রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
আজ কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সন্মেলন ভারমুক্ত না নতুন নেতৃত্ব? কাশফুলের শাদা যন্ত্রণা ||আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরের মিরপুরে ডাকাত আতঙ্ক, রাত জেগে দলবেঁধে পাহারা চলছে কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলনে রোববার পরিকল্পনামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন ৫ বছর পর কাল কলকলিয়া ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন: বিতর্কিত নেতৃত্ব চান না নেতাকর্মীরা তুরস্ক থেকে এসেছে দুই হাজার ৫০০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ রাজধানীতে দুই বাসে আগুন সৌদিতে জগন্নাথপুরের কিশোরীকে আটককে রেখে অমানবিক নির্যাতন চলছে, মেয়েকে ফিরে পেতে মায়ের আহাজারি জগন্নাথপুরে আমনের বাম্পার ফলন হলেও, ন্যায্য দাম নিয়ে সংশয়ে কৃষকরা জগন্নাথপুরে আনন্দ হত্যাকাণ্ডের রহস্য অজানা, নেই গ্রেফতার

প্রসঙ্গ জনকল্যাণ ট্রাস্ট হবিবপুর ইউকে

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০১৬
  • ২০২ Time View

মোঃ আজিজুর রহিম মিছবা:: জন্মের পর থেকে আজ অবধি, আমাদের বেড়ে উঠা ও মানুষ হওয়ার পেছনে প্রানপ্রিয় জন্মস্থান হবিবপুরের মাটি ও সর্বস্থরের মানুষের অফুরন্ত ভালোবাসা ও অকৃত্রিম অবদানের কিঞ্চিৎ হলেও প্রতিদান শোধিবার চেষ্টায় প্রিয় স্বজনদের মধ্যে যারা অভাবে অনঠনে পরে মানবেতর জীবন যাপন করছেন তাদের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষে যথাসাধ্য কিছু করার প্রচেষ্টার পবিত্র মানসিকতা থেকে সূচিত হয় “জনকল্যাণ ট্রাস্ট হবিবপুর,ইউকে” গঠনের প্রেক্ষাপট ৷

ভাগ্যাহত প্রিয়জনেরা, যারা সামর্থের অভাবে ছেলেমেয়েদের লেখা করাতে পারছেন না ক্রমান্বয়ে এমন পরিবারগুলোর অন্তত একটি সন্তানকে এতদূর পর্যন্ত লেখাপড়ার ব্যবস্থা করে দেওয়া যতদূর পর্যন্ত লেখা পড়া করলে এই সন্তানটি মোটামুটি তার পরিবারের হাল ধরতে পারে, পরিবারের কর্মক্ষম বেকার মানুষটির জন্যে এমন কোনো ব্যবস্থা করে দেওয়া যার মাধ্যমে তিনি তার পরিবারকে চালিয়ে নিতে সক্ষম হন, আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে নিজের বাসস্থানের সংস্কার বা নির্মাণ সম্ভব হচ্ছেনা এমন পরিবার গুলুর জন্যে মোটামুটি বাসযোগ্য একটি বাসস্থানের ব্যবস্থা করে দেওয়া, আর্থিক অক্ষমতায় বিবাহযোগ্য কন্যার বিয়ে আটকে আছে এমন পরিবারগুলোকে তাদের কন্যার বিবাহ সম্পাদনে প্রয়োজনীয় সাহায্য প্রদান করা, সেনেটারি টয়লেট ও বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা নেই এমন এলাকাগুলোতে সেনেটারি টয়লেট ও বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা করে দেওয়া, চিকিৎসার অভাবে মানবেতর জীবন যাপনকারী মানুষগুলোর চিকিৎসার ব্যবস্থা করা, এ জাতীয় কিছু কাজের লক্ষ নিয়ে গঠিত হয় জনকল্যাণ ট্রাস্ট হবিবপুর,ইউকে ৷ প্রিয়জনদের জন্যে কিছু করবার প্রচেষ্টা সবসময়ই মনে একধরণের আনন্দের সঞ্চার করে, তাই ট্রাস্ট গঠন কালীন সময়ে এর সাথে জড়িত প্রত্যেকটি সদস্যের অন্তরের গহীনে এক পুলকিত স্বপ্নের নাম ছিল জনকল্যাণ ট্রাস্ট হবিবপুর, ইউকে ৷ সময়ের বিবর্তন আর বর্তমান বাস্তবতায় ট্রাস্ট সম্বন্ধীয় কিছু বক্তব্য উপস্থাপনের বড়ই প্রয়োজন ও দায়িত্ব উপলব্দি করছি ,

ধারণা করছি লেখাটা কিছুটা লম্বা হয়ে যেতে পারে তাই খুব পিছনে যেতে চাইনা, একান্ত প্রয়োজনের বাইরে সকল বিষয়ের অবতারণা ও করতে চাই না, তাই শুরু করতে চাই ২০ শে জানুয়ারী ২০১৫ ইং তারিখে বল্টনে অনুষ্ঠেয় ট্রাস্টের দ্বিতীয় সাধারণ সভা থেকে ৷ যদিও এটা ছিল ট্রাস্টের ২য় সভা কিন্তু মূলত সদস্য ফিস পরিশোধ পূর্বক ট্রাস্টে নিজেদের নাম অন্তর্ভুক্ত করে ট্রাস্টি হওয়ার পর ট্রাস্টিদের সমন্বয়ে এটিই ছিল ট্রাস্টের প্রথম সাধারণ সভা, যাইহোক ১ম বা ২য় এটা আমার আলোচ্য বিষয় নয় ৷ এই সভায় অনেক সিদ্ধান্তই গৃহীত হয়েছে তার মধ্য থেকে যেগুলো আমার আলোচনায় প্রাসংগিক আমি কেবল সেগুলোই উল্লেখ করতে চাই ৷ যেকোন সংগঠন পরিচালিত হওয়ার জন্য হোক নীতিমালা হোক গঠনতন্ত্র যেকোন একটি লিখিত দলিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ ৷ যেহেতু আমরা তখন ও ছিলাম ট্রাস্ট গঠিত হওয়ার পর একেবারেই প্রাথমিক পর্যায়ে তাই তখনও আমরা কোন নীতিমালা বা গঠনতন্ত্র লিপিবদ্ধ করিতে পারি নাই, যার মাধ্যমে আমরা পরিচালিত হবো বা ট্রাস্ট পরিচালিত হবে, অর্থাৎ তখনও আমাদের সামনে ট্রাস্টিগণ কতৃক স্বীকৃত কোন আইনি দলিল নেই, এই সভায় ৫ জন সদস্যের সমন্বয়ে একটি বোর্ড গঠিত হয় ট্রাস্ট পরিচালিত হওয়ার আইনি দলিল গঠনতন্ত্র প্রণয়নের জন্য ৷ যদিও তখনো গঠনতন্ত্র রচিত হয়নি তবে ট্রাস্টের প্রথম সভায় ট্রাস্ট পরিচালিত হওয়ার একটি ব্যতিক্রমী কাঠামো,- একটি পরিচালনা পর্ষদ এবং এই পর্ষদের কিছু কর্মপন্থা সম্মন্ধে আমরা সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে উপনীত হই ৷ আমাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ট্রাস্টের ৬ সদস্য বিশিষ্ট একটি পরিচালনা পর্ষদ থাকবে, এই পর্ষদের মেয়াদ হবে একটি সাধারণ সভা আরেকটি সাধারণ সভা পর্যন্ত এবং প্রত্যেকটি পরিচালনা পর্ষদ ৬ মাস সময়ের মধ্যে পরবর্তী সাধারণ সভা আহবান করিবেন ৷ এগুলো হলো ট্রাস্টিগণ কর্তৃক স্বীকৃত সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত, এর বাইরে ট্রাস্ট পরিচালিত হওয়ার জন্য আর কোন বিকল্প আইন বা পদ্ধতি ট্রাস্টিগণ কতৃক কোথাও গৃহীত হয় নাই

১৪ অক্টোবর ২০১৪ ইং তারিখে অনুষ্ঠেয় ট্রাস্টের প্রথম সভার সিদ্ধান্তের ধারাবাহিকতায় ২০শে ফেব্রুয়ারি ২০১৫ ইং তারিখে বল্টনে অনুষ্ঠেয় সভায় একই ভাবে ট্রাস্টের ২য় পরিচালনা পর্ষদ গঠিত হয় বিনা মতপার্থক্যে ঐক্যমতের ভিত্তিতে ৷ দায়িত্বশীল পরিচালনা পর্ষদের দায়িত্বকালীন সময়ে তাদের অন্যতম এবং বলা যেতে পারে একমাত্র উল্লেখযোগ্য দায়িত্বই ছিল ট্রাস্টের পরবর্তী সাধারণ সভা আহবান করা এবং তা সফলের লক্ষে কাজ করা ৷ অপ্রত্যাশিত হলেও এই পরিষদের সভা আহবানকে কেন্দ্র করেই সূচনা হয় মতপার্থক্যের ৷ ধারণা করছি লেখাটা অনেক দীর্ঘ হতে চলেছে তাই খুঁটিনাটি সকল আলোচনা এখানে সম্ভব নয়, কেবল উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলোরই অবতারণা করতে চাই,-

দায়িত্বশীল পরিচালনা পর্ষদ তাদের নিজেদের মধ্যে বিভক্ত হয়ে পড়েন ৷ পর্ষদের ৪ জন সদস্য কর্তৃক ট্রাস্টের সাধারণ সভার জন্য একটি তারিখ ঘোষিত হয়, অপর ১ জন সদস্য কর্তৃক সাধারণ সভার জন্য আরও একটি তারিখ ঘোষিত হয় এবং ১ জন সদস্য কোন পক্ষ অবলম্বন না করে নিষ্ক্রিয়তা পালন করেন ৷ এখানে ট্রাস্টের কিছু সংখক সম্মানিত সদস্য পরিচালনা পর্ষদের বেশির ভাগ সদস্য কর্তৃক আহবানকৃত সাধারণ সভার তারিখকে উপেক্ষা করে পর্ষদের অন্য ১ জন সদস্য কর্তৃক আহবানকৃত সাধারণ সভার পক্ষে WhatsApp গ্রুপে ভোটাভুটি করেন ৷ ট্রাস্টের অনুষ্ঠেয় গত দুইটি সাধারণ সভার কোথাও WhatsApp গ্রুপে এই ধরণের ভোটাভুটির মাধ্যমে কোন বিশেষ সিদ্ধান্তে উপনীত হতে হবে এ জাতীয় কোন সিদ্ধান্ত ট্রাস্টিগণ কতৃক গৃহীত বা অনুমোদিত হয় নাই, ফলে ট্রাস্টে এর কোন সাংগঠনিক বৈধতা নেই ৷ এটা ছিল একান্তই সম্মানিত কোন সদস্যের ব্যক্তিগত চিন্তাধারার ফল, আর কারও ব্যক্তিগত কোন চিন্তাধারা সার্বজনীন ভাবে কোন সংগঠনের জন্যে আইন হতে পারেনা, যতক্ষণ পর্যন্ত ঐ সংগঠনের নীতিনির্ধারণী ফোরামে তা আইন হিসাবে গৃহীত না হয় ৷ আর এজন্যই সম্পূর্ণ এ প্রক্রিয়াটিই ট্রাস্টের জন্য একেবারেই অবান্তর ৷
ট্রাস্টের সাধারণ সভা আহবানের জন্য ট্রাস্ট কতৃক একমাত্র স্বীকৃত দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিগণ হলেন ট্রাস্টের পরিচালনা পর্ষদ সদস্যগণ, ইহা ট্রাস্টের সকল ট্রাস্টির ঐক্যমতের ভিত্তিতে গৃহীত একটি সিদ্ধান্ত ৷ পরিচালনা পর্ষদ তাদের দায়িত্বকালীন সময়ে তাদের নিজেদের মধ্যে কোন বিষয়ে মতপার্থক্যের সম্মুখীন হলে তাদের সংখ্যাগরিষ্টের মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে এটাই সর্বজন স্বীকৃত প্রচলিত নিয়ম ৷ এর বাইরে সিদ্ধান্ত গ্রহণের আর কোন পদ্ধতি বা নিয়ম সংযোজন করতে হলে সেটা অবশ্যই কারো ব্যক্তিগত মতামতে নয়, সংগঠনের নীতিনির্ধারণী ফোরামেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হতে হবে ৷ যেহেতু আমাদের ট্রাস্টের অনুষ্ঠেয় গত দুইটি সাধারণ সভার কোথাও এই ধরণের কিছু গৃহীত হয় নাই সেহেতু আমরা আগেও মনে করেছি এখনও মনে করি বল্টনে অনুষ্টেয় ট্রাস্টের ২য় সাধারণ সভায় সর্বসম্মতিক্রমে গঠিত ৬ সদস্য বিশিষ্ট পরিচালনা পর্ষদের ৪ জন সদস্য কর্তৃক আহবানকৃত গত ০৮-০৯-২০১৫ ইং তারিখের সাধারণ সভাটি ছিল জনকল্যাণ ট্রাস্টের তৃতীয় সাধারণ সভা ৷ এবং এরই সূত্র ধরে এই সাধারণ সভায় উপস্থিত ট্রাস্টিগণই হলেন ট্রাস্ট সম্মন্ধে যে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণের বৈধ উত্তরাধিকারী ৷

আমাদের এই সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তগুলো নিয়ে আমি আলোচনায় যেতে চাই একটু পরে, কারণ আমাদের সভাটি অনুষ্টিত হওয়ার আগে পরিচালনা পর্ষদের অপর ১ জন সদস্য কর্তৃক আয়োজিত সভাটি অনুষ্টিত হয়েছিল ৷ তাদের সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় আমাদের সভায় যেসব ট্রাস্টি উপস্থিত হবেন তাদের বিরুদ্ধে সংবিধান অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে, যদিও এই সভার আইনগত কোন ভিত্তি আমাদের কাছে নেই তথাপিও আলোচনার প্রয়োজনে এই সিদ্ধান্তের কথাটি কেবল স্মরণ করিয়ে রাখতে চাই ৷ এবার আমাদের সভায় কি কি সিদ্ধান্ত হয়েছিল সে বিষয়ে একটু আলোকপাত করা যাক,-
তিনজন সম্মানিত ট্রাস্টি যাদের কাছে ট্রাস্টের প্রত্যেকটি সদস্যের আমানত গচ্ছিত ছিল, যাদের দায়িত্ব ছিল আমানতদারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়া, যারা ছিলেন সকল ট্রাস্টির ভরসার জায়গা, তারা সার্বজনীন হতে পারলেন না,- হলেন একটি পক্ষের, যা ছিল আমাদের জন্যে চরম দুর্ভাগ্যের ৷ তাই বাধ্য হয়েই একটি সংগঠনের কার্যক্রম পরিচালনার স্বার্থে আমাদেরকে অনেক কিছুই নতুন থেকে শুরু করতে হয়েছে ৷
সে যাই হউক এগুলোর উল্লেখ এখানে খুব একটা প্রাসংগিক নয়, প্রাসংগিক যা তা হলো এই সভা থেকে সর্বসম্মতিক্রমে আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিলাম দুটো পক্ষের মধ্যে সমঝোতার উদ্যোগ গ্রহণের এবং এই সভা থেকে আমরা এ ও চিন্তা করেছিলাম যে, চলমান বিতর্কে যে সব সদস্যগণ একেবারে ওতপ্রতোভাবে জড়িত তাদেরকে সমঝোতার বাইরে রাখার, কারণ এই আলোচনায় তাদের উপস্থিতিতির ফলে ঘুরে ফিরে আবার ও সেই পুরনো বিতর্কই চলে আসতে পারে, তাই আমরা চেয়েছিলাম আমাদের সভায় গঠিত ৭ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরী পরিষদের সদস্যগণ এবং অপরপক্ষ কর্তৃক তাদের সভায় মনোনীত ৬ সদস্য বিশিষ্ট পরিচালনা পর্ষদের সদস্যগণ, যারা অনেক বিতর্কের সংগেই এত ওতপ্রতোভাবে জড়িত নন তাদের মধ্যকার আলোচনার মাধ্যমে পক্ষপাতমুক্ত একটি সুন্দর সমাধান সহজেই বেরিয়ে আসা সম্ভব, আর সেটাই আমরা সকলেই মেনে নিব ৷ অর্থাৎ আমরা সবকিছু ভুলে সমঝোতার জন্য একটি পরিপূর্ণ উদার মানসিকতা প্রদর্শনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিলাম ৷ তাই যেখানে আমাদের অপর পক্ষের ভাইয়েরা আমাদের মিটিংয়ে উপস্থিত ট্রাস্টিগণের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তার বিপরীতে আমরা এই সভা থেকে ঐক্যমতের ভিত্তিতে সমঝোতার লক্ষে আপোষ প্রস্তাবের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি ৷ এখানে উল্লেখ্য যে সমঝোতার সফলতার স্বার্থে আমরা আমাদের গৃহীত অন্য সকল সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া স্থগিত ঘোষণা করি ৷

এরই সূত্র ধরে আমাদের কমিটির সভাপতি অপরপক্ষের জ্যেষ্ট সদস্যের কাছে সমঝোতা প্রস্তাব পেশ করেন, উক্ত সদস্য আন্তরিকতার সহিত প্রস্তাব গ্রহণ করে এই বিষয়ে চুড়ান্ত মতামত তাকে পরে জানানোর কথা বলেন ৷ আমাদের সভাপতির পূর্ব নির্ধারিত বাংলাদেশ গমনের তারিখ নিকটবর্তী থাকায় তিনি তার অনুপস্থিতিতে উক্ত সম্মানিত সদস্যকে আমাদের সাধারণ সম্পাদকের কাছে তাদের মতামত জানানোর জন্য অনুরুধ করেন ৷ কয়েকদিন পর উক্ত সম্মানিত সদস্য আমাদের সাধারণ সম্পাদককে ফোন করে সমঝোতা প্রস্তাব গ্রহণের সম্মতি জ্ঞাপন করেন এবং সমঝোতার আলোচনার জন্য একটি সম্ভাব্য তারিখ ও প্রস্তাব করেন ৷ এখানে উল্লেখ্য যে, যেখানে আমাদের প্রস্তাব ছিল দুটি পক্ষের মনোনীত কমিটির সদস্যবৃন্দের মধ্যে আলোচণা সংগঠিত হওয়ার, আর তা কেন ছিল আমি তার কারণ ও পূর্বে উল্লেখ করেছি, সেখানে উক্ত সম্মানিত সদস্য তাদের তিন জন ট্রেজারারকে ও তাদের পরিচালনা পর্ষদের অংশ হিসাবে আলোচনায় রাখবার শর্তের কথা উল্লেখ করেন ৷ আমাদের সাধারণ সম্পাদক সম্মানিত সদস্যের প্রস্তাবিত তারিখকে স্বাগত জানিয়ে আমাদের সভাপতি বাংলাদেশ থেকে আসার পর তারিখ চুড়ান্ত করার অনুরুধ করেন ৷ এবং অন্য শর্তটিকে ও আমরা নেতিবাচক ভাবে দেখিনি, আমাদের বিশ্যাস ছিল আলোচনার মাধ্যমে তার ও একটি সমাধান চলে আসবে ৷ এই অবস্থায় আলোচনায় বসার জন্য আমরা মানসিক ভাবে সম্পূর্ণ প্রস্তুত, শুধু অপেক্ষা ছিল আমাদের সভাপতি বাংলাদেশ থেকে আসার পর কেবল দিন ক্ষন চূড়ান্ত হবার ৷ তার দুই তিন দিন পর বাংলাদেশ থেকে আমাদের সভাপতির মাধ্যমে খবর আসলো সাজেদা খানম স্কুলে ২২ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার জনকল্যাণ ট্রাস্ট হবিবপুরের পক্ষ থেকে গ্রামের গরিব দুস্থ মানুষের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণের এক অনুষ্টান আয়োজন করা হয়েছে ৷
আমরা তখন স্তম্ভিত হলাম কিন্তু তারপর ও আশা ছাড়িনি, আমরা অপেক্ষা করতে লাগলাম বাংলাদেশে অবস্থানাধিন আমাদের সভাপতি যিনি সার্বজনীন ট্রাস্টের একজন ট্রাস্টি তার সাথে অপর পক্ষের সম্মানিত সদস্য যার মাধ্যমে এই সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি পরিচালিত হচ্ছে তিনির কোন প্রকার যোগাযোগ বা এই বিষয়ে কোন আলাপ আলোচনা হয় কি না ৷ কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় যে, তার সাথে কোন প্রকারের যোগাযোগ ছাড়াই জকল্যান ট্রাস্টের ব্যানারে এই অনুষ্টানটি সম্পন্ন হয় ৷

সম্মানিত পাঠক যেখানে একটি সংগঠনের সদস্যবৃন্দের মধ্যে আভ্যন্তরীন মতপার্থক্য বিদ্যমান এবং এই মতপার্থক্য দূরীকরণের জন্য উভয় পক্ষের সম্মতিতে যেখানে একটি সমঝোতার প্রক্রিয়া চলমান, এই অবস্থায় দুটি পক্ষেরই যে উচিত এমন সকল কার্যক্রম থেকে নিজেদের বিরত রাখা যা সমঝোতার পথকে বাধাগ্রস্ত করে, আশা করি এই বিষয়টি সকলেই একমত হবেন ৷
যখন সমঝোতার প্রক্রিয়াটিকে ঘিরে সাধারণ সদস্যগণের মধ্যে একটা আসার সঞ্চার হয়েছে এবং আমার জানামতে দুটি পক্ষের দুটি কমিটির প্রত্যেকটি সদস্যই যখন সমঝোতার জন্য অত্যন্ত আন্তরিক এবং ইহা যখন সময়ের ব্যাপার মাত্র এই অবস্থা বুঝতে পেরে যারা অন্তর থেকে সমঝোতা চায়নি কেবল মুখেই সমঝোতার বুলি বুলে তারা চিন্তা করেছে সমঝোতার বৈঠক যদি বসেই যায় তবে তা আর আটকানো যাবেনা ৷ আবার সমঝোতার বিপক্ষে এমন কোন কথা বা মানসিকতা ও প্রকাশ্যে প্রদর্শন করা যাবে না যাতে সাধারণ সদস্যগণ বুঝে ফেলে যে তাদের অবস্থান সমঝোতার বিপক্ষে, কারণ ট্রাস্টের সরলপ্রাণ প্রত্যেকটি সদস্যই সমঝোতার পক্ষে, ফলে মুখোশ উন্মোচিত হওয়ার সমূহ একটা বিপদ রয়েছে ৷ তাই তারা সরল প্রাণ ট্রাস্টিগণকে বুঝিয়েছে গরিবের মধ্যে টাকা বিতরণ এটা একটা ভালো কাজ আর এই ভালো কাজের অজুহাতে তাদের চোখে ধুলো দিয়ে উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে তড়িঘড়ি করে একটি খণ্ডিত অংশের দ্বারা ট্রাস্টের ব্যানারে বাংলাদেশে এই আয়েজনটি করে ৷ সরল প্রাণ ট্রাস্টিগণ হীন এই উদ্দেশ্যটি বুঝতে না পারলে ও তারা ভালো করেই জানত বাংলাদেশে এই অনুষ্ঠানটি করতে পারলেই সমঝোতার পথ বন্ধ হতে বাধ্য ৷ আমার এই ধারণাটি যদি সঠিকই না হতো, আর সত্যিই যদি তারা সমঝোতাই চাইতো তবে এই ভালো কাজটি পরেও করা যাইতো, কারণ এই ভালো কাজটি তখন করার চেয়ে আমাদের কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল নিজেদের মধ্যে বিরুধ মীমাংসা করা ৷ এই ট্রাস্টের জন্মই হয়েছে ভালো কাজ করার জন্য আর ট্রাস্টের পক্ষে এই ভালো কাজগুলিই গৃহীত হবে ট্রাস্টের সকল ট্রাস্টির মতামতের ভিত্তিতে কোন ব্যক্তি বা গ্রুপের সিদ্ধান্তে নয়, আর এমন অধিকার কারোরই নাই বরং ইহা একটি সংগঠনকে দ্বিধাবিভক্ত করে রাখার হীন কৌশল ছাড়া কিছুই নয় ৷

সম্মানিত পাঠক সমঝোতার জন্যে একটি পক্ষের যত আগ্রহই থাকুকনা কেন সম্মানজনক একটি সমঝোতার জন্য ন্যূনতম হলেও অন্তত একটি অজুহাতের বা উছিলার প্ৰয়োজন হয়, যাকে অবলম্বন করে সমঝোতার প্রক্রিয়াকে এগিয়ে নেওয়া যায় ৷ বলতে পারেন আমরা ও তেমন একটি অজুহাত খুজছিলাম শেষ পর্যন্ত অপেক্ষা ও করেছিলাম বাংলাদেশে অবস্থানাধিন আমাদের সভাপতিকে এই অনুষ্টানে উপস্থিত থাকতে কিছু বলা হয় কিনা ৷ কারণ আমাদের পক্ষ থেকে তাকে আমরা গ্রিন সিগন্যাল দিয়ে রেখেছিলাম, এই অনুষ্টান আয়োজনের দায়িত্বে অপর পক্ষের সম্মানিত যে ট্রাস্টি বাংলাদেশে অবস্থান করছেন তিনির পক্ষ থেকে যদি আন্তরিকতার সহিত তাহাকে অনুষ্টানে উপস্থিত থাকতে অনুরুধ করা হয় তবে তিনি যেন সে অনুরুধ রক্ষা করে অনুষ্টানে উপস্থিত হন ৷ সেটাও যখন ঘটল না সত্যি বলতে কি, সমঝোতা নামক শব্দটি আমাদের মাথা থেকে একেবারেই হারিয়ে যায়, কারণ সবটুকু আত্মসম্মান বিসর্জন দিয়েতো আর পথ চলা যায় না ৷
বাধ্য হয়েই আমরা আমাদের সভার গৃহীত সিদ্ধান্ত গুলো যা আমরা সমঝোতার স্বার্থে স্থগিত করে রেখেছিলাম তা বাস্তবায়নে মনযোগী হই ৷

শূন্য থেকে শুরু করতে হয়েছে আমাদেরকে, যেহেতু আমাদের মনোনীত তিনজন একাউন্ট হোল্ডারই অপরপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন সেহেতু নতুন ভাবে ব্যাংক একাউন্ট করে এবং তাতে যথেষ্ট পরিমান টাকা জমা করে আমাদের কার্যক্রম শুরু করতে হয়েছে, আর এই প্রক্রিয়াটির জন্য আমাদেরকে দীর্ঘ সময় ব্যয় করতে হয়েছে ৷ উল্লেখ্য যে আমাদের গত মিটিংয়ে অনেক ট্রাস্টির বক্তব্যে একটি বিষয় প্রায় পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল এবং অনেকেরই বদ্ধমূল ধারণা ছিল যে, হয়তো ইতিমধ্যেই অপরপক্ষ কর্তৃক আমাদের ট্রাস্টটি চ্যারিটি রেজিস্টার্ড হয়ে গিয়েছে তাই আমরা মানসিক ভাবে প্রায় প্রস্তুত ছিলাম এবং বিকল্প সিদ্ধান্ত ও নিয়ে রেখেছিলাম যদি কোন কারণে সমঝোতা ব্যর্থ হয় আর খোজ নিয়ে যদি এর সত্যতা ও পাওয়া যায় তবে নতুন কোন নামেই আমরা আমাদের কার্যক্রম শুরু করব ৷ খোজ নিয়ে দেখলাম এখনো এই ধরণের কিছুই হয় নাই, তত্ত্বটি সত্যিই ট্রাস্টিগণের মনোবল বাড়িয়ে দিয়েছিল, কিন্তু তখন ও চ্যারিটি রেজিস্টার্ডের জন্য এপ্লিকেশন করার মতো কোন উপাদানই আমাদের কাছে ছিল না ৷ কৌশলগত কারণে আমরা তখন ” জনকল্যাণ ট্রাস্ট হবিবপুর, ইউকে ” এই নামটিকে ট্রেড মার্ক করার জন্য এপ্লিকেসন Submit করি, তার ১৫ দিন পর এপ্লিকেশন গৃহীত হওয়ার Confirmation পাই তার পর আরও দুই মাস এই এপ্লিকেশনটি অনলাইনে প্রদর্শিত হয় ইহা ট্রেড মার্ক রেজিস্টার্ড হতে কারো কোন আপত্তি আছে কিনা তা জানার জন্যে ৷ আইনগত সকল প্রক্রিয়া যথাযথ ভাবে অনুসরণ করেই গত ১ লা জানুয়ারি ২০১৬ ইং তারিখে আমরা ট্রেড মার্ক সার্টিফিকেট পাই ৷ ইতিমধ্যে চ্যারিটি রেজিস্ট্রেশনের জন্য আমরা প্রয়োজনীয় সকল উপাদান প্রস্তুত করতে সক্ষম হই এবং চ্যারিটি রেজিস্ট্রেশনের জন্য এপ্লিকেশন করি ৷ বিভিন্ন Requirements এর কারণে কমপক্ষে পাঁচ বার আমাদের এপ্লিকেশনটি ফিরত আসে, দীর্ঘ প্রক্রিয়া শেষে সকল Requirements full fill করে গত ২৪ শে মে ২০১৬ ইং তারিখে আমরা আমাদের ট্রাষ্টকে চ্যারিটি রেজিস্টার্ড করতে সক্ষম হই ৷

এবার আসা যাক মূল আলোচনায়, জনকল্যাণ ট্রাস্ট কোন ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর মালিকানাধীন কোন সম্পত্তি নয়, ট্রাষ্টের সকল সদস্যই ট্রাষ্টে সমান অধিকার সংরক্ষণ করেন ৷ কিন্তু অপ্রত্যাশিত হলে ও এটাই বাস্তবতা যে, যেকোন কারণেই হউক এই ট্রাস্টের ট্রাস্টিগণ আজ দুটি ভাগে বিভক্ত ৷ প্রতিটি পক্ষই ট্রাস্টের মালিকানার সমান দাবিদার, কিন্তু একই নামেতো আর দুটি সংগঠন চলতে পারে না যে কোন একটি পক্ষকেই আইনসিদ্ধভাবে তাদের দাবির যৌক্তিকতা প্রতিষ্ঠিত করতে হবে ৷ আমরা যে দেশে অবস্থান করছি এটি হচ্ছে পুরোপুরি একটা আইনের দেশ, এখানে কারো ব্যক্তিগত ইচ্ছা অনিচ্ছায় আইন পরিবর্তিত হয়না ৷ আমি জানি “জনকল্যাণ ট্রাস্ট হবিবপুর, ইউকে”এই নামটির প্রতি ট্রাস্টের প্রত্যেকটি সদস্যেরই অসম্ভব এক দুর্বলতা রয়েছে, আমরা প্রত্যেকেই যার যার অবস্থান থেকে নিজেকে সঠিক পথের অনুসারী মনে করি, এরই সূত্র ধরে আমরা দুটো পক্ষই নিজ নিজ পক্ষকে এই নামের উত্তরাধিকারী মনে করি ৷ প্রত্যেকের দাবির পক্ষেই হয়তো অসংখ্য যুক্তি ও রয়েছে, কিন্তু এই বিতর্কের শেষ কোথায়,- আমরাতো একসময় মেনেই নিয়েছিলাম, যতই আমরা এই ট্রাস্টের বৈধ উত্তরাধিকারীর দাবিদার হই না কেন একটি সংগঠনকে আইনি ভিত্তির উপর দাঁড় করাতে যেসব উপকরণ প্রয়োজন, অবস্থানগত কারণে আমাদের পক্ষের কাছে তা না থাকায় আমরা ও বোধহয় এই নামটি আর ধরে রাখতে পারলাম না, তাই আমরা মানসিকভাবে প্রস্তুত ও ছিলাম নতুন নামে আমাদের কার্যক্রম পরিচালিত করার ৷ কিন্তু যখন দেখলাম বদলায়নি কিছুই সবকিছুই আছে আগের মতোই তখনি সময়োপযোগী সঠিক পদক্ষেপের মাধ্যমে আমরা আমাদের উত্তরাধিকারিত্ব আইনগত ভাবে প্রতিষ্ঠিত করেছি, আর এটা হলো আমাদের সফলতা, আর যারা পারেন নি এটা তাদের ব্যর্থতা ৷

কিছু সময়ের জন্যে আমি আইনের প্রসংগ বাদ দিতে চাই, কারণ আইনগত ভাবে আমরা-ই যে জনকল্যাণ ট্রাস্টের বৈধ স্বত্ত্বাধিকারী আমি তা পূর্বেই আমার আলোচনায় স্পষ্ট করেছি ৷ এখন আমি এই আলোচনাটিই করতে চাই একটু অন্যভাবে, গত ২৮ জুন ২০১৫ ইং তারিখের পর থেকে জনকল্যাণ ট্রাস্ট দুটি গ্ৰুপে বিভক্ত ইহাই বাস্তব সত্য ৷ দীর্ঘ নানান প্রক্রিয়ার পর আমরা যখন আমাদের কার্যক্রম শুরু করি তখন আমরা ছিলাম শূন্যের কোটায়, Registration এর জন্য application তো দূরের কথা একটি সংগঠনকে প্রাথমিক ভিত্তির উপর দাঁড় করাতে যেসব মৌলিক জিনিসের প্ৰয়োজন হয় তার কিছুই আমাদের কাছে ছিলনা, কিন্তু আমাদের অপর পক্ষের ভাইদের কাছে একটি সংগঠনকে চ্যারিটি রেজিস্টার্ড করতে যা প্রয়োজন তার সবকিছুই তাদের কাছে ছিল যা তারা Ready made ভাবে প্রাপ্ত হন, তারপর ও কেন তারা এই ট্রাস্টকে রেজিস্টার্ড করলেন না বা করতে পারলেন না ৷ আমার কাছেতো এমন তত্ত্ব ও আছে উনাদের পক্ষে চ্যারিটি রেজিস্ট্রেশনের জন্য application submit করা হয়েছিল, যথেষ্ট সময়ের অভাবে বা যেকোন কারণে সব Requirements full fill করে সংশ্লিষ্ট ঐ সদস্য এপ্লিকেশন Continue করতে পারেননি, যিনি এপ্লিকেশন করেছিলেন তিনিই আমার সাথে আলাপচারিতায় বিষয়টি অকপটে স্বীকার করেছেন ৷ তখন যদি তারা রেজিস্টার্ড করে ফেলতেন তবে তাদের জন্য এই কাজটি সঠিক হয়ে যেত, এই একই কাজ আজ আমরা করেছি আমাদের জন্যে সঠিক হয়নি, হয়ে গেলো চুরি, হয়ে গেলো পেছনের দরজার কাজ,-আপনি করলে হয় লীলাখেলা আর আমি করলে হয় ঢং, এই ধরণের দ্বৈত মানসিকতা প্রদর্শনের সুযোগ বা অধিকার এখানে কারোরই নেই, বরং ইহা নিশ্চয়ই কোন সুস্থ মানসিকতার পরিচয় ও বহন করেনা ৷

হউক চ্যারিটি হউক ট্রেড মার্ক প্রত্যেকটি জিনিসের জন্যই নির্ধারিত কিছু আইনগত প্রক্রিয়া আছে যা সকলের জন্যই সমান ভাবে প্রযোজ্য ৷ আমরা ও এই একই নিয়মগুলোও অনুসরণ করে আমাদের ট্রাস্টকে চ্যারিটি রেজিস্টার্ড করেছি, তারপরে ও আমাদের বিপক্ষে অভিযোগ আমরা পেছন থেকে এই কাজটি করেছি, তাই কোন প্রক্রিয়া অনুসরণ করলে আমাদের এই কাজটি সামনে থেকে করা হতো, কেউ আমাদেরকে ইহা জানালে আমরা খুশি হবো ৷ নিশ্চয়ই একথা কেউ বলবেন না যে, কোন সংগঠন চ্যারিটি রেজিস্টার করতে যে কারোর জন্যই এপ্লিকেশন Submit এর আগে এ বিষয়ে বিস্তারিত সবাইকে জানানোর জন্যে পত্রিকায় বা বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণার এমন কোন বাধ্যবাধকতা রয়েছে, যদি তা-ই থাকে তবে গত কয়েকদিন আগে আমাদের অপরপক্ষের ভাইয়েরা ও তাদের সংগঠনকে চ্যারিটি রেজিস্টার্ড করেছেন, তাদের দ্বারাতো এমন কোন প্রচারণা আমাদের চোঁখে পরেনি, তাহলে কি তাদের কাজটিও পেছনের দরজা দিয়েই ছিল ৷

স্বীয় ব্যর্থতা থেকে ক্ষোভে দুঃখে এমন কোন কান্ড ঘটানো উচিত নয় যা অন্যকে আক্রান্ত করে ৷ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গত কিছু দিন যাবৎ ট্রাস্ট রেজিস্টার্ড সম্মন্ধিয় এমন কিছু বক্তব্য উপস্থাপিত হচ্ছে যা সত্যিই খুবই অসুন্দর, অমার্জিত, এবং পীড়াদায়ক ৷ যেকোন ভালো কাজের প্রতি সমর্থন এবং তাকে উৎসাহের মানসিকতা সকলেরই থাকা উচিত যা আমাদের ও রয়েছে এবং আমরা যেকোন ভালো অর্জনকে অবশ্যই স্বাগত জানাই ৷ প্রত্যেক মানুষেরই তার যেকোন ভালো অর্জনকে প্রচারের অধিকার ও রয়েছে ৷ কিন্তু ভালো কাজের প্রচার করতে গিয়ে যদি অন্য কাউকে হেয় করে, অপমান করে বক্তব্য উপস্থাপিত হয় তা যেমন দুঃখজনক, তেমনি হীন মানসিকতার ও বহিঃপ্রকাশ ও বটে ৷ যে যতো উঁচু মানের তার প্রকাশ ভংগি ও ততোটাই উঁচুমানের হওয়া উচিত, আর এর ব্যত্যয়ে তার নিজের মানই প্রশ্নবিদ্ধ হয় ৷ কাউকে গালিগালাজ করা বা কারো বিপক্ষে নিচুমানের শব্দ ব্যবহার করা এর জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে লিখা পড়ার প্রয়োজন হয় না ৷ পথে প্রান্তরে ঘুরে বেড়ানো যে বখাটে বালক, মাঠে গরু ছড়ায় যে রাখাল ছেলে সে ও তা খুব ভালো জানে ৷ সর্বোচ্ছ বিদ্যাপীঠে লেখাপড়া করে সর্বোচ্ছ ডিগ্রি অর্জন করে যখন কেউ একই সমাজের ভাই সমপর্যায়ের অন্য কাউকে অপমানিত করার উদ্দেশ্যে তাদের বিপক্ষে সরাসরি “চুরি” শব্দের ব্যবহার করে, তাতে অন্য কেউই অপমানিত হয় না বরং সে নিজেই অপমানিত হয় যে এমন ভাষা ব্যবহার করে, কারণ তার শিক্ষা তাকে এমন জায়গায় পৌঁছাতে পারেনি যে জায়গায় তার পৌঁছার কথা ছিল ৷

আজ Facebook, WhatsApp এ প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ভাবে একে অন্যের বিরুদ্ধে কুকুর, বিড়াল, বানর, সহ নানান বিকৃত প্রতিকৃতি ব্যবহৃত হচ্ছে, যা নিশ্চয়ই কোন ভালো অর্থ নির্দেশ করে না, অবশ্যই নিঃসন্দেহে এগুলো কাউকে না কাউকে হেয় করার জন্য, অপমান করার জন্যই ব্যবহৃত হচ্ছে যা খুবই দুঃখজনক ৷ আমরা আমাদের সম্পর্ককে কোথায় নিয়ে দাঁড় করাইতেছি ৷ আজ এমন সব জায়গায় অনেকেই এমন কিছু উক্তি ব্যবহার করছেন যা স্পষ্ট ভাবেই একজনকে কুকুরের সমপর্যায়ে নিয়ে যাচ্ছে, অথচ জন্মের পর থেকে আমরা একই গ্রামে এক সাথে বড় হয়েছি পরস্পরের সাথে রয়েছে পারিবারিক, সামাজিক, আত্মিক দীর্ঘ এক সম্পর্ক ৷ সামান্য মতপার্থক্যের কারণে সব সম্পর্ককে তুচ্ছ করে এমনসব উক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে কাউকে এত নিচু পর্যায়ে নিয়ে যেতে একবারের জন্যে ও আমাদের হৃদয় কেঁপে উঠছে না ৷
“রাস্তায় ঘেউ ঘেউ করা সব কুকুরকে তুমি যদি ঢিল মারতে যাও তাহলে তুমি গন্তব্যেই পৌঁছাতে পারবে না”, এটি একটি বিখ্যাত উক্তি সন্দেহ নেই, কিন্তু এর বিপরীতে এ জাতীয় আরও একটি উক্তি আছে যার ব্যবহার উল্লেখিত উক্তি ব্যবহার কারীকে কোথায় নিয়ে দাঁড় করাবে, আমি কেবল অবগতির জন্যে উক্তিটি এখানে উল্লেখ করতে চাই আর তা হলো,-
“যে যত নিকৃষ্ট তার চিন্তাধারা তত নিকৃষ্ট,
চোর যে, তার চোখে সকলেই চোর ৷
কুকুরের সাথে যার বসবাস কথায় কথায় কুকুরকে স্মরণ না করলে তার পেটের ভাত হজম হয় না ৷ এটা তার দোষ নয়, তার স্বভাবের দোষ ৷
মাছ বিক্রি করে যে জেলে, ফাইভ স্টার হোটেলে তার ঘুম হয়না কারণ তার ভালো ঘুমের জন্যে মাছের গন্ধ লাগে
এটা তার দোষ নয়, তার অভ্যাসের দোষ”৷
আমাদের সময় ডিগ্রিতে বাংলা পাঠ্য বইয়ে হরপ্রসাদ শাস্ত্রীর “তৈল” নামক একটি প্রবন্ধ ছিল এই প্রবন্ধটি যারা পড়েছেন তাদেরতো বটেই এছাড়া ও প্রত্যেক মানুষের অবশ্যই ন্যূনতম একটি ধারণা আছে যে, সব বক্তব্য বা উক্তি সব জায়গায় প্রযোজ্যের জন্য সৃষ্টি হয়নি বক্তব্য প্রয়োগের সঠিক জ্ঞান একটি জরুরি বিষয় ৷ যাই হোক এই বিষয়ে আমি আলোচনাকে আর কোন কঠিন মাত্রায় নিয়ে যেতে চাই না, সকলের বোধগম্য একটি আলোচনাই আমার মূল উদ্দেশ্য ৷ প্রায় সমবয়সী পর্যায়ের কেউ কাউকে কোন কমেন্টস করলে সেটা যদি কিছু আপত্তিকর ও হয় অনেক সময় মেনে নেওয়া যায় ৷ কিন্তু আজ অনেক জায়গায় এ ও দৃষ্টিগোচর হয়, কেউ কেউ নেপথ্যে থেকে নিজের স্বার্থে বয়সে অনেক ছোট এমন সদস্যদেরকে দিয়ে এমন অনেক উক্তি করিয়ে নিচ্ছেন যা দীর্ঘদিনের প্রতিষ্টিত সম্পর্ককে তুচ্ছ করে দিচ্ছে ৷ আর তাতে স্বার্থ চরিতার্থ হয় নেপথ্যের লোকটির আর দুশমনি সৃষ্টি হয় সহজ সরল ছোট্ট এই মানুষটির জন্যে ৷ যারা এমন খেলায় লিপ্ত তারা যেন একথাটি ভুলে যাবেন না বয়সে তরুণ এই ছেলেটি কিন্তু আপনার কাছ থেকে শিখছে, আপনি তাকে যে শিক্ষা দিচ্ছেন তাকে দিয়ে যা করিয়ে নিচ্ছেন এই পাট গ্রহণের জন্য আপনি ও প্রস্তুত হন, কারণ এটাই যে পৃথিবীর নিয়ম ৷

আমরা যারা এই ট্রাস্টের সাথে জড়িত প্রত্যেকের সাথে প্রত্যেকের নারীর একটা সম্পর্ক রয়েছে আমরা সকলেই এসেছি একই মাতৃজননীর কোল থেকে, আমরা বড় হয়েছি একসাথে একটু খোজাখুজি করলেই দেখা যাবে কোননা কোনভাবেই আমরা একজন আরেকজনের আত্মীয় ৷ কেউ কারো ভাই, কারো চাচা, কারো ভাতিজা, কারো বন্ধু একটা না একটা সম্পর্ক আমাদের মাঝে রয়েছেই ৷ শুধু গরিবকে সাহায্য করাইতো আমাদের এই ট্রাস্ট গঠনের একমাত্র উদ্দেশ্য ও ছিলোনা, বিশাল এই দেশে বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে আমরা যারা অবস্থান করছি বছরের পর বছর আমাদের অনেকের সাথেই অনেকের দেখা হয়না, এই ট্রাস্টের কারণে অন্তত কিছু দিন পর পর আমরা একসাথে মিলিত হতে পারবো, আড্ডা দিতে পারবো, এটাওতো ট্রাস্ট গঠনের একটি অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল ৷
মতপার্থক্য থাকা স্বাভাবিক, একজনের চিন্তাধারার সহিত আরেকজনের চিন্তাধারার অমিল থাকতেই পারে ৷ আমরা যে, যে পথ বা মতকে পছন্দ করেছি সে পক্ষেই অবস্থান নিয়েছি, পক্ষ অবলম্বনের একটি দীর্ঘ অধ্যায় শেষ করে আমরা প্রতিটি পক্ষই আমাদের অবস্থানকে একটি সুদৃঢ় ভিত্তির উপর দাঁড় করিয়েছি ৷ কিছু পছন্দ অপছন্দ থেকেইতো মতপার্থক্যের সৃষ্টি হয় কিন্তু আজতো আর সেই অবস্থান নেই প্রত্যেকটি পক্ষেরই আজ এমন একটি সুদৃঢ় প্লাটফর্ম রয়েছে যেখান থেকে আমরা স্বীয় পছন্দ অনুযায়ী কাজ করার সিদ্ধান্ত নিতে পারি ৷ সময় এসেছে মূল কাজের প্রতি মনোযোগী হওয়ার, আমরা কি এই প্রতিযোগিতায় মনোনিবেশ করতে পারিনা, আমাদের প্রিয় মানুষগুলোর জন্য আমরা কে কত বেশি ভালো কাজ করতে পারি ৷ এমনওতো হতে পারে প্রত্যেকেই আমরা নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজের পরিকল্পনা করব আর বাস্তবায়ন করব কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে, সেই দিনকে স্বাগত জানাতে আমি প্রস্তুত, অন্য সকলের এমন ইচ্ছা আমাকে খুবই আনন্দিত করবে ৷
সবকিছুর পর ও আলোচনা সমালোচনা একটি চিরন্তন প্রবহমান প্রক্রিয়া আসুন তা ও যেন আমরা করি গঠনমূলক প্রক্রিয়ায় অন্তত ন্যূনতম শালীনতা রক্ষা করে ৷ আজ ও পৃথিবীর যে প্রান্তরেই আমরা থাকিনা কেন যেখানে যখনি দেখা হয় পরম মমত্ববোধ আর হৃদয়ের টানে আমরা যেন একে অপরকে জড়িয়ে ধরতে পারি ৷ যেন এমন সকল কথা ও কাজ থেকে বিরত হই যা আমাদের দীর্ঘদিনের প্রতিষ্ঠিত ভ্রাতৃত্বের সম্পর্ককে শত্রুতায় রূপ দেয় ৷
দীর্ঘ এই আলোচনায় আমি আমার দৃষ্টি ভঙ্গি ও অবস্থান ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেছি, কাউকে ব্যক্তিগত ভাবে কষ্ট দেওয়ার বিন্দু পরিমান কোন ইচ্ছা আমার ছিল না তারপর ও অনিচ্ছা সত্ত্বেও কোন বক্তব্যের কারণে কেউ যদি মনে করেন কষ্ট পেয়েছেন, বিনীত ভাবে ক্ষমা চাই ৷
আল্লাহ যেন আমাদের সকলের মঙ্গল করেন, যেন সুস্থচিন্তার অধিকারী হতে সাহায্য করেন ৷ লেখক- আজিজুর রহমান মিছবা যুক্তরাজ্য প্রবাসী হবিবপুর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24