রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:৫২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর আদর্শ মহিলা কলেজের উদ্যােগে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু

জামালগঞ্জের ফাজিলপুরে মসজিদের নাম ভাঙ্গিয়ে ডোবা ও জমি দখলের পায়তারায় উত্তেজনা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০১৭
  • ৩৪ Time View

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা : সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার সাচনাবাজার ইউনিয়নের ফাজিলপুর গ্রামে মসজিদের নাম ভাঙ্গিয়ে রেকর্ডীয় মালিকানাধীন বোরো জমি ও ডোবারকম ভূমি জোরপূর্বক দখলের পায়তারায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। জানা যায়,স্থানীয় পূর্ব নূরপুর মৌজার ৬৩ নং জেএলস্থিত ৪ ও ৬৬ খতিয়ানের ৪৭২ নং দাগভূক্ত ৭৫ শতক বোরো ও ডোবারকম ভূমির রেকর্ডীয় মালিক হচ্ছেন ফাজিলপুর নিবাসী আঞ্জব আলীগং। পিতার সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হিসেবে বর্ণিত ডোবা ও বোর জমি গত ৭০ বছর ধরে মৌরসী স্বত্তে স্বত্তবান হিসেবে ভোগদখল করে যাচ্ছেন আঞ্জব আলীর পুত্র আব্দুল মজিদ ও তার সন্তানেরা। সাম্প্রতিক সেটেলম্যান্ট জরীপ কার্যক্রম শুরু হলে ঐ জায়গার প্রকৃত মালিকদের প্রতিপক্ষ হিসেবে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে ফাজিলপুর জামে মসজিদের সাবেক মুতওয়াল্লী মরম আলী, বর্তমান মুতওয়াল্লী আব্দুল হক,আলাল উদ্দিন,জয়নাল আবেদীন,আল-আমিন,বায়েজিদ মিয়া,আব্দুল মুকিতসহ গ্রামের কতিপয় স্বার্থান্বেষী ব্যক্তিবর্গ। তারা প্রথমে বর্ণিত জায়গা ফাজিলপুর জামে মসজিদের মালিকানাধীন বলে সেটেলম্যান্ট জরীপ কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। মাট জরীপ,তসদীগ,৩০ ধারা ও ৩১ ধারা পর্যন্ত দফায় দফায় লিখিত অভিযোগ ও আপত্তি উত্থাপন করার পরও কর্তৃপক্ষ তাদের আবেদন নামঞ্জুর করে জমির প্রকৃত মালিক আব্দুল মজিদগংদের নামেই রেকর্ড কার্যক্রম চুড়ান্ত করেন। সেটেলম্যান্ট জরীপে অভিযোগ করেও কোনরুপ ফায়দা হাছিল করতে না পারায় একইচক্র দ্বিতীয় বারের মতো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির লক্ষ্যে গত ৬/১২/২০০৯ইং তারিখে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৪ ধারামতে বিবিধ ৮০/২০০৯ নং মামলা দায়ের করে। মসজিদের মুতওয়াল্লী সেজে ঐ মামলাটি দায়ের করেন ফাজিলপুর গ্রামের মৃত সোনাফর আলীর ছেলে আব্দুল মান্নান। ঐ মামলায় জমির মালিকরা আদালতে উপযুক্ত জবাব দাখিল করলে বিজ্ঞ আদালত ১৬/৫/২০১০ইং তারিখে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলনা মর্মে বিবাদী আব্দুল মজিদগংদের পক্ষে মামলাটি নথীভূক্ত করেন। তৃতীয় বারে পূর্বের বাদী আব্দুল মান্নানের অবর্তমানে আলাল মিয়া বাদী হয়ে একই আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৫ ধারামতে ৩৯৯/২০১১ নং বিবিধ মোকদ্দমা দায়ের করে। ১৪/২/২০১৬ইং তারিখে নালিশা ভূমিতে বাদীপক্ষের দখল নেই মর্মে প্রতীয়মাণ হওয়ায় আদালত দ্বিতীয় পক্ষ অর্থাৎ আব্দুল মজিদ গংদেরকে অব্যাহতি দিয়ে মামলাটি নথিজাত করেন। আদালতের আদেশে,গত ২১/৪/২০১৬ইং তারিখে জামালগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আতিকুর রহমান দ্বিতীয় পক্ষ আব্দুল মজিদ ও তার ছেলে আব্দুল আওয়াল মাস্টারগংসহ ১০ জনকে রিসিভার প্রত্যাহার পূর্বক তপসিলী ভূমি ও ডোবার মাছ বিক্রির টাকা সমজিয়ে দেয়ার জন্য বাদী আলাল মিয়াকে নোটিশ প্রদানপূর্বক অবগত করেন। পরবর্তীতে রিসিভারের অর্থ ১ লক্ষ ২৩ হাজার ৬শত টাকা বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে জমির মালিক আব্দুল মজিদের পুত্র আব্দুল আওয়ালগংদেরকে সমজিয়ে দেন ওসি আতিকুর রহমান। চতুর্থবারে মসজিদ কমিটির মুতওয়াল্লী সেজে পূর্বের বাদী আলাল মিয়ার চাচা মরম আলী বাদী হয়ে ২৬/১/২০১২ ইং তারিখে জমির মালিক আব্দুল মজিদগং সহ ১০ জনের বিরুদ্ধে সহকারী জজ আদালতে ৪/২০১২ নং স্বত্ত মোকদ্দমা দায়ের করেন। ১৮/৪/২০১৬ ইং তারিখে উক্ত স্বত্ত মোকদ্দমাটি জমির মালিকগনের পক্ষে বিনাবিচারে খারিজ হয়। স্বত্ত মামলার রায়ে বিজ্ঞ আদালতের কাছে বিরোধীয় জমিতে মসজিদের কোন স্বত্ত বা স্বার্থ নেই বলে প্রতীয়মান হয়। পঞ্চম বারে মসজিদের সাবেক মুতওয়াল্লী মরম আলীর ভাতিজা ও বর্তমান মুতওয়াল্লী আব্দুল হকের ভাতিজা বাছিত মিয়া বাদী হয়ে জমির মালিকদেরকে অহেতূক হয়রানী করার অসদুদ্দেশ্যে ৯/১/২০১৭ইং তারিখে আব্দুল মজিদের পুত্রসহ ৬ জনকে বিবাদী করে ফৌজদারী কার্যবিধি আইনের ১৪৪ ধারা মোতাবেক ১৮/২০১৭ নং বিবিধ মোকদ্দমা দায়ের করে। অথচ একই বিষয়ে ৬/১২/২০০৯ইং তারিখে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৪ ধারামতে বিবিধ ৮০/২০০৯ নং মামলা দায়ের করে মসজিদ কমিটি পরাজিত হয়। উপযুক্ত আইনানুগ কারণ না থাকার পরও মসজিদ কমিটির মুতওয়াল্লী সেজে ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তি বাদী হয়ে জমির মালিকদেরকে অন্যায়ভাবে হয়রানী করার পাশাপাশি বারংবার মামলা মোকদ্দমার নামে মসজিদের তহবিল থেকে টাকা নিয়ে এইচক্রটি নিজেদের পকেট খরচ ও পারিবারিক ভরণ পোষন চালাচ্ছে বলে গ্রামবাসী মনে করেন। আরো জানা যায়,ফাজিলপুর জামে মসজিদের নামে প্রায় ৩৬ কেদার জমি,ব্যাংক তহবিল, হিজল করচবাগ ও দক্ষিণ লাছপানি নামে ১টি জলমহাল রয়েছে। অন্যদিকে যারা মসজিদের মুতওয়াল্লী বা কমিটি সেজে মামলা মোকদ্দমা পরিচালনা করছে তাদের নিজস্ব কোন বৈধ আয় নেই। শুধুমাত্র মসজিদের নাম ভাঙ্গিয়ে উদ্দেশ্যমূলক প্রতারনা ও নিজেদের অবৈধ রুটিরুজিসহ চাঁদাবাজীর লক্ষ্যে এচক্রটি মামলা মোকদ্দমায় জমির মালিকদেরকে অন্যায়ভাবে হয়রানী করছে। মসজিদ কমিটির সাথে জড়িত কোন কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে মসজিদ কমিটির সদস্য মোঃ নুরুজ আলী শাহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা অভিযোগটির সরজমিন তদন্তক্রমে তহবিল তছরুপের প্রমাণ পান বলেও গ্রামবাসী সাংবাদিকদের জানান। শেষ পর্যন্ত মসজিদের নামে উদ্দেশ্যমূলক মামলাবাজী ও চাঁদাবাজী বন্ধে প্রশাসন কোন পদক্ষেপ গ্রহন করে সেদিকে দৃষ্টি এখন এলাকাবাসীর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24