সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

জমি আছে ঘর নাই প্রকল্পে জগন্নাথপুরের আট গৃহহীন সহ ঘর পাচ্ছেন ৮৪ জন

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৭ জুলাই, ২০১৫
  • ২৮১ Time View

অমিত দেব:: ‘যার জমি আছে ঘর নাই প্রকল্পে প্রথম পর্যায়ে সুনামগঞ্জের ৮৪জন গৃহহীনকে ঘর নির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্প থেকে এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। তবে আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে ৩০ শে জুনের মধ্যে কাজ শেষ করার কথা থাকলেও অধিকাংশ উপজেলায় কাজ শুরু করা সম্ভব হয়নি। বর্তমানে বিভিন্ন উপজেলায় জোরেশোরে কাজ শুরু হয়েছে বলে প্রকল্প বাস্তবায়ন সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। তবে প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের তালিকা নিয়ে অসন্তোষ রয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ২০১৪-২০১৫ অর্থ বছরে আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় ‘যার জমি আছে ঘর নেই” প্রকল্প থেকে দেশব্যাপী ঘর নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। যার ধারাবাহিকতায় সুনামগঞ্জ জেলার ১০টি উপজেলার ৮৪টি ইউনিয়নে ৮৪জনকে যাদের জমি আছে তাদের জায়গায় ঘর নির্মাণ করে দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের অনুকুলে এক কোটি ৮৬ লক্ষ ২২হাজার ২৯৬টাকা বরাদ্দ প্রদান করে ৫ সদস্যর কমিটি গঠন করে কাজ বাস্তবায়নের কথা বলা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে সভাপতি ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে সদস্য সচিব করে ৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। ২২ ফুট লম্বা ও ১২ ফুট প্রস্ত সেমি পাকাঘর নির্মাণের পাশাপাশি একটি ্িটউবওয়েল ও একটি বাথরুম সংযুক্ত রয়েছে। প্রতিটি ঘরের নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে দুই লক্ষ ২১হাজার ৬৯৪ টাকা। সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে যার জমি আছে ঘর নেই তার নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণের নীতিমালা অনুযায়ী গঠিত কমিটি পিআইসির মাধ্যমে কাজ বাস্তবায়ণ করবে।

জেলা ত্রাণ ও পূর্নবাসন কর্মকর্তার দপ্তর সূত্র জানায়,সুনামগঞ্জ জেলার ১০টি উপজেলার মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলায় আটটি, তাহিরপুর উপজেলায় পাঁচটি,ধর্মপাশা উপজেলায় দশটি,ছাতক উপজেলায় তেরটি, দোয়ারাবাজার উপজেলায় নয়টি,জামালগঞ্জ উপজেলায় পাঁচটি বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় পাঁচটি,দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলায় আটটি, দিরাই উপজেলায় নয়টি শাল্লা উপজেলায় তিনটি ও সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় নয়টি ঘর নির্মাণ করা হবে। প্রকল্প অনুযায়ী যাদের নিজস্ব জমি আছে ঘর বানানোর সামর্থ্য নেই তাদেরকে এই ঘর নির্মাণ করে দেয়া হবে।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় জমি আছে ঘর নেই গৃহ নির্মাণ প্রকল্পে জগন্নাথপুরের আটটি ইউনিয়নে তালিকা অনুযায়ী গৃহ নির্মাণ কাজ চলছে। ইতিমধ্যে কয়েকটি গৃহ নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। তবে তিনি বলেন,বরাদ্দকৃত অর্থ দিয়ে উক্ত কাজ বাস্তবায়ন করা দুঃসাধ্য হওয়ায় পিআইসির মাধ্যমে কাজ বাস্তবায়নে কষ্ট হচ্ছে। যে কারণে কাজ শুরু করতে প্রথমে কিছু বিলম্ব হয়েছে। তবে জগন্নাথপুরে দ্রুতগতিতে কাজ চলছে বলে তিনি জানান।

ছাতক ও দোয়ারাবাজার উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা একে এম মোহিতুল ইসলাম বলেন, ছাতক ও দোয়ারাবাজার দুই উপজেলায় প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। ঈদের পর পর কাজ শেষ হবে বলে তিনি দাবী করেন। তবে প্রকল্পের সুবিধাভোগীর তালিকা প্রনয়নে তাদের কোন সম্পৃক্ততা নেই বলে জানান।

দক্ষিন সুনামগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ইবাদত হোসেন বলেন, দক্ষিন সুনামগঞ্জে এ প্রকল্পের কাজ চলছে। কাজ দ্রত বাস্তবায়নে তদারকি ও প্রচেষ্ঠা অব্যাহত আছে ।

তাহিরপুর উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্লাবন পাল বলেন, তাহিরপুর উপজেলার এ প্রকল্পের ৫টি ঘর নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সার্বক্ষনিক তদারকি করছেন।

প্রকল্পের উপকারভোগী জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের ইছগাঁও গ্রামের মোঃ জাফর আলী বলেন,বড় কষ্ট করে ভূমিহীণ হিসেবে একখন্ড জায়গা পেয়েছিলাম। ঘর বানানোর সাধ্য ছিল না। প্রধানমন্ত্রী আমাদের থাকার জায়গা করে দেয়ায় আমরা খুশি।

দোয়ারাবাজার উপজেলার লক্ষীপুর ইউনিয়নের আকরাম জানান, ঘর পাওয়ায় আমি খুব খুশি। এখন পরিবার পরিজন নিয়ে নিরাপদে বসবাস করতে পারব।

দিরাই উপজেলার চরনাচর ইউনিয়নের বিজয় কৃষ্ণ রায় বলেন, শুনেছি আমার নামে ঘর বরাদ্দ হয়েছে। এখনও কাজ শুরু হয়নি। আমরা আনন্দিত।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জমি আঝে ঘর নাই প্রকল্পে উপকারভোগীদের তালিকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার ভূমির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হলে সেখান থেকে চুড়ান্ত করা হয়। তবে চুড়ান্ত তালিকার নাম দেখে স্থানীয় রাজনৈতিক নের্তৃবৃন্দের মধ্যে কিছুটা অসন্তোষ রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু বলেন,জমি আছে ঘর নাই প্রকল্পের ঘর তৈরীর যে তালিকা চুড়ান্ত হয়েছে তাতে দলীয় সম্পৃক্ততা না থাকায় সঠিকভাবে তালিকা হয়নি। যারা পেয়েছেন তাদের চেয়ে আরো দরিদ্ররা পেতে পারতেন। তাই তিনি এ প্রকল্পের তালিকা প্রনয়নে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতৃর্বৃন্দের সম্পৃক্ততা রাখার আহ্বান জানান।

জেলা ত্রাণ ও পূর্ণবাসন কর্মকর্তা মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন বলেন,জেলার সবকটি উপজেলায় এ প্রকল্পের কাজ চলছে।

্র

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24