সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে বিদ্যালয় সমূহে পরিচ্ছিন্ন রাখতে ডাষ্টবিন বিতরণ শুরু জগন্নাথপুরে কমিউনিটি পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার- সুনামগঞ্জের শান্তি শৃঙ্খলা নিশ্চিতে কাজ করতে চাই বিশ্বনাথে পাইপগানসহ গ্রেফতার-১ মাহী বি চৌধুরীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ ভিডিও কেলেঙ্কারি : জামালপুরে নতুন ডিসি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জগন্নাথপুরে সৈয়দপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে সভা অনুষ্ঠিত সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাচন সম্পন্ন:সভাপতি পঙ্কজ দে,সেক্রেটারী মহিম জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু

ধর্ষণের শিকার ৫ বছরের শিশুটির সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৭ অক্টোবর, ২০১৬
  • ২২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: দিনাজপুরে ধর্ষণের শিকার ৫ বছরের শিশুটির প্রজনন অঙ্গে দেখা দেওয়া সংক্রমণ রক্তের মাধ্যমে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ার (সেপটিসিমিয়া) আশঙ্কা করছেন চিকিৎসকেরা। তাকে পুষ্টিকর খাবার দিচ্ছেন চিকিৎসকেরা। সংক্রমণ রোধে ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিশুটির জন্য গঠিত নয় সদস্যবিশিষ্ট মেডিকেল দলের সদস্যরা বিভিন্ন ব্যবস্থাপত্রের সুপারিশ করেছেন। সেটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

সকালে শিশুটির বাবা জানান, মেয়ের চিকিৎসাসহ যাবতীয় খরচ সরকার বহন করছে। আজ মেয়ে কেমন আছে, জানতে চাইলে বাবা বলেন, ‘ওসিসিতে মেয়ের কাছে যে যাব, আমার তো খুব খারাপ লাগে। আমার বুকের ভিতর তো ফাটি যাতিছে।’

মেডিকেল বোর্ডের সদস্য হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের প্রধান আশরাফ-উল হক বলেন, শিশুটি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে ক্ষতবিক্ষত করা হয়েছে। বীভৎস কায়দায় ধর্ষণের পর একটি খেতের মধ্যে নোংরা জায়গায় ফেলে রাখা হয়েছিল। তার রক্ত সংক্রমণ বা সেপটিসিমিয়া হওয়ার ভয় আছে। তবে শিশুটি ধীরে ধীরে ভালো হচ্ছে।

পাঁচ বছরের এই শিশুকে গত মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস (ওসিসি) সেন্টারে ভর্তি করা হয়। ওর মাথা, গলা, হাত ও পায়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন ছিল। ঊরুতে সিগারেটের ছ্যাঁকার ক্ষত।

১৮ অক্টোবর শিশুটি নিখোঁজ হয়। অনেক খোঁজাখুঁজি করেও সেদিন তাকে পাওয়া যায়নি। পরদিন ভোরে শিশুটিকে তার বাড়ির কাছে হলুদখেতে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় পাওয়া যায়। প্রথমে স্থানীয় হাসপাতাল, পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল হয়ে শিশুটি এখন ঢাকা মেডিকেলে।

শিশুটির বাবা যাঁর পিকআপ ভ্যান চালাতেন, ঘটনার পর থেকে তিনি সঙ্গে আছেন। তাঁরও একই এলাকায় বাড়ি। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, শিশুটিকে খুঁজে পাওয়ার পরও কারও মনে হয়নি যে ওকে ধর্ষণ করা হয়েছে। এত ছোট শিশুকে ধর্ষণ করা যায়, তা তাঁরা ভাবতেই পারেননি। এলাকায় এর আগে এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেছে বলেও তাঁদের জানা নেই।

ঘটনার পর শিশুটির বাবা ২০ অক্টোবর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। মামলার এজাহারভুক্ত আসামি সাইফুল ইসলাম (৪২) ও আফজাল হোসেন কবিরাজ (৪৮)। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা স্বপন কুমার চৌধুরী বলেন, ২৪ অক্টোবর রাতে দিনাজপুর শহর থেকে সাইফুলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আসামিকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। আফজাল পলাতক। সুত্র দৈনিক প্রথম আলো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24