সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে সড়ক রক্ষায় ১০ টন ওজনের অধিক যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা প্রার্থীরা গরুর মাংস বিক্রি: ভারতে খ্রিস্টান যুবককে পিটিয়ে হত্যা জগন্নাথপুরের ব‌্যবসায়ী ফেরদৌস মিয়া খুনের ঘটনায় সানিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সুনামগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, তিনজনের যাবজ্জীবন ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের ‘হামলা’ আহত ২৫ অনেকেই গা ঢাকা দিয়েছে, অনেককেই নজরদাড়িতে রাখা হয়েছে: কাদের বিরিয়ানি খেলে শিক্ষকসহ ৪০ জন অসুস্থ আল কোরআন অনুসরণের আহ্বান রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের! জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল

জগন্নাথপুরে সড়কের কাজে ঠিকাদারদের নৈরাজ্য,দুর্ভোগে জনগন

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২০ জুলাই, ২০১৭
  • ৩৮ Time View

অমিত দেব/আলী আহমদ
জগন্নাথপুর উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সড়কের সংস্কার কাজে ঠিকাদারদের নৈরাজ্য রোধ করতে পারছে না সড়কের কাজ বাস্তবায়নকারী সরকারী সংস্থাগুলো। স্থানীয়দের মনে হচ্ছে প্রভাবশালী এসব ঠিকাদারদের কাছে তারা যেন অসহায়।
ফলে অবর্ণনীয় দুর্ভোগে পড়েছেন উপজেলার লাখো মানুষ। ম্লান হচ্ছে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম। বর্তমান সরকারের শাসনামলে জগন্নাথপুরে শত শত কোটি টাকার উন্নয়ন হলেও কয়েকটি সড়কের অসমাপ্ত কাজ নিয়ে ঠিকাদারদের নৈরাজ্যর কারণে উপজেলার উন্নয়ন কর্মকান্ড বিঘিœত হচ্ছে।
স্থানীয় সংসদ সদস্যের নির্দেশে অর্থ বরাদ্দ নিয়ে উপজেলার ছোটবড় ১৫টি সড়কে প্রায় ১৭ কোটি টাকার কাজের কার্যদেশ প্রদান করা হলেও সড়কগুলোর কাজ বাস্তবায়নে ঠিকাদারদের গাফিলাতির কারণে জনদুর্ভোগ দেখা দিয়েছে চরমে। উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীর গতি হওয়ায় সরকার বিরোধীচক্র উন্নয়ন নিয়ে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর জগন্নাথপুর উপজেলা অফিস সূত্রে জানা গেছে, জগন্নাথপুর উপজেলাবাসীর বিভাগীয় শহর সিলেটে যাতায়াতের একমাত্র সড়ক জগন্নাথপুর-কেউনবাড়ি-বিশ্বনাথ সড়কের জগন্নাথপুর অংশের ১৩ কিলোমিটার জুড়ে ছোটবড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়। দীর্ঘ দুর্ভোগের পর ১৩ কিলোমিটার সড়কের কাজে টেন্ডার আহ্বান করা হলে সর্বনি¤œ দরদাতা হিসেবে প্রায় ৩ কোটি টাকা বরাদ্দে কাজ নেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নুরা এন্টারপ্রাইজ। কাজের শুরুতেই ঠিকাদারের লোকজনের রোলার চাপায় এক ব্যক্তির মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। চালকের বদলে হেলপার দিয়ে রোলার চালানোর ফলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। পরে আপোষের মাধ্যমে বিষয়টি নিস্পত্তি হয়। কিন্তু এরপর থেকে সড়কের
কাজ করতে গড়িমসি শুরু করেন ঠিকাদার। পরে কাজ শুরু করলেও ধীরগতিতে কাজ চালায়। এছাড়াও নি¤œমানের কাজের ফলে কাজ শেষ হওয়ার আগেই গর্তের সৃষ্টি হয়েছে কয়েকটি স্পটে। প্রতিদিন এ সড়ক দিয়ে উপজেলার হাজার হাজার মানুষ সিলেট ও রাজধানী যাতায়াতকারীদের দুর্ভোগের যেন শেষ নেই। বাধ্য হয়ে এলজিইডি কর্তৃপক্ষ নিজেদের তত্বাবধানে সড়কের কাজ বাস্তবায়ন করছেন।
তিন বছর ধরে কার্যাদেশ দেয়ার পরও কাজ হচ্ছে না ভবেরবাজার-নয়াবন্দর-কাঠালখাইড় সড়কে। প্রায় ৪ কোটি টাকা বরাদ্দে সড়কটি কিছু অংশে কাজ হলেও ঠিকাদারের নৈরাজ্যর কারণে জনসাধারণ সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। উচ্চ আদালতে মামলা করে কাজের সময় বৃদ্ধিসহ নানা টালবাহানা করে জনসাধারণকে কষ্ট দিচ্ছে সজিব রঞ্জন দাশের নিকট থেকে সাবকন্ট্রাক্ট নেয়া ঠিকাদার সৈয়দ মাছুম আহমদ।
জেলা শহর সুনামগঞ্জে যাতায়াতের সড়ক পাগলা-জগন্নাথপুর সড়কের জগন্নাথপুর পৌরসভা অংশের বেহাল দশা বিরাজ করছে দীর্ঘ দিন ধরে। সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের বাস্তবায়নে সড়কটির কাজ হওয়ার কথা থাকলেও ঠিকাদার জিলু মিয়া কিছু অংশের সংস্কার কাজ করলে থানার সামনে থেকে পৌরসভার সামনা পর্যন্ত সড়কে কোন কাজ করেনি।
সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরর উপ-প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, টাওয়ার এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জগন্নাথপুরে কিছু সংস্কার কাজ করেছে। কিন্তু পৌরসভা অংশে পানি জমে থাকায় ওই অংশে সিলকোটের কাজ করা যায়নি। আমরা ডিপার্টমেন্ট থেকে কিছু ইটের খোয়া ফেলেছি। তিনি বলেন,‘ পৌরসভা ড্রেন পরিস্কার করে না দেয়ায় ওই অংশে সব সময় পানি জমে থাকে। খোয়া ফেলা হলেও বেশিদিন টিকে না। তবে নতুন করে পৌরসভা অংশে আরসিসি দ্বারা উন্নয়নের জন্য প্রাক্কলন তৈরী করা হয়েছে।
জগন্নাথপুর পৌরসভার প্রকৌশলী সতীশ গোস্বামী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘সওজের সড়ক ও ড্রেনে আমাদের পৌরসভার কিছু করার নেই। তারপরও আমরা নাগরিক দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে সাধ্যমত কাজ করি। পৌরসভার সামনের অংশের ড্রেন পানি নিস্কাশনের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। তারপরও আমরা মাঝেমধ্যে পরিস্কার করিয়ে থাকি।’
জগন্নাথপুরবাসীর আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক শিবগঞ্জ-বেগমপুর রাস্তায় বেহাল দশা বিরাজ করছে। ইতিমধ্যে সড়কটি যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। উক্ত সড়কে ৫ কোটি ১৬ লাখ ৪৭ হাজার টাকার টেন্ডার আহ্বান করা হলে কাজ পায় লৌহজং নাসিম সুয়েব জে.বি এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। কিন্তু কাজের কোন খবর না থাকায় জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করছে। অতি সম্প্রতি ত্রাণ ও দুর্যোগ বিভাগের ৪৭ লাখ টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়নাধীন একটি সেতু প্রভাকরপুর রাঙ্গাখালে উদ্বোধনের আগেই ভেসে গেছে। অভিযোগ উঠেছে নি¤œমানের কাজ হওয়ায় সেতুটি উদ্বোধনের আগেই ভেঙ্গে যায়। এছাড়াও বেশ কয়েকটি আঞ্চলিক ইউনিয়ন সড়কের বেহাল দশা বিরাজ করছে। উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ আরো ১৩টি ইউনিয়ন সড়কের কার্যাদেশ হলেও ঠিকাদার কাজ শুরু না করায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে জনসাধারণকে।
সেই সাথে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে স্থানীয় জনসাধারণের সাথে খারাপ ব্যবহার ও হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে। অতি সম্প্রতি পাটলী ইউনিয়নের সাতহাল কুড়িয়াইন ভায়া লোহারগাঁও প্রাইমারি স্কুল সড়কের টেন্ডার পাওয়া ঠিকাদার স্থানীয় এক ব্যক্তির নিকট থেকে মালামাল নিয়ে টাকা না দিয়ে উল্টো তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেন।
মামলায় বাদী হিসেবে ঠিকাদার ও মিস্ত্রি দাবি করে বিশ^নাথ উপজেলার রামপাশা গ্রামের মৃত তৈমুর আলীর ছেলে সুজন মিয়া জগন্নাথপুর উপজেলার শ্যামহাট গ্রামের সুরুজ আলী ও কামিনীপুর গ্রামের আমির আলীর বিরুদ্ধে মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেন।
জগন্নাথপুর পৌর এলাকার বাসিন্দা শিক্ষক সাইফুল ইসলাম রিপনজগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন,‘বর্তমান সরকারের শাসনামলে জগন্নাথপুরে হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন হলেও কয়েকটি সড়কে ঠিকাদারদের নৈরাজ্যর কারণে এসব উন্নয়ন কর্মকান্ডের সফলতা মানুষের মধ্যে তুলে ধরা যাচ্ছে না। আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এসব ঠিকাদারদের কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে।’
জগন্নাথপুর বাস মালিক সমিতির সভাপতি নিজামুল করিম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন,‘ঘর থেকে বেরোতেই চালকদেরকে ভাঙাচোরা সড়ক দিয়ে চলাচল করতে হয়।’ তিনি বলেন,‘সড়কের বেহাল দশায় যাত্রীবাহী বাস থেকে শুরু করে সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ব্যক্তিগত গাড়ি এমনকি রিকশা পর্যন্ত চলাচল দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। ফলে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন,‘ঠিকাদারদের নৈরাজ্যর কারণে আমরা অসহায়। জগন্নাথপুর উপজেলায় এলজিইডির সড়কের কাজগুলো বাস্তবায়নের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। কিছু দুষ্ট ঠিকাদার আমাদেরকে কষ্ট দিচ্ছে। এছাড়াও বৃষ্টি ও প্রাকৃতিক বির্পয়রের কারণে অনেক সড়কে কাজ করা যাচ্ছে না।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24