শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:১০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১ জেলা আ.লীগের গণমিছিল ৫ বছরেও শেষ হয়নি জগন্নাথপুরের ভবেরবাজার-গোয়ালাবাজার সড়কের কাজ,দুর্ভোগ লাখো মানুষের “জুম্মু কাশ্মীরে,গণতহ্যা শুরু করেছে মোদী সরকার”

‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখরিত আরাফাত ময়দান

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৪২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখরিত ঐতিহাসিক আরাফাতের ময়দান। নিজেকে আল্লাহ্‌র কাছে সমর্পণ করে দিয়ে সমস্বরে তারা উচ্চারণ করলেন- ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লা শরিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হামদা, ওয়ান নিয়ামাতা, লাকা ওয়াল মুল্‌ক, লা শরিকা লাকা।’ অর্থাৎ- হাজির হে আল্লাহ হাজির, আপনার মহান দরবারে হাজির। আপনার কোনো শরিক নেই। সব প্রশংসা, নিয়ামত এবং সব রাজত্ব আপনারই। এই ধ্বনিতে প্রকম্পিত হলো আরাফাতের ময়দান। এই সেই ঐতিহাসিক স্থান যেখানে দাঁড়িয়ে প্রায় ১৪০০ বছর আগে সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হযরত মুহাম্মদ (স.) তার বিদায় হজের ভাষণ দিয়েছিলেন। এ সময় তিনি বিশ্ববাসীর জন্য রেখে যান দিকনির্দেশনা। আর তারই মধ্য দিয়ে পূর্ণতা পায় ইসলামের। এই আরাফাতের ময়দানেই রয়েছে ঐতিহাসিক জাবাল আল রাহমা বা মাউন্ট অব মার্সি হিসেবে পরিচিত পাহাড়। গতকাল সারাদিন সেখানে আল্লাহর কাছে পানাহ বা গুনাহ থেকে মাফ চেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন হজযাত্রীরা। করুণার পাহাড় বা জাবাল আল রাহমায় গতকাল সকাল থেকেই আরোহণ করতে থাকেন তারা। সেখানে পবিত্র কোরআন তেলাওতে মশগুল হয়ে পড়েন অনেকে। প্রখর রোদ উপেক্ষা করে তারা পাহাড়ের পাথরের ওপর দাঁড়িয়ে, বসে প্রার্থনায় অংশ নেন। এ সময় তাদের শরীর বেয়ে ঘাম ঝরতে দেখা যায়। তাদের স্বস্তি দেয়ার জন্য ছড়িয়ে দেয়া হয় পানি। আকাশ থেকে নিরাপত্তায় নজরদারি করা হয় হেলিকপ্টারে। সেলাইবিহীন সাদা দু’টুকরো কাপড়ে শরীর ঢেকে হাজির হন তারা। ফলে পুরো আরাফাতের ময়দান যেন এক সফেদ সমুদ্রে পরিণত হয়। গতকাল ফজরের নামাজ আদায় করে মিনা থেকে ১০ কিলোমিটার বা ৬ মাইল দক্ষিণ-পূর্বে আরাফাতের ময়দানের উদ্দেশে যাত্রা করেন হজ করতে যাওয়া লোকজন। আরাফাতের ময়দানে গতকাল সূর্যাস্ত পর্যন্ত অবস্থান করেন তারা। এর মধ্যে যোহর ও আছর দু’ওয়াক্তের নামাজ আদায় করেন একসঙ্গে। তার আগে আরাফাতের ময়দানে অবস্থিত মসজিদে নামিরায় খুৎবা দেন মুফতি শেখ সা’দ বিন নাসির। এ সময় তিনি মুসলিম উম্মার প্রতি বিভিন্ন দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন। মহানবী (স.)-এর বিদায় হজের ভাষণের আলোকে মুসলিম জাহানের প্রতিটি মানুষের জন্য তিনি আহ্বান জানান সত্যের পথে, ন্যায়ের পথে থাকার জন্য। আরাফাতের ময়দানে সমবেত হওয়া ও সেখানকার ধর্মীয় রীতিনীতি পালন করাকেই হজের প্রধান অংশ বলা হয়। তাই এ দিনকে হজের দিন বলা হয়। আরাফাতের ময়দানে সমবেত হওয়ার আগে তারা পবিত্র শহর মক্কা থেকে তাঁবুর শহর মিনায় গিয়ে হাজির হতে থাকেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর থেকে তারা মিনায় সমবেত হওয়া শুরু করেন। অনেকে যোগ দেন বুধবার। এর মধ্য দিয়ে শুরু হয় পবিত্র হজের ৫ দিনের আনুষ্ঠানিকতা। মিনায় বুধবার পুরো রাত অবস্থান করেন তারা। সেখানে বাধ্যতামূলক ৫ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করেন। এরপর গতকাল ফজরের নামাজের পর তারা ছুটতে শুরু করেন আরাফাতের ময়দানের দিকে। কেউ পায়ে হেঁটে, হুইল চেয়ারে, বাসে করে, যে যেভাবে পারেন সেভাবেই ছোটেন আরাফাতের ময়দানে। মাগরিবের নামাজ আদায় না করেই হজযাত্রীরা রওনা দেন মুজদালিফার দিকে। মুজদালিফায় গিয়ে একসঙ্গে মাগরিব ও এশার নামাজ আদায় করেন হাজীরা। সেখানেই রাত্রিযাপন করেন খোলা আকাশের নিচে। গতকাল স্থানীয় সময় সকালে কা’বা শরীফে পরানো হয় গিলাফ বা কিসওয়া। প্রতি বছর ৯ই জিলহজ পবিত্র হজের দিন এই গিলাফ পরানো হয়। এ দিনে মসজিদে হারামে মুসল্লির সংখ্যা কম থাকে। কারণ, হাজীসহ বেশির ভাগ মুসল্লি এদিন থাকেন আরাফাতের ময়দানে। কেউবা হজযাত্রীদের সেবায় থাকেন পথে। তাই এ দিনকে গিলাফ পরানোর দিন হিসেবে বেছে নেয়া হয়। হজযাত্রীরা আরাফাতের ময়দান থেকে ফিরে দেখতে পান মসজিদুল হারামের গায়ে নতুন গিলাফ। এ সময় মসজিদুল হারামের চারপাশে অনুচ্চ, অস্থায়ী একটি বেষ্টনি তৈরি করে নেয়া হয়। নতুন গিলাফ পরিয়ে পুরনোটি নামিয়ে ফেলা হয়। পরে তা কেটে মুসলিম দেশের সরকারপ্রধানদের উপহার দেয়া হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24