সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

লক্ষী পূর্নিমা উপলক্ষে জগন্নাথপুরের ঘরে ঘরে লক্ষী পূজা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর, ২০১৫
  • ২০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: সনাতন ধর্মালম্বীদের অন্যতম পূজা লক্ষী পূজা আজ জগন্নাথপুর উপজেলার সনাতন ধর্মালম্বসহ দেশের সকল হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরে ঘরে পালিত হচ্ছে। ধন সম্পদ তথা ঐশ্বর্য ও সম্পদের প্রতীক মা লক্ষ্মীর আরাধনায় মেতেছেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। বিভিন্ন মন্ডপ ও মন্দিরের পাশাপাশি প্রতিটি বাঙালি হিন্দুদের ঘরে ঘরে পূজিত হয়েছেন দেবী লক্ষ্মী। হিন্দু ধর্মালম্বীরা বিশ্বাস করেন দেবী লক্ষী ধরনীতে আসেন ধন সম্পদে পূর্ণবান হয়ে। অন্নপূর্ণার আলতা রাঙা পায়ের চিহ্ন আঁকা হবে ঘরে ঘরে। ধন-সম্পদের আশায় হিন্দু নারী ও পুরুষেরা উপবাস ব্রত পালন করেন। ফুল ফল মিষ্টি নৈবেদ্য দিয়ে আরাধনা করেন লক্ষ্মী মায়ের। দেন পুস্পাঞ্জলী।
লক্ষ্মী হিন্দুদের ধনসম্পদ, আধ্যাত্মিক ও পার্থিব উন্নতি, আলো, জ্ঞান, সৌভাগ্য, উর্বরতা, দানশীলতা, সাহস ও সৌন্দয্যের দেবী। শারদীয় দুর্গোৎসব শেষে প্রথম পূর্ণিমা তিথিতে সনাতন ধর্মবলম্বীরা ধন সম্পদের দেবী মা লক্ষীর কৃপালাভের লাভের আশায় এ পূজা করেন। শাস্ত্রীয় বিধান অনুসারে ফুল-জল-বিল্বপত্র সহকারে ব্রাক্ষণ পুরোহিত মন্ত্র উচ্চারণের মাধ্যমে পূজা সম্পন্ন করেন। আবার অনেক গৃহিনী লক্ষীর পাচালী পড়েও পূজা দেন। সমৃদ্ধির দেবী লক্ষীর আরাধনায় মূল পূজারী নারীরা। পূজা অর্চনার পাশাপাশি ঘরবাড়ির আঙিনায় আকা হয় লক্ষীদেবীর পায়ের ছাপসহ বিভিন্ন আলপনাও। সেই সঙ্গে সন্ধ্যায় ঘরে ঘরে প্রজ্বলিত হয় প্রদীপ।
গৃহস্থের সাধ ও সাধ্যের মেলবন্ধন ঘটিয়ে মা লক্ষীকে সন্তুষ্ট করার প্রয়াস যেমন থাকে তেমনি বিভিন্ন মন্দির এবং মন্ডপেও আয়োজন করা হয় লক্ষীপূজার। মা আসবেন ধরনীতে ধন সম্পদে পূর্ণবান হয়ে। অন্নপূর্ণার আলতা রাঙা পায়ের চিহ্ন আঁকা হবে ঘরে ঘরে। ধন-সম্পদের আশায় হিন্দু নারী ও পুরুষেরা উপবাস ব্রত পালন করেন। ফুল ফল মিষ্টি নৈবেদ্য দিয়ে আরাধনা করবেন লক্ষ্মী মায়ের। দেন পুস্পাঞ্জলী।

লক্ষ্মী হিন্দুদের ধনসম্পদ, আধ্যাত্মিক ও পার্থিব উন্নতি, আলো, জ্ঞান, সৌভাগ্য, উর্বরতা, দানশীলতা, সাহস ও সৌন্দয্যের দেবী। বাঙালি হিন্দুদের বিশ্বাসে লক্ষ্মীদেবী দ্বিভূজা। তার বাহন হচ্ছে পেঁচা। অবশ্য বাংলার বাইরে লক্ষ্মীর চতুর্ভূজা কমলে-কামিনী মূর্তিই দেখা যায়। শারদীয় দুর্গোৎসব শেষে প্রথম পূর্ণিমা তিথিতে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা লক্ষ্মীপূজা করে থাকেন। বাংলাদেশে চান্দ্র আশ্বিন মাসের পূর্ণিমা তিথিতে অর্থাৎ কোজাগরী পূর্ণিমায় দেবী লক্ষ্মীর আরাধনা করা হয়ে থাকে। এছাড়া প্রতি বৃহস্পতিবার সধবা স্ত্রীগণ লক্ষ্মীর পূজা করে থাকেন। লক্ষী পূর্নমিা হিসেবে হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরে ঘরে চলছে আজ উৎসবের আমেজ। সকাল থেকে নানা আলপনার মাধ্যমে লক্ষীদেবীকে বরণ করার উৎসব মেতে উঠেনে গৃহিনীরা। প্রসাদ বিতরণ সহ রয়েছে নানা আয়োজন। জগন্নাথপুরের পুরোহিত মৃদুল চৌধুরী জানান,লক্ষীপূজার জন্য পুরোহিতরা খুব ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। সকাল থেকে প্রতি ঘরে ঘরে গিয়ে এ পূজা অর্চনা করছেন। ব্রাক্ষন সম্প্রদায়ের পুরোহিতরা এ পূজা করে থাকেন। এবং প্রতিটি হিন্দু ঘরেই লক্ষীদেবীর পূজা হয়ে থাকে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24