সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০২:০০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে প্রতিবাদের ঝড় বইছে, পাথরই হাতিয়ার, নিহত ট্রাক চালক ছাত্রলীগের দু’পক্ষে সংঘর্ষ,গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ ফারুক হত্যা মামলায় এক রোহিঙ্গা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম

জগন্নাথপুরের এক অটোরিকশাচালককে অস্ত্র মামলায় ফাঁসাল পুলিশের এসআই

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৫২ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি ::
জগন্নাথপুরের এক অটোরিকশাচালককে অস্ত্র মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। গ্রাম্য বিরোধের জের ধরে একটি পক্ষ এক উপপরিদর্শক (এসআই) এবং তাঁর তথ্যদাতাকে (সোর্স) দিয়ে অস্ত্রসহ তাঁকে গ্রেপ্তারের এ ঘটনা সাজান। পুলিশের প্রতিবেদনেই অটোরিকশাচালক নিরপরাধ এবং তাঁকে ফাঁসানোর কথা উল্লেখ করা হয়েছে।
অভিযোগ উঠেছে, দুই পক্ষের কাছ থেকেই ঘুষ নিয়েছেন ওই এসআই শিবলী কায়েছ মীর। তবে তিনি এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।
ঘটনার শিকার অটোরিকশাচালকের নাম নূর মিয়া (৩৮)। তাঁর বাড়ি জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়নের পূর্ব বুধরাইল গ্রামে। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার তাঁর চাচা তারিফ উল্লাহ সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। নূর মিয়া ১ মাস ১১ দিন কারাভোগের পর গত সোমবার জামিনে মুক্তি পেয়েছেন।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ১৪ আগস্ট দুপুরে সুনামগঞ্জ পৌর শহরের ওয়েজখালী এলাকার বলাকা সিএনজি ফিলিং স্টেশন থেকে তাঁকে আটক করেন সুনামগঞ্জ সদর থানার এসআই শিবলী কায়েছ মীর। পরে সদর থানায় তিনি নূর মিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা করেন। মামলার এজাহারে তিনি নূর মিয়ার অটোরিকশায় থাকা ব্যাগ থেকে একটি হাতে তৈরি লোহার পাইপগান উদ্ধার করেছেন বলে উল্লেখ করেন।
এই মামলাটি তদন্ত করছেন সদর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) আতিকুর রহমান। ২৪ সেপ্টেম্বর আদালতে দেওয়া মামলার অগ্রগতি প্রতিবেদনে তিনি উল্লেখ করেছেন, আসামি নূর মিয়ার বড় ভাই এলাইছ মিয়া গ্রামের মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক। মসজিদের গেট নির্মাণ নিয়ে কিছুদিন আগে একই গ্রামের হারুন মিয়ার প্রতিপক্ষের লোকজনের সঙ্গে বিরোধ চলছিল। এর জের ধরে এসআই তার সোর্স সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার পৈন্দা গ্রামের সালমান ইসলামের মাধ্যমে ১৪ আগস্ট জগন্নাথপুর থেকে নূর মিয়ার অটোরিকশায় দু’জন লোককে যাত্রী সাজিয়ে অস্ত্রসহ তুলে দেন। সুনামগঞ্জ শহরের বলাকা সিএনজি স্টেশনে এলে যাত্রীরা নেমে যান। সালমান তখন পুলিশকে সংবাদ দিলে পুলিশ এসে অস্ত্র উদ্ধার করে।
পুলিশ কর্মকর্তা আতিকুর রহমান ওই প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করেন, নূর মিয়া ষড়যন্ত্রের শিকার।
তবে হারুন মিয়ার পক্ষের লোকজন এ ঘটনার সঙ্গে তাদের কোন সম্পৃক্ততা নেই। অন্যকোন পক্ষ বিষয়টি জটিল করার স্বাথে এ ধরনের ঘটনা ঘটিতে থাকতে পারে বলে তারা মনে করচ্ছেন।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, সালমান এসআই কায়েছের সোর্স হিসেবে কাজ করেন।তার মাধ্যমে এসআই’র সাথে চুক্তি হয় প্রথমে দুই তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ আছে ওই গ্রামের আনিছুর রহমানের। প্রথমে আনিছুর সালমানকে এই পরিকল্পনার কথা জানান। পরে সালমান এসআই কায়েছের সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলে নূর মিয়াকে অস্ত্রসহ আটক করান। এসআই কায়েছের সঙ্গে চুক্তি ছিল, নূর মিয়ার সঙ্গে এই মামলায় আকবুল ও সুমিমকে পলাতক আসামি করতে হবে।
সালমান ইসলাম দাবি করেন, এসআই কায়েছ রাজি হওয়ার পরই পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করেন তাঁরা। এ জন্য কায়েছ প্রথমে দুই লাখ ও পরে এক লাখ টাকা দাবি করলেও সর্বশেষ ৬০ হাজার টাকায় কাজটি করতে রাজি হন। ঘটনার পরই সালমান তাঁকে ৪০ হাজার টাকা দেন। পরে আরও টাকার জন্য চাপ দেন কায়েছ। কিন্তু মামলায় আকবুল ও সুমিমকে আসামি না করায় তাঁকে আর টাকা দেওয়া হয়নি।
এ বিষয়ে এসআই মো. শিবলী কায়েছ মীর বলেন, ‘আমি এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত নই। বহু মানুষের সামনে নূর মিয়াকে অস্ত্রসহ আটক করেছি। কারও কাছ থেকে টাকা নিইনি। তবে অন্য এক লোক নূর মিয়ার ভাইয়ের কাছ থেকে টাকা নিয়েছে বলে শুনেছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘সালমান ছাড়া অন্য কাউকে আমি চিনি না। তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই আমি নূর মিয়াকে অস্ত্রসহ আটক করেছি।’
তবে এ বিষয়ে নূর মিয়ার চাচা তারিফ উল্লাহ পুলিশ সুপারের কাছে দেওয়া অভিযোগে উল্লেখ করছেন, নূর মিয়াকে ধরার পর এসআই কায়েছ তাঁর ভাই এলাইছ মিয়াকে ফোন করে এক লাখ টাকা চান। টাকা পেলে সিএনজিসহ তাঁকে ছেড়েও দেওয়া হবে বলে জানান। সে অনুযায়ী ১৪ আগস্ট দিবাগত রাত আড়াইটায় সদর থানার পাশের তাহিতি রেস্তোরাঁর সামনে এসআই কায়েছকে এক লাখ টাকা দেন তাঁরা। কিন্তু পরে আর তাঁকে ছাড়া হয়নি।
এব্যাপারে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার বরকত উল্লা জানান, বিষয়টি তদন্ত চলছে। প্রমাণিত হয়ে দোষিদের বিরুদ্ধে আইনানুগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24