রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:২৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

ফুটবল খেলতে চাওয়ায় শিক্ষার্থীদের বিবস্ত্র করলেন প্রধান শিক্ষক!

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১১ জুলাই, ২০১৭
  • ৩৬ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক :: যশোরের কেশবপুর উপজেলায় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ফুটবল খেলতে চাওয়ায় ছয় শিক্ষার্থীকে বিবস্ত্র করার অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

রোববার উপজেলার সানতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনার পর ওই ৬ শিক্ষার্থী পরদিন সোমবার স্কুলে যেতে না চাইলে ঘটনাটি ফাঁস হয়।

এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি লক্ষণ কুমার হালদারের কাছে সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

মঙ্গলবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে বলে জানান সহকারি প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা প্রভাত কুমার রায়।

অভিভাবক সদস্য জালাল উদ্দীন বিশ্বাস জানান, ‘ সানতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা ফুটবল খেলার জন্যে বল আনতে যায় ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রবীন্দ্রনাথ সরকারের কাছে। এসময় তিনি তাদের হাতে বল না দিয়ে শিশু শ্রেণির শিক্ষার্থীদের খেলতে দেন।

এরপরও তারা বল খেলতে চাইলে এক পর্যায়ে ওই প্রধান শিক্ষক পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র রিয়াজ ও সবুজ, তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র আবদুল্লাহ, মুজাহিদসহ ছয়জনকে একটি কক্ষে ডেকে নিয়ে বিবস্ত্র করেন।

জানালার ফোকর দিয়ে এ দৃশ্য দেখেছে বলে জানায় শিশু শ্রেণীর শিক্ষার্থী সিয়াম।

অভিভাবক হাসান আলী জানান, ‘ওই প্রধান শিক্ষক কোনো শিক্ষার্থীকে স্কুলের টয়লেট ব্যবহার করতে দেয় না। কারও বাথরুমে যাওয়ার প্রয়োজন হলে সেই শিক্ষার্থীকে সরাসরি বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হয়।’

অভিভাবকরা শিক্ষার্থীদের বিবস্ত্র করার বিচারের দাবিতে ৭২ ঘণ্টার ‘আলটিমেটাম’ দেন।

ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রবীন্দ্রনাথ সরকার বলেন, এ প্রসঙ্গে তার কিছু বলার নেই। তাকে বদলির কথা জানানো হয়েছে।

ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি লক্ষণ কুমার হালদার বলেন, ‘সহকারী শিক্ষা অফিসার ঘটনা তদন্তে সত্যতা পাওয়ায় উপজেলা শিক্ষা অফিসারের মৌখিক নির্দেশে অভিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককে মঙ্গলবার দুপুরে আড়ূয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলি করা হয়েছে’।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24