সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ১২:০৬ অপরাহ্ন

বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশা কে নিয়ে বিভ্রান্তি কাটছে না

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৬
  • ২৪ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি:: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি আজিজ পাশা জেলা
আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ব্যারিষ্টার এম এনামুল কবির ইমনের মামা উল্লেখ করে জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুটের বক্তব্য নিয়ে বিভ্রান্তি কাটছে না।
পূর্ব পশ্চিম ডটকম নামের একটি অনলাইন পত্রিকায় নুরুল হুদা মুকুটের অনড় অবস্থানের সংবাদ প্রকাশিত হলে বিভ্রান্তি আরো প্রকট আকার ধারন করে।অপরদিকে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিষ্টার এম এনামুল কবির ইমন এবক্তব্যর প্রতিবাদে সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের মামাকে জড়িয়ে যে বক্তব্য দেয়া হয়েছে তা ইতিহাস বিকৃতির মধ্যে পড়ে। আইনি জটিলতাও আছে। লে. কর্ণেল আজিজ পাশাকে বা তাঁর স্বজনদের বাচানোর চেষ্টা হচ্ছে কী না এটিও আমাদের বোধগম্য নয়। জেলা আওয়ামীলীগের এই দুই নেতার পরস্পরবিরোধী বক্তব্যে বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশা নিয়ে বির্তক চলছেই। যদিও মঙ্গলবার সুনামগঞ্জের খবরে এসংক্রান্ত প্রকাশিত প্রতিবেদনের একটি প্রতিবাদ পাঠিয়ে জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট লিখিত প্রতিবাদে বলেছেন,‘আমি জনৈক মেজর আব্দুল মুকিত
চৌধুরীকে চিনিও না, কিংবা তার সম্পর্কে কোন মন্তব্যও করিনি। পলাতক অবস্থায় জিম্বাবুয়েতে মৃত্যুবরণকারী বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার মৃত্যুদ-প্রাপ্ত ৭ নম্বর আসামী লে. কর্ণেল আজিজ পাশার নাম উল্লেখ করে বলেছি, যে উক্ত খুনি আজিজ পাশার বাড়ি সিলেটের বড়ইকান্দি এবং সম্ভবত. তার আদি নিবাস সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায়। উক্ত খুনি লে. কর্ণেল আজিজ পাশা সম্ভবত. কোনো এক আওয়ামী লীগ নেতার মামা। আমি এ বিষয়টির সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানিয়েছি’ বলে উল্লেখ করেছেন। অপরদিকে পূর্বপশ্চিম ডটকমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে নুরুল হুদা মুকুটের তার বক্তব্যে অনড় অবস্থানের কথা জানিয়ে বলেন, মেজর আব্দুল মুকিত চৌধুরী পাশা ইমনের আপন মামা। আমি তাঁর কথা বলিনি। আমি যে আজিজ পাশার কথা বলেছি তিনি ইমনের মায়ের চাচাতো ভাই। জগন্নাথপুরের কুবাজপুর থেকে পরবর্তীতে তিনি সিলেটের বরইকান্দি এলাকায় বসবাসত করতেন।’ দুটি গনমাধ্যমে দুরকম বক্তব্য প্রকাশিত হওয়ায় এনিয়ে আবারও নানা আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইতে শুরু করে। বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশা বিতর্কের রহস্য জানতে উৎসুক পাঠকরা বিভ্রান্তিতে পড়েন। এবিষয়ে জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশাকে নিয়ে যে বির্তক তৈরী হয়েছিল। তা ফেসবুকে আমার স্ট্যাটাসের মাধ্যামে অনেকটা দূর হয়ে গিয়েছিল। এখন নতুন করে আবারও বির্তক তৈরী করে বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশার বাড়ি সিলেটের বড়ইকান্দি উল্লেখ করায় বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়। প্রকৃতপক্ষে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিষ্টার এম এনামুল কবির ইমনের কোন মামা জগন্নাথপুর থেকে বড়ইকান্দি যাননি। বড়ইকান্দিতে বঙ্গবন্ধুর খুনি নূর হোসেন নামে একজন রয়েছেন তা সকলেরই জানা। তিনি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে বঙ্গবন্ধুর খুনি নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি না করার আহ্বান জানান। উল্লেখ্য ১৫ আগষ্ট জেলা যুবলীগের সভায় জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা মুকুট বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমনের মামা উল্লেখ করে বক্তব্য দিলে তোলপাড়া সৃষ্টি হয়। পরে জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা ফেসবুকে ইমনের মামা আব্দুল মুকিত চৌধুরী পাশা কে নিয়ে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন। যার সাথে সুনামগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট বজলুল মজিদ চৌধুরীর একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস প্রকাশিত হয়। এতে তিনি উল্লেখ করেন আজিজ পাশা ইমনের মামা নন। ইমনের মামা মেজর আব্দুল মুকিত চৌধুরী যিনি বঙ্গবন্ধুর খুনি হন। সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খসরু ও মুক্তার তথ্য সমৃদ্ধ লেখা প্রকাশিত হলে বিভ্রান্তি অনেকটা দূর হয়। কিন্তু নুরুল হুদা মুকুট আবারও নিজের অনড় অবস্থানের কথা জানিয়ে বঙ্গবন্ধুর খুনি আজিজ পাশার বাড়ি সিলেটের বড়ইকান্দি ও তার আদি নিবাস জগন্নাথপুরে উল্লেখ করায় নতুন করে বির্তকের সৃষ্টি হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24