মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:১৭ পূর্বাহ্ন

দুই উপজেলার ‘সেতুবন্ধন’ রচনায় সামাদ আজাদের গ্রামে আসছেন সুরঞ্জিত

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১১ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১৭৪ Time View

অমিত দেব:: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর ও দিরাই উপজেলার শেষ সীমান্তে অবস্থিত কামারখালী নদী। এ নদীতে একটি ব্রিজের অভাবে দুই উপজেলার লাখো মানুষ চরম দূর্ভোগ পোহাচ্ছিলেন দীঘদিন ধরে। এনিয়ে জাতীয় স্থানীয় দৈনিকে ২০১২ সালে নদীর দুই পারে দুই মন্ত্রী থাকার পর দুই উপজেলার সেতুবন্ধন হয়নি শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হলে বিষয়টি সুনজরে নেন দিরাই-শাল্লার নির্বাচিত প্রতিনিধি প্রবীণ রাজনীতিবীদ সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত। তিনি তাৎক্ষনিক সুনামগঞ্জ স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরকে কামারখালী নদীতে সেতু নিমাণের প্রকল্প গ্রহনের নিদের্শ দেন। সেই মোতাবেক কাজ শুরু হয়। সেতু বাস্তবায়নের যাবতীয় প্রক্রিয়া শেষে আজ সেই সেতু উদ্বোধন হচ্ছে। প্রবীন রাজনীতিবীদ সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত এমপি সেতুটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। দিরাই ও জগন্নাথপুর উপজেলার শেষ সীমান্তের গ্রাম সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুস সামাদ আজাদের জন্মমাটি ভূরাখালিতে সেতুর উদ্বোধন হওয়ায় ভূরাখালি গ্রামবাসীও আনন্দিত। তাঁরা সেতু নির্মাণে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে বাবু সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে স্বাগত জানিয়ে একাধিক তোরণ নির্মাণে করেছেন।
সেতুটি বাস্তবায়িত হওয়ায় নদী পাড়ের দুই উপজেলার গ্রামবাসীর মধ্যে অন্যরকম আনন্দ বিরাজ করছে। বিশেষ করে তাদের প্রিয় নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত সেতুটির উদ্বোধন করতে আসার সংবাদে সেতুপাড়ের এলাকায় উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। জানা গেছে, সেতুটির উদ্বোধনের পর দিরাই-শাল্লার সংসদ সদস্য সাবেক মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত দিরাই উপজেলার রায়বাঙ্গালী বাজারে জনসভা করবেন।
কামারখালী নদীর দুই পারের বাসিন্দারা জানান, নদীর একপাড়ে জগন্নাথপুরের নলুয়া হাওর বেষ্টিত উপজেলার চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত ভুরাখালী, দাসনোয়াগাও, সমধল, গাদিয়ালা বেতাউকা সহ কয়েকটি গ্রামের প্রায় ৪০ হাজার মানুষের বসবাস। অন্যদিকে দিরাই উপজেলার শেষ প্রান্তে জগদল ইউনিয়নের হালেয়া, টংগর, মাতারগাঁও, কলিয়ারকাপন, জগদল, নগদিপুর, রাজনগর, হামাদুর, বোয়াইলা, কুলঞ্জসহ কয়েকটি গ্রামের প্রায় ৬০ হাজার মানুষের বসতি। উপজেলার শেষ সীমানায় তাদের অবস্থান থাকায় উন্নয়ন থেকে তারা কিছুটা বঞ্চিত ছিলেন। নদীর পূর্ব পারে জগন্নাথপুরের ভূরাখালী গ্রামে স্বাধীন বাংলার প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদের বাড়ি। প্রয়াত এ জাতীয় নেতা আওয়ামীলীগ সরকারের দুইবারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও একবারের কৃষিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। আর পশ্চিমপারে দিরাই শাল্লার সাত বারের সংসদ সদস্য সাবেক রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের বাড়ি। তিনি ১৯৯৬ সালে আওয়ামীলীগ সরকারের শাসনামলে প্রধানমন্ত্রীর সংসদ বিষয়ক উপদেষ্টা ও পরবতীতে আওয়ামীলীগ সরকারের রেলমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। আওয়ামীলীগ সরকারের প্রভাবশালী এ দুই মন্ত্রীর নির্বাচনী এলাকার হাওরপারের বাসিন্দারা একটি সেতুর অভাবে চরম ভোগান্তিতে ছিলেন।
তাদের দাবি কামারখালী নদীতে সেতু নির্মিত হলে দুই উপজেলার সদরের সঙ্গে যাতায়াতের পাশাপাশি দুরত্ব কমে যাবে। এমনিতে এক উপজেলা থেকে আরেক উপজেলায় যেতে ৪১ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হয়। ওই নদীতে সেতু নির্মান করার ফলে দুই উপজেলার সদরের সাথে লাখো মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ ব্যবসা-বানিজ্যের সার্বিক উন্নয়নের দোয়ার খুলে গেল। লাঘব হলো দীঘদিনের জনদুভোগ।
নদীরপাড়ের বাসিন্দা ভুরাখালী গ্রামের সিদ্দিকুর রহমান বলেন, আমাদের দীঘদিনের স্বপ্ন আজ পূরণ হতে যাচ্ছে। কামারখালী নদীতে ব্রিজ না থাকায় আমরা এতদিন খেয়া ও বাঁশের সাঁকো নিয়ে যাতায়াত করছি। এখানে একটি সেতু নির্মিত হওয়ায় দুই উপজেলার সদরের সাথে যোগাযোগের সুবিধার পাশাপাশি দুই উপেজেলার মানুষের ভ্রাতৃত্বের বন্ধন আরো সুদৃঢ হবে।
চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া বলেন, সেতুটি বাস্তবায়িত হওয়ায় আমরা আনন্দিত। এর মাধ্যমে দুই উপজেলাবাসীর দুর্ভোগ দূর হয়ে স্বপ্ন বাস্তবায়িত হলো।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, রাজনীতিতে ভাটি বাংলার দুই সিংহ পুরুষ হিসেবে খ্যাত প্রয়াত জননেতা আব্দুস সামাদ আজাদ ও সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের উন্নয়নের দিগন্ত হিসেবে এসেতু দুই উপজেলার সেতুবন্ধন রচনা করতে যাচ্ছে। তিনি জানান, সেতু নির্মানের আগেই হাওরের মধ্য দিয়ে আব্দুস সামাদ আজাদ ও সুরিঞ্জিত সেনগুপ্ত সড়ক নির্মাণের মাধ্যমে সেতু নির্মানের বাস্তবতা জাগিয়ে তুলেন। পরবতীতে তারই ধারাবাহিকতায় জগন্নাথপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জবাসীর দুইবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এ উন্নয়নকে এগিয়ে নিয়ে জগন্নাথপুর অংশের অসমাপ্ত সড়কের কাজ শেষ করার উদ্যোগ নেয়ায় এখন সত্যিকারভাবে দুই উপজেলার সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হল। আমরা এজন্য আমাদের দুই উপজেলার নির্বাচিত সংসদ সদস্যর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24