বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:২৪ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরে কলেজ ছাত্রীর মৃত্যুর ঘটনায় আন্দোলনে নামছে শিক্ষার্থীরা, ধর্ষকের ফাঁসির দাবীতে ফেসবুকে ঝড়

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৬ আগস্ট, ২০১৭
  • ১৫৫ Time View

আলী আহমদ
জগন্নাথপুরে ধর্ষণের শিকার কলেজছাত্রী আত্মহত্যার ঘটনায় থানায় দায়েরকৃত মামলার কোন আসামী ধরা পড়েনি।
এদিকে কলেজছাত্রী রুমেনা বেগমের মৃত্যুর ঘটনায় আন্দোলনে নামছে শিক্ষার্থীরা। আগামী সোমবার আন্দোলনের কর্মসুচীর অংশ হিসেবে মানববন্ধন কর্মসুচীর ঘোষনা দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।
কর্মীসুচী সফল করতে শনিবার জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজের শিক্ষার্থীরা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে।

জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজের শিক্ষার্থী মাসুম হোসেন তার ফেসবুক আইডিতে ‘জগন্নাথপুরে কি মানবতা নাই, প্রশাসন জবাব চাই। মানবতা থাকলে বিচার চাই। ধর্ষণ কারীর ফাঁসি চাই—- ফাঁসি চাই’। স্ট্যাটাস আপলোড করেছে। জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজের অনেক শিক্ষার্থী তাদের নিজ নিজ ফেসবুক আইডিতে প্রতিবাদী এ স্ট্যাটাস আপলোড আপলোড করে প্রচার করা হচ্ছে।

জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজ শিক্ষার্থী মাসুম হোসেন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ‘আমরা আজ (শনিবার) নিহত কলেজছাত্রীর সহপাঠিসহ কয়েকজন শিক্ষার্থী তাদের বাড়িতে গিয়ে দেখলাম, রুমেনার মা, বাবা ও তার পরিবারের লোকজনের কান্না এখনো থামেনি। রুমেনার মা আমাদেরকে জড়িয়ে ধরে হাউমাউ করে কেঁদে বলেছেন, আমার মেয়ের হত্যাকারীর বিচার চাই। আমরা সেই সন্তান হারা মাকে কথা দিয়েছি, ন্যায় বিচার না পাওয়া পর্যন্ত ঘরে ফিরব না’। আমরা প্রশাসনকে অনুরোধ করছি, দ্রুত আসামীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্ঠান্তমুলক শাস্তি ব্যবস্থা গ্রহন করুন। অন্যতায় বৃহত্তর আন্দোলন ঘরে তোলবে’।

জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজের শিক্ষার্থী আদিল আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, আমাদের কলেজের দ্বাদশ শ্রেনীর মেধাবি ছাত্রী রুমেনা বেগম কলেজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে ধর্ষনের শিকার হলেও পায়নি কোন বিচার। এঘটনায় অপমান আর লজ্জায় বিষপান করে আত্মহত্যা করে সে। ঘটনার ৬দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ মামলার কোন আসামীকে ধরতে পারেনি। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে আন্দোলনে নেমেছে শিক্ষার্থীরা।

জানা যায়, উপজেলার পাটলী ইউনিয়নের কবিরপুর গ্রামের কৃষক আখলুছ মিয়ার মেয়ে জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী রুমেনা বেগমকে ২৫ জুলাই দুপুরে তারই খালাত্ব ভাই একই ইউনিয়নের চকাছিমপুর গ্রামের আবু মিয়ার ছেলে সিএনজি চালক ইউনুছ মিয়া ও তার বন্ধু আবদাল মিয়ার ছেলে শাহেদ মিয়া কলেজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে জোরপূর্বক অজ্ঞাত নির্জন স্থানে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। বিষয়টি কলেজছাত্রী তার পরিবারের লোকজনকে জানালে ওই রাতে মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে ইউনুছ মিয়ার পরিবারকে অবহিত করে বিচার প্রার্থী হন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউনুছের বাবা, ভাইসহ পরিবারের অন্যরা তাদেরকে মারধর করার জন্য এগিয়ে আসে। এ সময় ওই গ্রামের আরিফ উল্লা বিষয়টি সালিশের মাধ্যমে বিচার করে দেওয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু ঘটনার ৬ দিন অতিবাহিত হলেও আরিফ উল্লার সঙ্গে যোগাযোগ করে কোন সাড়া পাননি। এ ঘটনার পর থেকে লজ্জা আর ঘৃনায় কলেজ যাওয়া বন্ধ করে দেয় মেয়েটি। গত ৩১ জুলাই (সোমবার) ভোরে মেয়েটি বিষপান করে আত্মহত্যা করে।

এ ঘটনায় কলেজ ছাত্রীর বড় ভাই জুনেদ মিয়া বাদী হয়ে ইউনুছ মিয়া, শাহেদ মিয়াসহ ৬ জনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেন।

জগন্নাথপুর থানার ওসি হারুনুর রশিদ চৌধুরী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, পুলিশ আসামীদের ধরতে অভিযান চালিয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24