বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৪৭ অপরাহ্ন

বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশা বির্তকে সুজাত মনসুর

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২১ আগস্ট, ২০১৬
  • ৬২ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি:: উনি আওয়ামীলীগের মন্ত্রী অথচ বঙ্গবন্ধুর খুনি তা জানেন না শিরোনামে প্রবাসী সাংবাদিক সুজাত মনসুরের একটি সংবাদ বিশ্লেষণে আমাদের দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। একটা অনলাইন পত্রিকার কথা বলে তিনি প্রতিবেদকের নাম না দেওয়া প্রসঙ্গ উপস্থাপন করে বিভিন্ন আক্রমনাত্বক ইঙ্গিত করেছেন। আমরা জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম দায়িত্ব নিয়ে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছি।প্রতিবেদকের নাম প্রকাশ যে বাধ্যতামূলক নয় সেই ধারণা সুজাতমনসুরের না থাকায় আমরা বিস্মিত।আমরা মনে করি আমাদের প্রতিবেদনটি সাংবাদিক সুজাত মনসুরের এজেন্ডা বাস্তবায়নের সহায়ক না হওয়ায় তিনি ব্যক্তিগত অভিলাষে তাঁর সম্পাদিত অনলাইন পত্রিকায় কূটকৌশলী বয়ান দিয়েছেন।তিনি তাঁর বা তাঁর কোনো নিকটাত্মীয়ের হতাশা থেকে একজন নির্বাচিত প্রতিনিধির নিজস্ব মন্তব্য ধারণা করার চেষ্টা না করে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে আমাদের প্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।আমাদের প্রতিবেদনে আলোচ্য ঘটনায় তার পূর্বের দুটি মন্তব্য প্রতিবেদন নিয়ে ভিন্নমত ও জগন্নাথপুর –দক্ষিন সুনামগঞ্জবাসীর ক্ষোভের কথা তুলে ধরা হয়েছে। কাউকে তুলোধুনো করার ইচ্ছে এই লেখায় ছিল না। শুধু বলার চেষ্ঠা করা হয়েছে, প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান জগন্নাথপুর-দক্ষিন সুনামগঞ্জের দুই বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য তাঁর সাথে জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান জেলা পরিষদের প্রশাসক ব্যারিষ্টার এনামুল কবির ইমন এর সুসম্পর্ক রয়েছে।তাদের মধ্যে রাজনৈতিক দূরত্ব সৃষ্টি করতে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুটের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের বক্তব্যকে ইতিবাচক দৃষ্টিকোন দিয়ে না দেখে নেতিবাচক দৃষ্টিকোনে দেখে অহেতুক বির্তকে জড়ানো হচ্ছে। এম এ মান্নান তাঁর বক্তব্যে সুস্পষ্টভাবে বলেছেন,আজিজ পাশা নামে বঙ্গবন্ধুর একজন খুনি আছেন। আমি একজন আজিজ পাশাকে চিনি, যিনি উপ-সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করতেন। তার বাড়ি জগন্নাথপুরের কুবাজপুরে তা আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে ফিরে আসব। তাৎক্ষনিকভাবে যেকোন দায়িত্বশীল ব্যাক্তির দায়িত্ব উত্তেজনা সৃষ্টি হয় এমন বক্তব্য পরিহার করা।যেমনটি এম এ মান্নান করেছেন বলে আমরা মনে করি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সকল খুনির নাম শুধু আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী কেন,রাজনীতি সচেতন সকলেই কোনো না কোনো ভাবে জানেন।গ্রামের নাম তাৎক্ষনিক বলা কজনের পক্ষে সাধারণত সম্ভব হয়।এই সহজ বিষয়টি সুজাত মনসুর কোন অসৎ উদ্দেশ্যে জটিল বিশ্লেষন করছেন তা প্রশ্নসাপেক্ষ।এবিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঝড় উঠলে বিভিন্ন তথ্য সমৃদ্ধ লেখার মাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে ধোঁয়াশা দূর হয়ে যায়। বক্তব্যদাতা লিখিত প্রতিবাদ দিয়ে নিজের অবস্থান থেকেও কিছুটা সরে যান। তারপরও উদ্দেশ্যে প্রনোদিতভাবে প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের বিরুদ্ধে অরুচিকর লেখনির মাধ্যমে একজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির প্রতি বিষোদগার করা হয়েছে। তিনি তাঁর লেখনিতে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীকে অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রী হিসেবে আখ্যায়িত করেন। এটি লেখকের ভুল না দায়িত্বহীনতা তা আমাদের বোধগম্য নয়।তিনি লেখনিতে উল্লেখ করেন,প্রধান দুটি বিষয়ে প্রতিবেদক উত্তর দিতে পারেননি। প্রতিবেদক সুস্পষ্টভাবে মান্নান সাহেবের বক্তব্য তুলে ধরে বলেছেন, জগন্নাথপুরে বঙ্গবন্ধুর কোন খুনি নেই। জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যকে ভয়ংকর আখ্যায়িত করে তিনি বলেছেন, আমার জানা মতে আজিজ পাশা নামে বঙ্গবন্ধুর একজন খুনি আছেন। একজন আজিজ পাশাকে আমি চিনি,তিনি উপ-সচিব ছিলেন। তার বাড়ি কুবাজপুরে কিনা আমার জানা নেই।সরকারের একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তি হিসেবে জনাব এম এ মান্নানের তাৎক্ষনিক এই মন্তব্যকে আমরা যথার্থ মনে করি। দ্বিতীয়ত তিনি বলেছেন,
১৫ তারিখের সভায় মন্ত্রী বলেছেন, ঐদিন ঢাকায় গিয়ে জেনে পরদিন এসে সুনামগঞ্জবাসীকে জানাবেন। কিন্তু আমার লেখা প্রকাশিত হবার পরও এখনো পর্যন্ত আমরা সুনামগঞ্জবাসী কিন্তু মন্ত্রীর কাছ থেকে কোন ধরনের বিবৃতি পাইনি, শুধুমাত্র ঐ অনলাইন পত্রিকাটি ছাড়া। এ প্রসঙ্গের মাধ্যমে লেখকের আসল উদ্দেশ্য বেরিয়ে এসেছে। তিনি চান নুরুল হুদা মুকুটের কথার জবাবের মাধ্যমে মন্ত্রী এম এ মান্নান কে দিয়ে পরিস্থিতি আরেকটু জটিল ও সংঘাতময় হোক।কারণ বিশৃঙ্খলা ও বক্তব্য, পাল্টা বক্তব্যে পরিস্থিতি উত্তপ্ত না হলে সুজাতমনসুরদের মনগড়া বিশ্লেষণের পরিবেশ সৃস্টি হয় না।যা কদিন আগে দিরাই উপজেলায় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মতিউর রহমানের বলয় তৈরীর উস্কানিমূলক সংবাদ পরিবেশন করে তিনি প্রমান করেছেন।
তিনি তার প্রথম লেখায় মান্নান সাহেবকে উদ্দেশ্যে করে লিখেছিলেন না চাইতে যারা বেশী পেয়ে যায়…… আজকের লেখায় আবার বলেছেন, মান্নান সাহেব জেলা সম্মেলনের আগে ইমনের সাথে গাটছাড়া বেঁধেছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হবার জন্যে। হতে না পেরে ব্যর্থ মনোরথে পাখি ফিরে গেছে আপন নীড়ে, মুকুট বলয়ে। তাঁর লেখনীতেই প্রমান হয় মান্নান সাহেবের না পাওয়ার বেদনা নেই। লেখকের প্রত্যাশা পূরণ না হওয়ার বেদনা রয়েছে। ইতিমধ্যে সুনামগঞ্জবাসী জেনে গেছেন প্রবাসে বসে শান্তির শহর সুনামগঞ্জের আওয়ামী লীগ রাজনীতিতে নতুন করে সৃষ্ট প্রাণচাঞ্চল্যর অবস্থানকে বিঘ্নিত করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছেন তিনি।দিরাইর মতো জগন্নাথপুর,দক্ষিণ সুনামগঞ্জে গ্রুপিং আর সাংঘর্ষিক রাজনীতির উৎসাহ দিচ্ছেন। কার স্বার্থে কোন্দল গ্রুপিং সৃষ্টি করতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। একজন সৎ,সজ্জন, পরিচ্ছন্ন জনপ্রতিনিধিকে হেয় করে সুনামগঞ্জের সুনাম নসাৎ করতে আক্রমনাত্বক লেখনি চালিয়ে যাচ্ছেন।জনগণের অনুভুতি ধারণ করতে হলে জনগণের কাছাকাছি থাকতে হয়।নিরাপদ দূরত্বে বাস করে উস্কানি দেওয়া যেমন সহজ সৃস্ট বিতর্ক অবসানে ভূমিকা রাখা ততো কঠিন।আমরা সেই কঠিন দায়িত্ব পালনে মানুষের সদিচ্ছার প্রতিফলনের চেষ্টা করছি।এতে কারো গাত্রদাহ হলে আমাদের করার কিছু নেই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24