রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নতুন ২ কাণ্ডারির পরিচিতি জনগণের মৌলিক অধিকার ও আইনের শাসনে গুরুত্ব দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী দ.সুনামগঞ্জে বিদেশী রিভলবারসহ গ্রেফতার ১ সাংবাদিক এ এস রায়হানের পিতার মৃত্যু, জানাজা সম্পন্ন পাটলী উইমেন্স কলেজ উন্নয়নে প্রবাসীদের ১২ লাখ টাকার অনুদান জগন্নাথপুরে শ্রমিক-ব্যবসায়ীদের দ্বন্দ্বের নিস্পত্তি, পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার বাংলাদেশে ঢুকে মসজিদ নির্মাণে বিএসএফ’র বাধা প্রদান জগন্নাথপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সালিশী ব্যক্তিত্ব নুরুল ইসলাম আর নেই সুনামগঞ্জে বিয়ের খাবার খেয়ে অসুস্থ হয়ে ৮০ জন হাসপাতালে, ১ জনের মৃত্যু

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থীদেরকে চ্যালেঞ্জ করে বিদ্রোহীরা মাঠে

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭
  • ২৬ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি::প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপি একক প্রার্থী নিয়ে নামলেও সরকারী দল আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থীকে চ্যালেঞ্জ করে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ ও যুব লীগের আরো দুই নেতা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন। এ নিয়ে কোথাও কোথাও দলীয় কর্মী-সমর্থকরাও বেকায়দায় পড়েছেন। অবশ্য. আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের দায়িত্বশীলরা বলেছেন,‘যেহেতু এটি দলীয় নির্বাচন, দলের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই কারও। দলের সিদ্ধান্ত না মানলে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুয়ায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে’।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আকমল হোসেন। কিন্তু উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। মুক্তা জানিয়েছেন কোনভাবেই মনোনয়ন প্রত্যাহার করবেন না তিনি। এই অবস্থায় প্রচারণায় আওয়ামী লীগের পরিচয় দেবেন দুই প্রার্থী।
আকমল হোসেন দলীয় প্রার্থী এবং নৌকা প্রতীক পাওয়ায় জগন্নাথপুর উপজেলার সবকয়টি ওয়ার্ড, ইউনিয়ন এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা তার পক্ষেই অনানুষ্ঠানিক প্রচারণায় নেমেছেন।
দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা আঞ্চলিকতা এবং দলীয় বিরোধকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করছেন বলে আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা কর্মী জানিয়েছেন।
বিদ্রোহী প্রার্থী মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ গণমানুষের সংগঠন। জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী মনোনয়নে গণমানুষের মতামতকে মূল্যায়ন করা হয়নি। এজন্য তৃণমূলের নেতা কর্মীরা আমাকে প্রার্থী করেছেন। দলের স্থানীয় কারো কথায় আমি প্রার্থীতা প্রত্যাহার করবো না। দলের শীর্ষ পর্যায়ের কিছু নেতৃত্বের সঙ্গে কথা বলেই আমি প্রার্থী হয়েছি। আমার প্রার্থীতা প্রত্যাহারের কোন সুযোগ নেই’।
উপজেলার রানীগঞ্জের একজন আওয়ামী লীগ কর্মী নাম না ছাপার অনুরোধ জানিয়ে বলেন,‘মুক্তা ভাইয়ের সঙ্গে দলীয় কার্যক্রম দীর্ঘদিন ধরে এক সঙ্গে চালিয়ে আসছি। ব্যক্তিগত সম্পর্ক তৈরি হয়েছে। এখন তিনি বিদ্রোহী প্রার্থী এবং দলীয় প্রার্থী উপজেলা সভাপতি আকমল হোসেন। আমাদের ‘শ্যাম রাখি না, কূল রাখি’ অবস্থা হয়েছে।’
আওয়ামী লীগের কলকলিয়া ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক দীপক কান্তি দে বলেছেন,‘দলীয় প্রার্থী আকমল হোসেন ত্যাগী, পরীক্ষিত এবং সৎ রাজনীতিক হিসাবে পরিচিত। দলের কোন নেতা কর্মীই তাঁর বিরুদ্ধে প্রচারণায় যাবে না, নৌকা ছাড়া কেউ ভোটও দেবে না।’
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু বলেন,‘দলে কোন বিরোধ নেই। দলের পরিচয় দিয়ে কেউ প্রার্থী হলেও দলের নেতা কর্মীরা নৌকার বিপক্ষে যাবে না। দলীয় শৃঙ্খলা ভাঙার চেষ্টা হলে এবার সাংগঠনিক ব্যবস্থাও নেব আমরা’।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন বলেন,‘আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড যে সিদ্ধান্ত দিয়েছে এর বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই। জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রতীক নৌকার বিরুদ্ধে যারা অবস্থান নেবেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ১৭ মার্চ মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। দলীয় মনোনীত প্রার্থীদের বাইরে যারা মনোনয়ন দিয়েছেন, তাদের প্রতি অনুরোধ থাকবে নৌকা প্রতীকের সমর্থনে যেন তারা মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন। তাদের ত্যাগের মূল্যায়ন করা হবে। দল করতে হলে দলীয় শৃঙ্খলা বজায় রাখতে হবে। বিশৃঙ্খলা যারা ভঙ্গ করতে চাইবেন, তাদের বিষয়টি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকেও জানাবো আমরা’।
ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী করা হয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক সাবেক কারানির্যাতিত ছাত্রনেতা বিজন কুমার দেবকে। ভদ্র-বিনয়ী স্বজ্জন ও পরিচ্ছন্ন রাজনৈতিক সংগঠক বিজন আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের কাছে গ্রহণযোগ্য কর্মী। কিন্তু এই পদে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কামাল উদ্দিন প্রার্থী হয়েছেন। কামাল উদ্দিন বিভিন্ন এলাকায় ইতিমধ্যে দলীয় পরিচয় দিয়েই গণসংযোগ করে তাকে সমর্থন দেবার অনুরোধ জানাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন দলীয় নেতা কর্মীরা।
আওয়ামী লীগ ও যুব লীগের একাধিক নেতা কর্মী জানিয়েছেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মুক্তাদীরের পক্ষে ইতিমধ্যে যুবলীগ নেতা নাজমুল ও হুমায়ুন তালুকদারকে সক্রিয় দেখা গেছে। অপরদিকে ভাইস চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী কামাল উদ্দিনের পক্ষ হয়ে ইতিমধ্যে উপজেলা যুব লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাহবুব হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদুল হক, ও স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ইব্রাহিম আলী প্রকাশ্যে প্রচারণায় নেমেছেন।
যুব লীগ সভাপতি কামাল উদ্দিনও সংগঠনের জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির এসব নেতৃবৃন্দ তার সঙ্গে প্রচারণায় রয়েছেন স্বীকার করে বলেন,‘জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা থেকে ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজন কুমার দেব’র নাম যায়নি। আমার নামসহ ৩ জনের নামের মধ্যে বিজন দা’র নাম ছিল না। কিন্তু ধানমন্ডির দলীয় কার্যালয় থেকে যখন প্রার্থীর নাম ঘোষণা হয় তখনই শুনলাম বিজন কুমার দেব দলীয় ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী। এই বিষয়টি যুব লীগের কর্মী সমর্থক এবং আমার পরিবারের সদস্যরা মানতে পারেননি। তারা আমাকে প্রার্থী করেছেন। আমার এখন আর প্রত্যাহারের কোন সুযোগ নেই।’
জেলা যুব লীগের আহ্বায়ক খায়রুল হুদা চপল জগন্নাথপুরে সংগঠনের বিদ্রোহী প্রার্থী প্রসঙ্গে বলেন,‘যেহেতু দলীয় নির্বাচন দলের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই। যারা দলের সিদ্ধান্ত মানবেন না, তাদের বিষয়ে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে’।
প্রসঙ্গত. জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। বাছাই প্রক্রিয়ায় একজন ভাইস চেয়ারম্যান এবং একজন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বাদ পড়লে আপীলে তারা বৈধ হন। আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি প্রার্থীতা প্রত্যাহারের সর্বশেষ দিন এবং ১৮ ফেব্রুয়ারি প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24