রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:০৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা বেড়াতে গিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল জগন্নাথপুরের এক যুবকের মাথায় ৪ ইঞ্চি লম্বা শিং এই বৃদ্ধের!

মধ্যনগরে আড়াই বছরেও চালু হয়নি মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৭ জুলাই, ২০১৭
  • ২২ Time View

এনামুল হক এনি, ধর্মপাশা :: অবহেলিত ভাটি বাংলার এক প্রাচীন জনপদের নাম মধ্যনগর। সুমেশ্বরী নদীর তীরে গড়ে ওঠা ধর্মপাশা উপজেলার একটি থানা এটি। পুরো বর্ষায় চারদিকে অথৈ জলরাশির ওপর মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকা মধ্যনগরকে দেখতে একটি ছোট দ্বীপের মত মনে হয়। গভীর পানির ধান আর ঘি’য়ের উপর নির্ভর করেই গড়ে ওঠেছিল মধ্যনগর বাজার। দেশীয় ধানের জন্য বিখ্যাত মধ্যনগর অঞ্চল দেশে খ্যাতি অর্জন করলেও এখানকার ৪টি ইউনিয়নের ১৪৯টি গ্রামের লক্ষাধিক জনগণ যুগ যুগ ধরে মৌলিক চাহিদা চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হওয়ার বিষয়টি উপেক্ষিত হয়ে আসছে। কারণ এখানে নেই কোনো হাসপাতাল, নেই কোনো ডাক্তার। রোগীর রোগ নির্ণয়ে কোথাও নেই প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি। সর্দি-কাশি, জ্বর, মাথা ব্যথার চিকিৎসা ছাড়া আর কিছুই হয় না এখানে। তবুও অসময়ে ফার্মেসিওয়ালারাই রোগীদের শেষ ভরসা।
মধ্যনগর থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সড়ক পথে পৌঁছাতে প্রায় ৪৫ মিনিট সময় লাগে, চামরদানী ইউনিয়ন থেকে ট্রলারযোগে মধ্যনগর হয়ে ধর্মপাশা আসতে প্রায় দেড় থেকে দুই ঘন্টা, বংশীকুন্ডা দক্ষিণ ইউনিয়ন থেকে প্রায় আড়াই থেকে তিন ঘন্টা
ও বংশীকুন্ডা উত্তর ইউনিয়ন থেকে প্রায় তিন থেকে চার ঘন্টা সময় লাগে। বর্ষাকালে দীর্ঘ সময় পার করে রোগী নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পৌঁছাতে পারলেও হেমন্তকালে ওই ইউনিয়নগুলো থেকে মধ্যনগর আসতেই যথাক্রমে ২-৩ ঘন্টা সময় লাগে। ফলে মধ্যনগর অঞ্চলের মানুষজন মূমুর্ষূ রোগী নিয়ে চলে যান নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। এ অঞ্চলের অসচেতন মানুষেরা এখনো তাদের রোগীর চিকিৎসার জন্য স্থানীয় ফার্মেসিওয়ালাদের পাশাপাশি কবিরাজের ওপর নির্ভরশীল। বছর কয়েক আগেও মধ্যনগর বাজারে কবিরাজদের সারিবদ্ধভাবে বসে থাকতে দেখা যেতো। এখন সে দৃশ্য চোখে পড়ে না তবে এখনো অসচেতন মানুষজনকে কবিরাজের খোঁজ করতে দেখা যায়।
মধ্যনগরে একটি হাসপাতাল নির্মাণের দাবিতে বিভিন্ন সময় স্থানীয় কয়েকটি সামাজিক সংগঠন মানববন্ধনসহ নানান কর্মসূচি পালন করে। এ অঞ্চলের মানুষের দীর্ঘ বছরের দাবির প্রেক্ষিতে ২০১৫ সালের ৩১ জানুয়ারি মধ্যনগর বাজারের উত্তরপাশে ৪ কোটি ৩৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র নির্মাণের কাজ শুরু করে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর। ত্রিতল মূল ভবন, ত্রিতল আবাসিক ভবন, গার্ড রুম, গভীর নলকূপ, প্রতিরক্ষা দেয়াল, সীমানা প্রাচীর নির্মাণসহ যাবতীয় কাজের কার্যাদেশ পায় স¤্রাট এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধীকারি মোয়াজ্জেম হোসেন হলেও ঠিকাদারের নিযুক্ত প্রতিনিধি শাহাদাত হোসেন নামের এক ব্যক্তি পুরো কাজটির দেখভাল করেছেন। কার্যাদেশ অনুযায়ী ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসে কাজ শেষ হওয়ার কথা। কিন্তু নির্ধারিত সময়সীমার ছয় মাস পেরিয়ে গেলেও কাজ শেষ করে তা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়নি।
স্থানীয় বাসিন্দা মোবারক হোসেন বলেন, ‘এ এলাকার মানুষেরা এখনো তাদের রোগীর চিকিৎসার জন্য স্থানীয় কবিরাজের ওপর নির্ভরশীল। বছর কয়েক আগেও মধ্যনগর বাজারে কবিরাজদের সারিবদ্ধভাবে বসে থাকতে দেখা যেতো। এখনো বাজারে কবিরাজের দেখা মেলে।’
বংশীকুন্ডা দক্ষিণ ইউনিয়নের দক্ষিণউড়া গ্রামের বাসিন্দা বিপ্লব বিশ্বাস বলেন, ‘উপজেলার হাসপাতালতো অনেক দূরে। আবার উপজেলা হাসপাতালেও তেমন ভাল চিকিৎসা পাওয়া যায় না। তাই স্থানীয় ফার্মেসিওয়ালা আর হোমিওপ্যাথিকের দোকানই আমাদের একমাত্র ভরসা। আমাদের অঞ্চলের মানুষজন চিকিৎসার জন্য পার্শ্ববর্তী নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান।’
মধ্যনগর বাজার বণিক সমিতির সদস্য আলাউদ্দিন বলেন, ‘এবার হাওরাঞ্চলের মানুষজন ফসল হারিয়ে নিঃস্ব। এবার শহরে গিয়ে চিকিৎসা করার সামর্থ হারিয়েছে। স্থানীয়ভাবে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রটি দ্রুত চালু হলে এ এলাকার মানুষজন উপকৃত হবে।’
মধ্যনগর থানা যুবলীগের সভাপতি মোস্তাক আহমেদ বলেন, ‘মধ্যনগরে বিশেষ করে প্রসূতি মায়েদের স্বাস্থ্য সেবার বিষয়টি অধিক ঝুঁকিপূর্ণ। এখান থেকে নির্ধারিত সময়ে হাসপাতালে পৌঁছার আগেই অনেকে প্রসূতির মায়ের মৃত্যু হয়। তাই জরুরি ভিত্তিতে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রটি চালু করা দরকার।’
উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোসাহিদ তালুকদার বলেন, ‘বিষয়টি উপজেলা সমন্বয় কমিটির সভায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে একাধিকবার বলেছি। মা ও শিশু স্বাস্থ্যের বিষয়টি মাথায় রেখে জরুরি ভিত্তিতে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রটি চালু করার ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি। ’
গত শনিবার দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মূল ভবন ও আবাসিক ভবনের রং ওঠে গেছে এবং কোথাও কোথাও শ্যাওলা জমেছে। ভবন দুটির আশাপাশে ও নিচের অংশে এখনো মাটি ফেলা হয়নি। আবাসিক ভবনে ওঠার সিঁড়ির পশ্চিম পাশে ফাটল ধরেছে। দক্ষিণ দিকের সীমানা প্রাচীরে কিছু অংশ ভেঙে গেছে। ভেঙে যাওয়া স্থানে টিন দিয়ে তা ঢেকে রাখা হয়েছে।
নিজেকে স¤্রাট এন্টারপ্রাইজের অংশীদার দাবি করে ঠিকাদারের নিযুক্ত প্রতিনিধি শাহাদাৎ হোসেন বলেন, ‘আমরা নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই কাজ শেষ করেছি। বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে আবেদন করা হয়েছে। সংযোগের জন্য ট্রান্সফরমার ও আনুসাঙ্গিক কাজের টাকাও পরিশোধ করা হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত বিদ্যুৎ সংযোগ না পাওয়ায় তা সংশ্লিষ্টদের কাছে হস্তান্তর করা যাচ্ছে না। উদ্বোধন বা হস্তান্তরের আগে যদি কোনো অসমাপ্ত কাজ থাকে তাহলে তা করে দেওয়া হবে।’
বিদ্যুৎ সংযোগের ব্যাপারে নেত্রকোনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম মাহবুব আলী বলেন, ‘জিএম ছুটিতে রয়েছেন। এ ব্যাপারে খোঁজ না নিয়ে কিছু বলা যাবে না।’
সুনামগঞ্জ জেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মোজাম্মেল হক বলেন, ‘এখনো কাজ সম্পন্ন হয়নি। কাজ সম্পন্ন হলে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর তা বুঝে নিবে এবং পরে তা আমাদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।’
এ কাজের তদারকি কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা সুনামগঞ্জ স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপ-সহকারি প্রকৌশলী মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘শুধুমাত্র বিদ্যুৎ সংযোগের কাজটি বাকি আছে। বিদ্যুৎ সংযোগ পেলেই তা হস্তান্তর করা হবে এবং অসম্পন্ন কাজ সম্পন্ন করে দেওয়া হবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24