বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন

নেশাদ্রব্য খাইয়ে কলেজছাত্রীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ২

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৬ আগস্ট, ২০১৭
  • ২৫ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
নাটোরের বাগাতিপাড়ার কাদিরাবাদ ক্যান্টনমেন্ট স্যাপার কলেজের প্রথম বর্ষের এক ছাত্রীকে নেশাদ্রব্য খাইয়ে তিন বন্ধু মিলে গণধর্ষণের ঘটনায় দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে তাদের জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে ৪ জনকে আসামি করে বাগাতিপাড়া থানায় মামলা করেন।

পুলিশ ও মামলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরে কাদিরাবাদ ক্যান্টনমেন্ট স্যাপার কলেজে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ভর্তি হয় ওই ছাত্রী। এরপর থেকেই একই কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র পাশ্ববর্তী লালপুর উপজেলার দাঙ্গাপাড়া গ্রামের মহরম আলীর ছেলে তুষার আলী ওই ছাত্রীকে প্রায়ই প্রেমের প্রস্তাব দিত।

এতে সাড়া না দেয়ায় গত ১২ জুলাই ছাত্রীকে তার বান্ধবী মেঘলা খাতুনের সহযোগিতায় নেশাদ্রব্য খাইয়ে কলেজের গেট থেকে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে তুষার এবং তার অপর দুই বন্ধু একই কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ইমন ও ইমরান মিলে ধর্ষণ করে।

ইমন রাজশাহী জেলার বাগমারা উপজেলার শ্রীবতীপাড়া গ্রামের ওবাইদুর রহমানের ছেলে এবং তুষার ইমরান নাটোরের নলডাঙ্গা থানার পূর্বমাধনগর গ্রামের সালামের ছেলে।

অভিযোগে আরো বলা হয়, ধর্ষণের সময় ওই দৃশ্য মেঘলা খাতুন মোবাইলফোনে ভিডিও করে রাখে। এরপর ওই ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে একাধিকবার ওই তিন বন্ধু ছাত্রীকে ধর্ষণ করে।

এক পর্যায়ে ছাত্রীর শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে ২০ জুলাই তাকে দয়ারামপুর সিএমএস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ২৪ জুলাই পর্যন্ত চিকিৎসা নেয় সে।

অভিযুক্তদের এ সব পাশবিক অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে ৬ আগস্ট হারপিক পানে আত্মহত্যার চেষ্টা করলে ওইদিন তাকে বগুড়া সিএমএস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে বুধবার পর্যন্ত চিকিৎসা নেয় ওই ছাত্রী।

এদিকে মামলার প্রধান আসামি তুষার আলীকে বৃহস্পতিবার দয়ারামপুরের একটি ছাত্রাবাস থেকে বিদেশি পিস্তুল, একটি ম্যাগজিন ও ৩ রাউন্ড গুলিসহ র‌্যাব-৫ এর একটি দল আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। তুষার আলীর বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনেও অপর একটি মামলা হয়েছে।

একই দিনে বান্ধবী সহযোগী মেঘলা খাতুনকে একই এলাকার অপর এক ছাত্রীনিবাস থেকে আটক করা হয়।

বাগাতিপাড়া থানার ওসি মনিরুল ইসলাম মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মামলার প্রধান আসামি তুষার ও তার সহযোগী মেঘলা খাতুনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24