মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:১৭ পূর্বাহ্ন

ফিরে দেখা- জগন্নাথপুরের হাওরে ধানের পর মাছ ও গবাদি পশুতে মড়ক ছিল আলোচিত

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ৭৩ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: একে একে ডুবতে থাকে নলুয়া, মইয়া, পিংলাসহ উপজেলার ছোটবড় ১৫টি হাওর। গত বছর মার্চ মাসে কৃষকরা যখন বোরো ফসল তোলার প্রস্তুুতি নিচ্ছিলেন ঠিক তখনি বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে হাওরে পানি ঢুকতে থাকে। ক্রমান্ধয়ে বাড়তে থাকে হাওরের পানি। একে একে ভেঙ্গে যায় কৃষকের স্বপ্ন। হাওরজুড়ে কান্নার রোল পড়ে। যার ঢেউ জগন্নাথপুরের গন্ডিছড়িয়ে সুনামগ ঞ্জজেলার সর্বত্র গিয়ে লাগে। এমন হাহাকারের দৃশ্যে উপজেলা জুড়ে বিরাজ করে। পাউবো কর্তৃক নিন্মমানের বেড়িবাঁধ ভেঙে হাওরের ফসলডুবির ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দেয় জগন্নাথপুরের সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে। । শুরু হয় হাওরের ফসল রক্ষা বেড়ি বাঁধ নিয়ে পাউবোর ঠিকাদার ও পিআইসির বিরুদ্ধে আন্দোলন।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি অফিস ও উপজেলার কৃষকরা জানান, জেলার অন্যতম বৃহৎ হাওর নলুয়াসহ উপজেলার ছোটবড় ১৫টি হাওরে ২৫ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছিল। অসময়ের হাওরের ফসলডুবির কারনে এক ছটাক ধান তুলতে পারেননি কৃষকরা। কৃষকদের আর্তনাদ দেখে হাওর এলাকায় ছুঁটে আসেন মাননীয় রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অর্থ ও পরিকল্পনাপ্রতিমন্ত্রীএম এ মান্নানসহ বিভিন্ন মন্ত্রী,সচিব ও বড়বড় সরকারি আমলারা। সরকার কৃষকদের পাশে এসে দাঁড়ায়। ৩০ কেজি চাল ও নগদ ৫০০ টাকা দিয়ে। উপজেলার ২৬ হাজার কৃষক এ সহায়তার আওতায় আসেন। হাওর এলাকায় এ সহায়তা দুর্ভিক্ষের হাত থেকে রক্ষা করে হাওরবাসিকে। জগন্নাথপুরের প্রবাসীরাও ছুঁটে আসেন ফসলহারা কষকের পাশে। যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক সাজিদুর রহমান ফারুক, জগন্নাথপুর উন্নয়ন সংস্থার দু’গ্রপ উল্লেখযোগ্য পরিমাণ ত্রাণ সহায়তা দেন। কৃষি অধিদপ্তরের ব্যবস্থাপনায় সার,বীজসহ কৃষি উপকরন পান কৃষকরা। কৃষির এই বিপযয় কাঠিয়ে উঠার আগেই দেখা দেয় মৎস্য সেক্টরে অরাজকতা। হাওরের সব মাছ মরে ভেসে উঠে। বোরো ধান হারানোর পর মাছ ধরে বাজারে বিক্রি করে জীবনযাপনের অবলম্বন হিসেবে চলার স্বপ্ন দেখেছিলেন যেসব কৃষকতাদের চোখে সর্ষেফুল দেখা দেয়। মৎস্য জীবিদের কান্নাও ভেসে যায়। স্থানীয় মৎস্য বিভাগের সহায়তায় সাথে সাথে সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষ উদ্যোগী হয়ে চুন ও ঔষধ ছিটানোর পর কিছুদিনের মধ্যে মাছের মড়ক কমতে থাকে। পরে শুরু হয় গবাদিপশু ও হাঁস মুরগির মড়ক। একের পর এক বিপর্যয় হাওরবাসীর জীবনে নেমে আসে হতাশা। তারপরও সরকারী বেসরকারী সহায়তা হাওরবাসীকে জেগে উঠার অনুপ্রেরণা জোগায়।
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন সংগঠনের আহ্বায়ক আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, গত বছরের মতো এমন বিপযয় হাওরবাসীর জীবনে আসেনি। ধান, মাছ গরু, হাঁস-মুরগি সবকিছুতে মহামারি তারপরও সরকার যেভাবে প্রতিটি স্তরে পদক্ষেপ নিয়েছে তা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। তিনি বলেন, গত বছরের বিপযয় কৃষকদের মেরুদন্ড ভেঙ্গে দিয়েছে। এসব ক্ষতি পোষাতে অনেক সময় লাগবে। তিনি বলেন, সরকারের খাদ্য রিজার্ভ না থাকলে হাওরঅঞ্চলের মানুষ না খেয়ে মরতে হতো।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি অফিসার শওকত ওসমান মজুমদার বলেন, জগন্নাথপুরের হাওরবাসীর জীবনে ভয়াবহ বিপর্যয় কাঠিয়ে তুলতে সরকারের নির্দেশনায় কৃষি বিভাগ কাজ করছে। সরকারি সহায়তার কারণে দুযোগ কাঠিয়ে উঠা সম্ভব হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24