বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০, ০৭:০৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর উপজেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করতে হাঁস ও নগদ অর্থ বিতরণ সুনামগঞ্জে বিদেশী অস্ত্রসহ আটক ৪ হলিমপুর অনন্ত জিউর আখড়ার গুরুশ্রীল প্রভূপাদ জগদানন্দন দাস বৈষ্ণব মহারাজ পরলোকগমন দক্ষিণ সুনামগঞ্জে খিরা খাওয়া নিয়ে বিরোধে নিহত-১ প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে সরকার সবধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে : শিক্ষামন্ত্রী চীনে করোনাভাইরাসে মৃত্যু ১৩২ জনের, আক্রান্ত প্রায় ৬ হাজার জগন্নাথপুরে সোনা মিয়ার মৃত্যু শোক সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে জননী ক্রিকেট ক্লাবের বার্ষিক ওয়াজ মাহফিল আজ জগন্নাথপুর বাজারের তরুণ ব্যবসায়ীর অকাল মৃত্যু জগন্নাথপুরের সামাজিক সংগঠন স্টুডেন্ট’স কেয়ার’র নতুন কমিটি গঠন

জগন্নাথপুরে ‘ধর্ষণ-হত্যা’ মামলার আসামী এখন সরকারী স্কুলের নৈশ প্রহরী!

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ১২০ Time View

আলী আহমদ :::
২০০৮ সালে ধর্ষণের পর এসিড দিয়ে জ্বালিয়ে নৃসংশভাবে হত্যা করা হয় এক তরুণীকে। ওই মামলার চার নম্বর আসামীকে জগন্নাথপুরের একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশ গ্রহরী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এ খবে গ্রামবাসী ক্ষুব্দ হয়ে উঠেছেন।
রোববার এব্যাপারে বিদ্যালয়ের অভিভাবকবৃন্দ ও এলাকাবাসী জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলমের নিকট লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেছেন। এছাড়াও অভিযোগপত্রের অনুলিপি জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরারব প্রদান করা হয়েছে। অভিযোগের সঙ্গে মামলার চার্জশিট সংযুক্ত রয়েছে।
এলাকাবাসি ও অভিযোগ পত্র থেকে জানা যায়, উপজেলার মীরপুর ইউনিয়নের গড়গড়ি কান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন নৈশ গ্রহরী নিয়োগের আহবান করা হয় গত বছর। এতে গড়িগড়ি এলাকার ইউছুফ আলীর ছেলে রুহেল মিয়া ও একই এলাকার আব্দুল হেকিমের ছেলে সাইদুল ইসলাম অংশ নেন। এরমধ্যে সাইদুল ইসলাম এলাকার দরিদ্র ফজর আলীর তরুণী সমতেরা বেগমের হত্যা মামলার আসামী। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে অসামাজিক কার্যকলাপের সঙ্গে জড়িত রয়েছে। সে ওই বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি আব্দুল ওয়াহিদের আপন ভাতিজা। যে কারনে প্রভাব বিস্তার করে চাকুরীদানে পায়তারা করছেন বলে অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করা হয়।
স্থানীয় কয়েকজন জানান, ২০০৮ সালে দরিদ্র হজর আলীর মেয়ে সমতেরা বেগমকে প্রথমে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে দৃৃবৃর্ত্তরা। পরে তাকে এসিড দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা করে লাশ তার বাড়ির সামনে ফেলে দেয়া হয়। এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা ফজর আলী বাদি হয়ে জগন্নাথপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার ৪ নম্বর আসামী সাইদুল ইসলাম। মামলার পর কয়েকমাস কারাভোগ করেছে সাইদুল।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গ্রামের এক ব্যক্তি জানান, সাইদুল ইসলাম একটি হত্যা মামলার আসামী। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মতো পবিত্র স্থানে একজন খুনী ও খারাপ চরিত্র লোক থাকতে পারে না। এতে করে আমাদের শিশু শিক্ষার্থীরা নিরাপদ নয়।
অভিযুক্ত ব্যক্তির চাচা গড়গড়ি কান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আব্দুল ওয়াহিদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, তার ভাতিজার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা গত বছর আদালতের মাধ্যমে নিস্পত্তি হয়েছে। তবে নৈশ প্রহরী পদে এখনো নিয়োগ হয়নি বলে তিনি জানান।
এবিষয়ে জানতে জগন্নাথপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদিন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, গড়গড়ি কান্দি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাইদুল ইসলামকে গত সপ্তাহে নৈশ প্রহরী পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আণিত অভিযোগ তদন্তে প্রমাণিত হলে ওই পদ থেকে তাকে প্রত্যাহার করা হবে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহফুজুল আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য আমি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দিয়েছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24