মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট চলছে জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি

মানুষের জীবনের ঘাত-প্রতিঘাতের চিত্র তুলে ধরছে পত্রিকাটি- সুনামগঞ্জের খবরের সুধী সমাবেশে এম এ মান্নান

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৩১ জুলাই, ২০১৭
  • ৩৯ Time View

সজীব দে
প্রধান অতিথি অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান বলেছেন, ‘একটানা ৫বছর প্রকাশনা বজায় রাখার জন্য পত্রিকা কর্তৃপক্ষকে অভিনন্দন। ধারাবাহিকতা বজায় রাখা অত্যন্ত কঠিন বিষয়। দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর সেই কঠিন কাজে সফলতার সাথে উত্তীর্ণ হয়েছে। তাদের এই সাফল্য আমাকেও উৎফুল্ল করে।’
তিনি বলেন, ‘পত্রিকার মাধ্যমে জনগণের সাথে নিবিড় সংযোগ গড়ে উঠে। পত্রিকার পাতায় মানুষের সাথে স্থানীয় নানা সমস্যা এবং বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম উঠে আসে।’


দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর’র কাছে প্রত্যাশা ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘আমি আশা করি দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর যেভাবে সাধারণ মানুষের জীবনের ঘাত-প্রতিঘাতের চিত্র তুলে ধরছে তা যেন অব্যাহত থাকে। একই সাথে প্রাকৃতিক দুর্যোগ, সমস্যা, উন্নয়ন কার্যক্রম, সফলতা নিয়মিত উঠে আসবে। তালেই আমরা জেলাবাসী উপকৃত হবো। তবে এক্ষেত্রে জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ও থাকতে পারে। রবিবার সন্ধ্যায় জেলা শিল্পকলা একাডেমির হাসনরাজা মিলনায়তনে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের ৫ম বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠানের সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান কবি ড. মোহাম্মদ সাদিক বলেছেন, ‘সুনামগঞ্জের খবরের এখন শিশু বয়স। ৫ বছর অতিক্রম করেছে। এখন স্কুলে যাবে। ঘর থেকে বেড়িয়েছে। এরপর অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে। ’ তিনি বলেন, ‘হাওরের দুর্যোগময় সময়ে কৃষকের দু:খ-দুর্দশনার চিত্র রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রী কাছে পৌঁছে দিয়েছে। যারা মানুষের সুখ-দু:খ, হাসি-কান্নার কথা বলে তারাই সাংবাদিক। আমি তাদের অভিনন্দন জানাই।’


তিনি বলেন, ‘আজ দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর শিক্ষা সংগ্রামীদের সম্মাননা জানিয়ে নিজেদেরকে গৌরবান্বিত করেছে। তাদের অভিনন্দন জানাই। আর্থিক সংকট অবশ্যই বড় বিষয়। তবে মানসিক ভাবেও পাশে দাঁড়াতে হবে। উৎসাহ দিতে হবে। এজন্য খবরকে এখানেই থেমে না গিয়ে সামাজিক অবক্ষয়, নৈতিক মূল্যবোধ রক্ষায় আরো স্বোচ্চার হতে হবে। স্কুল কলেজে সচেতনতামূলক বিভিন্ন প্রচারণা চালাতে পারেন। তাহলে জনগণ আরো পত্রিকার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট হবে।’
তিনি বলেন, ‘ভাষা, জাতীয় সংগীত, রণ সংগীত, স্বাধীনতা, সংবিধান জানতে চাইলে তা অর্জনের ইতিহাস আমাদেরকে জানতে হবে। কিভাবে পেলাম অর্জন করলাম আমরা এসব। আমাদের মুক্তিযুদ্ধ আর পৃথিবীর অন্যান্য দেশের স্বাধীনতা এক নয়। পৃথিবীর বেশিরভাগ দেশের স্বাধীনতা হয়েছে আলোচনার টেবিলে। আমরাই একমাত্র জাতি যারা নয় মাস যুদ্ধ করে, রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা, মানচিত্র এবং সংবিধান পেয়েছি। ’
তিনি বলেন, ‘ভাষা আন্দোলন না হলে এখানে খবরের বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠান হতো না। তাই ভাষা শহীদরা বিশ্বের সকল মাতৃভাষার প্রতি সম্মান দেখিয়েছেন। তাই ইউনেস্কো বাংলাভাষাকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা হিসেবে ঘোষণা করেছে। আমাদেরও মায়ের ভাষাকে ভালোবাসতে হবে।’
তিনি বলেন, ‘আজ আমাদের দেশে স্বাধীনতার ঘোষক নিয়ে কথা হয়। মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়। এটা জাতীয় শিষ্টাচারের লংঘন। জাতির পিতা বলেছেন, ৩০ লক্ষ লোক শহীদ হয়েছে। এটাই সত্য। এটাই ইতিহাস। ১ কোটি মানুষ শরণার্থী হয়ে ভারতে আশ্রয় নিয়েছিল। তাদের দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয়েছে। ঘাতকরা দেশের মানুষ চায়নি তারা মাটি চেয়েছে। তাই ধ্বংস যজ্ঞে মেতে উঠেছিল। আমাদের সন্দেহ প্রবণতা থেকে বেরিয়ে আসা উচিত। ’


জেলা প্রশাসকের কথার সূত্র ধরে তিনি বলেন, ‘সুনামগঞ্জ জেলার কাছে সিঙ্গাপুর কিছুই না। মালয়েশিয়া সিঙ্গাপুরকে তাদের দেশ থেকে বের করে দিয়েছিল। ৩২টি জেলে পরিবার নিয়ে গঠিত হয়েছিল সিঙ্গাপুর। এখনও মালয়েশিয়া থেকে পানি কিনে খায় তারা।
তিনি বলেন, ‘একদা যে দেশের রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশের স্থায়ীত্ব নিয়ে প্রশ্ন করেছিলেন তারা আজ বলে বাংলাদেশকে দেখে শেখ। আমি বিস্মিত! উন্নয়নের ম্যাজিক বাংলাদেশ। দেশের মানুষের শ্রমে ঘামে আমাদের দেশ গড়ে উঠেছে। প্রতিনিয়ত উন্নয়ন অগ্রগতির পথে এগিয়ে যাচ্ছে। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে।
জেলা শিল্পকলা একাডেমী প্রাঙ্গণে মহাকবি সঞ্জয়ের স্মারকস্তম্ভ নির্মাণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘মহাভারতের প্রথম অনুবাদক মহাকবি সঞ্জয়ের স্মারকস্তম্ভ নির্মাণ করার জন্য আমি আগের জেলা প্রশাসক কে বলেছিলাম। এজন্য কবিতা, নকশা ও দিয়েছিলাম। তিনি হয়তো সময় স্বল্পতার কারণে তা করতে পারেননি। তাই আপনাদের সামনে আজ জেলা প্রশাসক কে জানিয়েছি স্মারকস্তম্ভ করার জন্য। ’
তিনি সুরমার ভাঙন রোধ এবং বিকল্প বাইপাস সড়ক সম্পর্কে বলেন, ‘সুরমার ভাঙন রোধ করা না গেলে সুনামগঞ্জ আর সুনামগঞ্জ থাকবে না। জেলা প্রশাসকের বাসভবন যেমন থাকবে না তেমনি শহরে যোগাযোগের একমাত্র সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাবে। একটি রাস্তার উপরে শহর। কথায় বলে আগুনে পুড়লেও কিছু থাকে, কিন্তু ভাঙনে কিছুই থাকে না। এজন্য শহর রক্ষায় এখনই উদ্যোগী হতে হবে।’
তিনি বলেন, ‘হাওরে প্রচুর ফসল ফলবে, আমাদের এখানে রাধারমণ, আব্দুল করিম জন্ম নিবেন এই আশা করি। আর আবারও এক ¯িœগ্ধ সন্ধ্যায় আমরা একত্রিত হবো। জেলার স্বার্থে ঐক্যবব্ধ থাকবো। তাহলেই এই উৎসব সার্থক হবে।’

বিশেষ অতিথি সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেছেন, ‘আমরা মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি তাই কোন অপশক্তি আমাদেরকে দাবিয়ে রাখতে পারবে না। অগ্রগতি থামাতে পারবে না।’
তিনি বলেন, ‘দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর আজ যে শিক্ষার্থীদের সম্মাননা এবং পুরুষ্কৃত করে উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। তাদের পথ অনুসরণ করে আরো অনেকেই সুবিধাবঞ্চিত মেধাবী শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়াবেন। আমাদের আশেপাশের দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের সকলের নৈতিক দায়িত্ব। আজ দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর পথ দেখিয়ে দিল, এখন আমাদের এগিয়ে চলার পালা। তাহলে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে সমস্যা হবে না।’
তিনি বলেন, ‘প্রতিবন্ধী শিশুদের পাশে দাঁড়াতে হবে। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের অনুপ্রেরণায় আমার নির্বাচনী এলাকায় ১০টি স্কুল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছি। প্রতিবন্ধীরা যাতে নিজেদের সমাজের বোঝা না করে সেজন্য সব সময় তাদের পাশে থাকতে হবে।’
তিনি বলেন, ‘দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর দুর্নীতি, অপসংস্কৃতি এবং অসঙ্গতি কথা নির্ভীকভাবে তুলে ধরছে। জনগণের পাশে দাঁড়িয়ে, জনগণের একজন হয়ে হাওরের নানা সমস্যা তারা তুলে ধরেছেন। এজন্য প্রতিনিয়ত তাদের অনেক বাধা-বিপত্তি-হুমকী-ধামকীর মুখোমুখি হতে হচ্ছে। কিন্তু তারা সকল অপশক্তিকে জয় করেছে বস্তুনিষ্ঠতা, দুর্বার সাহস আর দৃঢ় মনেবলের মধ্যে দিয়ে। তার ফলাফল আমরা ইতোমধ্যেই পেয়েছি। দুদকের মামলায় অনেকেই এখন ঝুলছেন।’
তিনি বলেন, ‘কিছু পত্রিকা এবং অনলাইন সংবাদ মাধ্যম আছে যারা এটাকে পুঁজি করে নিজেদের স্বার্থ হাসিলের চেষ্টা করে। তারা টিকে থাকতে পারবে না। কারণ জনগণ বোকা নয়, তারা সব কিছু বোঝে।’
তিনি বলেন, ‘দিরাই-শাল্লা আসনের সংসদ সদস্য জয়া সেনগুপ্তা আমাকে ফোন করে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।’
দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের সাফল্য ও অগ্রযাত্রা কামনা করে তিনি বলেন, ‘খবর এগিয়ে যাক। মানুষ হিসেবে আমি তাদের পাশে থাকব।’
বিশেষ অতিথি সুনামগঞ্জ-মৌলভীবাজার আসনের সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. শামসুন্নাহার বেগম শাহানা রব্বানী বলেছেন, ‘সত্যনিষ্ঠ এবং বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের অনন্য দৃষ্টান্ত দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর। ধারাবাহিকতা বজায় রেখে নিরপেক্ষভাবে পত্রিকা প্রকাশ করা দুরূহ কাজ। বিশেষত: আর্থিকভাবে পিছিয়ে থাকা আমাদের জেলায়। দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর দীর্ঘ ৫ বছর ধরে নিষ্ঠার সাথে এই কাজটি করে চলেছে। আমরা বাইরে থাকলেও অনলাইনে নিয়মিত দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর পড়ি। এক নিমেষে জেলার সব খবর পেয়ে যাই।’
তিনি বলেন, ‘শিক্ষা সংগ্রামী শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করে এবং পুরুষ্কৃত করে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর উদ্ভাবনী ক্ষমতা দেখিয়েছে। তাদের দেখানো পথ ধরে সমাজের বিত্তশালীদের এগিয়ে আসতে হবে। আমাদের আশেপাশে এমন আরো অনেক শিক্ষা সংগ্রামী রয়েছে, আর্থিক কারণে যাদের প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করতে হচ্ছে। তাদের পাশে আমাদের দাঁড়াতে হবে। তাহলেই জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন সফল হবে।’

তিনি বলেন, ‘প্রত্যন্ত অঞ্চলের উন্নয়নে সাংবাদিকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। জেলার সমস্যা প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি গোচরে আনার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে সংবাদপত্র। জেলার সমস্যা, পর্যটন, সেতু, রাস্তাসহ বিভিন্ন দাবি দাওয়া প্রকাশ করে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন তারা। একই সঙ্গে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম প্রচারে অবদান রাখছেন। এজন্য উন্নয়ন এবং সামগ্রিক ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটাতে পারেন সাংবাদিকরা।’
তিনি বলেন, ‘কথায় আছে মৎস্য, পাথর, ধান সুনামগঞ্জের প্রাণ। কিন্তু আমাদের এই সম্পদই আজ বিলুপ্তির পথে। কেন আমাদের জেলায় আজ মাছের আকাল, ধান উৎপাদন হ্রাস পাচ্ছে। এর কারণ উৎঘাটন করতে হবে আপনাদের। ’
একতাই শক্তি উল্লেখ করে তিনি বলেন , ‘সাংবাকিদের মধ্যে বিভেদ চাই না। আসুন বিরোধ ভুলে একসাথে পথ চলি।’
বিশেষ অতিথি জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম বলেছেন, সরকার মানুষের কল্যাণে প্রযুক্তির উদ্ভাবন ও ব্যবহার এবং উন্নত ব্যবস্থাপনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে ‘রূপকল্প ২০২১’ ও ‘রূপকল্প ২০৪১’ বাস্তবায়নে বদ্ধপরিকর। আগামী ২০২১ সালের মধ্যে তথ্য-প্রযুক্তি সম্পন্ন মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ। সরকার স্বপ্নের দিগন্ত প্রসারিত করে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। সকলের অংশগ্রহণে সেই লক্ষ্য পূরণ সম্ভব হবে।’
তিনি বলেন, ‘জেলা পোর্টালে সরকারের সকল উন্নয়ন কার্যক্রমের বিস্তারিতভাবে দেয়া হয়। সরকার কোথায় কি উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে, কত ব্যয় হচ্ছে, সব বিস্তারিতভাবে দেয়া হচ্ছে। ফলে সকলেই উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত হতে পারছেন। দেখতে পারছেন সঠিকভাবে সরকারের কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে কি না।’
সাংবাদিকতাকে চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সংবাদপত্র যেমন কাছে টানে তেমনি দুরেও ঠেলে দেয়। তবে সেটা নির্ভর করে কে কিভাবে দেখছেন তার উপর। অনেকটা দুরবিনের মতো। জীবনের প্রথম পরীক্ষায় যদি আমি চাকরী না পেতাম তাহলে হয়তো সাংবাদিকই হতাম।’
তিনি বলেন, ‘আমরা সবাই যদি সাদা চোখে, সাদা মনে কাজ করি তাহলে জেলার উন্নয়ন কর্মকা- বেগবান হবে। আমি সুনামগঞ্জ জেলাকে সিঙ্গাপুরের মতো উন্নত দেখতে চাই। ’
তিনি বলেন, ‘দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর কৃষকের অধিকার নিয়ে কথা বলে, কথা বলে নানা সম্ভাবনা ও অসঙ্গতি নিয়ে। আমি তাদের উত্তোরোত্তর সাফল্য কামনা করি।’

দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর’র উপদেষ্টা সম্পাদক অ্যাড. স্বপন কুমার দেব বলেছেন, ‘খবর অনেক প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে আজ এ অবস্থানে এসেছে। এই অগ্রযাত্রায়, সাফল্যে পাঠক, বিজ্ঞাপনদাতা এবং শুভানুধ্যায়িদের রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ অবদান।’
তিনি বলেন, ‘আগে আমাদের বাসি খবর পড়তে হতো। কিন্তু এখন ঘুম ভেঙেই খবর হাতে পেয়ে যাই। দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর এবং বর্তমানে প্রকাশিত অনেকগুলো দৈনিক এবং সাপ্তাহিক পত্রিকা জেলার সাংবাদিকতায় বিপ্লব ঘটিয়েছে। নতুন সাংবাদিক যেমন সৃষ্টি হয়েছে, তেমনি লেখক সৃষ্টি হয়েছে। সচেতনতা সৃষ্টি, সাহিত্য, সংস্কৃতি, ক্রীড়া, বিনোদন সকল ক্ষেত্রেই সতর্ক ও সজাগ দৃষ্টি তাদের।’
পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক’র ৭ মার্চের স্মৃতিচারণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সে সময় আমি ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে উপস্থিত ছিলাম। নির্ধারিত সময়ের ঘন্টা, দেড় ঘন্টা পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বক্তব্য দিতে মঞ্চে উঠেন। সাবলিল ভাবে জনগণকে স্বাধীনতার জন্য ঘরে ঘরে দুর্গ প্রস্তুত করার জন্য বলেন।
তিনি বলেন, ‘সুনামগঞ্জের খবর সব সময় মানুষের পাশে আছে, থাকবে। সুনামগঞ্জ খবরের সাফল্য উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাক।’
দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের উপদেষ্টা সম্পাদক অ্যাড. বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু বলেছেন, ‘দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর’র বয়স ৫ বছর। শিশু বয়স অতিক্রম করছে। সামনে আরো অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে। আমরা জানি না সুনামগঞ্জের বর আপনাদের কাছে কতটুকু গ্রহণ যোগ্যতা পেয়েছে। কিন্তু এটার বিচারের ভার কিন্তু আপনাদেরই।’
তিনি বলেন, ‘পত্রিকা প্রকাশনা একটি টিম ওয়ার্ক। আমরা একটা টিম হিসেবেই কাজ করি। সংবাদ প্রকাশে সব সময় আমরা চেষ্টা করি বস্তুনিষ্ঠ এবং নিরপেক্ষ থাকার। যেদিন আমরা নিরপেক্ষতা হারাব সেদিন আমরা প্রকাশনা বন্ধ করে দেব। যারা আমাদের পাঠক তারাই বিচার করবেন। সুনামগঞ্জের খবরে উপজেলা প্রতিনিধিরা সঠিক খবর দিচ্ছেন কিনা পাঠক দেখবেন। ভুল হলে সংশোধন করে দিলে কৃতজ্ঞ থাকব। আমরা চেষ্টা করছি পত্রিকা পড়ার জন্য যাতে পাঠকরা উদগ্রিব থাকেন। আমরা চাই সব সময় পাঠকরা আমাদের সঙ্গে থাকবেন।’
তিনি বলেন, ‘আমাদের পাশে থাকার জন্য আমরা কৃতজ্ঞ আমাদের সকল পাঠক, লেখক, শুভানুধ্যায়ি সবার কাছে। তাদের একনিষ্ঠ সমর্থন ছাড়া পথ চলা সম্ভব হতো না।’

অনুষ্ঠানে আমেরিকা প্রবাসী সাংবাদিক রণেন্দ্র তালুকদার পিংকু’র সৌজন্যে বর্ষসেরা প্রতিনিধি হিসাবে পুরস্কার তুলে দেয়া জগন্নাথপুর অফিস প্রধান অমিত দেব ও আলী আহমদকে।
অনুষ্ঠানে জেলার ১০ শিক্ষার্থীকে ‘শিক্ষাসংগ্রামী সম্মাননা’ প্রদান করার আগে তাদের জীবনচিত্র সকলকে জানানা দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের সম্পাদক পঙ্কজ কান্তি দে। এরপর তাদের হাতে সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়। শিক্ষাসংগ্রামী সম্মাননা যাদের দেওয়া হয়, তারা হলেন- ধর্মপাশার সেলবরস ইউনিয়নের কামিয়াম গ্রামের সায়মা জাহান ফনি, দক্ষিণ সুনামগঞ্জের উজানীগাঁও গ্রামের মাহবুব আলম, দিরাই পৌর এলাকার শুকুরনগর গ্রামের পিনু বৈষ্ণব,
ও সরমঙ্গল ইউনিয়নের মাহতাবপুর গ্রামের অমিত দাস, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার বিশ্বম্ভরপুর গ্রামের নূর মোহাম্মদ, দোয়ারাবাজার সদর ইউনিয়নের মংলারগাঁও গ্রামের ঝলক দাস, জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের কলকলিয়া এলাকার প্রণব দাস, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার পৈন্দা গ্রামের কবির হোসেন, হাছনবাহার গ্রামের কামরান আহমদ এবং সুনামগঞ্জ পৌরসভার নবীনগর এলাকার অনীক পাল। তাদের হাতে সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন নগদ ৫ হাজার ও তরুণ শিল্পপতি শ্যামল রায়, ব্যবসায়ী চন্দ রায় ও প্রকৌশলী সিদ্দিকুর রহমান নগদ ১০০০ টাকা করে দেন। এছাড়া ছাতক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে ১০ শিক্ষার্থীর হাতে দুটি বাংলা ও ইংরেজী ডিকশনারী তুলে দেন এবং উন্নয়ন সংগঠন পদক্ষেপের সৌজন্যে সকল শিক্ষার্থীকে ১টি করে ছাতা তুলে দেয়া হয়। দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের সহকারী সম্পাদক অ্যাড. মাহবুবুল হাছান শাহীন একটি করে ক্রেস্ট প্রদান করেন।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন দৈনিক সুনামগঞ্জের সহকারী সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম ও বার্তা সম্পাদক বিন্দু তালুকদার।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24