সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

জাগৃতি প্রকাশনীর কর্ণধার ফয়সাল আরেফিন দীপনকে হত্যা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১ নভেম্বর, ২০১৫
  • ৪০ Time View

অনলাইন ডেস্ক::ব্লগার ও লেখক অভিজিৎ রায়ের পর এবার তার বইয়ের দুই প্রকাশক টার্গেট হলেন। শনিবার রাজধানীর আজিজ সুপার মার্কেটে নিজকার্যালয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয় জাগৃতি প্রকাশনীর কর্ণধার ফয়সাল আরেফিন দীপনকে। প্রায় একই সময়ে একই কায়দায় লালমাটিয়ায় শুদ্ধস্বর প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী আহমেদুর রশীদ চৌধুরী টুটুলসহ তিন লেখক ও ব্লগারকে কুপিয়ে ও গুলি করে গুরুতর আহত করা হয়।
–অন্য দুজন হলেন-তারেক রহিম ও রণদীপম বসু। তাদের মধ্যে টুটুল ও তারেক আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

চলতি বছর দেশে চারজন ব্লগার ও লেখককে কুপিয়ে হত্যার পর এবারই প্রথম কোনো প্রকাশকের ওপর হামলার ঘটনা ঘটল। আগামী ফেব্রুয়ারিতে একুশে বইমেলা ঘিরে প্রকাশকদের আগাম ব্যস্ততার মধ্যেই দুটি প্রকাশনা সংস্থায় দিন-দুপুরে ঢুকে এমন বর্বর হামলার ঘটনায় অনেকে বিস্মিত।

শনিবার দুটি ঘটনায় দুর্বৃত্তরা হামলার পর কক্ষের বাইরে থেকে দরজা তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায়। স্বজন ও পুলিশের প্রাথমিক ধারণা, অভিন্ন কোনো উগ্রপন্থি গ্রুপ পরিকল্পিতভাবে আলাদা দলকে হামলার কাজে ব্যবহার করেছে।

জাগৃতি প্রকাশনী অভিজিতের ‘বিশ্বাসের ভাইরাস’ নামের বইটি প্রকাশ করেছিল। অভিজিৎ রায়ের ‘অবিশ্বাসের দর্শন’সহ কয়েকটি বই প্রকাশ করেছে শুদ্ধস্বর।

গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বইমেলা থেকে স্ত্রীসহ ফেরার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) টিএসসি এলাকায় হামলায় নিহত হন অভিজিৎ রায়। এরপর আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বারবার দাবি করে আসছে, ওই হামলায় উগ্রপন্থি কোনো জঙ্গি সংগঠন জড়িত থাকতে পারে।

নিহত দীপনের বাবা অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও বুদ্ধিজীবী। এর আগে হত্যাকাণ্ডের শিকার অভিজিতের বাবা অধ্যাপক অজয় রায়ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ছিলেন।

দীপনের স্ত্রী ডা. রাজিয়া রহমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুফিয়া কামাল হলের চিকিৎসক। স্বামী ও দুই সন্তান রিদান ফারহান ও হৃদমাকে নিয়ে তিনি হলের কোয়ার্টারে থাকতেন। আর দীপনের বাবা অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক স্ত্রীকে নিয়ে পরীবাগ এলাকায় বসবাস করেন।

দীপনের বাবা অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক বলেন, ‘শনিবার দুপুর দেড়টা পর্যন্ত দীপন তার সঙ্গে বাসায়ই ছিলেন। পরে তিনি শাহবাগে তার প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানে যান। এরপর খোঁজ নেওয়ার জন্য তিনি কয়েকবার ছেলেকে ফোন করেও পাননি। পরে আজিজ সুপার মার্কেটের তার ছেলের কক্ষের তালা ভাঙার পর দেখেন রক্তাক্ত নিথর দেহ পড়ে আছে।’

তিনি আরও বলেন, অভিজিতের বই জাগৃতি থেকে প্রকাশিত হয়েছে। এ কারণে হুমকি ছিল। উগ্র মৌলবাদী জঙ্গিগোষ্ঠী এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। এর বাইরে তার (দীপন) কোনো শত্রু থাকার কথা আমার জানা নেই।’

অধ্যাপক আবুল কাশেম আরও বলেন, ‘বিচার চাই না। মানুষের শুভবুদ্ধির উদয় হোক।’

দুই বিদেশি নাগরিক হত্যা, পুরান ঢাকায় তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতি জমায়েতে বোমা হামলা ও গাবতলীতে পুলিশ চেকপোস্টে হামলার পরিপ্রেক্ষিতে রাজধানীজুড়ে যখন কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। তার মধ্যে এমন ঘটনার পর নির্বিঘ্নে খুনিরা পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় নিরাপত্তার ফাঁকফোকর নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

এই হামলার নিন্দা জানিয়েছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট গিবসন। এ প্রসঙ্গে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন হাসপাতালে সাংবাদিকদের বলেন, ‘অভিজিতের খুনিরাই জাগৃতির প্রকাশককে হত্যা করেছে।’

আইনমন্ত্রী অ্যাডভোটেক আনিসুল হক বলেন, ‘এই হত্যাকাণ্ড স্বাধীনতার বিরুদ্ধে আক্রমণ ও মুক্তচিন্তার বিরুদ্ধে আগ্রাসন।’

শনিবার হাসপাতালে নিহত ও আহতদের দেখতে গিয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রবেশ পথে নিরাপত্তা বাড়ানোর নির্দেশ দেন।

হত্যার পর দীপনের লাশ পড়েছিল মেঝেতে: লালমাটিয়ায় শুদ্ধস্বর প্রকাশনীর মালিকসহ তিন জনকে কুপিয়ে ও গুলি করে আহত হওয়ার হওয়ার খবর টেলিভিশনে দেখে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন জাগৃতি প্রকাশনীর প্রকাশক দীপনের স্বজনরা। এরপর তার মোবাইলে ফোনে বারবার কল করেও দীপনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে ব্যর্থ হন তারা। একপর্যায়ে দীপনের বাবা অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে আজিজ সুপার মার্কেটের তিন তলায় ১৩১ নম্বর রুমের সামনে যান। সেটি তার ছেলের কার্যালয়। ওই সময় তিনি কার্যালয়ের দরজা খুলতে গিয়ে বন্ধ পান। এ সময় কাচের দরজা দিয়ে ভেতরে তিনি আলো জ্বলতেও দেখেন। ছেলে বাইরে গেছে ভেবে তখন তিনি সেখান থেকে চলে আসেন। পরে ছেলের স্ত্রীও তাকে ফোন করে লালমাটিয়ায় তিন জনকে কুপিয়ে আহত করার বিষয়টি জানান। এরপর লোকজন নিয়ে আবারও ছেলের কার্যালয়ে গিয়ে দরজা ভেঙে দেখেন, দীপনের রক্তাক্ত নিথর দেহ মেঝেতে উপুড় হয়ে পড়ে আছে। এরপর দ্রুত তারা পুলিশকে খবর দেন।

শাহবাগ থানা পুলিশ দীপনকে উদ্ধার করে পৌনে ৭টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার গলার পেছনে ঘাড়ে ধারালো অস্ত্রের গভীর জখমের চিহ্ন রয়েছে। পুরো শরীর ছিল রক্তে ভেজা।

মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি) মুনতাসিরুল ইসলাম সমকালকে বলেন, ‘প্রায় একই সময়ে লালমাটিয়া ও আজিজ সুপার মার্কেটে হামলা হতে পারে। দুটি ঘটনার ধরন ও আলামতের কিছু মিল রয়েছে। এই ঘটনার পেছনে কারা জড়িত তা খুঁজে বের করতে পুলিশের একাধিক দল কাজ করছে।’

ঢাকা মেডিকেল কলেজের আবাসিক সার্জন ডা. কেএম রিয়াজ মোর্শেদ সমকালকে বলেন, ‘দীপনের ডান কানের নিচ থেকে কান পর্যন্ত ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। হাসপাতালে আনার অন্তত এক ঘণ্টা আগে তিনি মারা গেছেন। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়।’

সরেজমিনে আজিজ সুপার মার্কেটে গিয়ে দেখা যায়, তৃতীয় তলার ১৩২ নম্বর রুমে ছোপ ছোপ জমাটবাধা রক্ত। ভয় ও আতঙ্কে আশপাশের সব দোকান বন্ধ রাখা হয়েছে। কক্ষের ভেতরে একটি চেয়ারে রক্তের দাগ। ধারণা করা হচ্ছে, চেয়ারে বসে থাকা অবস্থায় অতর্কিতে তাকে ঘাড়ে কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়। ঘটনার সময় দীপন একাই কক্ষে ছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আজিজ সুপার মার্কেটের সাংগঠনিক সম্পাদক মোরসালিন আহমেদ সমকালকে বলেন, ‘সোয়া ৬টার দিকে হৈচৈ শুনে তিনতলায় ছুটে যাই। এরপর সেখানে রক্তাক্ত অবস্থায় দীপনের লাশ দেখি।’

তিনি জানান, তাদের মার্কেটের প্রবেশ পথে সাতটি সিসিটিভি ক্যামেরা রয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সেগুলোর ফুটেজ সরবরাহ করা হয়েছে। সূত্র সমকাল

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24