বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:৫৮ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে কোরবানীর পশুর হাট জমে উঠেছে

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ১৮ Time View

আজহারুল হক ভূইয়া শিশু:: মুসলমানদের দ্বিতীয় ধর্মীয় প্রধান উৎসব ইদুল আযহাকে সামনে রেখে জগন্নাথপুর উপজেলার কোরবানীর পশুর হাট জমে উঠেছে। তবে বাজারে পশুর আমদানী বেশী না হলেও দাম বেশী হওয়ার কারনে বেচাবিক্রি প্রথম দিকে পুরোদমে জমে না উঠলেও শেষ মুহুর্তে এসে বেচাকেনা জমে উঠছে। বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা। জগন্নাথপুর উপজেলা সদরে পৌরসভার অস্থায়ী গরুর হাট ছাড়াও রয়েছে উপজেলার সবচেয়ে বৃহৎ গরুর বাজার রসুলগঞ্জ বাজারে প্রচুর গরু উঠেছে। তাই ক্রেতা-বিক্রেতাদের উপছেপড়া ভীড় রযেছে এ বাজারে। গত শুক্রবার রাত ১০ টা পর্যন্ত এ বাজারে কেনাবচো হয়েছে।ঈদের আর মাত্র ক দিন বাকী থাকায় বাজারের ভীড়ও আস্তে আস্তে বেড়েই চলছে। শেষ মুহুর্তে আরো বেশী ভীড় হবে এবং রাত ১২ টা পর্যন্ত বেচাকেনা চলবে বলে জানিয়েছেন ক্রেতা-বিক্রেতা ও গরুর বাজার কর্তৃপক্ষ। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এবছরবিদেশী গরুর আমদানী কম থাকায় মধ্যবিত্ত এবং নিন্মবিত্ত মানুষকে কোরবানীর পশু কিনতে গিয়ে হিমশীম খেতে হচ্ছে। তবে প্রবাসী অধ্যুষিত এ উপজেলার অধিকাংশ মানুষ দেশীয় গরুর প্রতি আকৃষ্ট। এদিকে ঈদকে সামনে রেখে অনেক প্রবাসী দেশে এসছেন কোরবানী দিতে। ইতিমধ্যে অনেকেই কোরবানীর পশু কিনেছেন। কোরবানীর পশু কিনতে আসা লোকজন জানান, অন্য বছরের তুলনায় ইন্ডিয়া থেকে এবার গরু কম আমদানী হওয়ার কারনে দাম একটু বেশী। অনেককে কোরবানীর পশু না কিনে খালি হাতে ফিরে যেতে হয়েছে। তবে আরো দু-এক দিন অপেক্ষা করে কোরবানীর পশু কিনবেন বলে জানিয়েছেন অনেকে । বাজারে দাম বেশী থাকায় অনেক বিক্রেতাকেও তাদের আমদানীকৃত গরু বিক্রি না করে ফিরিয়ে নিয়ে যেতে হয়েছে ।বিশ্বস্থ সূত্রে জানা যায়,দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীরা অধিক মুনাফা লাভের আশায় গরু ব্যবসায়ী অবাধে গরুর শরীরে জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি স্বরুপ ক্ষতিকর বিভিন্ন ধরনের স্ট্রেরয়েট ইনজেকশন এবং ভারত থেকে আনিত ডেক্রামেথাসন খাওয়ার বড়ি আমদানী করে সুকৌশলে প্রযোগ করছে। জানাযায় এ ধরনের ইনজেকশন পুশ ও বড়ি খাওয়ানোর ফলে অল্প কিছুদিনের মধ্যে গরু ফুলে ফেপে ওঠে ওজন বৃদ্ধি করে। যার ফলে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে সহজ হয়। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের অভিমত ওই সমস্ত গরুর মাংশ খাওয়ার ফলে মানুষের যকৃত,কিডনি,মস্তিষ্ক ও হার্ট সহজেই আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।জনস্বাস্থ্যের জন্য তা কতিকর হলেও কর্তৃপক্ষের এ ব্যাপারে মাথা ব্যাথা নেই। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন সাধারন ক্রেতারা । তাই ক্রেতারা সবদিক বিবেচনা করে বিভিন্ন হাটবাজার ঘুরে সুন্দর গরু কেনার চেষ্ঠা করে যাচ্ছেন। জগন্নাথপুর উপজেলা প্রশাসন সাতটি অস্থায়ী গরুর হাট টেন্ডারের মাধ্যমে বসার অনুমোদন দিয়েছে। হাটবাজারগুলোতে চলেছে শেষ মুহুর্তের কেনাবেচা। তবে এসব বাজারে গরুর পাশাপাশি ছাগল বেড়া বেচাকেনা চলছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24