বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরসহ সুনামগঞ্জ জেলার সবকটি উপজেলায় আওয়ামীলীগের সন্মেলনের উদ্যাগ নবীগঞ্জে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন ২০০০ উইরো ফেরত দিয়ে প্রশংসিত বাংলাদেশি তরুণ জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে পরিবহন ধর্মঘট চলছে জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

মৌলভীবাজারে জোড়া খুনের ঘটনায় মামলা, গ্রেফতার ৩

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৬১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::ছাত্রলীগের দুই কর্মী খুনের ঘটনায় মামলা করা হয়েছে। গতকাল সকালে নিহত ছাত্রলীগ নেতা মোহাম্মদ আলী শাবাবের মা সেলিনা রহমান চৌধুরী বাদী হয়ে এই মামলা করেছেন। মামলায় ছাত্রলীগ নেতা আনিসুল ইসলাম তুষারকে প্রধান আসামি করে ১২ জনের নাম উল্লেখসহ আরো ৬-৭ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। এদিকে মামলার এজাহারভুক্ত ৩ জন আসামিকে আটক করেছে পুলিশ। এজাহারভুক্ত অন্যান্য আসামিদের ধরতেও অভিযান অব্যাহত রেখেছে পুলিশ। এদিকে আটককৃত রুবেল, কনক ও জামিলের ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন বিজ্ঞ আদালত। পুলিশ, সহকর্মী, সহপাঠী ও স্বজন সূত্রে জানা যায় গত সোম অথবা মঙ্গলবারের দিকে কোনো এক সময় মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রাবাসের পাশে একই স্কুলের ৯ম শ্রেণির একজন শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতা তুষার গ্রুপের অনুসারী একজন কর্মীর সঙ্গে দ্বন্দ্ব হয় ছাত্রলীগ নেতা শাবাব গ্রুপের অনুসারী এক কর্মীর। এনিয়ে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে ধস্তাধস্তিতে তুষার গ্রুপের ওই কর্মী হাতে আঘাত পায়। এবিষয়টি সমাধানের জন্য বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে তুষার নিহত নাহিদ আহমদ মাহিকে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ছাত্রাবাস এলাকায় ডেকে নিয়ে যায়। একপর্যায়ে মাহির মাধ্যমে ফোনে বিচার সালিশের জন্য নিহত ছাত্রলীগ নেতা শাবাবকে ওখানে আসতে বলা হয়। খবর পেয়ে শাবাব নিজ বাসা থেকে মোটরসাইকেল যোগে ছাত্রাবাস এলাকায় পৌঁছান। সেখানে পৌঁছার পর তুষার গ্রুপের সঙ্গে শাবাবের কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তুষার গ্রুপের কর্মীরা চড়াও হয়ে শাবাব ও মাহিকে মাঠের পশ্চিম প্রান্তের নির্জন স্থানে নিয়ে প্রহার ও ছুরিকাঘাত করে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের বলে নিশ্চিত করেন। উল্লেখ্য, মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের অনুসারীদের মধ্যে সিনিয়র জুনিয়র নিয়ে বয়ে চলা দ্বন্দ্ব প্রায় মাস দিন আগে সমাধান করে দেন ছাত্রলীগ নেতা নিহত শাবাব। এটা তুষার গ্রুপের পছন্দ না হওয়ায় এবং বছর দিন আগে থেকে তুষার ও শাবাবের মধ্যে বয়ে চলা অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের ক্ষোভে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ছাত্রলীগ নেতা তুষার ও নিহত শাবাব দুজনই ছাত্রলীগের একই গ্রুপের অনুসারী। ছাত্রলীগ নেতাকর্মী নিয়ে তুষার ও শাবাবের রয়েছে আলাদা গ্রুপ। তারা নিজেরাই ওই উপগ্রুপের প্রধান ও তাদের অধীনস্থ নেতাকর্মীদের দেখভাল করতো। এই ঘটনায় নিহত ছাত্রলীগ নেতা শাবাবের মা সেলিনা রহমান চৌধুরীর দায়ের করা হত্যা মামলার আসামিরা হলেন শহরের বড়হাট এলাকার মৃত আতিকুল ইসলাম চৌধুরীর ছেলে আনিসুল ইসলাম তুষার (২৭), শমসের নগর রোডের বাদশা মিয়ার ছেলে আরাফাত রহমান (২০), পশ্চিম ধরকাপন এলাকার সৈয়দ বুলু মিয়ার ছেলে সৈয়দ সৌমিক (২২), রাজনগর উপজেলার চকিরাই গ্রামের সিরাজুল ইসলাম মুক্তির ছেলে আশফাকুল ইসলাম মাহদী (২০), মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রাবাসের শিক্ষার্থী জামিল (১৮), সদর উপজেলার পাগুলিয়া এলাকার আবদুল মুকিতের ছেলে সনি হায়দার (২০), বেরিচর পশ্চিম বাজার এলাকার ফখরুল ইসলামের ছেলে রুবেল মিয়া (২৮), সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রাবাসের শিক্ষার্থী কনক মিয়া (১৮), শহরের মাতার কাপন এলাকার সৈয়দ আবু জাফরের ছেলে প্রতীক হাসান (২০), সদর উপজেলার মোকাম বাজার এলাকার হৃদয় আহমদ (২১), রাজনগরের মহলাল এলাকার আয়ুব হাসানের ছেলে তামিম হাসান (২০), শহরের কোর্ট এলাকার ফাহিম মুনতাসির (২০)সহ আরো ৬-৭ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে। এদিকে শাবাব ও মাহির খুনের সঙ্গে জড়িত থাকা সন্দেহে গতকাল ভোরে মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র কনক ও জামিলকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর আগে শুক্রবার ভোরে রুবেলকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ নিয়ে জোড়া খুনের ঘটনায় ৩ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ১০ই ডিসেম্বর ভোর রাতে অভিযান চালিয়ে কুলাউড়া উপজেলার পাবই এলাকায় নিজ বাড়ি থেকে কৌশিক দাশের পুত্র কনককে গ্রেপ্তার করা হয়। অপর দিকে সদর উপজেলার ফতেহপুর এলাকার নিজ বাড়ি থেকে আনসার মিয়ার পুত্র আল জামিলকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরা উভয়ই মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ও স্কুলের আবাসিক হোস্টেলে থাকতো। ঘটনার পরপর হোস্টেল থেকে তারা চলে যায়। মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সোহেল আহাম্মদ জানান, নিহত শাবাবের মা সেলিনা রহমান চৌধুরী বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখসহ আরো অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন। গ্রেপ্তারকৃত রুবেল কনক ও জামিল এজাহারভুক্ত আসামি। গত ৮ই ডিসেম্বর ভোর রাতে শহরের বেরীরচর এলাকার ফকরুল ইসলামের পুত্র রুবেলকে রাজনগর থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24