শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:০০ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুর পৌরশহরে মশার উপদ্রব বেড়েছে, সংশ্লিষ্টদের কোন পদক্ষেপ নেই ?

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১১ মার্চ, ২০১৬
  • ৫০ Time View

আলী আহমদ:: জগন্নাথপুর পৌরশহরে মারাত্মক আকারে মশার উপদ্রব বেড়ে গেছে। বাসাবাড়ি, ধর্মীয় উপাসনালয়, কর্মস্থল, চলতি পথ কোথাও মশা থেকে নিস্তার মিলছে না। মশার উপদ্রব থেকে বাঁচতে দিনদুপুরে মশারি টাঙ্গিয়ে ঘুমোতে হচ্ছে। মশা নিধনে কোন পদক্ষেন নেই এখানে। ভূক্তভোগীরা দায়িত্বপ্রাপ্ত সংশ্লিষ্টদের ওপর চরম ক্ষোভ প্রকাশ করছেন।
পৌর শহরের ইকড়ছই, জগন্নাথপুর, কেশবপুর, হবিবপুর,ইসহাকপুর, লুদরপুর, বলবল ছিলিমপুর, যাত্রাপাশা শেরপুরসহ বিভিন্ন এলাকার নাগরিকদের সাথে আলাপ জানা গেছে মশার উপদ্রব বৃদ্ধির কথা। এসব এলাকার বাসিন্দাদের অভিযোগ, মশার উপদ্রবে তারা অতিষ্ঠ। কিন্তু দায়িত্বশীলরা নির্বিকার। পৌরসভা প্রতিষ্টা লগ্ন থেকে আজ অবধি মশা নির্মূলে কোন পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়নি। এবার বর্ষা মৌসুমে ডেঙ্গ মশা উপদ্রব দেখা দিতে পারে । মশার আক্রমনে শিশুদের স্বাস্থ্য সেবা ঝুকির মুখে পরতে পারে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সুত্রমতে এখানে মশার আক্রমনে শিশুরা ম্যালেরিয়া রোগে আক্রান্ত হয় বেশী। পৌরসভার সর্বত্রজুড়েই মশার প্রকট আকার ধারন করেছে। মশার নির্মূলে কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়ার দাবী জানিয়েছেন নগরবাসী।
শহরের উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদের ইমাম বদরুল ইসলাম বলেন, শহরে মশার প্রকট মারাত্মকভাবে বেড়েছে। অজু খানায় সব সময়ই মশার উপদ্রব থাকে। অজু পড়তে ও নামাজ আদায় করতে মুছল্লিরা চরম কষ্টের শিকার হন। মশা নিধনে কোন পদক্ষেপ নেই। পৌরশহরের ইকড়ছই এলাকার বাসিন্দা আবদুল মতিন বলেন, মশার উপদ্রবে বেশ বেকায়দায় আছি।
ছোট্ট বাচ্চাদের দিনের বেলায়ও মশারির নিচে রাখতে হচ্ছে। রাতে কয়েল জ্বালিয়ে ঘুমিয়েও মশা থেকে নিস্তার মিলছে না। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, মশা নির্মুলে কোন কার্যক্রম নেই সংশ্লিষ্টদের। পৌরসভার প্রতিষ্টাকাল থেকে মশা নিধনে মশার ওষুধ ছিটানো কিংবা স্প্রে ব্যবহার করা হয়নি।
বাসুদেব বাড়ির বাসিন্দা অজয় দাস বলেন, আমরা মশার উপদ্রবে অতিষ্ঠ। মশার স্প্রে বা কয়েল না জ্বালিয়ে কোথাও বসা যায় না। তিনি জানান, এ বিষয়ে পৌরসভা থেকে কোন সেবা পাওয়া যাচ্ছে না।
জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সামস উদ্দিন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, মশার আক্রমনে শিশুরা বেশী ম্যালেরিয়া রোগে আক্রান্ত হয় । বর্ষা মৌমুসে মশার প্রজনন বৃদ্ধি পেতে পারে। ফলে মশার আক্রমনে শিশুদের স্বাস্থ্য সেবায় ঝুঁকিতে রয়েছে।
এ বিষয়ে জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল মনাফের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন “ মশা নিধনে আমাদের কোন বরাদ্ধ নেই। পৌরবাবাসীর সেবা নিশ্চিত করতে আমরা মশা নির্মুলে যথাযত পদক্ষেপ নেব। ইতিমধ্যে এ বিষয়ে আলোচনা করছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24