রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

প্রতিরোধে করণীয় প্রচার প্রচারনায় স্বাস্থ্য বিভাগ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১২ জুলাই, ২০১৭
  • ১৩৮ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
চিকুনগুনিয়া নিয়ে চিন্তিত সুনামগঞ্জের স্বাস্থ্যবিভাগসহ স্থানীয় সরকার বিভাগের জনপ্রতিনিধিরাও। শহরের বিভিন্ন এলাকায় জ্বরের প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ায় এই দুশ্চিন্তা আরো বাড়িয়েছে। আবাসিক এলাকার জমাটবদ্ধ পানি নিয়েও শংকিত রয়েছেন জনপ্রতিনিধিরা। বিশেষ করে মধ্য শহরের বাসিন্দারা চিকুনগুনিয়া নিয়ে অধিক চিন্তিত। সিভিল সার্জন ডা. আশুতোষ দাশ অবশ্য বলেছেন,‘জেলাজুড়ে ভাইরাস জ্বরের প্রাদুর্ভাব রয়েছে। তবে এখনো সুনামগঞ্জে চিকুনগুনিয়ায় কেউ আক্রান্ত হয়েছেন, এমন তথ্য আমাদের জানা নেই। কেউ কেউ ঢাকায় গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন, এটি জানা গেছে।’ সোমবার বিকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে পৌরসভাসহ সংশ্লিষ্ট অফিসগুলোতে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধের স্বাস্থ্যবার্তা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।
সুনামগঞ্জ পৌর এলাকায় মধ্যশহরে জনবসতি বেশি, পানি নিস্কাশনেরও সমস্যা রয়েছে। অনেক এলাকায় সারা বছরই পানি আটকা থাকে। এসব এলাকার জমাটবদ্ধ পানি নিস্কাশন জরুরি বলে মনে করছেন জনপ্রতিনিধিরাও।
এক নম্বর ওয়ার্ডের ষোলঘর পয়েন্টের পাশের জনবহুল এলাকায় ময়লা ও পানি জমে থাকে, ধোপাখালি, নবীনগর ও মোহাম্মদপুর এলাকায় ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় অনেক স্থানেই সড়কের পাশে পানি জমে থাকে।
স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর হোসেন আহমদ রাসেল এসব সমস্যার কথা স্বীকার করে বলেন,‘মশার ওষুধ ছিটানোর জন্য মেয়র সাহেবের কাছে লিখিত আবেদন জানাবো। ষোলঘর পয়েন্টের মাছ বাজার অন্যত্র (কলোনীর সামনের মাঠের পাশে) সরিয়ে নেবার প্রস্তাব দেব পরিষদ সভায়।’
সাত নম্বর ওয়ার্ডের আমপাড়া, লম্বাহাটির মুখে, গুরস্থানের পাশে, পশ্চিম তেঘরিয়ার আচার্য বাড়ির পাশে এবং নদীর পাড়ে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে মশার উপদ্রপ বাড়ে।
স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর শামছুজ্জামান এসব সমস্যার কথা স্বীকার করে বলেন,‘পানি সরানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। মশার ওষুধ ছিটানোর জন্যও পরিষদ সভায় বলবো।’
মধ্যশহরের চার নম্বর ওয়ার্ডের সোমপাড়া থেকে কালিবাড়ী হয়ে বাঁধনপাড়া পর্যন্ত ড্রেন এবং আলিমাবাগ-হাসননগর ড্রেনের বেশ কিছু অংশ দখল হয়ে যাওয়ায় পানি নিস্কাশনে সমস্যা হচ্ছে। এই ওয়ার্ডের কোন কোন সড়কেও পুরো বর্ষা মৌসুমে পানি লেগে থাকে। পৌরসভার পাশের রাজগোবিন্দ স্কুলের পাশের সড়ক, শহীদ আবুল হোসেন রোডের একটি অংশে, জেলা পরিষদ রেস্ট হাউসের সামনে, মাছ বাজারে যাওয়ার সড়কের একটি অংশে পানি জমে থাকে।
স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর চঞ্চল কুমার লৌহ বললেন,‘ছড়া-খাল দখলমুক্ত করতে হবে। যেহেতু পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার বাজেট রয়েছে এই মৌসুমে এজন্য খরচ করার জন্যও পরিষদ সভায় আলোচনা করবো।’
পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের খামারখালি ড্রেনে (শামিমাবাদ হোটেল থেকে রেজিস্ট্রার অফিসের সামনা পর্যন্ত) সারা বছর পানি থাকে। পশ্চিম নতুনপাড়ায় বৃষ্টি হলেই পানি জমে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়, মশার উপদ্রপও বাড়ে।
স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর গোলাম সাবেরীন সাবু বলেন,‘গত দেড় বছর হয় মশার ওষুধ ছিটাতে পারিনি আমরা। এবার যেহেতু জ্বর এবং চিকুনগুনিয়ারও আতংক রয়েছে, মশার ওষুধ ছিটাতে হবে।’
ছয় নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর আরপিননগরের মধ্যহাটির স্কুলের পাশে, জামতলার শেষ প্রান্তে, সোমপাড়া থেকে কালীবাড়ির দিকে যাওয়া ড্রেনে পানি আটকা থেকে।
স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর আবাবিল নূর বলেন,‘চেষ্টা করেও পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করা যাচ্ছে না। আগামী পরিষদ সভায় মশার ওষুধ ছিটানোর প্রস্তাব দেব।’
পৌর মেয়র আয়ুব বখ্ত জগলুল বলেন,‘পৌরসভায় মশার ওষুধ ছিটানোর একটি মেশিন রয়েছে। এটি অনেক ব্যয়বহুল, মশাও মরে না। এটি চালানোর জন্য প্রশিক্ষিত মানুষও প্রয়োজন। তবুও পৌরবাসীর পরামর্শ মোতাবেক মশা নিধনের কাজ করা যেতে পারে।’ তিনি জানান, ষোলঘর ওয়াপদা রোড থেকে বিলপাড়, বরুণ রায় সড়ক এগুলোতে জলাবদ্ধতা দূর করার জন্য ড্রেন করার প্রাক্কলন তৈরি হচ্ছে। তাৎক্ষণিকভাবে যেগুলো করা প্রয়োজন, করা হচ্ছে, যেমন সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনের সড়কের জলাবদ্ধতা দূর করার জন্য কাজ করা হয়েছে। এভাবে জরুরি সমস্যা হলে করে দেওয়া হবে।’
সিভিল সার্জন ডা. আশুতোষ দাস বলেন,‘সুনামগঞ্জে কারো চিকুনগুনিয়া হয়েছে জানি না। সুনামগঞ্জ থেকে ঢাকায় গিয়ে কারো কারো হয়েছে শুনেছি। আমাদের একজন ডাক্তারেরও হয়েছিল। তিনি ঢাকায়-ই চিকিৎসা নিয়েছেন।’ তিনি জানান, সোমবার বিকালেই আমরা পৌরসভাসহ স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোতে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধ স্বাস্থ্যবার্তা পাঠিয়েছি। আমাদের এই স্বাস্থ্য বার্তায় অনেক কিছুই বলা রয়েছে- চিকুনগুনিয়া সক্রামক রোগ, রোগের লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন, চিকুনগুনিয়ার জন্য কোন ভ্যাকসিন বা টিকা নেই, এন্টিবায়োটিক ওষুধ খাওয়ার প্রয়োজন হয় না। প্রচুর পরিমাণে পানি ও তরল খাবার খেতে হবে এবং পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিতে হবে। জ্বর এবং গায়ে ব্যাথার জন্য প্যারাসিটামল জাতীয় ওষুধ খাওয়া যেতে পারে।
সিভিল সার্জন ডা. আশুতোষ দাশ বলেন,‘স্বাস্থ্য বার্তায় বলে দেওয়া হয়েছে আশপাশে যে কোন পাত্রে বা জায়গায় জমে থাকা পানি ফেলে দিলে এডিস মশার লাভা মরে যাবে। ব্যবহৃত পাত্রের গায়ে লেগে থাকা মশার ডিম অপসারণে পাত্রটি ঘষে ঘষে পরিস্কার করতে হবে। ফুলের টব, প্লাষ্টিকের পাত্র, পরিত্যক্ত টায়ার, প্লাষ্টিকের ড্রাম, মাটির পাত্র, বালতি, টিনের কৌটা, ডাবের খোঁসা, নারিকেলের মালা, কন্টেনার, মটকা, ব্যাটারির শেল ইত্যাদিতে এডিস মশা ডিম পাড়ে। এ কারণে এ ধরণের পাত্রে জমে থাকা পানি ফেলে দিতে হবে। অব্যবহৃত পানির পাত্র ধ্বংস অথবা উল্টে রাখতে হবে। দিনে বা রাতে ঘুমানোর সময় মশারী ব্যবহার করতে হবে। বাড়ির ছাদের উপরে এবং সানসেটের উপরে পানি জমে থাকলেও এডিস মশা বংশ বিস্তার করতে পারে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24