বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০২:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:

নবীগঞ্জে নিখোঁজের ৩দিন পর উদ্ধার হওয়া লাশ কলেজ ছাত্রী তন্নী’র

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ৯ Time View

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ)সংবাদদাতা:হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে নিখোঁজের ৩দিন পর কলেজ ছাত্রী তন্নী রায় (১৮) এর হাত-পা বাঁধা বস্তা বন্দি লাশের পরিচয় পাওয়া গেছে। নবীগঞ্জ শহরতলীর আক্রমপুর এলাকার গড়মুড়িয়া ব্রীজের নিকট থেকে গত মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৫ টার দিকে লাশ উদ্ধার করা হয়। এদিকে লাশ উদ্ধারের পর থেকে পুরো নবীগঞ্জ জুড়ে আলোচনা চলছে। শোকের মাতম চলছে নিহত তন্নীর পরিবার সহ স্বজদের মাঝে। নিহত তন্মী রায়ের পিতা বিমল রায়ের বাড়ী উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের পাঞ্জারাই গ্রামে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে নবীগঞ্জ পৌরসভার শিবপাশা আবাসিকএলাকার ধান সিঁড়িতে স্ত্রী, এক ছেলে ও নিহত কলেজ পড়ূয়া কন্যা তন্মী কে নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। তন্নী রায় (১৮) নবীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ থেকে গতএইচএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে কৃতিত্বে সাথে পাশ করেছে। পরীক্ষার পর তন্নী নবীগঞ্জ শহরের আই.সি.টিকম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারে কম্পিউটার প্রশিক্ষণে ভর্তি হয়। গত শনিবার বেলা দেড় টার দিকে তন্মী রায় আই.সি.টি কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারের উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হয়। নির্ধারিত সময় সে বাসা ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজন তাকে খোজতে শুরু করেন।কিন্তু সম্ভাব্য সব স্থানে খোজাখুজির পরও তন্নীকে না পেয়ে ওই দিন রাতেই নবীগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরী দায়ের করেন। পৌর এলাকার গড় মুড়িয়া ব্রীজের নিকট পানিতে নেমে মাছ ধরাকালে হঠাৎ একটি বস্তা দেখতে পায়। আর এ বস্তা থেকে দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছিল। মুহুর্তে খবরটি প্রচার হলে লোকজন ঘটনাস্থলে এসে ভীড় জমায়। এক পর্যায়ে একলোক একটি লাঠি দিয়ে নাড়াচাড়া করলে বস্তাটিছিড়ে গেলে এর ভেতরে একটি মানুষের লাশের কিছু অংশ বেরিয়ে আসে। খবর পেয়ে এক দল পুলিশ নিয়ে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল বাতেনখান ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে লাশ উদ্ধার করেন। এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জের সবজি বিক্রেতা কানু রায়ের ছেলে রানু রায়ের সাথে তন্নীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ঘটনার পর থেকে রানু রায় নিরুদ্দেশ। এতে সন্দেহের তীর চলে যাচ্ছে রানুর দিকে। অনেকের ধারনা, ফুসলিয়ে হউক বা জোড় পূর্বই হোক তন্নী রায়কে ঘটনাস্থলের আশপাশে কোথাও শারীরিকভাবে নির্যাতন করা হয়েছে। এক পর্যায়ে হয়তো কোন কারন উপজাত হলে তন্নীতে হত্যা করে লাশ বস্তাবন্দি করে বরাক নদীতে পেলে দেয়া হয়। এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র নবীগঞ্জের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় পুলিশ সুপার নিহত তন্নীর পিতা সহ আত্মীয় স্বজনকে শান্তনা দিয়ে বলেন, তন্নী হত্যার সাথে যে বা যারা জড়িত তাদের স্বল্প সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করা হবে। হত্যাকারী যত প্রভাবশালীই হোক কাউকে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হবে হবেনা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24