে ছাত্রছাত্রীদের হাতে বিনামূল্যে ল্যাপটপ বিতরণ আরম্ভ করলো। গতকাল বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল মিলনায়তনে ল্যাপটপ বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন। সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, স্বপ্ন আছে; দেশে আইটি ইন্ডাস্ট্রি, আইটি ওয়ার্ক ফোর্স গড়ে তোলার। মার্ক জাকারবার্গ ১৯ বছর বয়সে ফেসবুক বানিয়েছিলেন। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ভবিষ্যৎ ফেসবুক ভবিষ্যৎ গুগল তোমাদের মধ্য থেকেই কেউ আবিষ্কার করবে। তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এক্সিম ব্যাংকের সহযোগিতায় ‘ওয়ান স্টুডেন্ট, ওয়ান ল্যাপটপ’ প্রকল্পের প্রথম ধাপে ৫০০ ল্যাপটপ বিতরণ করা হবে। এর অংশ হিসাবে এ অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আড়াইশ শিক্ষার্থীকে ল্যাপটপ দেয়া হয়। জয় বলেন, এটা কেবল আরম্ভ। ৫০০ ল্যাপটপ দিয়ে শুরু করছি। আরও হাজার হাজার ল্যাপটপ বিতরণ করবে, তোমাদের হাতে ল্যাপটপ পৌঁছে দেবে সরকার। জয় বলেন, যখন ডিজিটাল বাংলাদেশের পরিকল্পনা প্রকাশ করি, তখন অনেকেই প্রশ্ন করেছিল, আমাদের দেশের মানুষতো দরিদ্র। তারা কম্পিউটার কিনবে কীভাবে, তারা ইন্টারনেট কানেকশনইবা কিনবে কীভাবে। তখন বলেছিলাম, তাদের কাছে কম্পিউটার, ইন্টারনেট কানেকশন পৌঁছে দেয়া হবে। সাড়ে ৩ বছরে সরকার ৫ হাজার ‘ডিজিটাল সেন্টার’ তৈরি করেছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা বলেন, এখন দেশে এমন কোন ইউনিয়ন নেই, যেখানে কম্পিউটার ল্যাব বা ডিজিটাল সেন্টার নেই। দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ‘ডিজিটাল ল্যাব’ চালুর কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, দেশের ১১৮টি বিশ্ববিদ্যালয়কে ফাইবার অপটিক কেবল দিয়ে সংযুক্ত করতে কাজ চলছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ফ্রি ওয়াইফাই জোন করার কাজও আরম্ভ হয়ে গেছে। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, শুধু একটি বিষয় ভুলবে না বছরের প্রথম দিন নতুন বই, এ ল্যাপটপ তোমাদের কে দিয়েছে? এটা সম্ভব হয়েছে এই সরকারের কারণে। আরও হাজার হাজার ল্যাপটপ বিতরণ করব। তোমরা এ অবদান ভুলবে না। অনুষ্ঠানে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের টেলিটকের পক্ষ থেকে একটি করে ইন্টারনেট মডেম ও কম্পিউটার কাউন্সিলের পক্ষ থেকে একটি করে পেন ড্রাইভও দেয়া হয়। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান, এক্সিম ব্যাংকের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মজুমদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, বুয়েটের ভিসি খালেদা একরাম, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত ভিসি ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। নজরুল ইসলাম মজুমদার জানান, প্রাথমিকভাবে ৫০০ ল্যাপটপ দেয়া হলেও পরে আরও দুই হাজার ল্যাপটপ দেবে তার ব্যাংক। এছাড়া মন্ত্রণালয় ল্যাপটপ কেনার জন্য ছাত্রছাত্রীদের স্বল্পসুদে ঋণ দেয়ার উদ্যোগ নিলে বাংলাদেশ ব্যাংক তার ব্যবস্থা নেবে উল্লেখ করে ড. আতিউর রহমান বলেন, দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রয়োজনীয় নীতি সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে, যা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। ইতিমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক নিজেকে একটি তথ্যপ্রযুক্তি-নির্ভর প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলেছে এবং সমগ্র ব্যাংকিং খাতকেও তথ্যপ্রযুক্তি-সমৃদ্ধ করতে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে। ব্যাংকিং খাতের জন্য অনলাইন সিআইবি ও পেমেন্ট সিস্টেম অবকাঠামোতে আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির প্রয়োগ ঘটিয়ে এসব কাজকে দ্রুততর করা হয়েছে। মোবাইল ফোন ও স্মার্ট কার্ডভিত্তিক আর্থিক সেবা, অনলাইন ব্যাংকিং, ই-কমার্স, ইন্টারনেট ব্যাংকিংসহ ব্যয়সাশ্রয়ী আর্থিক সেবার নানা কৌশলের দ্রুত বিস্তারে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো স্বতঃস্ফূর্তভাবে এগিয়ে এসেছে। বর্তমানে ৯০ শতাংশ ব্যাংক অনলাইন ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছে। ২০০৯ সালে ই-কমার্স কার্যক্রম নিয়ে একটি নীতিমালা জারি করা হয়। এর ফলে অনলাইনে গ্রাহকরা নিজ হিসাব থেকে প্রাপকের ব্যাংক হিসাবে ইউটিলিটি বিল পরিশোধ, গ্রাহকের এক হিসাব থেকে একই ব্যাংকের অন্য হিসাবে অনলাইনে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থ স্থানান্তর, ই-কমার্স ব্যবস্থায় ক্রয়-বিক্রয়ের মূল্য পরিশোধ এবং স্থানীয় মুদ্রায় ইন্টারনেটে ক্রেডিট কার্ডে লেনদেন করা যাচ্ছে। এছাড়া ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে লেনদেন সহজতর করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকে ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচ স্থাপন করা হয়েছে। ওয়েব পোর্টাল ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে পণ্য বা সেবা বিক্রয়, ফ্রিল্যান্সিং, বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে প্রাপ্ত অর্থ প্রত্যাবসন, আন্তর্জাতিক ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে অনলাইনে সীমিত আকারে পণ্য বা সেবা ক্রয়ের সহজতর নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24