বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০৮:১৬ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগী গেলেই রেফার্ড

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ৩৬ Time View

আজহারুল হক ভূইয়া শিশু:: জগন্নাথপুর উপজেলার তিন লাখ জনগোষ্টির চিকিৎসার প্রধান অবলম্বন ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটি ডাক্তার, নার্স, ওষধ সংকট, সহ ব্যাপক অনিয়ন, দূর্নীতি, চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগ রয়েছে। ফলে উপজেলাবাসীকে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। সরকারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টাকা ছাড়া কোন চিকিৎসা হয়না বলেও এমন অভিযোগও রয়েছে। চিকিৎসকরা সার্বক্ষনিক ঘরে বসে প্রাইভেট প্র্যাকটিস নিয়ে ব্যস্ত থাকেন।
সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা অধিকাংশ সময়ই দাপ্তরিক কাজে ব্যস্ত থাকেন। যে কারণে সার্বক্ষনিত তদারকি করা সম্ভব হয়না। গতকাল রোববার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ঘুরে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার রোগীর সাথে কথা বলে জানা যায়, জরুরী বিভাগে প্রায় সময়ই ডাক্তার থাকেন না। এমএলএসএসরা দায়িত্ব পালন করেন। পৌর এলাকার যাত্রাপাশা গ্রাম থেকে আসা রোগীর স্বজন নিলেন্দু গোপ জানান, সরকারী হাসপাতালে (আইয়া) আসিয়া (খালি)শুধূ নাই আর নাই শুনতে হয়। গরীব রোগী যাইবার জাগা কই।
হবিবপুর আশিঘর এলাকার বাসিন্দা মামুন আহমদ বলেন, সামান্য কোনো বিষয় নিয়ে হাসপাতালে গেলে ডাক্তাররা তাদের দায়িত্ব এড়াতে রোগীকে চিকিৎসা না দিয়ে রের্ফাড করে থাকেন। তার কথার সত্যতা পাওয়া যায় শনিবার রাতে সৈয়দপুরের এক যুবক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষোভ প্রকাশ করে তার এক স্বজনকে নিয়ে হাসপাতালে আসার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে
সিলেট এমএ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করার কথা তুলে ধরে একটি স্ট্যাটার্স দেন। বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইলে রোববার জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরির্দশন করে চিকিৎসকদের সাথে এবিষয়ে আলোচনা করেন। এসময় চিকিৎসকরা তাদের জনবল সংকটের কথা তুলে ধরেন। উপজেলার পাটলী গ্রামের বাসিন্দা লিটন মিয়া বলেন হাসপাতালে নতুন এক্স্ররে মেশিন এসেছিল ব্যবহার না হওয়ায় নষ্ট হয়ে গেছে। এখন বাহির থেকে এক্সরে করতে হয়।

j.pur pic জগন্নাথপুর গ্রামের বাসিন্দা রুমানুল হক রুমেন বলেন ৫১ শয্যার জন্য সুন্দর ভবন হয়েছে কিন্তুু সেবা নেই ৩১ শয্যারও। যারা দায়িত্বে রয়েছেন তারাও টাকা ছাড়া দরিদ্ররোগীদেরকে কোন ধরনের সেবা দেন না।
ইকড়ছই গ্রামের বাসিন্দা মুহিবুল ইসলাম বুলবুল ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, গরিবের বন্ধু হিসেবে হাসপাতালে পরিচিত একমাত্র ডাঃ মধু সুদন ধর কে অদৃশ্য কারণে অন্যত্র বদলী করা হয়েছে। যা জগন্নাথপুরের মানুষ কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না। বুলবুলের মতো আরো অনেকেই ডাক্তার মধুকে জগন্নাথপুরে ফিরিয়ে দেয়ার জোর দাবি জানিয়েছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স দপ্তর সূত্র জানায়, হাসপাতালে ২৬ জন চিকিৎসকের মধ্যে ১৬টি পদ শুন্য রয়েছে। নার্স ১৭ জনের মধ্যে কর্মরত মাত্র ২ জন। তন্মেধ্যে ১৫টি পদ শুন্য রয়েছে। এছাড়াও ওই দুই জনের মধ্যে একজন রয়েছে বির্তকিত নার্স খুদেজা বেগম। একাধিকবার তাকে বদলী করা হলেও তিনি ফিরে এসে খেয়াল খুশিমতো সেবা দেন। ফলে রোগীরা সীমাহীন দুর্ভোগে রয়েছেন। এছাড়াও আয়া ৫ জনের মধ্যে মাত্র ১ জন রয়েছেন, ,সুইপার ৮জনের মধ্যে মাত্র ২ জন রয়েছে। এছাড়াও নাইটগার্ড, ঝাড়ুদার. ওয়ার্ডবয় সহ বেশকিছুপদ দীর্ঘদিন ধরে শুন্য রয়েছে। ১৪ আগষ্ট স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী হাসপাতালে একটি নতুন অ্যাম্বুলেন্স প্রদান করেন।
স্বাস্ব্য কমপ্লেক্সের সমস্যাদি নিয়ে আলাপ হয় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা ডাঃ শামস উদ্দিন আহমদের সাথে। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অনিয়ম দুর্নীতির কথা অস্বীকার করে বলেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সমস্যাদি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জানানো হয়েছে। সকলের সহযোগীতা নিয়ে সীমিত লোকবল নিয়েই মানুষের সেবা দিতে চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন, অতি সম্প্রতি স্থানীয় সংসদ সদস্য মন্ত্রী এম এ মান্নান হাসপাতাল এলে তাকে বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরলে তিনি একটি ডিও প্রদান করেছেন। আশা করছি কিছুদিনের মধ্যে হাসপাতালের জনবলসহ সংকট দূর হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24