শনিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২০, ১০:১০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ইউনিয়ন আ,লীগের সম্মেলন সফল করার লক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ডাক্তার-নার্সের অবহেলায় শিশুর মৃত্যুের অভিযোগে তদন্ত কমিটি গঠন মুঠোফোনে প্রেমের ফাঁদে ফেলে কিশোরগঞ্জের তরুণী কে জগন্নাথপুর এনে ধর্ষণ নান্দনিক আয়োজনে ঐতিহ্যবাহি মিরপুরের উচ্চ বিদ্যালয়ে সাবেক শিক্ষার্থীদের মিলনমেলায় বাঁধাভাঙা উচ্ছ্বাস জগন্নাথপুরে জুয়াড়িসহ গ্রেফতার-১৩ কুকুরের সঙ্গে সেলফি, অতঃপর মুখে ৪০ সেলাই পৌর মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহে হিন্দু কমিউনিটি নেতাদের শ্রদ্ধা নিবেদন চিরনিদ্রায় নিজের তৈরী কবরে শায়িত জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় জগন্নাথপুর পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আব্দুল মনাফকে শেষ বিদায়,জানাজায় শোকার্ত মানুষের ঢল পৌর মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহে পরিকল্পনা মন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন

রাবেয়া বসরি (রহ.) এর আল্লাহভীতি

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৮ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৫৪ Time View

জাকারিয়া হারুন : মহিয়সী বিদুষী নারী রাবেয়া বসরি (রহ.)। তিনি যেহেতু বাবার চার মেয়ের মধ্যে চতুর্থ ছিলেন, তাই তাঁকে রাবেয়া বলা হয়। ইরাকের বসরা নগরীর অধিবাসী হওয়ায় তাকে বসরি বলা হয়। হজরত রাবেয়া বসরি (রহ.) এর জন্ম হয় ৯৫ হিজরি সনে, মতান্তরে ৯৯ হিজরিতে; ৭১৭ খ্রিস্টাব্দের কাছাকাছি সময়। তাঁর জীবনের অনন্য এক ঘটনা নিচে তুলে ধরা হলো

হজরত হাসান বসরি (রহ.) রাবেয়াকে বিয়ের প্রস্তাব দিলে তিনি জবাবে বললেন, বিয়ে করতে আমি রাজি আছি, যদি আপনি আমার ৪টি প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেন, প্রশ্নগুলো হচ্ছেÑ

১. আমি মৃত্যুবরণ করলে জগতের বিচারক আমার ব্যাপারে কী ফায়সালা দেবেনÑ আমি একজন মুসলিম রূপে হাজির হতে পারলাম না কাফেররূপে?

২. যখন আমাকে কবরে শায়িত করা হবে, তখন আমি মুনকার-নকির ফেরেশতাদ্বয়ের প্রশ্নের সন্তোষজনক জবাব দিতে পারব কিনা?

৩. পুনরুত্থানে কি আমার আমলনামা ডানহাতে পাব?

৪. শেষ বিচারে যখন একদলকে জান্নাতে, আরেক দলকে জাহান্নামে যাওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত শোনানো হবে, আমি কি তখন জান্নাতের দলে অন্তর্ভুক্ত হব?

মহিয়সী নারীর এসব প্রশ্নের উত্তরে হজরত হাসান বসরি (রহ.) বলেন এ প্রশ্নের উত্তর মহান সত্তাই একমাত্র বলতে পারেন! হজরত রাবেয়া বললেন, আমার এসবের কোনো সমাধান যেখানে আমি পাইনি, সেখানে বিয়ে-শাদির মতো জাগতিক আরাম-আনন্দে আমি কীভাবে লিপ্ত হই! একই ভাবে তাঁকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন শায়খ আবদুল ওয়াহেদ (রহ.), মুহাম্মদ ইবনে সুলাইমান আল হাশেমি যিনি বসরার গভর্নর ছিলেন। তিনি এসব প্রস্তাব বিভিন্ন হেকমত ও উপদেশসহ প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। তাঁর সারসংক্ষেপ বক্তব্য ছিলÑ আমি যেখানে আমার মনপ্রাণ, প্রেম-ভালোবাসা কেবল একজনের জন্য (আল্লাহ) দিয়ে ফেলেছি, সেখানে অন্যকে শরিক করি কীভাবে?
মৃত্যুর পূর্ব মুহূর্তে তপসী রাবেয়া বসরী (রহ.) তাঁর আত্মীয়স্বজন, প্রতিবেশী ও খাদেমারা শিয়রে বসা ছিলেন। তাদেরকে একটু বাইরে যেতে বলে নিজে কালিমা উচ্চারণ করলেন এবং সূরা আল ফাজরের শেষ আয়াতটি পড়লেন! পরে কক্ষে ঢুকে দেখা গেল, তিনি শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেছেন। হজরত রাবেয়া বসরি (রহ.) ১৮৫ হিজরি মোতাবেক ৮০১ খ্রিস্টাব্দে ইহকাল ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে মহয়সী এ নারীর বয়স হয়েছিল প্রায় ৯০ বছর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24