সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ১২:০৩ অপরাহ্ন

দেড় তল্লাসি করে উদ্ধার করা হল সাত লাখ জাল টাকা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৬ আগস্ট, ২০১৬
  • ১৭ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: নরসিংদীতে সাত লাখ টাকার জাল নোট ও জাল টাকা তৈরির সরঞ্জামসহ পুলিশ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে । ঈদুল আজহা উপলক্ষে জেলার বিভিন্ন গরুর হাটে জাল নোট সরবরাহ করার জন্য ওই দুই ব্যক্তি নরসিংদীতে আসেন।
শুক্রবার দুপুর ১২টায় জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে পুলিশ সুপার (এসপি) আমেনা বেগম এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য দেন।
গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন পটুয়াখালীর ইদরগাপুর এলাকার আবদুল লতিফের ছেলে মো. কাউছার আহমেদ (৩৮) ও তাঁর সহযোগী মাদারীপুরের দেউড়ি এলাকার আবদুল জলিল হাওলাদারের ছেলে মো. হাফিজুল হাওলাদার (২৬)। গত বৃহস্পতিবার রাতে মাধবদী থানার শেখেরচর মাজার বাসস্ট্যান্ড থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে এসপি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) খোকন চন্দ্র সরকার মাজার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গেলে কয়েকজন লোক পালানোর চেষ্টা করেন। তখন দুজনকে আটক করে পুলিশ। আটক দুজনের দেহ তল্লাশি করে সাত লাখ টাকার জাল নোট এবং সঙ্গে থাকা একটি ব্যাগ থেকে একটি ল্যাপটপ, একটি প্রিন্টার, একটি কাঠের ডাইস, ১ হাজার ও ৫০০ টাকার নোট ছাপানোর কাগজ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় আজ শুক্রবার পুলিশ বাদী হয়ে মাধবদী থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি মামলা করেছে।
সংবাদ সম্মেলনে এসআই খোকন চন্দ্র সরকার বলেন, ‘গ্রেপ্তার হওয়া কাউছার প্রায় ১০ বছর ধরে জাল নোট তৈরির কাজ করে আসছেন। এর আগে তিনি রাজধানীর ধানমন্ডি, কেরানীগঞ্জ, মিরপুর ও মোহাম্মদপুর থানা-পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। পরে আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে আবারও এ ব্যবসা চালিয়ে আসছেন। তাঁরা নরসিংদীতে আজ শুক্রবার দেশের সবচেয়ে বড় পাইকারি কাপড়ের হাট শেখেরচর বাবুর হাটে এবং ঈদুল আজহা উপলক্ষে জেলার বিভিন্ন গরুর হাটে জাল নোট সরবরাহ করার লক্ষ্য নিয়ে নরসিংদীতে এসেছিলেন।’
তিনি আরও বলেন, ‘জাল নোট তৈরির চক্রের গ্রাহক হচ্ছেন বিভিন্ন ব্যাংকের লোকজন, বড়মাপের পাইকারি ব্যবসায়ীরা। তাঁরা ২২ হাজার টাকায় জাল এক লাখ টাকা সংগ্রহ করেন। আর এই চক্রের সদস্যরা ঘণ্টায় ৫০ হাজার টাকার জাল নোট তৈরি করতে পারেন। গ্রেপ্তার হওয়া কাউছারের রাজধানীর অভিজাত এলাকায় একাধিক প্লট রয়েছে। জাল নোট তৈরির এই চক্রের সদস্যরা দেশের বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে এবং তারা এক এলাকায় এক-দুই সপ্তাহের বেশি অবস্থান করে না।’
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম ও শফিউর রহমান, সহকারী পুলিশ সুপার রেজোয়ান আহমেদ, সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা, মাধবদী থানার ওসি মো. ইলিয়াস, গোয়েন্দা পুলিশের ওসি সাইদুর রহমান প্রমুখ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24